শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » তোমার কীর্তির চেয়ে তুমি যে মহৎ

তোমার কীর্তির চেয়ে তুমি যে মহৎ

Akobor-Ali_komashisha-248x300মাওলানা জুনাইদ কিয়ামপুরী: আমি দেখেছি তোমায় পাহাড়ের অটলতায় ঝরনার প্রবহমানতায়
আকাশের উদারতায় সমুদ্রের গভীরতায়; সত্য সুন্দরের নিমগ্নতায়- তুমি তো তোমার মতোই দার্ঢ্য।
সত্যমঃ শিবমঃ সুন্দরতম এর ওগো মহান ওলী,
মিলিয়নে মিলায় এক ইমাম আকবর আলী”।
২০০৫ সালের এই দিনে গোটা সিলেটবাসিকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে মাওলার সান্যিধ্যে চলে গেলেন যুগশ্রেষ্ঠ আধ্যাত্মিক পুরোধা, এখলাস ও লিল্লাহিয়াতের প্রবাদপুরুষ আরিফ বিল্লাহ ইমাম আকবর আলী রহ্ִ কেমন ছিলেন ইমাম আকবর আলী? তা এককথায় বলা অসম্ভব।
তুমি হয়তো মাটির মানুষের গল্প শোনেছ, কিন্তু ইমাম আকবর আলী রাহিমাহুল্লাহকে দেখ নাই, যদি দেখতে তবে সহজেই চিনে নিতে মাটির মানুষ কাকে বলে। তুমি হয়তো আকাশের বজ্রনিনাদ শোনেছ, সমুদ্রগর্ভ থেকে ফুঁসে ওঠা তরঙ্গের শাঁ শাঁ গর্জন শোনেছ, কিন্তু আমাদের এই রাহবরকে দেখনাই, দেখলে বুঝে নিতে বাতিলের বুকে আকবরী গর্জন কেমন প্রলয়ঝড় সৃষ্টি করে। তুমি হয়তো মায়ের কোলে সমর্পিত ছোট্র শিশুর ঠোটভাঙা ক্রন্দনদৃশ্য দেখেছ, কিন্তু আমার এই উস্তাদের নামাজরত ক্রন্দন দেখ নাই, তাঁর শরীরের ভেতর আল্লাহু আল্লাহু শব্দের কীর্তন শোননাই, যদি শোনতে,তবে আঁচ করে নিতে মাবুদের কাছে বান্দার সম্পর্পিত হওয়ার আকুলভরা অস্ফুট কান্নার দৃশ্য হৃদয়ে কেমন উত্তাপ সৃষ্টি করে।তিনি আজ দুরে , বহু দুরে!
এখন তাঁর কবর জান্নাতের শ্যামল উদ্যান।যদিও আর ফিরে আসবেন না আমাদের কাছে। তবুও আমরা তাঁকে ভুলে যেতে পারি না। আমাদের ইলমি অস্তিত্ব তাঁর কাছে ঋণি।আমাদের বোধির জাগরণে তাঁর অবদান অপরিসীম।
আমি অনেকবার দেখেছি, শায়খে কাতিয়া রাহিমাহুল্লাহকে, তাঁর পিছু- পিছু হাঁটতেন।সুযোগ পেলেই তাঁর জুতাখানা হাতে তুলে নিতেন। শায়খ গহরপুরী রহ, তাঁর কাছে এসে নতজানু হয়ে বসতেন অনায়াসে।স্পিকার হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী, মরহুম আব্দুস সামাদ আজাদ, অর্থমন্ত্রি এম সাইফুর রাহমান সুযোগ পেলেই ছুটে আসতেন তাঁর সকাশে। দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছে তিনি ছিলেন বরেণ্য, অবিসংবাদিত রাহনুমা। যেনো সিলেটের বরপুত্র।তাঁর তুলনা তিনি নিজেই। আমাদের সৌভাগ্য যে, আমরা তাঁর মতো ব্যক্তিত্ব পেয়েছিলাম এবং তাঁর স্নেহপরশে ধন্য হতে পেরেছিলাম। ছাত্রদের প্রতি তাঁর টান ছিল তুলনাহীন।পুরনো ফারিগ সাক্ষাতে এলেই তাঁকে কিছু টাকা হাদিয়া দিতেন। তাঁর প্রতিষ্ঠিত ঐতিহ্যবাহী জামেয়া দরগাহ আজ রোল মডেল। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিশ্বের বহু দেশে পৌঁছে গেছে তার জাগরণী পয়গাম। মাওলানা তাক্বি উসমানি বলেনঃ ওলিদের মৃত্যুর পর তাঁর ফুয়ুয ও বারাকাত আরো বেড়ে যায়”।বাস্তবে তাই ঘটছে। এই তো বিগত বছরের ফাইন্যাল পরীক্ষায় গোটা এদারা বোর্ডে শীর্স্থান দখল করেছে তাঁর প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান- জামেয়া দরগাহ। আর দেশ কাঁপানো সেই দস্তারবন্দী সম্মেলন! তাতো বলাই বাহুল্য।মানুষের বাধভাঙ্গা ঢল, স্বতস্ফুর্ত উপস্থিতি তাঁর কামালিয়াত ও আকাশচুম্বি গ্রহণযোগ্যতার কিঞ্চিত প্রমাণমাত্র।২০০৫ সালের এ-দিনে অর্থাৎ ৮-ই নভেম্বর তিনি চলে যান না-ফেরার দেশে। প্রভুর একান্ত সান্যিধ্যে। আজ রাব্বে করিমের দরবারে শুধু একটাই মিনতি; তিনি যেনো ইমাম আকবর আলীকে জান্নাতের উঁচু মাকাম দান করেন এবং তাঁর কীর্তি ও অবদান চির অম্লান রাখেন।আমিন!

