শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » রুশনারা আলীসহ ব্রিটেনের নির্বাচনে সিলেটের ৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন

রুশনারা আলীসহ ব্রিটেনের নির্বাচনে সিলেটের ৫ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন

সিলেট রিপোর্ট :: এবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হাউস অব কমন্সে এমপি পদে সিলেটী বংশোদ্ভূত ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন। এসব প্রার্থী এর আগেও সেদেশের রাজনীতিতে তাদের মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন। আগামী বছরের মে মাসে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।
সিলেটী বংশোদ্ভূত অনেকেই তাদের কাজের মাধ্যমে দেশের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে ব্যবসা বাণিজ্য ও সামাজিক কর্মকান্ডেও ব্রিটেনে সিলেটীদের অবদান উল্লেখযোগ্য। এরই ধারাবাহিকতায়
হাউস অব কমন্সের সিলেটী ৫ প্রার্থীর মধ্যে ৩ জনই লড়ছেন সেদেশের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির হয়ে। বাকিদের একজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ক্ষমতাসীন জোটের কনজারভেটিভ পার্টি থেকে ও অপরজন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি থেকে। এর আগেও সিলেটীরা হাউস অব কমন্সের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও এবার সবচেয়ে বেশি সংখ্যক সিলেটী এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

এদের মধ্যে লেবার পার্টি থেকে পূর্ব লন্ডনের বেথানল গ্রিণ অ্যান্ড বো আসনে রুশনারা আলী, একই পার্টি থেকে ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড একটন আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রূপা আশা হক ও ওয়েলইউন হ্যাটফিল্ড আসন থেকে লড়বেন ব্যারিস্টার  আনোয়ার বাবুল মিয়া। ক্ষমতাসীন জোটের কনজারভেটিভ পার্টি থেকে বার্কিং আসনে লড়বেন মিনা রহমান। ক্ষমতাসীন জোটের আরেক শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির হয়ে নর্থাম্পটন সাউথ আসনে লড়বেন প্রিন্স সাদিক চৌধুরী।

রুশনারা আলী : রুশনারা আলী ১৯৭৫ সালে সিলেট জেলার বিশ্বনাথে জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র সাত বছর বয়সে পরিবারের সঙ্গে লন্ডনে অভিবাসিত হন তিনি। টাওয়ার হ্যামলেটে বেড়ে ওঠা রুশনারা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট জনস কলেজে দর্শন, রাজনীতি ও অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনা করেন। হাউস অব কমনসে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ২০১০ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সে সময় ব্রিটেনে মুসলিম এমপিদের মধ্যেও অন্যতম হিসেবে দৃষ্টি কাড়েন রুশনারা আলী।

রূপা আশা হক : রুপা আশা হকের মা-বাবা ১৯৬০ সালের দিকে সিলেট থেকে ব্রিটেনে গিয়ে বসবাস শুরু করেন। উচ্চশিক্ষিত পরিবারের রুপা আশা হক পেশায় সোসিওলজির শিক্ষক। তিনি কিংস্টন ইউনিভার্সিটির সিনিয়র লেকচারার। নিয়মিত লেখেন গার্ডিয়ান, দ্য স্টেটসম্যান, ট্রাইবুনসহ নানা পত্রিকা ও জার্নালে।

রুপা হক ২০০৫ সালের সাধারণ নির্বাচনে কনজারভেটিভের সেইফ সিট বাকিংহাম শায়ারের চিজহাম-আমেরশাম সিটে শেরিল গিলানের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান। পরে ২০১০ সালে লন্ডন বারা অব ইলিংয়ের ডেপুটি মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়াও তিনি ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

আনোয়ার বাবুল মিয়া : আনোয়ার বাবুল মিয়া পৈত্রিক নিবাস সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মীরপুর গ্রামে। ১৯৯৮ সালে লিঙ্কনস ইন থেকে ব্যারিস্টারি ডিগ্রী গ্রহন করা আনোয়ার বৃটিশ বাংলাদেশী প্র্যাক্টিসিং ব্যারিস্টার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি। একইসাথে পারিবারিক একাধিক ব্যবসাও দেখাশোনা করে থাকেন।

মিনা সাবেরা রহমান : মিনা সাবেরা রহমান ১৯৬৮ সালে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার রাউলী গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। মাত্র ২১দিন বয়সে পিতা-মাতার সাথে যুক্তরাজ্যে যান। কাজের পাশাপাশি লেখাপড়া করা মিনা রহমান ১৯৮৫ সালে পূর্ব লন্ডনের জাগোনারী সেন্টারে আউট রিচ ওয়ার্কার হিসেবে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। ১৯৯৩ সালে থেকে টোরী দলের একজন সক্রিয় সদস্য। বর্তমানে কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ রেড ব্রিজের প্রেসিডেন্ট, কনজারভেটিভ এসোসিয়েশনের ইলফোর্ড সাউথ এর ভাইস চেয়ার, ক্রেনব্রোক ওয়ার্ড কনজারভেটিভের চেয়ারম্যান ও বাংলা উইমেন্স নেটওয়ার্কের চেয়ারপার্সন।

প্রিন্স সাদিক চৌধুরী : প্রিন্স সাদিক চৌধুরীর জন্ম সিলেট নগরীর বাগবাড়ীতে। ১৯৭১ সালে তিনি বৃটেনে চলে যান। পরে নর্থহ্যামটন শায়ার স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করে বর্তমানে ব্যবসা করছেন। দীর্ঘ দিন থেকে লিবারেল ডেমোক্রেটের (লিভডেম) রাজনীতির সাথে জড়িত সাদিক ২০০৭ সালে লিভডেম থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি নর্থহ্যামটন বাংলাদেশী এসোসিয়েশনের সাথে দীর্ঘ দিন থেকে জড়িত।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now