শীর্ষ শিরোনাম
Home » পত্রিকার পাতা থেকে » বাংলাদেশে ইসলামি রাজনীতি ও ভাঙ্গনের ইতিহাসঃ একটি পর্যালোচনা

বাংলাদেশে ইসলামি রাজনীতি ও ভাঙ্গনের ইতিহাসঃ একটি পর্যালোচনা

islami-dol-logoহাকীম সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ : উপমহাদেশে দারুল উলুম দেওবন্দকে ঘিরে তা’লিম, তাবলীগ, তাজকিয়া ও ইসলামি আন্দোলনের যে মহান যুগান্তকারী ধারা তৈরি হয়েছিল, সে ধারায় তা’লিম ও তাবলীগ বিশ্বব্যাপি সফলতার স্বর্ণ শিখরে পৌঁছুলেও তাজকিয়াভিত্তিক (খানকা) মেহনত অনেকটা নির্জীব হয়ে আছে। অপর দিকে ইসলামি আন্দোলন দিন দিন প্রচলিত রাজনীতির চোরাবালিতে হারিয়ে যাচ্ছে। এমন এক পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে যে, তাগুতি সংগঠনগুলোর কার্যক্রম, কর্মসূচি, আন্দোলন-সংগ্রাম, পলিসি নির্ধারন ও রাজনীতি এবং আমাদের রাজনীতির মধ্যে ব্যবধান ক্রমশ কমে যাচ্ছে। এমন হওয়ার পেছনে কী কারণ থাকতে পারে? ব্যর্থতার মূল রহস্য কি? বিশেষ করে আমাদের দেশের ইসলামি রাজনীতির এই করুন দশা কেন? আজকের প্রজন্মের কাছে এসব বিষয় পরিস্কার হওয়া প্রয়োজন। প্রয়োজন একটি তথ্যভিত্তিক পর্যালোচনার। নতুবা রাজনীতি অঙ্গনে ইসলামি আন্দোলনের ক্ষেত্রে সামনে আমাদের আরো কঠিন সময় পার করতে হবে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে ইসলামি সংগঠনের অভাব নেই। যার যখন নেতা হওয়ার খায়েশ সৃষ্টি হয়, তখন তিনি আর নিরব থাকতে পারেন না। দলের মধ্যে একটু বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেই আরেকটি নতুন তাজা দল গঠন করে ফেলেন। নিজের সাথে জনগণ বা নেতা কর্মী আছে কিনা, তা ভেবে দেখা উচিত বলে মনে করেন না। দু’একটি মাদরাসায় প্রভাব থাকলে তো আর উপায় নেই। শক্তির মহড়া প্রদর্শন করতে বেগ পেতে হয় না।| ডাক দিলেই মাদরাসার ছাত্ররা জিন্দাবাদ জিন্দাবাদ শ্লোগান দিয়ে আকাশে তুলে ফেলেন তথাকথিত নেতাকে। রিজার্ভ ছাত্রদের ব্যবহার করে নিজের কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে সাহস বেড়ে যায় অনেক গুণ। এজন্য নতুন সংগঠন জন্ম দিতে খুব একটা ত্যাগ স্বীকার করতে হয়না।

সংগঠন হচ্ছে মানুষের। সব নেতা-কর্মীরা কিন্তু এক পরিবার থেকে আসেনি। এখানে বিভিন্ন পরিবার ও ভিবিন্ন বংশের লোকের অংশগ্রহণ রয়েছে। বিভিন্ন মত থকতে পারে। বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে | মানুষের বাস যেখানে আছে সেখানে সমস্যা থাকবে সাথে সমাধান ও থাকবে। হ্যা, তবে সমাধানের পথে হাঁটতে হবে। সমস্যা সাহাবাদের যুগেও হয়েছিল। তখন সমাধানের পথ কী ছিল? আমাদের সামনে “হায়াতুস সাহাবা” না থাকার কারণে ইসলামি আন্দোলনের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আজ একেবারেই অবহেলা আর গুরুত্বহীনে পরিণত হয়েছে।