…………..

সংক্ষিপ্ত পরিচয়: পাসপোর্ট অনুযায়ী জন্মসন সন ১৯২০ ঈসায়ি। তবে বিভিন্ন তথ্যানুযায়ী ১৯১৬ সালে বিয়ানীবাজার উপজেলার মাটিজুরা টুকা (বর্তমান নাম ইসলামনগর) গ্রামের মধ্যবিত্ত মুসলিম পরিবারে হযরতের জন্ম হয়। তার ধর্মভীরু পিতার নাম জনাব আব্বাস আলী রাহ.। মাতার নাম মুহতারামা জহুরা বিবি রাহ.। মাত্র ছয়মাস বয়সে তিনি মাতৃহারা হন। অতঃপর তিনি সৎ মায়ের তত্ত্বাবধানে প্রতিপালিত হন। অত্যন্ত শান্ত প্রকৃতির অধিকারী বর্ষিয়ান এই আলেমে দ্বীন বাল্যকালে অনেক দুঃখ-কষ্টের মাধ্যমে জীবনযাপন করেন। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন সর্বজৈষ্ঠ। শৈশবকাল থেকেই ইসলামি অনুশাসনের প্রতি মাওলানা আকবর আলীর শিক্ষাজীবন আপন গ্রামের মসজিদের ইমাম সাহেবের কাছে শুরু হয়। ছয় বছর বয়সে তিনি মাথিউরা মাদরাসায় ভর্তি হন।
১৯৩৯ ঈসায়িতে মাদরে ইলমী দারুল উলূম দেওবন্দে ভর্তি হন। ৭ই নভেম্বর ১৯৬১ ঈসায়ি সনে হযরত শাহজালাল রাহ.’র মসজিদ ও মাজারের দক্ষিণ পার্শ্বে একটি দ্বীনি মাদরাসা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শুরু করেন।

৮ নভেম্বর ২০০৫ ঈসায়ি মঙ্গলবার রাত ১১.৫৫ মিনিটের সময় ঢাকাস্থ পিজি হাসপাতালে বর্তমান বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান আল্লাহপাকের অহ্বানে সাড়া দেন। পরদিন বাদ যুহর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় এম.সি কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে। সেখানে লক্ষ লক্ষ মুসল্লিদের উপস্থিতিতে জানাযার ইমামতি করেন সিলেটের প্রখ্যাত আলেমেদ্বীন খতীব উবায়দুল হক জালালাবাদী রাহ.।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now