শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিনোদন » পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যয়বহুল ১০ বিবাহবিচ্ছেদ

পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যয়বহুল ১০ বিবাহবিচ্ছেদ

topdivorce1448733765ডেস্ক রিপোর্ট:  মানুষের জীবনে বিয়ে শব্দটা যতটা খুশি নিয়ে আসে, ঠিক ততটাই কষ্টদায়ক এর বিপরীত শব্দ বিচ্ছেদকে ঘিরে। বিয়ে নর-নারীকে এক করে, এ কথা সত্যি। তবে বিচ্ছেদের মাধ্যমে কেবল একটি সম্পর্কের শেষ নয়, বরং বালির বাঁধের মতো তছনছ করে দেয় আরো অনেকগুলো বন্ধনকে।

 

বিচ্ছেদ খুব কম মানুষই কামনা করে তাদের জীবনে। কিন্তু মানুষের জীবনে এমন কিছু সময় আসে যখন বিচ্ছেদ ব্যাপারটা প্রচণ্ড প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে। বাধ্য হন ডিভোর্স বা বিবাহবিচ্ছেদের দিকে অগ্রসর হতে। একটি বিবাহবিচ্ছেদ ঘটাতে খরচপাতিরও বিষয় থাকে। পৃথিবীতে এমন কিছু বিবাহবিচ্ছেদ রয়েছে যা আজও স্মরণীয় হয়ে আছে ‘ব্যয়বহুল’ বিয়ে হিসেবে। আজকে এমনই একটি প্রতিবেদন থাকছে আপনাদের জন্য।

 

রোমান ও ইরিনা আব্রামোভিচ

রাশিয়াতে পঞ্চম এবং পৃথিবীর ভেতরে ৫০তম ধনী ব্যক্তি রোমানের রয়েছে নানা ধরনের ব্যবসা। শুধু তাই নয়, পৃথিবীর এই বিখ্যাত ধনী মানুষটির আছে বিখ্যাত একটি ফুটবল টিমও। নামকরা ফুটবল টিম ‘চেলসি ফুটবল ক্লাবে’র মালিক তিনি। বর্তমানে রোমানের মোট সম্পদের পরিমাণ আনুমানিক ১৪.৬ বিলিয়ন। বিবাহিত জীবনে কোনোরকমের সমস্যা ছিল না আগে। তারপরেও হুট করে রোমান ইরিনাকে ডিভোর্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ইরিনা মালান্ডিনা বিয়ের আগে থেকেই বেশ ধনী ছিলেন। আর তাই ধরা হয় এই বিচ্ছেদের কারণে রোমানকে ৫ থেকে ৯ বিলিয়ন ডলার খসাতে হবে। কিন্তু ইরিনা নিজেই সরে দাঁড়ান এমন কোন দাবি থেকে।

 

 

 

মাত্র ৩০০ মিলিয়ন ডলার ও সম্পত্তির আংশিক মালিকানা চান তিনি। আর সেটা নিয়েই সরে পড়েন তিনি রোমানের জীবন থেকে। এবং এর পরপরই সবার চোখে এই হঠাৎ বিচ্ছেদের কারণটা অনেক পরিষ্কার হয়ে ধরা পড়ে। কারণটা আর কিছুই না। রোমানের পরকীয়া। অন্য এক ধর্ণাঢ্যের মেয়ে ডারিয়া জুকোভার ভালোবাসায় তখন হাবুডুবু খাচ্ছিলেন রোমান। আর তাই কোনো ধরনের সমস্যা না করে রোমানের জীবন থেকে সরে যান ইরিনা।

 

রবার্ট ও শিলা জনসন

কৃষ্ণাঙ্গদের জন্য আমেরিকায় প্রথম টেলিভিশন চ্যানেল নিয়ে আসা ব্ল্যাক এন্টারটেইনমেন্ট টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতা রবার্ট ও শিলা জনসন। তারা ছিলেন কৃষ্ণাঙ্গদের ভেতরে বিলিয়নিয়াদের ভেতর প্রথম সারির। তবে অর্থ আর সাফল্যই যে জীবনের শেষ কথা নয়, সেটা বুঝিয়ে দেন শিলা জনসন নিজেদের ডিভোর্সের মাধ্যমে। শিলার মতানুসারে, নিজেদের চ্যানেলে দেখানো অনুষ্ঠানগুলোর কিছু অংশ তরুণ প্রজন্মকে দেখানোর উপযোগী নয়। যে নৈতিক শিক্ষা তাদের চ্যানেলে দেওয়া হচ্ছিল, সেটা নতুনদের জন্য সঠিক নয়। কিন্তু রবার্ট শিলার কথা মানতে নারাজ ছিলেন।

 

 

 