আমরা লক্ষ্য করেছি, অনেক নেতৃবৃন্দের সামান্য সমস্যাটুকু মোকাবেলা করার মতো ধৈর্যশক্তি নেই। নিজের মতের একটু বিপরীত হলেই আমি আর নেই। আমি আমীর বা মহাসচিব হলেই আমার মতামতকে চূড়ান্ত হিসেবে মেনে নিতে হবে। যে সিদ্ধান্ত হলে আমার ব্যক্তিগত ফায়দা হাসিল হবে, সেটাই নিয়ে আমি ব্যস্থ। এখানে ইসলামের ফায়দা কতটুকু হবে, সেটা আমার দেখা বা চিন্তার বিষয় নয়। এরকম মন-মানসিকতা থাকার কারণেই ইসলামি সংগঠনগুলোর বেহাল দশা। অধিকাংশ রাজনৈতিক নেতাদের জীবন থেকে এখলাস নামক অধ্যায় একেবারেই হারিয়ে গেছে। নামায, রোযা, হ্জ্জকে এবাদত মনে করলেও রাজনীতিকে আমাদের নেতারা এখলাসওয়ালা এবাদতের মত মনে করতে বারবার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। কোন জায়গায় তার একটু কম মূল্যায়ন কিংবা বক্তৃতা-বিবৃতিতে নাম না দিলেই দেখা যায় এখলাস আর লিল্লাহিয়তের কি অবস্থা! পদ-পদবী আর পজিশন ঠিক মত না পেলে তো আর কথাই নেই।

indexজাতি আজ হতাশ। যাদের কাছ থেকে অনেক অনেক ভালো কিছু আশা করে এ জাতি, সে আশা আজ আর বাস্থবায়িত হচ্ছে না। সকল স্বপ্ন হারিয়ে যাচ্ছে এক অজানা গলিপথে। কিছু ক্ষনিক স্বার্থের মোহে। নিজের সামান্য দুনিয়াবী আখের গোছানো আর পদ-পদবীর লোভে। আখেরাতের অনন্ত জীবন আর পরকালের জবাবদিহিতার কোন পরোয়া নেই। ঈমান কমজোর হতে হতে ব্যক্তিস্বার্থ এতো বেশি জজবার তৈরি করছে, যার ফলে অনৈক্যের ক্ষত-বিক্ষত ক্যান্সার আজ ইসলামি গণবিপ্লবের পথ পদ্ধতিতে পচন ধরিয়েছে। নিজেদের স্বার্থের জন্য একটি আন্দোলন, একটি সংগঠনকে ভেঙ্গে খান খান করতে, টুকরো টুকরো, খণ্ড-বিখণ্ড করতে। নেতা কর্মীদের বিপর্যয়ের মূখে ফেলে পুরো দল ও আন্দোলনের কর্মীদের বেঁচাকেনা করতে আমাদের বুক একটুও কাপেঁনা খোদার ভয়ে। সাংগঠনিক বই, সংবিধান আর কুরআন-কিতাবের পাতায় মলাটবদ্ধ সব বাস্তবতা। লেবাসের আড়ালে আমাদের আরেক রূপ পলকেই ভেসে উঠে অতি সহজে। মঞ্জিলে মকসুদের রাজপথ হারিয়ে আজ আমরা উদ্দ্যশ্যহীন এক পথে হাটছি। নিজেকে একমাত্র হক, ভুলের উর্ধ্বে আর বাকী সব ভুল পথে- এই নীতি ঐক্যের পথে অন্তরায় হয়ে আছে। অন্যের এতাআত আমাদের ডিকশনারীতে নেই। স্বজনপ্রীতি আর পারিবারিক নেতৃত্ব মূল য্যোগ্যতার চাবিকাটিতে রূপ নিয়েছে। আমরা কেবল সংবিধান চর্চা করি, সংবিধান বুঝি বাকিরা এব্যাপারে মূর্খ। কিন্তু আমার সংবিধানিক চর্চা যে কুরআন চর্চা ও সুন্নাহ চর্চার খেলাফ চলছে, সে কথা মাথায়ই নেই।

জানিনা, কবে যে সুস্থ হবে আমাদের প্রত্যাশিত এ পথ। কবে যে ঐক্যের মিশন আলোর মুখ দেখবে। কবে যে বাংলাদেশের সবুজ ভুখণ্ডের বুকে পত পত করে উড়বে কালেমা খচিত লাল সবুজের শান্তির পতাকা।
ইসলামি সংগঠনগুলোর ঐক্য হচ্ছে ব্যাপকভিত্তিক। সুসংহত, শক্তিশালী এক আন্দোলন। এ আন্দোলনকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। বাংলাদেশের ইতিহাসে অতীতে ইসলামি ঐক্যের প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে অনেকবার। কখনো ঐক্য হয়েছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত নেতৃত্বের লড়াইয়ে ঐক্যের মধ্যে ফাটল ধরে যায়। জাতি ঐক্যের ফল ভোগ করতে পারেনি এবং ইসলামেরও তেমন কোন ফায়দা হয়নি।
আল্লাহ আমাদেরকে হেফাজত কর এবং ইসলামি আন্দোলনের সহী সমুঝ দান কর। আমীন।

