শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » আমার এই বুকে জাগাও প্রতিচ্ছায়া…

আমার এই বুকে জাগাও প্রতিচ্ছায়া…

kh10কেয়া চৌধুরী: কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী, যার সমস্ত হৃদয় জুড়ে ছিল মা, মাটি ও মানুষ; আর কর্মগুনে প্রখর ছিল এক আলোকিত বর্ণাঢ্যময় জীবন। দেশপ্রেমে উজ্জীবিত ১৯৭১ সালে রণকৌশলী এক বীর। জ্যোর্তিময় কালপুরুষ মানিক চৌধুরী। জন্ম ১৯৩৩ সালের ২০ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ মহকুমার বাহুবল উপজেলার খাগাউড়া গ্রামে। ব্যক্তিগত জীবনে মানিক চৌধুরী দিল-খোলা, হাসি-খুশি, পরোপকারী এমন এক মানুষ, যার সভা-সমাবেশে আসর জমানো ছিল অতি-স্বাভাবিক ঘটনা। অন্যান্য সবকিছুকে ছাপিয়ে যে অনন্য অসাধারণ গুনটি তাকে সহসা অন্যান্যদের থেকে আলাদা করত তা হল, জটিলতর মুহুর্তে তড়িৎ সিদ্ধান্ত নেবার দূর্লভ নেতৃত্ব গুন। ১৯৭১ সাল; ২৫ মার্চ দিবাগত রাত। মানিক চৌধুরীর হবিগঞ্জের বাসায় এক বার্তাবাহক কড়া নাড়ল। বার্তা এসেছে, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা করেছেন। সেই স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি মানিক চৌধুরীর কাছে ওয়্যারলেসযোগে বঙ্গবন্ধু প্রেরণ করেছেন। তাতে অনেক কিছু লেখা। কিন্তু যে কথাগুলি মানিক চৌধুরীর মনে ঝড় বয়ে গেল, বাংলার নিরীহ মানুষের উপর পাকিস্তানি সৈন্যরা অতর্কিত হামলা করেছে। যে কোন মূল্যে তাদেরকে প্রতিহত করতে হবে। বাংলাদেশ আজ থেকে স্বাধীন। জয় বাংলা। মানিক চৌধুরী সূর্য ওঠার অপেক্ষায় রইলেন না। ২৬ মার্চ আওয়ামীলীগের সকল নেতাকর্মীর কাছে বঙ্গবন্ধুর এই বার্তা পড়ে শোনালেন। তারপর থেকেই শুরু হল সশস্ত্র যুদ্ধের প্রস্তুতি। যুদ্ধ করতে হবে, কিন্তু অস্ত্রতো নেই, বঙ্গবন্ধুর ডাকে যুদ্ধে যাবার জন্য হাজার হাজার জনতার ঢল। হবিগঞ্জ মহকুমা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সকল নেতৃবৃন্দ হাজির হয়েছেন। যুদ্ধের জন্য অস্ত্র প্রয়োজন। হবিগঞ্জ মহকুমা প্রশাসককে অনুরোধ করা হল অস্ত্র দেবার জন্য। মহকুমা প্রশাসক অস্ত্র দিতে অস্বীকার করলেন। পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করল। শায়েস্তাগঞ্জ হতে মানিক চৌধুরী ছুটে এলেন। ধীর পদক্ষেপে এগিয়ে গেলেন এসডিও সাহেবের অফিস কক্ষে। মানিক চৌধুরী বললেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। জাতির এই দূর্দিনে আপনি অস্ত্র দিবেন কিনা বলেন; এসডিও সাহেব? বিপ্লবী বেশে মানিক চৌধুরীর এ রণবেশ দেখে, আর কালক্ষেপণ করা হল না। হবিগঞ্জ সরকারি অস্ত্রাগারের বড় তালা খোলা হল। মানিক চৌধুরীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা বের করে আনলেন ৩৫০টি রাইফেল ও ২২৫০টি গুলি। আর এই অস্ত্র-গোলাবারুদ দিয়েই হবিগঞ্জ থেকে মৌলভীবাজার হয়ে শেরপুর-সাদিপুর যুদ্ধে মানিক চৌধুরীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়লেন। প্রখর এক আলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা। যা বেঁচে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের চোখে-মুখে এখনও ঝিলিক দিয়ে ওঠে। আর আমরা যারা উত্তরাধিকারী সূত্রে সে রক্ত শরীরে বহন করে