শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্বাক্ষাৎকার » সায়্যিদ আরশাদ মাদানীর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

সায়্যিদ আরশাদ মাদানীর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

arsadmadaniমুফতী হাবীবুল্লাহ মেছবাহ : জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি, দারুল উলুম দেওবন্দের সিনিয়র মুহাদ্দিস, রাবেতা আলমে ইসলামী মক্কা মুকাররামা- এর সম্মানিত নির্বাহী সদস্য, অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সনাল ল’ বোর্ড-এর অন্যতম সদস্য, আওলাদে রাসূল, মাওলানা সাইয়েদ আরশাদ মাদানী (দা. বা.) কে এক আন্তর্জাতিক জরিপে বিশ্বের সপ্তম শীর্ষ আলেম হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাকে উপমহাদেশের সর্বোচ্চ ইসলামী চিন্তাবিদ, ধর্মীয় নেতা ও দেওবন্দী আলেমগণের ইলমী উত্তরাধিকারের আমিন হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। অনুরূপ তাকে স্বীয় পিতা শাইখুল ইসলাম মাদানী (রাহ) এর সুযোগ্য স্থলাভিষিক্ত ও জানিশীন এবং ভারতবর্ষের ইমামুত তাকওয়া গণ্য করা হয়। তাকে মুসলিম জাতিসত্তার নিবেদিতপ্রাণ সেবক, যুগশ্রেষ্ঠ শাইখুল হাদীস ও অসাধারণ বক্তা এবং স্পষ্টভাষীরূপেও গণ্য করা হয়। এছাড়াও তাকে ভারতবর্ষের শিক্ষিত ও সাধারণ জনগণের হৃদয়ের স্পন্দন হিসেবে উল্লেখ করা হয়। সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য নিম্নে এ মনীষীর সংক্ষিপ্ত জীবনী পেশ করা হল:
জন্ম: শাইখুল ইসলাম কুতবুল আলম ,হযরত মাওঃ সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী রহঃ এর সুযোগ্য উত্তরসুরী, কুতবুল ইরশাদ, মাওঃ সায়্যিদ আরশাদ মাদানী (মা ,জি,আ,)1360 হিজরী,মোতাবেক 1941 ইংরেজীতে জন্ম গ্রহন করেন৷

শিক্ষা জীবন :

প্রথমিক শিক্ষা শুরু করেন 1946 ঈ :হযরত মাওঃ কারী আসগর আলী রহঃ নিকট ৷ যিনি হযরত মাদানী রহঃ খলিফা ছিলেন৷

হিফযুল কুরআন:

আট বৎসর বয়সে কুরআনুল কারীম সম্পূর্ণ মুখস্ত করেন ৷ সর্ব প্রথম খতমে তারাবীহ পড়ান, বাঁশকান্দী,আসাম ৷ স্বীয় পিতা হযরত মাদানী রহঃ ‘ র উপস্থিতিতে ৷
একাডেমিক শিক্ষা শুরুঃ
সে সময় দারুল উলূম দেওবন্দের প্রচলিত প্রথানুযায়ী পাঁচ সালা ফারসী খানায় শিক্ষা সমাপ্ত করে 1955 ঈ, সনে আরবী শাখায় শিক্ষা শুরু করেন ৷

দারুল উলূম দেওবন্দে ভর্তিঃ

দারুল উলূম দেওবন্দে 1959 ঈ, নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ভর্তি হন৷ পারিবারিক মুরব্বী জ্যেষ্ঠভ্রাতা হযরত মাওঃ সায়্যিদ আস’ আদ মাদানী রহঃ তৎকালীন বিখ্যাত আরবী সাহিত্যিক মাওঃ ওয়াহিদুজ্জামান কিরানভী রহঃ কে দিল্লী থেকে সায়্যিদ আরশাদ মাদানীকে আরবী ভাষা ও সাহিত্য শিক্ষা দানের জন্য দেওবন্দে ডেকে পাঠান৷ হযরত মাওঃ কিরানভী রহঃ প্রায় তিন বৎসর পর্যন্ত তাঁকে আরবী ভাষা ও সাহিত্য শিক্ষা দেন৷ অতঃপর শাইখ আব্দুল ওয়হহাব ,মাহমুদ আব্দুল ওয়াহহাব রহঃ ( মিশর) এর নিকট ও দুই বৎসর উচ্চতর আরবী ভাষা ও সাহিত্যের প্রশিক্ষণ নেন৷ সাথে সাথে প্রচলিত শিক্ষাব্যাবস্থা অনুযায়ী দারুল উলূম দেওবন্দের স্বনামধন্য শিক্ষকমন্ডলী থেকে শিক্ষা লাভ করতে থাকেন ৷ 1963 ঈ, সনে দাওরায়ে হাদীস পাশ করে শিক্ষা সমাপ্তির সনদ হাসিল করেন ৷

শিক্ষকবৃন্দ:

