শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » বিবাড়িয়ায় ওলামাদের দূরদর্শী সিদ্ধান্ত

বিবাড়িয়ায় ওলামাদের দূরদর্শী সিদ্ধান্ত

bibaria.madrasaমাওলনানা ওয়ালি উল্লাহ আরমানঃ সঙ্কটের মুখে বাস্তবতার আলোকে সিদ্ধান্ত নিতে হয়৷ অতি প্রয়োজনের সময় মাথা গরম করে হঠকারি সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভালো ফল আসে না৷ আর সঙ্কটটি যদি ব্যাপক বিস্তৃত হয়, তবে সবদিক বিবেচনায় রেখেই পদক্ষেপ নিতে হয়৷

ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি মারকাজ জামিয়া ইউনুসিয়ার একজন হাফেজে কুরআন শিক্ষার্থী গতপরশু গভীররাতে পুলিশ এবং ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডারদের হাতে নৃশংস ও বর্বরোচিত কায়দায় খুন হয়েছেন৷ যে হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে গোটা জেলা অচল হয় পড়ে৷ অগ্নিস্ফুলিঙ্গের ন্যায় যার ঢেউ সারাদেশের পাড়ামহল্লা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ার উপক্রম হয়৷

পরবর্তী চব্বিশ ঘণ্টায় বিষয়টি কেবল আর মহান শহীদ হাফেজ মাসউদুর রহমানের শোকাতুর পরিবার, জামিয়া ইউনুসিয়া কিংবা বিবাড়িয়া জেলায় সীমাবদ্ধ থাকেনি বরং দেশের হাজার হাজার কওমী মাদরাসার অস্তিত্ব ও নিরাপত্তা, সর্বোপরি গোটা দেশে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ার উপক্রম হয়৷ রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, পাড়া, মহল্লায় দাবানলের মতো এখবর পৌঁছে যায় এবং সংক্ষুব্ধ মনে অজস্র মানুষ পথে নেমে আসেন৷ কিছু দাবী, কিছু আল্টিমেটাম আর কিছু হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করা হয়৷ সরকারেরও টনক নড়ে৷ কওমী মাদরাসার অভিভাবক বোর্ড বেফাক নেতৃবৃন্দ ত্বড়িৎ বৈঠকে বসে পরামর্শের ভিত্তিতে সুনির্দিষ্টি দাবীনামা সংশ্লিষ্টমহলে পৌঁছে দিয়ে বিবাড়িয়া চলে যান৷ জামিয়া ইউনুসিয়ার ছাত্র-শিক্ষক এবং স্থানীয় ওলামায়ে কেরাম ও তৌহিদী জনতাকে আশ্বস্ত করেন যে, আমরা আপনাদের সাথেই আছি৷ প্রশাসনের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গ বিবাড়িয়ার প্রতিনিধিত্বশীল ওলামায়ে কেরাম এবং বেফাক নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকের জন্য জামিয়া ইউনুসিয়ায় হাজির হন৷

এসময় সকল পক্ষের প্রথম বিবেচনা ছিলো যে, ঐ মর্মান্তিক ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃতীয় কোনো পক্ষ যেনো কুমতলব হাসিলের কূটকৌশল অবলম্বন করতে না পারে৷ যাতে দেশজাতি, মাদরাসা-মসজিদ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷

উদ্ভূত সমস্যা নিরসনে প্রত্যক্ষ ভূমিকা পালনকারীদের অন্যতম দু’জন হলেন জামিয়া ইউনুসিয়ার সহকারী নাজিমে তালিমাত মাওলানা আবদুর রহীম সাহেব এবং দারুল আরক্বামের মুহাদ্দিস মাওলানা সাইফুল্লাহ নাসিম সাহেব বললেন-

“প্রথমত, আমরা এই বিষয়টা নিয়ে রাজনীতি করতে চাইনি
দ্বিতীয়ত, এই বিষয়টাকে এখানেই থামিয়ে দিতে চেয়েছি।
তৃতীয়ত, শহীদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবী করা হয়েছিল। কোনরকম টাকা পয়সা নির্ধারণ করা হয়নি। প্রশাসন আমাদের সকল দাবী মেনে নিয়েছে। এবং তাৎক্ষণিক দুজন পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারও করে নিয়েছে।”

আমাদের আবেগী বন্ধুরা এই ঘটনার পূর্বাপর এবং দেশের চলমান অবস্থা সম্পর্কে যেনো সম্পূর্ণ চোখকান বন্ধ রেখে এমনসব বক্তব্য সংবলিত পোস্ট দিচ্ছেন যা বেদনার উদ্রেক করছে৷ আপনারা কি জানেন না, মাদরাসা কর্তৃপক্ষ, আলেম-ওলামা এবং মসজিদের ইমাম-খতীব অথবা মুবাল্লিগ ও ওয়ায়েজগণ কতো প্রতিকূলতার মাঝেও দ্বীনের আওয়াজ টিকিয়ে রাখতে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন?

