শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » জামিয়া মাদানীয়া বিশ্বনাথ মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সংবাদ সম্মেলন

জামিয়া মাদানীয়া বিশ্বনাথ মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সংবাদ সম্মেলন

bisswnatbiswnatসিলেট রিপোর্ট: জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথের মেধাবী ছাত্র সালমান আহমদ হত্যাকান্ডে জড়িত খুনীদের গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান এবং নিরপরাধ প্রিন্সিপাল, মাসিক আল ফারুক সম্পাদক মাওলানা শিব্বির আহমদ ও সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা বশির আহমদের নিঃশর্ত মুক্তি ও মুহসিন উদ্দীন নাঈমের উপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে ২৩ জানুয়ারী  জামিয়া মাদানিয়া বিশ্বনাথ দফরে এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। সাংবাদিকের হাতে উপস্থাপিত লিখিত বক্তব্য নিন্মরুপ:
আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।
জাতির বিবেক সাংবাদিকবৃন্দ! আপনারা নিশ্চয়ই অবগত আছেন জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া মাদ্রাসা বিশ্বনাথ, সিলেট দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যা সুর্দীঘ অর্ধশতাব্দি কাল যাবৎ দ্বীনী শিক্ষা বিস্তারে অবদান রেখে চলেছে। আল্লামা শায়খ আশরাফ আলী রহ. এর অক্লান্ত পরিশ্রম এবং এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠানটি ইতোপূর্বে দেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ দ্বীনি শিক্ষাগারের মর্যাদা লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। আজ আমরা এই জামিয়ার পক্ষ থেকে আপনাদের নিকট আমাদের কিছু কথা তুলে ধরতে চাই।প্রিয় সংবাদকর্মী সাংবাদিক বন্ধুরা!
আমরা অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে জানাচ্ছি যে, সম্প্রতি আমাদের মাদ্রাসার ছাত্র সালমান আহমদ অজ্ঞাত খুনীদের হাতে র্নিমমভাবে খুন হয়েছে । যা আপনাদের নিরপেক্ষ, তাত্ত্বিক ও ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে দেশের প্রায় সবকটি জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক, সাপ্তাহিক ও অন্যান্য সংবাদ মাধ্যমে বস্তুনিষ্ঠতার সাথে বেশ গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ পেয়েছে। আমরা এই র্নিমম হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। একই সাথে নিরপেক্ষ, সুষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত খুনীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি। জামিয়ার পক্ষ থেকে প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ বাদী হয়ে থানায় মামলা করতে চাইলে প্রথমে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ মামলা নিতে রাজি হয়নি। পরে আমরা লিখিত অভিযোগ করি, যার রিসিভ কপি আমাদের কাছে রয়েছে। তাছাড়া মাদ্রাসা কতৃপক্ষ কোন ধরনের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে না যেতে প্রশাসন কর্তৃক আমাদের পরামর্শ দেয়া হলে তাদের কথা মতো শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্যই আমরা স্থানীয় প্রশাসনের দিক নির্দেশনায় এ পর্যন্ত চলে আসছি। কিন্তুু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় ইতিমধ্যে আমাদের জামিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ এবং জামিয়ার সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা বশির আহমদকে প্রথমে জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাদেরকে গ্রেফতার দেখিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। একই সাথে মরহুম মুহতামিম আল্লামা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী রহ. এর বয়োবৃদ্ধা সহধর্মীনী এবং তার মেয়েকে থানায় নিয়ে মানসিক ভাবে নির্যাতন করা হয়। এর আগে জামিয়ার শিক্ষা সচিব মুফতি ইব্রাহীম খলীল, সহকারী শিক্ষক মাওলানা ফখরুদ্দীন আহমদ ও ছাত্র মুশাহিদুল ইসলামকেও একই ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের নামে থানায় নিয়ে অমানবিক আচরণ ও চরমভাবে মানষিক নির্যাতন করা হয়। একই ভাবে জামিয়ার ছাত্র ও প্রিন্সিপালের ছোট ভাই মুহসিন উদ্দীন নাঈমকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে থানায় নিয়ে অমানবিক নির্যাতন করতঃ পরে তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। গ্রেফতারের প্রায় নয় দিন পর মাননীয় আদালত তাকে জামিনে মুক্তি দেন।
আজকের এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমরা আমাদের সন্তানতূল্য ছাত্র সালমান আহমদের খুনীদের গ্রেফতার পূর্বক সর্বোচ্ছ শাস্তি দাবি করছি। আমরা এই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠ বিচার চাই। সাথে সাথে নিরপরাধ প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ এবং মাওলানা বশির আহমদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবী জানাচ্ছি। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিরীহ কোন ছাত্র-শিক্ষক যেন অযথা হয়রানীর শিকার না হন, এজন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানাচ্ছি। আমাদের প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদকে থানায় নিয়ে তার সাথে অশালিন আচরণ ও নির্যাতন করায় আমরা উদ্বেগ প্রকাশ করছি। উল্লেখ্য যে, থানা পুলিশ যাকেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে, সবাইকে বিভিন্নভাবে শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করেছে এবং একথা বলানোর জন্য খুব নির্যাতন করেছে যে, তারা যেনো এই খুনের ব্যাপারে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বীর আহমদ অথবা মাদ্রাসার কোন শিক্ষকের নাম বলে। প্রশাসনের এহেন সন্দেহজনক আচরণে আমাদের আশংকা হচ্ছেÑ মাদ্রাসা ছাত্র সালমান হত্যার ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে। প্রকৃত খুনীদের রক্ষা করতেই এবং এলাকাবাসীর দৃষ্টি অন্যদিকে নিতেই মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বীর আহমদ ও সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা বশির আহমদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সালমান হত্যাকান্ডকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে কোন বিশেষ মহল যেন ফায়দা হাসিল করতে না পারে সে জন্য আমরা আপনাদের ও প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি। প্রকাশ থাকে যে, আগামী ২৮ জানুয়ারী ২০১৬ইং অত্র জামিয়ার ৫৭তম বার্ষিক ইসলামী মহা সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে অবিলম্বে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বীর আহমদ ও সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা বশির আহমদের মুক্তি দাবি করছি।

