শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ‘ষড়যন্ত্র করে আমার ভাইকে কারাগারে পাটানো হয়েছে’

‘ষড়যন্ত্র করে আমার ভাইকে কারাগারে পাটানো হয়েছে’

sabbirডেস্ক রিপোর্ট: গতকাল মঙ্গলবার (১৯/০১/২০১৬ খ্রি.) আসরের নামাযের পর, লালাবাজার এলাকায় একটি প্রোগ্রামের উদ্দেশে বাড়ি থেকে রওয়ানা হয়েছি। সাথে আছেন, সফরসঙ্গী হিসেবে আমার এক বন্ধু। ড্রাইভারসহ আমরা মোট তিনজন। সিলেট নগরীর সুরমাগেটে পৌঁছাতেই লণ্ডন থেকে ফোন করলেন, শ্রদ্ধেয় আল-হাজ হুসাইন ভাই।

ইউকে জমিয়তের সিনিয়র নেতা জনাব, আল-হাজ হাফেয হুসাইন আহমদ। তিনি সিলেটের ঐতিহ্যবাহী জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া বিশ্বনাথের পরিচালক, সদ্যকারাবন্দী আল-হাজ মাওলানা শিব্বির আহমদ সাহেবের মেঝো ভাই। বৃটিশ-ভারত, পাকিস্তান আমল ও স্বাধীন বাংলাদেশের ইসলামী রাজনীতির ইতিহাসে কিংবদন্তিতুল্য নাম, আল্লামা শাইখ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (রাহ) এর দ্বিতীয় সন্তান।

আমার সাথে কৃত এই ফোনালাপে তিনি লম্বা সময়জুড়ে মাত্র পাঁচটি বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করেন। সময়ের দাবিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সম্মানিত পাঠকসমক্ষে সে বিষয়গুলো উপস্থাপনের প্রয়াস পাচ্ছি।

(ক) # হাফেয হুসাইন আহমদ!
আমাদের পরিবারের এই দুঃসময়ে এবং জামেয়া মাদানিয়া মাদরাসার সঙ্কটসঙ্কুল মুহূর্তে আপনি আপনার ক্ষুরধার লিখনীর মাধ্যমে এপর্যন্ত যে ভূমিকা রেখেছেন, তার জন্য আপনাকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
মূলতঃ আপনাকে কৃতজ্ঞতা জানাতেই আজ ফোন করলাম।

# মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ!
আসলে কার্যকরী কোনো ভূমিকা রাখার ক্ষমতা বা যোগ্যতা আমি রাখি না। তবে সুবিচার যে বিষয়টা, তা এদেশের সকল নাগরিকের ন্যায্য অধিকার। আমরা চাই সবাই সুবিচার পাক এবং কেউ যেনো কোনো ষড়যন্ত্রের কবলে না পড়েন। সর্বোপরি মাদরাটা তো আমাদের সবার। তাই কেউ যেনো বিভ্রান্তি না ছড়ায়, সেজন্য যৎসামান্য লিখে দিলাম। কবুলের মালিক আল্লাহ!

(খ) # হাফেয হুসাইন আহমদ!
আপনি মাদানিয়া থেকে চলে আসলেন, আমি জানি না! একটাবার আমাকে বললেন না। সে বার আমি দেশে গিয়েও জানতে পারিনি। আপনি মাদরাসায় থাকলে অনেক ভালো হতো। মাদরাসা অনেক দিক থেকেই উপকৃত হতো। এখন কী করছেন? কোথায় আছেন?

# মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ!
আসলে আমি আপনাকে সুযোগমতো পাইনি। সে জন্য বলা হয়নি। ভেবেছি, শিব্বির ভাই আপনাকে জানাবেন। তো গত রমজানে জণ্ডিসে আক্রান্ত হই। পরে ডাক্তার লম্বা রেষ্টে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ফলে মৌখিক অবগতি ও বিদায় নিয়ে বাড়িতে চলে আসি।………………………।

(গ) # হাফেয হুসাইন আহমদ!
আজ এ মুহূর্তে মাদরাসায় একটি সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে।মাওলানা শিব্বির আহমদ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে গ্রেপ্তার হওয়া প্রসঙ্গে। এখনও বিশ্বনাথে সংবাদ সম্মেলন চলছে। আপনি উপস্থিত থাকা আমি খুবই প্রয়োজন মনে করছি। যেভাবেই হোক, আপনি এখনই আজকের সংবাদ সম্মেলনে গিয়ে অংশগ্রহণের জন্য আপনাকে বিশেষভাবে আমি অনুরোধ করছি।

# মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ!
ভাইজান! এ মুহূর্তে আমি একটি প্রোগ্রামের উদ্দেশে পথিমধ্যে আছি। মাগরেবের নামায সেখানে পৌঁছে আদায় করার কথা দিয়ে রেখেছি। আমাকে আগে কেউ বলেননি; আগে জানলে নিশ্চয় চেষ্টা করতাম। তা ছাড়া এখন রওয়ানা দিলে পরে সম্মেলনস্থলে পৌঁছানোর আগেই প্রোগ্রাম শেষ হয়ে যাবে। তো আপনি শিব্বির ভাইয়ের গ্রেপ্তারি সম্পর্কে কিছু বলবেন?