তাদের বিয়ের ৩৩ বছর পর তাই দুই সন্তানসহ শিলা রবার্টের বিরুদ্ধে বিচ্ছেদের আবেদন জানান। ডিভোর্সের কারণ ছিল সাধারণ জীবন ও কাজের জায়গা দুটোতেই রবার্টের সঙ্গে মতপার্থক্য। বিচ্ছেদটির জন্য রবার্টের ব্যয় হয়েছিল ৪০০ মিলিয়ন ডলার। বিচ্ছেদের ২ বছর পরেই রবার্ট চ্যানেলটি ভায়াকমের কাছে ৪ বিলিয়ন ডলারে বিক্রি করে দেন। বর্তমানে তিনি পৃথিবীর অন্যতম সেরা ধনী।

 

মেল ও রবিন গিবসন

অভিনেতা মেল গিবসনের বিচ্ছেদ ছিল হলিউডের ইতিহাসের একটি উল্লেখযোগ্য ঝড় তোলা বিচ্ছেদ। বিচ্ছেদের আগেই মেল গিবসন স্বীকার করেন যে রাশিয়ান গায়িকা ওকসানা গ্রিগোরিভার গর্ভে জন্ম নেওয়া একটি সন্তান রয়েছে তার। মেলে ও রবিনের বিয়েটা ২৮ বছরের হলেও তার কোনো চুক্তি ছিল না। ফলে মেলের সম্পত্তির অর্ধেক মালিকানা এবং তার মুভিগুলোরও কিছু অংশ রবিনের ভাগে চলে যায়।

 

 

 

পরে সন্তানদের ভরণপোষণ হিসেবে ৭৫০ মিলিয়ন ডলার চান রবিন। ডিভোর্সের বিচারকাজ ২ বছর ধরে চলার পর একটা সময় সমাপ্তিতে আসতেই হয় বিচারককে। ৪২৫ মিলিয়ন ডলারে দফা হয় ব্যাপারটার।

 

ক্রেইগ ও ওয়েন্ডি ম্যাককাউ

১৯৯৪ সালের বিখ্যাত ও সবচেয়ে বড় তারবিহীন ফোনের প্রচলনকারী প্রতিষ্ঠান ম্যাককাউ সেলুলার-এর প্রতিষ্ঠাতা ক্রেইগ ম্যাককাউ। ১৯৯৫ সালে ব্যক্তিগত মতপার্থক্যে কারণে ওয়েন্ডির সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করেন ম্যাককাউ। পুরো ব্যাপারটা অনেক দিন ধরে চলতে থাকে। নানা যুক্তি-তর্ক হতে থাকে। জমতে থাকে কাগজপত্রের পাহাড়।

 

 

 

দম্পতিটির ১.৩ বিলিয়ন সম্পত্তির সমান ভাগাভাগি নিয়ে চলতে থাকে বিতর্ক। যাই হোক, শেষ পর্যন্ত ২১ বছরের দাম্পত্য জীবনের বিচ্ছেদের হয়। এর ফলে ওয়েন্ডি পান ৪৬০ মিলিয়ন ডলার। তবে এ ঘটনার কয়েক বছর পরেই ক্রেইগ এটি এন্ড টি এর কাছে নিজের কোম্পানি বিক্রি করে দেন ১১.৫ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে।

 

স্টিভ ওয়েইন ও এলিনে প্যাস্কেল

ক্যাসিনো এ্যাম্পেয়ার ওয়েইন রিসোর্টের সিইও স্টিভ ওয়েইন আর এলিনের বিয়েটা হয় ১৯৬৩ সালে। ১৯৮৬ সালে বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাদের। তবে এরপর ১৯৯১ সালে আবার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা।

 

 

 

তবে ২০১০ আবার বিচ্ছেদ ঘটান তারা। প্রথমবার তো বটেই, দ্বিতীয়বার বিচ্ছেদের জন্যও বেশ খরচ করতে হয় স্টিভকে। তাকে ৭৫০ মিলিয়ন ডলার ঢালতে হয় বিচ্ছেদ নেওয়ার জন্য।

 

আদনান খাশোগি ও সুরাইয়া খাশোগি

গত দুই যুগের মধ্যে সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিয়ের তকমাটি দেওয়া হয় এই বিচ্ছেদটিকে। অস্ত্র ব্যবসায়ী আদনানকে ১৯৮০ সালের সবচেয়ে ধনী ব্যবসায়ী বলে মনে করা হয়। ১৯৬০ সালে তিনি স্যান্ড্রা ডেলিকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়ে সুরাইয়া নামে পরিচিত হন। তবে এ দম্পতির বিয়ের ২১ বছর পর ১৯৭৪ সালে ৫ সন্তানসহ সুরাইয়া আদনানের কাছ থেকে ডিভোর্সের আবেদন করেন।

 

 

 