সম্মানিত গণমাধ্যমকর্মী ভাইয়েরা!
সিলেটের ঐতিহ্যবাহী ইসলামী বিদ্যাপীঠ জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া বিশ্বনাথ মাদ্রাসার ৫৭তম বৎসরে উপনিত হয়েছে। জামিয়ার ইতিহাসে এমন কোন র্দুঘটনা কখনো ঘটেনি। গত ৩০ ডিসেম্বর সকালে জামিয়া মাদানিয়ার ফজিলত ১ম বর্ষের ছাত্র সালমান আহমদ এর লাশ উপজেলার নতুন বাজার এলাকার তফজ্জুল আলী কমপ্লে¬ক্সের মধ্যেবর্তী সড়কের পাশ থেকে পুলিশ উদ্ধার করে। এঘটনায় মাদানিয়া মাদ্রাসার পক্ষ থেকে বিশ্বনাথ থানায় সালমান হত্যার বিচার চেয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয় এবং তাৎক্ষণিক মাদ্রাসার পক্ষ থেকে প্রতিবাদ ও মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের নিয়ে সালমানের বাড়িতে গিয়ে তাকে দাফন ও পরিবারের সাথে দেখা করে আমরা জামিয়ার পক্ষ থেকে সান্তনা দিয়ে আসি। প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে আমরা এতোদিন কোন রকম আন্দোলন-কর্মসুচি ঘোষণা করিনি। কিন্তু অত্যন্ত দঃখ জনক ব্যাপার হলো, সালমানের মায়ের মামলায় প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ ও মুহসিন উদ্দীন নাঈমকে জড়িয়ে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সম্পূর্ন মিথ্যা, কল্পনা প্রসূত ও অনুমান নির্ভর। আর এই মিথ্যা, অনুমান নির্ভর অভিযোগের ভিত্তিতেই আমাদের জামিয়ার প্রিন্সিপাল, শিক্ষক এবং ছাত্রকে আসামী করা ও গ্রেফতার করাটা খুবই দুঃখজনক। সালমান আমাদের সন্তানের মতো, কোন প্রিন্সিপাল বা শিক্ষক তার প্রতিষ্ঠানের ছাত্রকে কখনও খুন করতে পারেন না। আমরাও তাই মনে করি। কিন্তু আজ মিথ্যার আশ্রয়ে স্বার্থান্বেষী মহলের প্ররোচনায় প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ ও শিক্ষক মাওলানা বশির আহমদকে জড়ানো হয়েছে। তারা ষড়যন্ত্রের শিকার। তাই অবিলম্বে আমাদের শিক্ষকদ্বয়ের মুক্তির দাবী জানাচ্ছি। অন্যথায় যে কোন পরিস্থিতির জন্য প্রশাসনকেই এর দায়ভার নিতে হবে।

