শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » সব সাংবিধানিক পদে সংসদীয় অভিশংসন

সব সাংবিধানিক পদে সংসদীয় অভিশংসন

ডেস্ক রিপোর্ট:  আইনজীবী ও নাগরিক সমাজের উদ্যোগের মধ্যেই বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে দিতে গতকাল ‘সংবিধান (ষোড়শ সংশোধন) বিল, ২০১৪’ সংশোধিত আকারে সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে। বিলে বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিল থেকে সংসদের কাছে ন্যস্ত করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ বিল পাস হলে শুধু বিচারপতিরাই নন, সাংবিধানিক পদের সবাই সংসদীয় অভিশংসনের আওতায় পড়বেন। অর্থাৎ নির্বাচন কমিশনার, সরকারি কর্মকমিশন, মহাহিসাব নিরীক্ষকসহ সাংবিধানিক পদের সবাইকে অপসারণের ক্ষমতা পাবে সংসদ।  সব সাংবিধানিক পদে সংসদীয় অভিশংসন

জানা গেছে, শুরুতে সরকারের ভেতরে বিচারপতি ছাড়া অন্যদের সংসদীয় অভিশংসনের আওতার বাইরে রাখার চিন্তা ছিল। সরকারের ঘনিষ্ঠ আইনজ্ঞদের পরামর্শে সিদ্ধান্ত বদলায় আইন মন্ত্রণালয়। কারণ, সমমর্যাদার পদের জন্য ভিন্ন আইন নতুন করে আইনি জটিলতা তৈরি করতে পারে। আগে অন্য সাংবিধানিক পদ সংসদীয় অভিশংসনের বাইরে রাখতে নতুন আইন তৈরির কথা বলেছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। গতকাল সংসদের বৈঠকে যোগ দেওয়ার আগে তিনি সমকালকে বলেন, মন্ত্রিসভায় খসড়া আইন যেভাবে পাস হয়েছে, সরকার সেভাবেই বিলটি পাস করতে চায়। নীতিগত কোনো পরিবর্তনের চিন্তা নেই।

অভিশংসনের ক্ষেত্রে সবার জন্য একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে। গতকাল রোববার মাগরিবের বিরতির পর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠক শুরু হলে সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সংশোধিত আকারে ‘সংবিধান (ষোড়শ সংশোধন) বিল, ২০১৪’ সংসদে উত্থাপন করেন। বিলে ছাপার ভুল থাকায় আইনমন্ত্রী তা সংশোধিত আকারে উত্থাপন করেন। এর পর পরীক্ষার জন্য বিলটি আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। কমিটিকে এক সপ্তাহের সময় দেওয়া হয়েছে। বিলটি চলতি অধিবেশনেই পাস হওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। সংসদীয় কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, কমিটিতে বিলটি চূড়ান্ত করার আগে সংশ্লিষ্ট সব মহলের মতামত নেওয়ার চেষ্টা করা হবে। এমনকি সংসদের বাইরে অবস্থানকারী রাজনৈতিক দলগুলোকেও ডাকা হবে।

প্রস্তাবিত বিলে কোনো বিচারপতির অসদাচরণ বা অসামর্থ্য সম্পর্কে তদন্ত ও প্রমাণের পদ্ধতি সংসদ আইনের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করবে বলে বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বিলটি পাস হলেও সংবিধান সংশোধনীর আলোকে এ-সংক্রান্ত আইন প্রণয়ন না হওয়া পর্যন্ত এটা কার্যকর হবে না। নতুন আইনে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের আদলে একটি ‘কমিশন’ গঠন করা হবে। ওই কমিশন বিচারপতিসহ সব সাংবিধানিক পদধারীর ব্যাপারে অভিযোগ তদন্ত করে সংসদের কাছে উত্থাপন করবে। এর পর সংসদ সিদ্ধান্ত নেবে। অবসরপ্রাপ্ত একজন প্রধান বিচারপতিকে প্রধান করে ওই কমিশন গঠনের পরিকল্পনা রয়েছে, যেখানে স্পিকার বা সংসদের মনোনীত প্রতিনিধি রাখার কথাও ভাবা হচ্ছে। আইনমন্ত্রী বলেছেন, এটি হবে পৃথক স্বাধীন সংস্থা। এ-সংক্রান্ত আইনটি দ্রুত প্রণয়ন করা হবে। তবে তার আগ পর্যন্ত সংবিধানের সংশোধিত ধারাটি অকার্যকর থাকবে।