(2)

বাংলাদেশের ইসলামী রাজনীতির ইতিহাস ও ভাঙ্গনের বিপর্যয় নিয়ে আলোচনা করলেই শুরুতে ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনতম রাজনৈতিক সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নাম আসে। এতো ঘাত- প্রতিঘাত, ভাঙ্গন ও বার বার খন্ড বিখন্ডের পরেও আজ পর্যন্ত দলটি ঠিকে আছে। বর্তমানেও দলটি ৩ভাগে ভিবক্ত হয়ে রাজনৈতিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। খলিফায়ে মাদানী শায়েখ আব্দুল মুমিন এর নেতৃত্বাধীন “জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ”, শায়খুল হাদীস আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসুদের নেতৃত্বাধীন ” বাংলাদেশ জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম” ও শায়খুল হাদীস আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরীর নেতৃত্বাধীন “জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ। তবে কিছুটা বৃহৎ পরিসরে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। . ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রান পুরুষ ও দেওবন্দ আন্দোলনের সিপাহশালার , শাইখুল হিন্দ মাহমূদ হাসান রহ. বৃটিশ কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় ১৯১৯ সালে, শায়খুল হিন্দের গনমূখী আন্দোলন ও সশস্ত্র বিপ্লবের আর্দশ ও নীতি-দর্শনের বাহিরে মাওলানা আব্দুল বারী ফিরিঙ্গি মহল্লীর নেতৃত্বে উপমহাদেশের প্রথম শুধুমাত্র আলেমদের সতন্ত্র ইসলামী রাজনৈতিক সংগঠন ” জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ“ প্রতিষ্টিত হয় । জমিয়তে উলামায়ে হিন্দই একমাত্র সংগঠন যা সর্বপ্রথম ১৯২০সালের ১জানুয়ারী ভারতবর্ষের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা দাবী করে। তবে সংগঠনটি শুরুতেই মাওলানা শওকত আলী, মাওলানা আবুল কালাম আযাদের অরাজনৈতিক খেলাফত আন্দোলনের ব্যানারে হারিয়ে যায়। পরবর্তিতে ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পূর্বে শায়খুল ইসলাম মাওলানা সৈয়দ হুসাইন আহমদ মাদানীর নেতৃত্বে ” জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ” স্বাধীনতার দাবীতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। তবে দেশ ভাগের বিরোধ নিয়ে কিছুদিন পরই জমিয়ত দুভাগে বিভক্ত হয়ে পরে। মাওলানা শিব্বির আহমদ উসমানীর নেতৃত্বে ১৯৪৫সালে “জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম” নামে আলাদা সংগঠন প্রতিষ্টিত হয়। . ১৯৪৭ সালের পূর্বে পাকিস্থানের স্বাধীনতা লাভের পেছনেও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অগ্রণী ভুমিকা | হাজার হাজার আলেম ছিলেন সংগঠনটির মিছিলে | আলেম সমাজকে দেশের মানুষ প্রাণভরে ভালবাসে বলেই জনসমর্থনের ক্ষেত্রে এ সংগঠন কম ছিল না | হুজুরদের সংগঠন বলে সবাই চিনতো | কিন্তু দেখা গেলো আলেমদের এই সংগঠনটি এক সময় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দলে পরিণত হয়ে গেলো | যারাই এ সংগঠনটি ত্যাগ করে অন্যত্র চলে গেছেন তাদেরও যুক্তি ছিল অনেক | অনেকেই বলেছেন, যে সঠিক একটি ইসলামী বিপ্লব সংগঠিত করতে হলে নিদৃষ্ট একক কোন গোষ্ঠী দ্বারা সম্ভব নয় | শুধুমাত্র কওমী পন্হী দিয়ে কাঙ্খিত বিজয় অর্জন সম্ভব নয় | একটি সফল ইসলামী