জাতির বিবেক হে সাংবাদিক বন্ধুগণ!
আপনারা জানেন যে, দেশের প্রাচীনতম ইসলামী রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি, জামিয়া মাদানিয়ার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম হযরত মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী রহ. ২০০৫ সনে ইন্তেকাল করেন। ইন্তেকালের পর তদীয় সন্তান মাওলানা শিব্বির আহমদ জামিয়ার দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেন। পিতার যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে তিনি আজ দীর্ঘ ১১ বৎসর যাবৎ বেশ সুন্দর ও সুচারু রূপে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। মাসিক আল-ফারুকের সম্পাদক ও জামিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ কোন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত নন, কোনদিনও ছিলেন না, এখনও নয়। মিথ্যা মামলা দিয়ে ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ ও জামিয়ার শিক্ষক মাওলানা বশির আহমদকে গ্রেফতার করে এবং নিরীহ ছাত্র/শিক্ষকদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে হয়রানি করে ঐতিহ্যবাহী এ দ্বীনি শিক্ষাগারকে ধ্বংশের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এতে করে জামিয়ার প্রাশাসনিক বিভাগসহ সবকটি বিভাগ, বিশেষ করে সকল স্তরের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চরম ব্যাঘাত ঘটছে। আমরা চাই আমাদেও মাদ্রাসার ছাত্র সালমান খুনের রহস্য উদ্ঘাটন হউক। বিষয়টি প্রতিকারের মাধ্যমে সরকারও পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুরা!
আমাদের মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদ ও তার পবিরার সম্পর্কে যে মিথ্যা ও কাল্পনিক অভিযোগ সালমানের মা কুতুবি বেগম এনেছেন, তার সঠিক তদন্ত করার জন্য সরকারের উচ্চ মহলের দৃষ্টি কামনা করছি। তাছাড়া সালমান হত্যার ঘটনায় মাদ্রাসার ছাত্র, শিক্ষক ও প্রিন্সিপাল পরিবারকে অযথা হয়রানি না করার জন্যও পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আর্কষণ করছি।
আপনারা অনেক কষ্ট স্বীকার করে এখানে এসে মূল্যবান সময় দিয়ে আমাদের বক্তব্য শুনার জন্য আপনাদের প্রতি আমরা আবারও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও মোবারকবাদ জানাচ্ছি। আপনারা ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন। দেশও জাতির কল্যাণে আরো বেশি করে অবদান রাখুন। সেই প্রত্যাশা রেখে আমি আপনাদের কাছ থেকে বিদায় নিচ্ছি।
আল্লাহ হাফেজ।

বিনীত

(মাওলানা কামরুল ইসলাম ছমির)
ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম
জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলূম মাদানিয়া বিশ্বনাথ-৩১৩০, সিলেট।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now