শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » সাংবাদিক হত্যা বনাম মিডিয়ার স্বাধীনতা

সাংবাদিক হত্যা বনাম মিডিয়ার স্বাধীনতা

aরশীদ আহমদ, নিউইর্য়ক: সাংবাদিকতা হলো মূলত একটি সমাজ সংস্কার-মূলক বা সমাজ সেবামূলক পেশা। এটি একটি মহৎ পেশাও বটে। সংবাদ-কর্মীদের জাতির বিবেক এবং সংবাদপত্রকে জাতির দর্পন বলে আখ্যায়িত করা হয়। যার কারণে সমাজে এর ইতিবাচক কিংবা গঠন মূলক বা বিরূপ প্রভাব সুদূর প্রসারী। সাথে সাথে যে কোন দেশের সংবাদপত্র ও মিডিয়ার স্বাধীনতা সুষ্ঠু গনতন্ত্রের অপরিহার্য পূর্বশত। কিন্তু বর্তমান বিশ্বে অনেক দেশে তার ব্যত্যয় ঘটে চলেছে। গণমাধ্যম ও সংবাদ পত্রের উন্নতি বা বিকশিত হওয়া দৃশ্যত সাংবাদিকতার জন্য একটি আশির্বাদ ছিল। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে সংবাদ-পত্র ও মিডিয়া হাউসগুলোর মধ্যে চড়াই উৎরাইয়ের প্রবণতা এবং সরকার ও মিডিয়া মালিকদের কিছু বেপরোয়া কর্মকাণ্ডে মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে হুমকির দিকে ধাবিত করছে। ফলে সাংবাদিক হত্যা দিন দিন বাড়ছে ও মিডিয়ার স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন হচ্ছে। বিশ্বের সাথে বাংলাদেশের গণমাধ্যমের ওপর নানা-ভাবে একের পর এক আঘাত আসছে। সরাসরি কয়েকটি চ্যানেলও বর্জনের ঘোষণা আসছে স্বয়ং সরকারের পক্ষ থেকে। দেশের বিভিন্ন স্থানে একাধিক সংবাদ পত্র পোড়ানো হচ্ছে হাজার হাজার কপি। প্রকাশ্য পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে সংবাদপত্রের অফিস এবং সংবাদপত্র বহনকারী গাড়ি। অন্যায়ভাবে জেলে বন্দী করে রাখা হয়েছে সম্পাদক ও সংবাদকর্মীদের।
বর্তমান ক্ষমতাশীল দলের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ও পৃষ্ঠপোষকতায় এ ধরনের অহরহ কর্মকাণ্ড ঘটছে প্রতিনিয়ত। আর তা সাধারণ জনগনের কাছেও প্রতিয়মান হচ্ছে। স্পষ্টত গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। সংবাদ পত্রে এ ধরনের আঘাতের প্রতিবাদে দেশ-বিদেশের সাংবাদিক ও মিডিয়া সমাজ ক্ষুদ্ধ ও হতাশায় ভূগছে। সর্বমহলে সাংবাদিকদের দাবী হচ্ছে, গনতন্ত্রকে সংহত ও সুষ্টুভাবে সমাজ বির্নিমাণ করতে হলে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা অবশ্যই সু্রক্ষিত করতে হবে। স্বরণ রাখা দরকার যে অতীতে যারা ক্ষমতার জোরে গনমাধ্যমের ওপর আঘাত হেনেছেন, তাদের শেষ পরিণতি কোনভাবেই ভাল হয়নি। যারা সংবাদ পত্রের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না, তারা দেশের সার্বভৌমত্ব ও গনতন্ত্রে বিশ্বাস করেন না।
বাংলাদেশে ইতিমধ্যে কয়েকটি টিভি চ্যানেল ও সংবাদপত্র বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। যেমন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে চ্যানেল ওয়ান, দিগন্ত টিভি, ইসলামী টিভি, দৈনিক আমার দেশ ও অনলাইন পত্রিকা শীর্ষ নিউজ ডটকমসহ অনেক প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া। দৈনিক আমার দেশ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে দীর্ঘদিন ধরে অন্যায়ভাবে কারাবন্দী করে রাখা হয়েছে। সাংবাদিক সাগর রুনি হত্যার বিচার আজও হয়নি।