বিপ্লবের জন্য সব শ্রেণীর মানুষের স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণ প্রয়োজন | আলেম উলামা , দ্বীনদার বুদ্ধিজীবী,কৃষক শ্রমিক , ছাত্র সমাজ সহ সব শ্রেণী সব পেশার মানুষের অংশ গ্রহণ থাকতে হবে |জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম নামক সংগঠনটি সব শ্রেনী বা সব পেশার মানুষদের জড়ো করতে পারেনি এবং চেষ্টাও করেনি | . ৪৭ এর পর জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের বিরোধের মাঝেই পূর্ব পাকিস্থানে আলেমরা প্রথমে শর্সিনার পীর সৈয়দ নেসার উদ্দীনের নেতৃত্ব পরে তার বার্ধক্যের কারনে শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হকের নেতৃত্বে ” জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ” নামে কার্যক্রম শুরু হয়। তখন একটি বৃহত্তর ইসলামী আন্দোলনে রূপ লাভ করে | শুধুমাত্র আলেম সমাজ নিয়ে এ সংগঠনটির পথ চলা | তবে সে সময় সংগঠনটির সবচেয়ে বড় স্বার্থকতা ছিল, এক সময় দেশের প্রায় সকল শীর্ষ আলেমরা এই সংগঠনের সাথে নিবিড় ভাবে জড়িত ছিলেন। তবে সংগঠনটির দু’চারজন ব্যতিত প্রায় সকলে নেতা কর্মীই কওমী মাদ্রসা শিক্ষিত আলেম। ভারতীয় উপমহাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অসামান্য অবদান সৃষ্টিকারী দলটি পূর্ব পাকিস্তানে আবার ভাঙ্গনে স্বীকার হয় ১৯৪৯সালে নেজামে ইসলামের ব্যনারে। জমিয়তে উলামার শীর্ষ নেতৃত্বের একাংশ মাওলানা আতহার আলী (রহ.) , মাওলানা সৈয়দ মুসলেহ উদ্দিন সাধারণ এবং মাওলানা আশরাফ আলী সহ জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের একটি অংশ ‘নেজামে ইসলাম পার্টি ‘ নামে কার্যক্রম শুরু করেন। নেজামে ইসলাম প্রথমে মূলত জমিয়তের নির্বাচনী একটি অঙ্গ প্রতিষ্টান বা সেল ছিল। নেজামে ইসলাম আলাদা রাজনৈতিক দল হিসাবে প্রতিষ্টার পর জমিয়তের কার্যক্রম একেবারে স্থবির হয়ে যযায়। মাওলানা আতাহর আলীর ব্যক্তিত্বের প্রভাবেই পুরো দেশের উলামায়ে কেরাম জমিয়ত ছেড়ে নেজামে ইসলামে যোগ দান করেন। . তবে ১৯৬৪ সালে সংগঠনটি সিলেট কেন্দ্রিক “পূর্ব- পাকিস্থান জমিয়ত” নামে আবার ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টা করে। সিলেটের মাওলানা রিয়াসাত আলীকে সভাপতি ও মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে সেক্রেটারী করে জমিয়ত আবার সিলেটে কিছুটা ঘুরে দাড়ায়। পরবর্তিতে ১৯৬৬সালে ঢাকার নবাব বাড়ীতে ” আহসান মন্জিলে” সকল আলেমদের সমন্নয়ে “জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম” বৃহৎ পরিসরে নব উদ্দ্যোমে আবার পথ চলা শুরু করে। পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তির উপস্তিতিতে মাওলানা আব্দুল করিম শায়েখে কৌরিয়াকে সভাপতি, মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সেক্রেটারী করে পূর্ব পাকিস্থান জমিয়তের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠিত হয়। ১৯৭১ সালে ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠনটি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখলেও, স্বাধীনতার পরির্বর্তিতে সংগঠনটি আবার দুর্ভল হয়ে পরে। . এর দশ বছর পর ১৯৮১ সালে বাংলাদেশের ইসলামী রাজনীতির ক্লান্তিলগ্নে হজরত হাফেজ্জী হুজুর “তওবার রাজনীতির ” ডাক দেন।