ফখরুল মুহাদ্দিসীন হযরত মাওঃ সায়্যিদ ফখরুদ্দীন মুরাদাবাদী রহঃ, হযরত শাইখুল আদব মাওঃ ইজাজ আলী রহঃ, আল্লামা ইব্রাহীম বলিয়াভী রহঃ,হযরত মাওঃ জলিল আহমদ কিরানভী রহঃ, হযরত মাওঃ আখতার হোসাইন দেওবন্দী এবং হযরত মাওঃ ওয়াহীদুজ্জামান কিরানভী রহঃ প্রমুখ ৷

বাই’ আত ও খিলাফত:

শিক্ষা জীবন শেষ করার পর আধ্যাত্মিকতার দুর্গম পথে পা রাখলেন ৷ স্বীয় বড় ভাই কুতবুল আকতাব ফিদায়ে মিল্লাত, সায়্যিদ আস’ আদ মাদানী রহঃ এর নিকট বাই’ আত হয়ে তার হিদায়ত ও প্রদর্শিত পথে পরিচালিত হয়ে মারেফাতের বন্ধুর ঘাঁটিসমূহ অতিক্রম করতে লাগলেন ৷যেহেতু স্বীয় পিতা কুতবুল আলম হোসাইন আহমদ মাদানী রহঃ শৈশবে তাঁর প্রতিপালন এমনভাবেই করেছিলেন ৷ তাই অতি অল্প সময়ে অথৈ সমুদ্র পাড়ি দিয়ে ফেললেন ৷কিছুদিনের মধ্যেই ইজাজতে বাই’ আত, খিরকায়ে খিলাফত স্বীয় জ্যেষ্ঠভ্রাতা থেকে হাসিল করেন ৷ এ ছাড়া স্বীয় পিতা,ও ফিদায়ে মিল্লাতের অনুস্মরণে দীর্ঘ 14 মাস মদীনা মুনাওরায় অবস্থান করত: রিয়াজত মুজাহাদা করতে থাকেন ৷খুব পাবন্দী ও সতর্কতার সাথে রওযাপাকে সাঃ সময় অতিবাহিত করে হুযুর সাঃ এর রুহানী ফয়েজ হাসিল করেন ৷

কর্মজীবন:

সর্ব প্রথম কর্মজীবনের সূচনা 1965 ঈ, সনে বিহার প্রদেশের প্রসিদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া কাসিমিয়া গয়ায় শিক্ষক হিসাবে যোগদানের মাধ্যমে শিক্ষকতার জীবন শুরু করেন ৷ 19 69 ঈ, সনে দারুল উলূম দেওবন্দের শাইখুল হাদীস এবং তৎকালীন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি মাওঃ সায়্যিদ ফখরুদ্দীন সাহেব রহঃ এর হুকুমে ” জামিয়া কাসিমিয়া মাদরাসা শাহী মুরাদাবাদে মুদাররিস পদে যোগদান করেন৷ 1971 ঈ,সনে হযরত মাওঃ ফখরুদ্দীন রহঃ তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ও পরিচালনার দক্ষতা দেখে শিক্ষা কমিটির কনভেনার এবং 1972 ঈ,সনে সহকারী শিক্ষা সচিব হিসাবে নিয়োগ দেন ৷তখন মাওঃ ফখরুদ্দীন রহঃ নিজেই শিক্ষা সচিব ছিলেন৷
1982 ঈ,সনে দারুল উলূম দেওবন্দের মজলিসে শুরার আহবানে মুহাদ্দিস পদে যোগদান করেন ৷ এবং 1996-2008 ঈ,পর্যন্ত দারুল উলূম দেওবন্দের শিক্ষা সচিব ছিলেন ৷ তিনি তার দায়িত্ব পালনকালে যারপরনাই মেহনত করে হিফয বিভাগ,ক্বিরায়াত বিভাগ,ও প্রথমিক আরবী বিভাগসমূহ অতুলনীয়ভাবে গড়ে তুলেছেন ৷

রাজনৈতিক জীবন :-

জুলাই 1984 ঈ,সনে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন৷ 2006 ঈ,সনে হযরত ফিদায়ে মিল্লাত রহঃ এর ওফাতের পর জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি নির্বাচিত হন ৷ এবং অদ্যাবধি এ পদে সমাসিন রয়েছেন ৷ পুরা বিশ্বে বিশেষ করে হিন্দুস্তানে তার নেতৃত্বে জমিয়তের কাজ দিন দিন আর বেগবান হচ্ছে ৷ তিনি ভারতের মুসলমানদের একক রাহবর হিসাবে কাজ করে যাচ্ছেন ৷

