শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » কওমী অঙ্গনে বিজয়দিবসের ভাবনা ও ইসলামিক জার্নাল

কওমী অঙ্গনে বিজয়দিবসের ভাবনা ও ইসলামিক জার্নাল

monthly-patheo-300x336ডেস্ক রিপোর্ট: কওমী মাদরাসা অঙ্গন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে সমর্থন করে। বিজয়দিবসে মাদরাসাগুলো ছুটি থাকে। বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠান হয়। মাদরাসাগুলো থেকে প্রকাশিত দেয়ালিকা থেকে শুরু করে ছাপার অক্ষরের পত্রিকায়ও মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়দিবসের নানা অনুষঙ্গ প্রবন্ধ, ফিচার ছাপা হয়। এটা বাধ্যবাধকতার কোনো বিষয় নয়। একান্তই ভালোবাসার টানেই ডিসেম্বরে মাদরাসাগুলোর রঙও পরিবর্তন হয়। আলেমদের একাত্তর নিয়ে ভিন্ন কোনো ভাবনা নেই। একজন দেশপ্রেমিকের যে ভাবনা সেটাই। উপমহাদেশের অবিসংবাদিত আধ্যাত্মিক রাহবার আসাদ মাদানী রহ. একাত্তরে ভারতে আশ্রয় নেয়া সম্বলহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এটুকু বাংলাদেশের মানুষ কেবল জানে—তা নয়। একাত্তরে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখার জন্য সরকার ‘বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা’ প্রদান করেছে ভারতের মরহুম বর্ষীয়ান এই আলেমকে। তার পক্ষে সম্মাননা পদকটি গ্রহণ করেছেন তারই পুত্র মাওলানা মওদুদ মাদানী।

শুধু দ্বীনদরদি নয় অনেক আলেমও মুক্তিযুদ্ধে শাহাদত বরণ করেছেন। পটিয়ায় আল্লামা দানেশ রহ., সিলেটে মাওলানা ওয়ালিউর রহমানসহ রহ. এরকম অনেককেই মুক্তিযুদ্ধে আমরা হারিয়েছি। যেসব মুসলিম ভাই দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন তাদের জন্য কেবল লিখে নয় ইসলামী রীতির সব পদ্ধতি অবলম্বন করেই দুআ করা উচিৎ। আর সেটা ওলামায়ে কেরাম করেও থাকেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাওলানা হুসাইনুল বান্নার বিজয়দিবস জানতে চাইলে তিনি বলেন, ষোল ডিসেম্বরে খিলগাঁর জামিআ ইকরায় বিজয়দিবসকে নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আমি কথা বলেছি। সেখানে বলেছি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ব্যাপকতর। কোনো গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। হানাদাররা এ দেশের মানুষকে ধর্মের নামে বিভক্ত করতে চাইছিলো। তারা বলেছিলো, দেশ স্বাধীন হলে এ দেশ হিন্দুরাষ্ট্রে পরিণত হবে। বাস্তবে আমরা কী দেখলাম। তিনি বলেন, চক্রান্তকারীরা এখনো ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

উত্তরার জামিআ রশিদিয়ার প্রিন্সিপাল মুফতি আইনুল ইসলাম কান্ধলবী বলেন, বিজয়দিবস উপলক্ষে আমরা আলোচনাসভার আয়োজন করেছি। আমাদের এখানে মুক্তিযুদ্ধের পড়াশোনা করে শিক্ষার্থীরাও আলোচনায় অংশ নিয়েছে।

এছাড়া রামপুরার জামিয়া দারুল উলুম, হাজিপাড়ার মাদরাসা উসমান, ঢাকা মহানগরীর লালবাগ থানাধীন হাফেজ আবদুর রাজ্জাক জামেয়া ইসলামিয়া মাদরাসাসহ অসংখ্য মাদরাসায় বিজয় দিবসের আয়োজন ছিলো। আর ছুটি ছিলো সব মাদরাসাই।

বিশেষ কারণে কিছু কিছু পত্রিকায় বিজয় দিবসের আলোচনা ছাপা হয়নি। তবে কিছু কিছু পত্রিকা তো বিজয়দিবসকে উপেক্ষা করেনি। কয়েকটি পত্রিকার দায়িত্বশীলদের সঙ্গে যা কথা হয়েছে নিম্নে তুলে ধরা হলো।