(ঘ) # হাফেয হুসাইন আহমদ!
আসল কথা হলো, আমার ভাই ষড়যন্ত্রের শিকার।একটি মহল প্রকৃত ঘটনা ধামচাঁপা দিতে চাচ্ছে। মূল অপরাধীদের আড়াল করতে এবং বাঁচাতে মাদরাসার প্রিন্সিপ্যালকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এ সূত্র ধরে আমাদের গোটা পরিবারটাকে হেনস্তা করার দূর্ভিসন্দি শুরু হয়েছে। আজ আমার ভাইকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে কারাবন্দী করা হয়েছে। আমি আমার ভাইকে দেশের কারাগারে রেখে লণ্ডনে বসে থাকবো না। আমি দু’চার দিনের ভেতর বাংলাদেশের মাটিতে এসে পৌঁছাচ্ছি। আপনারা সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। আপনাদেরকে সঙ্গে নিয়ে আমি প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটন করবো এবং সকলের সহযোগিতা নিয়ে আমার ভাইকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ।
মাদরাসার ছাত্র সালমান আহমদকে কেনো এভাবে হত্যা করা হলো? এর প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটনপূর্বক তার খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

# মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ!
আসলে আপনি দেশে না এলে কাজের কাজ কিছুই হবে না। ওখানে থেকে কিছুই করতে পারবেন না।
আপনি দ্রুত দেশে আসুন!
আচ্ছা, বলুনতো এখানে এই নির্মম ঘটনাটির পেছনে আসল কারণ কী হতে পারে বলে আপনি মনে করেন?

(ঙ) # হাফেয হুসাইন আহমদ!
আমি এফবিতে আপনার বিভিন্ন লেখা পড়ার পর থেকেই ভাবছি যে, প্রকৃত ঘটনাটা আপনাকে আমার আরো আগে বলা দরকার ছিলো। কিন্তু পরিস্তিতির চাঁপে আমার খেয়াল থাকেনি।
যাইহোক, কিছুদিন পূর্বে আমার ভাই মাওলানা ফখরুদ্দীনের একটি চেকবই হারিয়ে যায়। যা বহু খোঁখোঁজি করেও আর পাওয়া যায়নি। এটা মূলত কে বা কারা চুরি করে নিয়ে যায়।
অবশেষে সে নিয়মতান্ত্রিকভাবে ব্যাংককর্তৃপক্ষকে অবগত করার মাধ্যমে যথানিয়মে নতুন চেকবই গ্রহণ করে।
পরে সে তার ছুটি শেষ হলে লণ্ডনে চলে আসে। ক’দিন আগে সে ব্যাংকে পাঁচ লক্ষ টাকা জমা দিয়ে দেশে থাকা আমাদের সর্বকণিষ্ঠ ভাই মুহসিন উদ্দীন নাঈমকে অবগত করে এবং ব্যাংকে গিয়ে খবর নিতে বলে।
নাঈম ব্যাংকে যোগাযোগ করলে ব্যাংক থেকে জানানো হয় যে, কে একজন এসে নাকি একটি চেক দ্বারা প্রেরিত টাকা থেকে তিনলক্ষ টাকা তুলে নিয়ে গেছে!
লণ্ডন থেকে আমরা এ খবর অবগত হলে, ব্যাংকের সিসি ক্যামেরাফুটেজ এবং যেই চেকটির দ্বারা তিনলক্ষ টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে বলে ব্যাংককর্তৃপক্ষ দাবি করছেন ; তা দেখার পরামর্শ দেই এবং ব্যাংককর্তৃপক্ষের সাথে ফোনে কথাও বলা হয়।
আমাদের পরামর্শমতো ব্যাংকে আবেদন করলে তারা যে দিন ভিডিওফুটেজ দেখানোর তারিখ ধার্য করেন, ঠিক সে দিন ফজরের নামায আদায় করে ফেরার বেলায় মুসল্লিগণ জামেয়ার ছাত্র সালমানের মরদেহ বিশ্বনাথ নতুনবাজারে পথের দ্বারে পড়ে থাকতে দেখেন।
আমি মনেকরি, এখানে ঘটনা একেবারে পরিষ্কার। ভিডিওফুটেজ দেখলে টাকা কে বা কারা এসে নিয়ে গেলো, তা দেখা যাবে এবং সেই লোককে গ্রেপ্তার করা হলে পরে জিজ্ঞাসাবাদে মাদরাসার ছাত্র সালমান নিহত হওয়ার রহস্য সহজেই বেরিয়ে আসবে। কিন্তু এটা না করে উল্টো আমাদের গোটা পরিবারকে দূর্ভিসন্দিমূলকভাবে হয়ারানিতে ফেলে কলঙ্কিত করা হচ্ছে।

# মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ!
তাহলে তো আপনাকে দ্রুত দেশে আসতে হবে। বিষয়টি নিয়ে ভালো কোনো আইনজীবির পরামর্শ নিন এবং অগ্রসর হোন। ইনশাআল্লাহ! সফল হবেন। সাহায্য আল্লাহর পক্ষ হতে এবং সত্যের বিজয় অবশ্যম্ভাবী।।

বি:দ্র: মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ এবং হাফিজ হোসাইন আহমদের মোবাইল আলাপটি (দ্বীনের দাওয়াত  )ফেসবুক আইডি থেকে নেওয়া।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now