রচনাবলী:-

উত্তরাধিকারসূত্রেপ্রাপ্ত হযরত শাইখুল ইসলাম মাদানী রহঃ এর ইলম- হিকমতের হিফাযত করত: সর্বপ্রথম 1980 ঈ,সনে হিন্দী ভাষায় কুরআনুল কারীমের তাফসীর লিখার কাজ আরম্ভ করেন এবং দু’ খন্ডে 1991ঈ,সনে সম্পন্ন করেন ৷
722 পৃষ্ঠার দু’ খন্ডে বিভক্ত ফিকহে হানাফির ইকদুল ফারায়িদ ফি তাকমীলে কায়দিস্ শারাইদ মারুফ বি- শারহি মানজুমাহ ইবনে ওহ্বান এর পান্ডুলিপি নিজে পরিমার্জন ও সংশোধন করতঃ সর্বপ্রথম প্রকাশ করেছেন ৷
জগৎবিখ্যাত মুহাক্কিক আলেম হাফিয বদরুদ্দীন আইনী রহঃ এর অনুপম অবদান ” নুখাবুল আফকার ফি তানকীহে মাবানীল আখবার ফি শরহে মা’ আনীল আছার ” ( ত্বহাবী শরীফ) এর হস্ত লিখিত পান্ডুলিপি মিশরের আল – আজহার লাইব্রেরী থেকে সংগ্রহ করতঃ সংশোধন পরিমার্জন করে প্রকাশের কাজ শুরু করেন ,যা আল্লাহ তা’ আলার অশেষ মেহেরবানীতে আট হাজার পৃষ্ঠায় সম্পন্ন হয়েছে ৷ এই দুষ্প্রাপ্য গ্রন্থখানি ইতিপূর্বে কখনো ছাপানো হয় নাই ৷
“নকশে হায়াত ” যে গ্রন্থখানি হযরত শাইখুল ইসলাম মাদানী রহঃ এর স্ব- রচিত আত্মজীবনী,এতদিন পর্যন্ত উর্দূ ভাষায়ই ছিল ৷ উক্ত গ্রন্থখানি আরবী ভাষায় ভাষান্তরিত করার সৌভাগ্য হযরত মাওলানা আরশাদ মাদানী ( মা,জি,আ,) এর হাসিল হয়েছে ৷
” বুরহান শরহে মাওয়াহিবুর রহমান ” নামক গ্রন্থটি পরিমার্জনের কাজ করেছেন ৷ এটি ফিকহে হানাফীয়্যার একটি দুঃস্প্রাপ্য গ্রন্থ যা মদীনা শরীফ থেকে ছেপে প্রকাশিত হয়েছে ৷ এ ছাড়া আরও অনেকগুলো গ্রন্থ প্রকাশিত হওয়ার পথে রয়েছে ৷

নিরক্ষরতা দূরীকরণ ও সামাজিক খিদমাত:-

” মাদানী চ্যারিটেরিয়েল ট্রাষ্ট ” 1997 ঈ,সনে প্রতিষ্ঠা করেন ৷এ সংগঠনের মাধ্যমে সর্বপ্রথম ধর্মীয় পরিবেশে আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থার প্রচলন করেন ৷এজন্য দেওবন্দে মাওলানা মাদানী মেমোরিয়াল ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন ৷উক্ত ট্রাষ্টের অধীনে বহুসংখ্যক মাদরাসা ও মক্তব প্রতিষ্ঠা লাভ করে ৷ বিশেষভাবে হরিয়ানা, পাঞ্জাব,হিমাচল, প্রদেশে ধর্মান্তরিত এলাকাগুলোতে আবাসিক মাদরাসা এবং অনাবাসিক মক্তব প্রতিষ্ঠা করেন ৷ পাঞ্জাবে আই,টি,আই প্রতিষ্ঠা, এমনভাবে পিছিয়েপড়া দরিদ্র এলাকাসমূহে মসজিদ নির্মাণ এবং অন্যান্য সমাজিক ও মানবিক সাহায্য- সহযোগিতা করে যাচ্ছেন ৷

সফর :-

ভারতবর্ষ ও পৃথিবীর বিভিন্ন মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাসমূহে তাদের আমন্ত্রনে ইলমী,দাওয়াতী- সেমিনার, সিম্পোজিয়াম,ধর্মীয় মাহফিল- সম্মেলনে যোগদান করতে থাকেন ৷এসব সফরের মাঝে বাংলাদেশ,পাকিস্তান,সংযুক্ত আরব আমিরাত,মিশর,মালাভি, জাম্বিয়া,দক্ষিন আফ্রিকা,কাতার,আমেরিকা,কানাডা,পানামা,বারবাডোজ,ট্রানিডার,মরিসাস,রিইউনিয়ন, বৃটেন,সৌদিআরব ইত্যাদি রাষ্ট্রসমূহ উল্লেখযোগ্য ৷ তিনি ভারতবর্ষের বিভিন্ন মাদরাসা ও সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক এবং সভাপতিও বটে৷ এ ছাড়া কিছুদিন পূর্বে ” রাবেতায়ে আলম – আল ইসলামী মক্কা মোকাররমা এর আজীবন শুরার সদস্য নির্বাচিত হন ৷
দরগাহে ইলাহীতে দু’ আ করছি, হে আল্লাহ! দারুল উলূম দেওবন্দ এবং জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ কে হযরত ওয়ালার নেতৃত্বে দিন দিন তারাক্কীর উঁচু শিখরে পৌছে দিন ৷ আমদের উপর হযরতের ছায়াকে আর দীর্ঘ করে দিন ৷ আমিন ৷

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now