মাসিক পাথেয়’র সম্পাদক ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। এবার মাসিক পাথেয়’র প্রচ্ছদ করা হয় বিজয়দিবস ও সীরাতকে কেন্দ্র করে। সমসাময়িক বিষয়াদী নিয়েই প্রবন্ধ-নিবন্ধ ছাপা হয় এ পত্রিকাটিতে। এবারে ভিন্নস্বাদের একটি ফিচার ছাপা হয়েছে ১৬ ডিসেম্বরকে কেন্দ্র করে। পাথেয়’র ব্যবস্থাপনাসম্পাদক সদরুদ্দীন মাকনুন জানান, পাথেয়’র সম্পাদক মহোদয় নিজেই একজন মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে সবসময় আমরা গুরুত্ব দিয়ে লেখা প্রকাশ করে থাকি। সংখ্যাটি সীরাতকে নিয়ে হলেও বাদ যায়নি ষোল ডিসেম্বরের কোনো আয়োজন। তরুণ তানজিল আমীর লিখেছেন চমৎকার একটি ফিচার।

আল জামিয়াতুল আরাবিয়া নাসীরুল ইসলাম, নাজিরহাট, চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত ইসলামী তাহযিব ও তামাদ্দুনিক পত্রিকা মাসিক দাওয়াতুল হকের সম্পাদক কাজী আবুল কালাম সিদ্দিক জানান, আমার সম্পাদিত দুই যুগেরও অধিক সময় ধরে নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। মাসিক ‘দাওয়াতুল হক’ এ বিজয়ের মাসে বিশেষ সম্পাদকীয়সহ মহান স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসবিষয়ক দুটি প্রবন্ধ গুরুত্বের সাথে স্থান পেয়েছে। একটি লিখেছেন ‘স্বাধীনতা ও বিজয় দিবস : ইসলাম কী বলে’ শিরোনামে মুফতি রিদওয়ানু কাদির উখিয়াভী এবং ‘ইসলামের দৃষ্টিতে বিজয় দিবস’ শিরোনামে লিখেছেন মুহাম্মদ আমিনুল হক। বহুল প্রচারিত দাওয়াতুল হকের সম্পাদক সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে বলেন, মিটিমিটি করে জ্বলতে থাকা হেরার এ আলোকে কোটি ফুঁৎকারেও নিভিয়ে দেয়া সম্ভব নয়।

রাজধানীর মিরপুর থেকে প্রকাশিত মাওলানা মুহাম্মদ সালমানের সম্পাদনায় প্রকাশিত আর রাশাদেও দেশপ্রেম ও ইসলাম শিরোনামে লিখেছেন সাংবাদিক জহির উদ্দিন বাবর।

সিলেট থেকে প্রকাশিত মাসিক আল কাসিম পত্রিকার সহকারী সম্পাদক জামিলুল হক জানান,  আল কাসিমে  সম্পাদকীয়তে বিজয়দিবসের কথা উঠেছে। এ ছাড়া  ‘স্বাধীনতা সংগ্রামে আলেম সমাজের ভূমিক’ শিরোনামের প্রবন্ধ লিখেছেন সৈয়দ রেজওয়ান আহমদ।

মাসিক আল কারিমে মুফতি দেলোয়ার হোসাইন সাকী রচিত পাঁচ পৃষ্ঠাব্যাপী দীর্ঘ  একটি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রবন্ধ ছাপা হয়েছে। এখানে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনসহ বাংলাদেশের বিজয়ের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা করেছেন সাকী। মাসিকটির প্রচ্ছদেও লালসবুজের আঁচড় পড়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কওমী মাদরাসাগুলোও নানাধরনের প্রোগ্রামের আয়োজন করে থাকে। মিডিয়াবিমুখ এসব প্রতিষ্ঠান বা আলেমদের বক্তব্য খুব কমই ওঠে আসে গণমাধ্যমে। নিজেরা অনেক অনুষ্ঠান করলেও মিডিয়ায় প্রচার করতে তেমন আগ্রহ দেখা যায় না তাদের মধ্যে। এটা দারুল উলুম দেওবন্দী চিন্তার আলেমদের একটা পৃথক বৈশিষ্ট্যও বটে। আলেম মুক্তিযোদ্ধাদের অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখা গেছে, অনেক আলেমের রক্ত ঝরেছে এই সবুজ বাংলাদেশ বিনির্মাণে। কিন্তু তারা শ্রমের বিনিময়ে আসলে কিছু চাননি। একটি দখলদারমুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশ চেয়েছিলেন তারা। এতেই খুশি ছিলেন।

মরহুম আলেমদ্বীন আল্লামা কাজী মুতাসিম বিল্লাহর মতো অনেকেই পেয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট। এটিকে সযতনে রাখাও প্রয়োজনবোধ করেননি। কারণ, তারা যা চেয়েছিলেন তা তো অর্জিত হয়েছে এই সোনার বাংলাদেশ। এর চেয়ে আর বড় কি চাই তাদের।
সিলেট রিপোর্ট/আজ/২০-১২-২০১৫

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now