চলেছি, নিশ্চিতভাবে বলতে পারি; তা আমাদের চেতনার শক্তিকে জাগ্রত করে। মানিক চৌধুরীর গভীর দূর্বলতা ও ভালবাসা ছিল দুটি বিষয়ে, প্রথমত বাংলাদেশ আর অন্যটি বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশের নামটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে পৃথিবীর মানচিত্রে প্রতিষ্ঠা করতে বঙ্গবন্ধু যখন নির্দেশ দিলেন; যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার। মানিক চৌধুরী সিলেটে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পরলেন। তীর-ধনুক দিয়ে চা-বাগানের শ্রমিকদের নিয়ে তীরন্দাজ বাহিনী গঠন করে সিলেটের শেরপুর-সাদিপুর যুদ্ধের মধ্য দিয়ে সিলেটকে শত্র“মুক্ত করার আপ্রাণ চেষ্টা করতে লাগলেন। এরপর একের পর এক যুদ্ধ। রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ। যেন এ যুদ্ধের শেষ নেই। অনেক বেশী অস্ত্র-গোলাবারুদ, খাদ্য-ঔষধ ও প্রশিক্ষিত জোয়ান প্রয়োজন। মানিক চৌধুরী ভারত থেকে অস্ত্র নিয়ে এলেন, এলাকার বিত্তবানদের কাছ থেকে খাদ্য-ঔষধ-পোশাক ও যানবাহন সংগ্রহ করতে লাগলেন। একই সাথে ভারতে খোয়াই অঞ্চলে জোয়ানদের প্রশিক্ষণের জন্য ক্যা¤প খোলা হল। এভাবেই সমৃদ্ধ হতে লাগল মুক্তিফৌজ। বহুমুখি কর্মকান্ডে বেসামরিক মানিক চৌধুরী সামরিক রণকৌশল অবলম্বনের মাধ্যমে যুদ্ধ ক্ষেত্রে অনেকের দৃষ্টি কেড়ে নিলেন। এভাবেই মানিক চৌধুরী থেকে কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী হওয়া। মানিক চৌধুরীর যুদ্ধ ছিল ঘরে এবং বাইরে। আদর্শিক এই লড়াইয়ে তিনি রক্তকেও ছাড় দেননি। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে শুধু বীরত্বের কাহিনীই নয়। মর্ম বেদনার অনেক ইতিকথা লেখা আছে অশ্র“জলে। সিলেটে যুদ্ধ যখন পুরোদমে চলছে, শেরপুর-সাদিপুর যুদ্ধে মানিক চৌধুরী যখন সাফল্যের সাথে যুদ্ধে সফল হতে চলেছেন। তখন মানিক চৌধুরীর মনোবলকে দূর্বল করার জন্য ২৯ এপ্রিল ১৯৭১ হবিগঞ্জের হাসপাতাল সড়কে তার পৈতৃক বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হল। শিক্ষক পিতার সাড়া জীবনের কষ্টার্জিত উপার্জনে, তিল-তিল করে গড়ে ওঠা, মানিক চৌধুরীর বাবা-মার সংসার পুড়ে ছাই হয়ে গেল। তার সাথে নষ্ট হয়ে গেল অনেক অমূল্য স্মারক। কারণ ১৯৬৬ এর ৬ দফা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু যখন সারাদেশব্যাপি সফর করেছিলেন, আন্দোলনকে জনগণের কাছে নিয়ে যেতে; তখন হবিগঞ্জে মানিক চৌধুরীর পৈত্রিক এই বাড়িতেই শেখ মুজিবুর রহমান এসেছিলেন। এই বাড়িতেই তখন সভা হয়েছিল। পরবর্তীতে মানিক চৌধুরীর পৈত্রিক ভিটার কাচারি ঘরে হবিগঞ্জের ছাত্রলীগের প্রথম কার্যালয় প্রতিষ্ঠা পায়। এসকল কারনে মানিক চৌধুরীর বাড়িটি বাঙ্গালীর মুক্তি সংগ্রামের আন্দোলনের আদর্শ বিরোধীদের কাছে একটি যন্ত্রণার স্থান ছিল। আগুনের লেলিহান শিখায় বাড়িটি যখন জ্বলছিল; মানিক চৌধুরীর বৃদ্ধা মা সৈয়দা ফজুন্নেসাসহ স্ত্রী সন্তানেরা অসহায়ের মত ছুটাছুটি করছিলেন। এ সমস্ত খবরই মানিক চৌধুরীর কাছে পর্যায়ক্রমে পৌছেছে। কিন্তু মানিক চৌধুরী যুদ্ধক্ষেত্রে ছিলেন অবিচল। ছিলেন নির্ভিক। অবশেষে ১৬ই ডিসেম্বর, লাল সবুজ পতাকাকে আকাশে