শীর্ষ শিরোনাম
Home » হবিগঞ্জ » শায়েস্তাগঞ্জে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা : গণধর্ষনে হাসপাতালে ভর্তি

শায়েস্তাগঞ্জে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা : গণধর্ষনে হাসপাতালে ভর্তি

ZMoসিলেট রিপোর্ট: শায়েস্তাগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে বন্ধুদের নিয়ে মেয়েটিকে গণধর্ষণ করেছে এক লম্পট। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মেয়েটিকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছাত্রীটির মা আনোয়ারা বেগম জানান, তার কন্যা নবীগঞ্জ উপজেলার টিলাগাঁও কিন্ডারগার্টেন স্কুলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী। আনোয়ারার পিতার বাড়ি নবীগঞ্জের চরগাঁও। স্বামীর সাথে বনিবনা না থাকায় একমাত্র কন্যাকে নিয়ে পিত্রালয়ে বসবাস করতেন তিনি। তার স্বপ্ন ছিল মেয়েকে লেখাপড়া করিয়ে ডাক্তার করা। সম্প্রতি তার স্বামী কামাল বক্স এসে মেয়েকে বেড়ানোর কথা বলে শায়েস্তাগঞ্জের নিজগাঁও গ্রামে ফুফুর বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে মেয়েকে রেখে কামাল বক্স চলে যায়। সেখানে মেয়েটির ফুফু তারা বানু তাকে তার বাড়িতে থেকে পড়ালেখা করতে বলেন। তারা বানুর স্বামী আব্দুল ওয়াহাব দুই বছর আগে মারা গেছেন। মেয়েটি সুন্দরী হওয়ায় তারা বানুর পুত্র বাপ্পী আহমেদের কুনজর পড়ে তার উপর। বিয়ের প্রলোভন দিয়ে মেয়েটির সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলে। মেয়েটির সাথে প্রায়ই দৈহিক সম্পর্কে মিলিত হতো বাপ্পী। এক পর্যায়ে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। গত শনিবার রাতে বাপ্পী তার বন্ধু রাজুসহ কয়েক যুবক মেয়েটিকে হবিগঞ্জে মমতাজের কনসার্টের কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে আসে। এক পর্যায়ে শায়েস্তাগঞ্জের একটি হোটেলে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে লম্পটরা পালিয়ে যায়। মেয়েটি ফোন করে ফুফু তারা বানুকে এ ঘটনা জানালে তিনি তাকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান এবং বিষয়টি কাউকে বলতে মানা করেন। এরপর মেয়েটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মাকে খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে মা আনোয়ারা বেগম গতকাল রবিবার বিকেলে মেয়েকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করান। বর্তমানে মেয়েটির অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

সুত্র-দৈ.খো/হবি ১১-১-২০১৬

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now