শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » শাহীনূর পাশা চৌধুরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন প্রসঙ্গে কিছু কথা

শাহীনূর পাশা চৌধুরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন প্রসঙ্গে কিছু কথা

রেজওয়ান আহমেদ :  জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর যুগ্মমহাসচিব, জামিয়া দারুল কোরআন সিলেট এর প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল, মাসিক তৌহিদী পরিক্রমা সম্পাদক এবং সুনামগঞ্জ- ৩ আসনের সাবেক সংসদসদস্য এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী
সম্প্রতি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় হিন্দুসম্প্রদায়ের সাথে মতবিনিময় করেছেন। একজন সাবেক জনপ্রতিনিনিধি হিসেবে তাদের খোজঁ খবর নেওয়ার জন্যই তিনি তাদের পুজামন্ডপের নিকট গিয়েছেন। তাদের ধর্ম কর্ম পালনে সামাজিক কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতা আছে কী না এসব নিয়ে কথা বলেছেন । নিজ নির্বাচনী এলাকায় সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি যাতে বজায় থাকে সেজন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান। কারণ ইত:মধ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকায় কতিপয় দুষ্কৃতিকারী হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির থেকে প্রতিমা চুরি করে নিয়ে যায় অথবা তাদের পুজামন্ডপে হামলা চালিয়ে ২০ দলীয় জোটের নেতা কর্মীদের ওপর দোষচাপিয়েেদেয়া হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় ইসলামী সংগঠন ও আলেম উলামাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।  এসব বিষয় বিবেচনায় রেখেই শাহীনুর পাশা হিন্দু সম্প্রদায়ের নাগরিক অধিকারে যাতে করে কোন প্রকার সম্যসা না হয়,সামাজিক সম্প্রীতি হুমকির মুখে না পড়ে সে জন্যই তিনি তাদের খোজ খবর নিয়েছেন। এসময় হিন্দুসম্প্রদায়ের কয়েকজন যুবক তাদের এলাকার সাবেক এই জনপ্রতিনিধির সাথে ফটো সেশনের আব্দার জানালে তিনি ফটো তুলেন।
কিন্তু এই বিষয়টিনিয়ে সামাজিক সাইট ফেসবুকে নানাজনে নানা ভাবে মতামতব্যক্ত করেছেন। কিছু কিছু ভাই এমন ও মন্তব্য করেছেন যারা শাহীনুর পাশা চৌধুরীকে আক্রমনাত্মক কথা বার্তা বলেছেন যা সত্যিই দু:খ জনক।
অনেকের অনেক মন্তব্য, আকাবীরের উত্তরসূরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন নিয়ে,কিন্তু সেই পরিদর্শনে উদ্দেশ্য কি ছিল, তা জানার প্রয়োজন মনেকরেন নি কেউ,
সবাই শুধু কমেন্টেই লিপ্ত। আমার ফেস বুকের মেসেজ বক্স ও ফোনের সমাহারে অতিষ্ঠ হয়ে মূল কারন উপস্থাপনে বাধ্য হলাম।
একথা সত্য যে, সাবেক সাংসদ মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী সুনামগঞ্জ-৩ আসনের আগামী দিনের কান্ডারী,জনগনের নিকট এক অপ্রতিদ্বন্দিজননেতা। আগেই বলেছি,
তিনি জমিয়তের যুগ্ন-মহাসচিব,
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতা,
কোটি মানুষের প্রিয় নেতা। জামিয়া দারুল কুরআন সিলেটের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপ্যাল, ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক একাডেমীর প্রধান পরিচালক ও অধ্যক্ষ ,
সিলেট দরগাহ মাদরাসা থেকে ১৯৮৫ ইংরেজিতে মেধা কালিকায় উত্তীর্ণ হন।
যার নিকটতম সাথীরা বিভিন্ন মাদরাসার শায়খুল হাদীস।
এমন একজন ব্যক্তির পূজা মন্ডপে যাওয়া অসমীচীন নয় ,
কিন্তি কেন গেলেন?
এমন প্রশ্নের উত্তর,,,,