গত ১৮ আগস্ট সংবিধান (ষোড়শ সংশোধন) আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পরপরই বিচার বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট মহলে নানা বিতর্ক শুরু হয়। সাংবিধানিক পদে অধিষ্ঠিত অন্যদের মধ্যেও এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এ ছাড়া চলতি সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদীয় দলের সভায় নীতিগতভাবে বিলের বিরোধিতার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে সংসদের বাইরে থাকা বিএনপিও বলছে, সরকার একদলীয় শাসন পাকাপোক্ত করতে সংবিধান সংশোধন করছে। বিল উত্থাপনের আগে রোববার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবিধান সংশোধনের এ উদ্যোগের সমালোচনা করেন।

বিচারক অপসারণের বিষয়ে সরকার তাড়াহুড়া করছে মন্তব্য করে বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেন সমকালকে বলেন, এতে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা খর্ব হবে। বিচার বিভাগের ওপর জনগণের আস্থাও কমে যাবে। সংসদে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা থাকার কারণেই সরকার সবার মতামত উপেক্ষা করে সংবিধান সংশোধন করছে।

প্রবীণ আইনজ্ঞ ব্যারিস্টার রফিক-উল হক বলেন, এর ফলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন হতে পারে। কারণ, বর্তমান সংসদ নির্বাচিত নয়, অনির্বাচিত। তারা যা খুশি তা-ই করতে পরে। বিশেষ করে কোনো সাংসদ যদি কোর্টের কাছে যান, তখন ওই কোর্টের বিচারক ভাবতে পারেন, তার পক্ষে কাজ করি। তা না হলে পরদিন সংসদে গিয়ে হয়তো কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন। ফলে বিচারককে অজ্ঞাত কারণে সব সময় চাপের মধ্যে থাকতে হবে।

বিশিষ্ট আইনজীবী ড. শাহ্দীন মালিক বলেন, তাড়াহুড়ার কারণে সংসদে যে বিল উপস্থাপন করা হয়েছে, তা ভুল তথ্যে ভরা। তিনি আরও বলেন, এখন সংসদে বর্তমান সরকারের দুই-তৃতীয়াংশ একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। প্রস্তাবিত বিল পাস হলে বর্তমান সংসদ চাইলে যে কোনো বিচারককে সুনির্দিষ্ট কারণে অপসারণ করতে পারবে। কিন্তু যদি ভবিষ্যতে কোনো সংসদে সরকারের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকে বা সরকার-বিরোধী দল বিচারক অপসারণের বিষয়ে ঐকমত্য না হয়, তাহলে বিচারক অপসারণের এ প্রক্রিয়ায় প্রশ্নবিদ্ধ হবে। বিচারক অন্যায় করলেও রাজনৈতিক সমঝোতা না হলে তাকে অপসারণ করা যাবে না।

সংবিধান সংশোধন প্রসঙ্গে গতকাল এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, অভিশংসনের অপব্যবহার যাতে না হয়, সেভাবেই আইন করা হবে। সংসদীয় অভিশংসন ব্যবস্থায় বিচারকদের স্বাধীনতা এক বিন্দুও ক্ষুণ্ন হবে না। তিনি আরও বলেন, উচ্চ আদালতে বিচারক নিয়োগে নীতিমালা প্রণয়নে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। শুধু বড় ধরনের অসদাচরণ ও অযোগ্যতার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হলেই বিচারপতিরা অভিশংসনের সম্মুখীন হবেন; অন্য কোনো কারণে নয়। উচ্চ আদালতে বিচারপতিরা কী রায় দিলেন বা না দিলেন, তার সঙ্গে অভিশংসনের কোনো সম্পর্ক নেই। রায়ের জন্য তারা অভিশংসনের মুখোমুখি হবেন না।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারকরা ছাড়াও অন্য আরও সাংবিধানিক পদে রয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ সব কমিশনার, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যানসহ সব কমিশনার ও প্রধান তথ্য কমিশনারসহ সব কমিশনার, সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যানসহ সব সদস্য ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানসহ সদস্যরা এবং মহাহিসাব নিরীক্ষক।

এদিকে সংসদ সচিবালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, চলতি অধিবেশনের মেয়াদ আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হচ্ছে। এর আগে কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে চলতি অধিবেশনের মেয়াদ ১৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছিল। এখন তা বেড়ে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হতে যাচ্ছে।

সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদীয় দলের সভায় এই বিলে নীতিগত বিরোধিতার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। একই সঙ্গে বিলে ভালো কিছু থাকলে তাতে সমর্থন জানানোর কথাও বলা হয়েছে। তবে বিলের বিপক্ষে তারা ভোট দেবেন কি-না তা নিয়ে অস্পষ্টতা রয়েছে। দলীয় এমপিদের মধ্যে এ নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে। বিরোধীদলীয় নেতার রাজনৈতিক সচিব গোলাম মসিহ সমকালকে বলেন, বিলের ‘কনটেন্ট’ সম্পর্কে এখনও জাপার এমপিরা সবাই জানেন না। এ ব্যাপারে আজকালের মধ্যে দলীয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে এবং তা এমপিদের অবহিত করা হবে।