উড়িয়ে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, শ্লোগানে শ্লোগানে বীরের বেশে হবিগঞ্জে ফিরলেন কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী। বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার পর, ৭৫ এর পরবর্তীতে রাজনৈতিক ভাবে জেল-জুলুমের শিকার হতে হয়েছে মানিক চৌধুরীকে। দীর্ঘ সাড়ে চার বছরের কারাবাস, শারীরিক অসুস্থতা ও সংসারের টানাপোড়ন, তার মধ্যেও মানিক চৌধুরী থেমে যাননি। মানুষের জন্য, দেশের জন্য বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক সৈনিক হয়ে কাজ করে গেছেন। আব্বার জীবনের একেবারে শেষ সময়ের কথা। দীর্ঘ কারাভোগের কারনে, তার শরীরে বাসা বেঁধেছে নানা অসুখ। তখন আমাদের সংসারে একমাত্র আয়ের উৎস ছিল, হবিগঞ্জের কেয়া-কলি ফটোষ্ট্যাট দোকান ঘর থেকে দৈনিক কিছু নগদ অর্থের জোগান। আর গ্রামের বাড়ি থেকে আসত বোরো মৌসমে প্রায় শ-তিনশ মণের মত ধান। এই দিয়ে আমাদের সংসার চলত। আব্বার শরীরটা বেশ খারাপ। ঢাকায় এসে চিকিৎসা করা তখন খুব জরুরী। কিডনির অবস্থা ভাল নয়, তাই ডায়ালাইসিস প্রয়োজন। তার জন্য প্রয়োজন নগত অর্থের। আমার এখনও ¯পষ্ট মনে আছে, শীতের সকালে আব্বা ঘুম থেকে উঠলে আম্মা পাশে এসে বসলেন। কথা প্রসঙ্গে বললেন, যুদ্ধের সময় বাড়িটা রাজাকারেরা দেখিয়ে দিয়ে পুড়িয়ে দিল। সংসারে কত অনটন। চিকিৎসার জন্য টাকা দরকার। দেশটাতো এখন স্বাধীন। কতজনই না কত কিছু সরকারের কাছ থেকে নিচ্ছে; আপনিতো মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধের সময় ক্ষতিগ্রস্থ হিসেবে সরকারের কাছে আবেদন করলেও তো পারেন। কথাটা শোনামাত্রই আব্বা মনে হল; লাফ দিয়ে উঠলেন। বড় বড় চোখ; তাতে কিছুটা অশ্র“ সাথে তীব্র ক্ষোভ। আব্বা বললেন, কাগজে নাম লেখানোর জন্য যুদ্ধ করি নাই। যুদ্ধ করেছি দেশের জন্য, মানুষের জন্য। সংসারে যতই অনটন থাকুক; মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমি কোন সুযোগ নিব না। অবশেষে আব্বার ইচ্ছাই সত্য হয়েছে। ১৯৯১ সালের ১০ জানুয়ারি লাল সবুজ পতাকা নিয়ে আচ্ছ্বাদিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধার সম্মান নিয়ে; না ফেরার দেশে চলে গেছেন আব্বা। কিন্তু এখনও মনে হলে খুব খারাপ লাগে; ছোটবেলায় আব্বার উপর খুব অভিমান হতো সমবয়সীদের মত অনেক কিছু না পাবার কারনে। আব্বা বেঁচে থাকতে অনেকেই আমাদের বাসায় আসতে দেখেছি। তাদের মধ্যে অনেকেই আমার মত শিশু বয়সেরও ছিল। যারা ছিল অনেক বেশি উজ্জল। তাদের মত করে না পাবার সেই কষ্ট ও চাঁপা অভিমান, তার পুরোটাই পরতো আব্বার উপরে। কিন্তু আজ এসব মিথ্যা মনে হয়। মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসের পাতায় কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী জ্বল-জ্বল করা উজ্জল নামটি আজ আমার জীবনে সবচেয়ে বড় অহংকার। আমি গর্বিত বোধ করি এই ভেবে, আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর রক্তের উত্তরাধিকারী। আব্বা তুমি যেখানেই থাকো না কেন, আমার অনেক আদর ও ভালবাসা নিও। তুমি আছ সদা জাগ্রত হয়ে আমার সমগ্র চেতনায়।

কেয়া চৌধুরী: (সমাজ কর্মী ও সংসদ সদস্য)

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now