এসব কারণে বিশ্ব সংবাদ-পত্রের স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশ এর ১৫ ধাপ অবনতি ঘটেছে। অবনতি ঘটার পিছনে মিডিয়া উদ্যোক্তা ও মালিকদের দায়ভারও এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। কেননা মিডিয়া প্রচার-প্রকাশনা ও সম্প্রচারে উদ্যেক্তাদের একটি মিশন ও ভিশন থাকে। যদি না সেই উদ্যোক্তা মিডিয়া সংশিষ্ট ব্যক্তি হন। আর যদি মিডিয়ার উদ্যোক্তা বা মালিক ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদ হন তাহলে সেটা ভিন্ন কথা।

দুঃখজনক হলেও সত্য যে, দেশে-প্রবাসে প্রকাশিত বা সম্প্রসারিত পত্রিকা/টিভির অধিকাংশ উদ্যোক্তা রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী। ফলে সাংবাদিক বা সাংবাদিকতার চেয়ে দলের নেতাদের অথবা ব্যবসায়ী উদ্দ্যোক্তার পছন্দ অপছন্দ বেশি লক্ষনীয় হয়ে থাকে। ফলে স্বাধীন সাংবাদিকতা চরমভাবে বাধাগ্রস্থ হয়ে থাকে। কারণ বেশিরভাগ মিডিয়া দুইটি জিনিষ অর্জনে সদা লিপ্ত থাকে। একটি হচ্ছে ক্ষমতা এবং অপরটি হচ্ছে অর্থ উপার্জনের মোহ। এগুলোও কিছু কারণ নিরপেক্ষ ও বস্তু নিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের অন্তরায় হিসাবে।
দেশের ন্যায় সারা বিশ্বে সাংবাদিক হত্যাকারীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। কারণ সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সরকার এ ক্ষেত্রে যথেষ্ঠ ও উপযুক্ত পদক্ষেপ নিচ্ছে না। যার কারণে পার পেয়ে যাচ্ছে শতকরা ৯০ শতাংশ হত্যাকারী। এমন অবস্থায় দেশে দেশে সাংবাদিক নির্যাতন বেড়েই চলেছে।
ইদানীং আবার সাংবাদিকদের ওপর বর্বর হামলা ও নির্যাতনের সাথে সাথে অপহরণের ঘটনাও ঘটছে। মিডিয়া-কর্মীদের ওপর এসব হামলার ঘটনায় শুধু গেল বছর ২০১৪ সালে ৬৬ জন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। সম্প্রতি “রিপোর্টাস উইদাউট বর্ডার্রস” এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ইদানীং সংঘাতের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে ইসালামিক স্টেট (আইএস) গ্রুপের হাতে জেমস ফলি ও স্টিফেন সটলফ এর শিরশ্ছেদের ঘটনার মধ্যে দিয়ে বিশ্ব সাংবাদিকদের ভয়াবহ ঝুঁকির মুখে পড়তে হয়েছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, এভাবে সাংবাদিক হত্যার ঘটনায় বিশ্ব মিডিয়াকে স্তম্ভিত করেছে। তবে ঐ প্রতিবেদনে বলা হয় আগের বছর ২০১৩ সালের তুলনায় গেল বছর 2014 সালে সাংবাদিক হত্যার ঘটনা কিছুটা কমেছে তবে সাংবাদিক অপহরণ বেড়েছে। আগের বছর ২০১৩ সালে বিশ্বে মোট ৭১ জন সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছিল। ২০০৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত মোট ৭২০ জন সাংবাদিক কে হত্যা করা হয়েছে। গেল বছর কিছুটা সাংবাদিক হত্যা কমলেও অপহরনের ঘটনা ৩৭ শতাংশ বেড়েছে। বিগত বছর মোট ১১৯ জন সাংবাদিক ও মিডিয়া কর্মীকে অপহরণ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ইউক্রেন থেকে ৩৩জন, লিবিয়া থেকে ২৯ জন ও সিরিয়া থেকে ২৭ জন সাংবাদিককে অপহরণ করা হয়েছে। অপহ্নত সাংবাদিকদের ৯০ শতাংশই স্থানীয় বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।