বিলটি উত্থাপনকালে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনাসহ সরকারি দলের প্রায় সব সিনিয়র সদস্যই অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন। তবে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এবং পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অনুপস্থিত ছিলেন। বিলটি উত্থাপনকালে সরকারি দলের সঙ্গে বিরোধী দলের সদস্যরাও টেবিল চাপড়ে আইনমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান।

উত্থাপিত বিলে বর্তমান সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ সংশোধনের প্রস্তাব করে বলা হয়েছে: বিচারকদের পদের মেয়াদ- (১) এই অনুচ্ছেদের বিধানাবলী সাপেক্ষে কোন বিচারক ৬৭ বৎসর বয়স পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন। (২) প্রমাণিত অসদাচরণ বা অসামর্থ্যের কারণে সংসদের মোট সদস্য সংখ্যার অনূ্যন দুই-তৃতীয়াংশ গরিষ্ঠতার দ্বারা সমর্থিত সংসদের প্রস্তাবক্রমে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ ব্যতীত বিচারককে অপসারিত করা যাইবে না। এই অনুচ্ছেদের (২) দফার অধীন প্রস্তাব সম্পর্কিত পদ্ধতি এবং কোন বিচারকের অসদাচরণ বা অসামর্থ্য সম্পর্কে তদন্ত ও প্রমাণের পদ্ধতি সংসদ আইনের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করিবেন। (৪) কোন বিচারক রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ করিয়া স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদত্যাগ করিতে পারিবেন।

বিল উত্থাপনের সময় আইনমন্ত্রী বলেন, বিলটি আইনে পরিণত হলে স্বাধীন বিচার বিভাগের প্রতি জনগণের আস্থা আরও বৃদ্ধির পাশাপাশি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির কাছে জবাবদিহি থাকা-সংক্রান্ত সংবিধানের মৌলিক কাঠামো সমুন্নত থাকবে।

সংবিধান নতুন করে সংশোধনের উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করে আইনমন্ত্রী বলেন, সংসদের আস্থা হারালে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকারও যেহেতু পদে থাকতে পারেন না, সেই একই বিষয় বিচারপতিদের ক্ষেত্রে থাকলেও তা পরে বাদ দেওয়া হয়। এখন তা পুনঃস্থাপিত হচ্ছে।

বিচারপতি অপসারণের বর্তমান পদ্ধতি সংবিধানের মূল চেতনার বিরোধী জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দ্বারা গঠিত সংসদে রাষ্ট্রের অন্যান্য অঙ্গের ন্যায় উচ্চ আদালতের বিচারকদের জবাবদিহির নীতি বিশ্বের অধিকাংশ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে বিদ্যমান রয়েছে।

২০১১ সালে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর সময়ে বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে দেওয়া নিয়ে আলোচনা ওঠে। যদিও তখন তা করা হয়নি। পরে ২০১২ সালে তৎকালীন স্পিকার ও বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের একটি রুলিংকে কেন্দ্র করে কয়েকজন সংসদ সদস্য হাইকোর্টের একজন বিচারপতিকে অপসারণের দাবি তোলেন।

১৯৭২ সালে সংবিধান প্রণয়নের সময় এর ৯৬ অনুচ্ছেদ বলে উচ্চ আদালতের বিচারকদের পদের মেয়াদ নির্ধারণ ও তাদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে ছিল। জিয়াউর রহমানের আমলে এক সামরিক আদেশে বিচারপতিদের অভিশংসনের জন্য সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিল গঠন করা হয়। এখন পর্যন্ত তা-ই বলবৎ রয়েছে।

সংশোধিত আকারে সংবিধান সংশোধন বিল উত্থাপন: বিলে ছাপার ভুল থাকায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক তা সংশোধিত আকারে উত্থাপন করেন। বিলের প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, ১৯৭৮ সালে সামরিক শাসক অসাংবিধানিক পন্থায় ১৯৭২ সালের সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ সামরিক ফরমানের (সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী) দ্বারা সুপ্রিম কোর্টের কোনো বিচারককে অসদাচরণ বা অসামর্থ্যের অভিযোগে অপসারণের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের পরিবর্তে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের কাছে ন্যস্ত করে।

সংসদ সচিবালয় সূত্র জানায়, ছাপা হওয়া বিলের ভুল গতকাল সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের নজরে পড়ে। বাস্তবে পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছ থেকে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের কাছে ন্যস্ত করা হয়নি। পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের কাছে ন্যস্ত করা হয়। যে কারণে মন্ত্রী বিলের প্রস্তাবনার ‘১৯৭২ সনের’ এবং ‘জাতীয় সংসদের পরিবর্তে’ শব্দগুলো বাদ দিয়ে প্রস্তাবনা পাঠ করেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now