দেশের কোনো কওমী মাদরাসা কিংবা তার কোনো ছাত্র-শিক্ষকের জীবন-নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে গোটাদেশের কওমী মাদরাসা এবং ইসলামপ্রেমী জনতার মাঝে প্রতিবাদ-প্রতিরোধের অগ্নিঝড় প্রত্যক্ষ করে ভবিষ্যতে যে কেউ অন্যায় হস্তক্ষেপের পূর্বে অবশ্যই বারবার ভেবে নিবে ইনশাআল্লাহ৷ এ ঘটনার ইতিবাচক এই দিকটিকে আমরা এড়িয়ে যেতে পারি না কোনোক্রমেই৷

আজ অনেকে পঞ্চাশ হাজার টাকার গল্প বলছেন৷ এই গল্পের নির্ভরযোগ্য সুত্রটা কি? বলতে না পারলেও অযাচিত সমালোচনায় কিন্তু একবিন্দু ছাড় দিচ্ছেন না কেউই। এই টাকার গল্পটা তৈরি করা হয়েছে স্রেফ কওমী আলেমদের হেয়প্রতিপন্ন করা এবং বিভ্রান্তি ছড়ানোর অসদুদ্দেশ্যে৷

আমরা বরং মনে করি, বিবাড়িয়া সংকট সমাধানে সঠিক সিদ্ধান্তের জন্য ওলামায়ে কেরাম উষ্ণ অভিনন্দন পাবার যোগ্য৷

তাছাড়া শহীদ মাসউদুর রহমানের শোকাতুর কিন্তু সৌভাগ্যবতী ও গর্বিত জননীর বক্তব্য শোনেননি যে, “আমার ছেলে শাপলা চত্বরেই শহীদ হবার বাসনা নিয়ে গিয়েছিলো৷ আল্লাহ তখন কবুল না করলেও এখন করেছেন৷ যারা আমার ছেলেকে হত্যা করেছে, তাদের বিচার আল্লাহই করবেন৷”

প্রশ্ন করতে পারেন; “সমালোচকদের উদ্দেশ্যটা কী? মাঠে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে তাদের কি লাভ?”
আমি তাদের পরিচয় দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করছি না৷ কিন্তু বছর তিনেক পূর্বে মাওলানা দিলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর শুধুমাত্র ফাঁসির রায় ঘোষণার পর যারা আবেগে উন্মাদ হয়ে প্রায় দু’শত মানুষকে অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিতে উস্কে দিলেন৷ নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি নিয়ে যাদের অগাধ আস্থা৷ সেই তারাই কেনো পরবর্তীতে আব্দুল কাদের মোল্লা, কামারুজ্জামান, আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকরের পরেও কেবল দায়সারা গোছের এবং লোকদেখানো প্রেস রিলিজ সর্বস্ব হরতালের কর্মসূচী ছাড়া আর কিছুই করলেন না? তবে তাদের মনে ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলে যাওয়া নেতাদের জন্য কোনো ভালোবাসা ছিলো না?

যে বিএনপির জনপ্রিয়তার পারদ কখনো প্রথম, কখনো দ্বিতীয় থাকে৷ যে দলের অসংখ্য নেতাকর্মী গুম, খুন, জেল জুলুম, হুলিয়া আর মামলায় মামলায় জর্জরিত হয়ে বাড়িঘর, এলাকা ছাড়া হলেন৷ দু’বছর পূর্বের একতরফা এবং অবৈধ নির্বাচন প্রতিহতের জন্য যাদের কয়েকশ কর্মী প্রাণ হারালো৷ তারাই কেনো আজ বলছে যে, “আন্দোলন নয়, নির্বাচনের মাধ্যমেই সরকারের পতন ঘটানো হবে৷”

প্রকাশ্য ভোট ডাকাতি হবে জেনেও কেনো তারা গতবছরের উপজেলা এবং সদ্যসমাপ্ত পৌরনির্বাচনে অংশ নিলেন? কারণ জামায়াত এবং বিএনপি চলমান রুদ্ধশ্বাস অবস্থার ভয়াবহতা এবং বাস্তবতা উপলব্ধি করেই করণীয় নির্ধারণ করেছে৷

তাহলে ওলামায়ে কেরামের সময়োপযোগী, বাস্তবভিত্তিক এবং দূরদর্শী সিদ্ধান্তে কেনো কারো গা জ্বালা ধরে? পরের মাথায় কাঠাল ভেঙ্গে খেতে এত্তো মজা কেনো?

আমাদের এই সমাজে এমন অনেক লোক আছেন যারা ঘটনা ঘটার আগে ও পরে তর্জন গর্জন করেন, উস্কানি দেন৷ কিন্তু ঘটনা ঘটার সময় গর্তে লুকিয়ে থাকেন।

ঘটনা ঘটার সময় সম্মুখ সমরে যদি না পাই তাহলে কথিত ‘বীর সিপাহসালার’ ‘বাংলার সিংহপুরুষ’ ‘আপোসহীন কাণ্ডারী’দের দিয়ে কোন ঘোড়ার ঘাস কাটাবো?

মাওলনানা ওয়ালি উল্লাহ আরমান: কৃষি বিষয়ক সম্পাদক, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ও সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি, ছাত্র জমিয়ত

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now