তখন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও ভিবিন্ন ইসলামী সংগঠনেরর নিস্কৃয় সকল সদস্য এবং অনেক প্রবীণ উলামা মাশায়েখ হাফেজ্জী হুজুরের ডাকে সাড়া দেন। সবাইকে নিয়ে হাফিজ্জি হুজুর তখন “খেলাফত আন্দোলন” নামে নতুন সংগঠনের যাত্রা শুরু করেন। এতে করে ৩য় বারের মত জমিয়ত বিলুপ্ত হয়ে যায়। . পরবর্তিতে হাফেজ্জি হুজুরের বাধর্ক্য অবস্থায় খেলাফত আন্দোলন দুর্ভল হয়ে পড়লে ১৯৮৪ সালে পুনরায়, শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি, মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সেক্রটারী করে ” জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম” গঠিত হয়। তবে আকাবিরে আসলাফের অনুসরনে জামাতে ইসলামীর ভ্রান্ত আকিদা ও নারী নেতৃত্বের সাথে জোট করা নিয়ে সংগঠনটির বিরোধীতা সক্রিয় অবস্থান ও জুরালো ভূমিকা ছিল। ৪দলীয় জোট গঠনের সময় ইসলামী ঐক্যজোটের নারী নেতৃত্বের বিরোদ্ধে সংগঠনটি শক্ত অবস্থান নেয়। পরবর্তিতে সংসদীয় আসনের লোভে কিছু তরুন নেতার চাপে দলটি চার দলীয় জোটে শরীক হয়। নারী নেতৃত্বের বিরোধ নিয়ে ফের ২০১০সালের ১৮মার্চ দলটি ভেঙ্গে যায়। মাওঃ আলিম উদ্দিন দুর্লভপুরীকে সভাপতি এবং মাওঃ সামছুদ্দিনকে মহা সচিব করে “জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ”, আলাদা সংগঠন আত্মপ্রককাশ করে। আবার গত কয়েক বছর পূর্বে জামাতের সাথে সখ্যতার বিরোধ নিয়ে, ফরিদ উদ্দীন মাসুদের নেতৃত্বাধিন “বাংলাদেশ জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ” নামে আরেকটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে। . এসব কারনে বাংলাদেশের ইসলামী রাজনীতিতে এ দলের অবস্থান ও পরিচিতি অনেক পিছিয়ে পড়ে আছে | মূল সংগঠনটির গঠনতন্ত্রের অনেক কিছু রয়ে গেছে বর্তমান সময়ের সাথে অমিল | এজন্য জেনারেল ধারার তরুনরা এ সংগঠনের ব্যানারে কাজ করতে আগ্রহী নন | এক সময় ছাত্র রাজনীতি হারাম এফতোয়া দিলেও বর্তমানে তারা হালাল করে নিয়েছেন | তবে ছাত্রদের সিনিয়র নেতা হতে হবে ‘হুজুর বা মাওলানা ‘| অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সভাপতি বা জেলা , থানা সভাপতি হতে হবে শিক্ষক সমাজ থেকে | ছাত্রদের সংগঠন ছাত্ররাই পরিচালনা করবে এটাই হচ্ছে নিয়ম | কিন্তু জমিয়ত এই নিয়মের আওতায় নয় | জানিনা হয়তো আরো দশবছর পরে তারা বুঝতে পারবেন যে আসলেই ছাত্রদের কাজ ছাত্ররাই পরিচালনা করবে | এছাড়া কয়েক বছর ধরে সংগঠনটি অঘোষিত নিয়ম চালু করেছে, যে প্রতন্ত গ্রামে পরে থাকা অখ্যাত খলিফায়ে মদনীকে দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি করা হয়। ফলে সংগঠনটির অভ্যান্তরিন নিয়ন্ত্রন ক্রমশ দুর্ভল হয়ে পরছে। ভেতরগত নানান বিরোধ চারদিকে ছড়িয়ে সংগঠনটির মূল স্রোতটিকেও নির্জিব করে দিয়েছে। অপর দিকে এক যুগের বেশি সময় ধরে চির বিরোধ জামাত, বিএনপির সাথে সখ্যতা ও দীর্ঘ মেয়াদী জোট সংগঠনটির নীতি পলিসি ও কাটামোকে, সর্বোপরি আর্দশকে ক্ষমতার মোহে দুর্বল করে দিয়েছে। গত কেন্দ্রীয় কাউন্সেল২০১৫ সালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পদভীর লড়াইয়ে ফের ভাঙ্গনের কবলে পরেও আলহামদুলিল্লাহ ঠিকে আছে।  (komashisha.com)

চলবে…

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now