এছাড়া বর্তমানে সিরিয়ায় সশস্ত্র গ্রুপের হাতে ২২ জন সাংবাদিক বন্দী রয়েছেন। চীনে ৩৩ জন, ইরিত্রিয়ায় ২৮ জন, ইরানে ১৯ জন এবং বাংলাদেশেও এ সংখ্যা কম নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া সোমালিয়া, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে সাংবাদিকরা নিরাপদ নয় বলেও বলা হয়েছে। বিগত বছর ৮ই ডিসেম্বর ২০১৪ পর্যন্ত এক বছরে মোট ১৭৮ জন সাংবাদিক কারাগারে ছিলেন। এর আগের বছর সংখ্যাটি একই ছিল।
অন্যদিকে নিউইর্য়ক ভিত্তিক কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিষ্ট (সিপিজে) এর এক প্রতিবেদনে বলেছে, বাংলাদেশ সহ নয়টি দেশে সাংবাদিক হত্যার বিচার হচ্ছে না। এতে ক্ষুন্ন হচ্ছে গনমাধ্যমের স্বাধীনতা। বেড়েছে হত্যার ঘটনা। সিপিজে এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে সারা বিশ্বে সাংবাদিকদের লক্ষ করে হত্যা ও খুনিদের পার পেয়ে যাওয়ার হার আশঙ্কাজনক-ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তূ এগুলো রোধে সরকার গুলো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থ।
প্রতিবেদনের আরো বলা হয় যে, গত ১০ বছরে সারা বিশ্বে পেশাগত দায়িত্ব পালনের কারণে ৩৭০ জন সাংবাদিক খুন হয়েছেন। এদের বড় একটি অংশ দুর্নীতি, অপরাধ, মানবাধিকার লঙ্গন, রাজনীতি ও যুদ্ধ নিয়ে সংবাদ করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। কিন্তূ তার খুব কম সংখ্যক ঘটনায় খুনিরা গ্রেপ্তার বা বিচারের আওতায় এসেছে।
“দ্যা রোড টু জাস্টিস ব্রেকিং দ্যা সাইকেল অফ ইমপিউনিটি ইন দ্যা কিলিং অব জার্নালিষ্টস” শিরোনামের এ প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে বাংলাদেশসহ নয়টি দেশে গত ১০ বছরে সাংবাদিক হত্যার বিচার না হওয়ায় হত্যার ঘটনা বেড়েছে। বাকি দেশগুলো হচ্ছে ব্রাজিল, কলোম্বিয়া, ভারত, ইরাক, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, রাশিয়া ও সোমালিয়া।
প্রতিবেদনটির মূলপ্রনেতা এলিজাবেথ ইউটচেল বলেছেন, আজকের দিনে গণ মাধ্যমের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান হুমকি হচ্ছে অবাধে সাংবাদিকদের হত্যা ও এসব হত্যকাণ্ডের সুষ্টু বিচার না হওয়া। অথচ সাংবাদিকরাই সমাজ ও পৃথিবীকে তথ্যের জানান দিচ্ছে।
পরিশেষে বলতে হচ্ছে সমাজের বিবেক হিসেবে পরিচিত ও সমাদৃত সাংবাদিক, গণমাধ্যম কর্মীদের সার্বিক নিরাপত্তা, স্বাধীনতার বিধানসহ খুনী ও নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে নিজ নিজ দেশের সরকার, প্রশাসন কঠোর আইনী ব্যবস্থা ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবেন। এটাই দেশ জাতি ও বিশ্বের প্রতিটি দেশের জনগনের প্রত্যাশা।

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now