শাহীনূর পাশা চৌধুরীর সব গুনের মধ্য অন্যতম একটি গুন হল,
তিনি সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সাংসদ।
উক্ত আসনের প্রতিনিধি হিনেবে অনেক দায়িত্ব রয়েছে,
বাংলাদেশের জনগন শুধু মুসলিম নয়,
কিছু হিন্দুও বটে।
সেজন্য কিছু রাজনৈতিক কৌশল অবলম্বন করে চলতে হচ্ছে উনাকে,,,
এদিকে বিনা দোষে প্রায় ১৭ মামলার আসামি তিনি,
তার মধ্য হেফাজতের কোরআন পুরানোর মামলা অন্যতম,
কোরআন পুরানোর মামলায়
যাদের আসামী করা হয়েছে
তার মধ্য ৩ নম্বর আসামী তিনি।
সিলেট বিভাগে প্রথম।
অথচ আলেমরা কুরআন পুড়াবেন এটা শয়তান ও বিশ্বাস করবে না।
তবে ডিজিটাল বাংলাদেশে অসম্ভব বলতে কিছুই নেই।
এছাড়া আরো ১৬ টি মামলার আসামিতে ভুগছেন তিনি,,,
যেদিন পূজামন্ডপে যান ঐদিনকার একটি জাতীয় ও স্তানীয় পত্রিকায় এবং টিভি চেনেলগুলোতে নিউজ ছিল,
দেশের বিভিন্ন পূজামন্ডপে হামলা ও মূর্তি ভাংচুর হয়েছে,
মামলার আসামী করা হয়েছে স্তানীয় ২০দলীয় জোটের এম.পি দেরকে।
সুনামগঞ্জ-৩ আসনের মাটি ও মানুষ শাহীনূর পাশার ভক্ত।
সুষ্ট নির্বাচন হলে ৯৯%বিজয়ী হবেন। তাই,
নির্বাচর থেকে তাকে দূরে রাখার জন্য চক্রান্ত হতে পারে।
উনার আসনের পূজামন্ডপে হামলা চালিয়ে উরাকে আসামী করতে পারে,
হয়রানী করা হতে পারে হেফাজত ও জমিয়ত নেতৃবৃন্দকে।
তাই তিনি কিছু সংখ্যক পূজামন্ডপ পরিদর্শনের মাধ্যমে আলেম উলামা ও মুসাল্লিয়ানে কেরামকে এবং
হিন্দু সমাজকে আস্বস্ত করা ছিল তার মূল উদ্দেশ্য।
পূজা মন্ডপে যাওয়া ও পূজাপ্রীতি যদি থাকতো -তাহলে ৩০ বছর থেকে যে নেতা সিলেটে বাসা বাড়ী করে আছেন – সিলেট শহরে যার রাজনৈতিক পদচারনা প্রশংসনীয়।
সেই সিলেট শহরে শতাধিক পূজা মন্ডপ থাকার পরও কোনদিন কোন পূজা মন্ডপে গিয়েছেন এমন প্রমান কেউ দেখাতে পারবেনা।
আর তিনি সিলেটের বসবাস করেন ,
সুনামগঞ্জের পূজা মন্ডপে কেন গেলেন?
আচ্ছা বলুন তো?
সরকার যদি কোনো মুসলমান এম.পি বা মন্ত্রীকে ৫ টি মসজিদ নির্মান ও ২ মন্দীর নির্মানে অনুদান দেয়,
তাহলে তিনি কী শুধু মসজিদ নির্মান করবেন ?
না উবয়টা?
একজন সাধারণ মুসলমানও যদি কোনো একটি কারনে পূজা মন্ডপে যায়,
সে কি হিন্দুদের সাথে পূজা করবে?
নিশ্চই না।
শাহীনূর পাশা হলেন একজন আলেম,
একটি টাইটেল মাদরাসার প্রিন্সিপ্যাল ও বটে,
যেখানে ৪০ জনের মত বড় বড় আলেম ও মুফতি রয়েছেন।
কোন একটি কারনে (রাজনৈতিক নেতা হিসেবে) তাকে পূজা মন্ডপে যেতে হয়েছে,
তাই বলে কি তিনি পূজা করলেন?
এমন জঘন্য ধারনায় শাহীনূর পাশা চৌধুরী তথা উলামায়ে কেরামকে জাতির কাছে অপমানিত করার শামিল। আশাকরি কোন বিবেকবান মানুষই একথা বলবেননা যে তিনি পুজার জন্য মন্ডপে গেছেন। সম্প্রতি আল্লামা সায়্যিদ মাহমুদ মাদানীকে আমরা দেখেছি ইুন্ডয়ার  হিন্দু নেতার সাথে একই সাথে হাত উত্তোলন করে সামাজিক সম্প্রীতি রক্ষার শপথ নিয়েছেন। তবে কি এর অর্থ এই যে, তিনি হিন্দুদের হযয়গেছেন? অবশ্যই না।  ঐতিহাসিক কারণে অনেক হেকমত অবলম্বন করেছেন আমাদের আকাবিরগন। আশাকরি বিষয়টি সকলের বুঝে এসেছে। আশাকরি এবিষয়ে ভুল বুঝাবুঝির অবসান হবে।
তাই
আসুন একজন ভাইয়ের দোষ ঢেকে রাখার চেষ্টা করি। প্রতিহিংসাপরায়ন না হয়ে গঠন মুলক আলোচনা করি।
আল্লাহ তা’আলা আমাদের সবাইকে দ্বীনের সঠিক বুঝদান করুন। আমীন।

মাওলানা রেজওয়ান আহমেদ।
ফাজিল জামিয়া দারুল কুরআন সিলেট।
শিক্ষক,ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক একাডেমী উপশহর সিলেট।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now