এরপর ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত সুরাইয়া ২.৫৪ বিলিয়ন ডলারের জন্য আইনি লড়াই চালিয়ে যান। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি রফা হয় ৮৭৫ মিলিয়নে। বর্তমানে সুরাইয়া লন্ডনে বেশ সুন্দর ও সহজ জীবনযাপন করছেন।

 

বার্নি ও স্লেভিকা ইকলেস্টোন

ফর্মুলা ওয়ান ম্যানেজমেন্ট, ফর্মুলা ওয়ান অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের মালিক ও ফর্মুলা ওয়ান কোম্পানির অন্যতম সূত্র আলফা প্রেমার আংশিক মালিক বার্নি ১৯৮৫ সালে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন। ২৪ বছর সংসার করেন সামলান এই দম্পতি। একটা সময় আমেরিকান মডেলিংয়ে কাজ করা স্লেভিকা এই সময়ে বার্নির ২ সন্তানের জন্ম দেন।

 

 

 

বেশ চলছিল ২ মেয়েকে নিয়ে এই দম্পতির সংসার। কিন্তু হঠাৎ কী থেকে কী হয়ে গেল! স্লেভিকা ২০০৮ সালে ঘর থেকে বের হয়ে এলেন এবং ডিভোর্সের আবেদন করলেন। ২০০৯ সালে হয়ে যাওয়া এই বিচ্ছেদটির জন্য খরচ হয়েছিল ১.২ বিলিয়ন ডলার।

 

রুপার্ট মারডক ও অ্যানা মারিয়া টর্ভ

উত্তরাধিকার সূত্রে রুপার্ট তার বাবার নিউজ লিমিটেডের মালিকানা পান। এ ছাড়া তিনি অর্জন করেন টুয়েন্টিনথ সেঞ্চুরি ফক্স, হার্পার কলিনস ও দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের মতো খবরের প্রতিষ্ঠানগুলো। ১৯৬৭ সালে তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী অ্যানা মারিয়া টর্ভকে বিয়ে করেন।

 

 

 

৩২ বছর সংসার করার পর তারা বিচ্ছেদের আবেদন করেন। ১.৭ বিলিয়ন ডলারে বিষয়টি মীমাংসা হয়। এ জন্য রুপার্টকে ১১০ মিলিয়ন ক্যাশ দিতে হয় অ্যানাকে। এই বিচ্ছেদটি এখনো অবধি পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিচ্ছেদ হিসেবে পরিচিত।

 

রুপার্ট মারডক ও ওয়েন্ডি ডেঙ

দ্বিতীয় বিচ্ছেদের মাত্র ১৭ দিন পরেই আবার নতুনভাবে জীবনকে সাজিয়ে তুলতে ওয়েন্ডি ডেঙকে বিয়ে করেন রুপার্ট মারডক। তবে এ বিয়েও শেষ পর্যন্ত টেকাতে পারেননি তিনি।

 

 

 

১৩ বছর ঘরসংসার করার পর ২০১৩ সালে এসে ফের বিবাহবিচ্ছেদ করতে হয় মারডককে। আর গতবারের মতো এবারও তাকে খরচ করতে হয় ১.৮ বিলিয়ন ডলার, যা আগের হিসাবের চেয়েও বেশি।

 

অ্যালেক নাথান ওয়েল্ডেস্টেইন ও জোকেলিন পেরিসেট

ফরাসি ব্যবসায়ী, হর্স রেসার ও শিল্প ব্যবসায়ী অ্যালেক খুব বেশি একটা কষ্ট করা ছাড়াই উত্তরাধিকার সূত্রে প্রচুর ধন-সম্পদের মালিক হয়ে যান। ওল জোগি র‌্যাঞ্জের অতিথি থাকাকালীন জোকেলিনের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। ১৯৭৮ সালের ৩০ এপ্রিল তারা বিয়ে করেন। তাদের ঘরে জন্ম নেয় দুই সন্তান।

 

 

দীর্ঘ ১৯ বছর সংসার করার পর তারা বিচ্ছেদ ঘটানোর সিদ্ধান্ত নেন। তাদের ডিভোর্সের আবেদনটি জমা হয় ১৯৯৭ সালে। এর প্রায় দুই বছর পর ১৯৯৯ সালে তা মিডিয়ার দৃষ্টি গোচর হয়। এই ডিভোর্সের প্রধান কারণ ছিল অ্যালেকের অমিতব্যয়িতা এবং জোকেলিনের ঘন ঘন প্লাস্টিক সার্জারি করানোর বদ অভ্যাস। এই বিচ্ছেদের জন্য খরচ হয় প্রায় ২.৫ বিলিয়ন ডলার। এই দম্পতির মধ্যে হওয়া চুক্তিতে বলা হয়, বিচ্ছেদ ঘটনার ১৩ বছর পর থেকে অ্যালেক প্রতিবছর ১০০ মিলিয়ন ডলার করে দেবেন জোকেলিনকে।

……রাইজিংবিডি ডট কম

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now