শীর্ষ শিরোনাম
Home » প্রবাস » অধ্যাপক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান এখন বাংলাদেশে

অধ্যাপক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান এখন বাংলাদেশে

MUHIBBUR-RAHMAN-USAরশীদ আহমদ,সিলেট রিপোর্ট: নিউইয়র্কে অবস্থানকারী বাংলাদেশের প্রবীণ আলেমে দ্বীন, বিশিষ্ট লেখক-গবেষক, মাদানী একাডেমী অফ নিউইয়র্ক এর চেয়ারম্যান, জমিয়ত নেতা অধ্যাপক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান এক সংক্ষিপ্ত সফরে বাংলাদেশ এসেছেন। তিনি কয়েকটি গবেষণা ধর্মী গ্রন্থরচনার কাজেই এবারের সফর। গতকাল সন্ধ্যায় সিলেট সোনারপাড়াস্থ তার বাসভবনে(২৭.১.২০১৬) সিলেট রিপোর্ট সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীর সাথে একান্ত আলাপ চারিতায় এবারের সফর সম্পর্কে র্বণণা দেন। সন্তোষ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই অধ্যাপক শারিরীক ভাবে অসুস্থ হয়ে ও দ্বীনী বিষয়ে কলম যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছেন। আজ থেকে ১০-১৫ বছর আগে চিন্তাশীল এই আলেম যেসব বিষয় নিয়ে লেখা লেখির মাধ্যমে উলামায়ে কেরামকে সর্তক করেছিলেন আজ সেসব বিষয়নিয়ে বেশী মোকাবেলা করতে হচ্ছে। লা-মাযহাবী ফেতনা তন্মধ্যে অন্যতম।

একনজরে অধ্যাপক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান:
দেশ-বিদেশে আলেমের অভাব নেই , কিন্তু অভাব রয়েছে চিন্তাশীল আলেমের! অধ্যাপক মাওলানা মুহিব্বুর রহমান প্রকৃত পক্ষেই একজন চিন্তাশীল আলেম, তার সৃষ্টিশীল কর্মই প্রকৃষ্ট প্রমান। অনুসন্ধানী লেখক-গবেষক, সদাজাগ্রত একজন ইসলাম প্রচারক। আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিধর্মীদের বিবেককে সতেজ করতে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় যার রচনা সমুহ এক অনবদ্ধ সৃষ্টি, মাইল ফলক হিসেবে কাজকরছে। ওয়াজ-নসিহত, ইমামতির মাধ্যমে পবিত্র কোরআন-সুন্নাহর আলোকে সারগর্ব উপস্থাপনার পাশাপাশি তিনি ইসলাম ধর্মের আবেদনকে লিখনীর মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছেন দেশ হতে দেশান্তরে। জীবন সায়াহ্নে উপনিত হয়েও তার মধ্যে নেই কোন ক্লান্তি!  বিশ্বের বিভিন্ন জার্নালে প্রবন্ধ-নিবন্ধ,বই-পুস্তক,পত্রিকা-ম্যাগাজিন প্রকাশের মাধ্যমে তিনি  স্বদেশ-ধর্ম তথা সত্যেও পক্ষে তিনি অবিরাম কলম যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন। সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলায় ১৯৪৯ সালের ৩০ মার্চ তারঁ জন্ম। ঢাকা জামিয়া কোরআনিয়া লালবাগ থেকে ১৯৭৪ সালে তাকমিলফিল হাদীস পড়েন। বায়তুল মুকাররমের সাবেক খতীব মাওলানা উবায়দুল হক,শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক তার উস্তাদ ছিলেন। এছাড়া বাহরুল উলুম আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী ও রিয়াসতআলী শায়খে ছখরিয়ার নিকট থেকেও হাদীসের সনদ হাসিল করেন। ঢাকা সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা থেকে আলিম,ফাযিল এবং ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্ষ্টাস কমপ্লিটকরেন। কর্মজীবনে দু‘ভাগ হাইস্কুল একই সাথে বিয়ানী বাজার কলেজে ইসলামী ইতিহাসের অধ্যাপক হিসেবে ১ অধ্যাপনাকরান। স্বাধীনতা পরবর্তীসময়ে টাঙ্গাইল সন্তুষ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত অত্যান্ত সুনামের সাথে অধ্যাপনাকরান। সেখানে শিক্ষকতার মহান পেশার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিবের দায়িত্বও পালনকরেন। টাঙ্গাইল জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি, ইমাম ট্রেনিংয়ের প্রশিক্ষক ছিলেন। এছাড়া হাসান বসরী হলের সুপাএেন্টন্ডেন্ট এর দায়িত্ব ও পালন করেন। বাংলাদেশ জাতীয় ক্বারী সমিতির সদস্য,তালিমাতে কোরআন-সুন্নাহরসেক্রেটারী ছিলেন।
১৯৮৭ সালে আমেরিকা গমন। নিউইর্য়ক সিটির মদীনা মসজিদের ইমাম ও খতীব হিসেবে ৭ বছর,এরপর মসজিদ আল আমানে আরো ৭ বছর, অতপর আবারো চলে আসেন মদীনা মসজিদে সেখানে দ্বিতীয় মেয়াদে ৫ বছর ইমামতিরপর এল র্মাচ মাষ্ট ইসলামী সেন্টারে ১ বছর। অতপর বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদএবং কমিউনিটি সেন্টারে ১০ বছর যাবত কর্মরত আছেন। ১৯৯২ সালে মাসিক দাওয়াত বাংলা-ইংরেজি পত্রিকা প্রকাশকরেন। এ যাবত তার ছোট বড় ১৪ টি বই প্রকাশিত হয়েছে। আধ্যাত্মিক ময়দানে তিনি শাযখুল মাশায়েখ আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া(র)এর নিকট থেকে ১৯৮৬ সালে খেলাফত প্রাপ্তহন।  ফেদায়ে মিল্লাত আসআদ মাদানীর ইন্তেকালের পর  তিনি আমেরিকায় ‘মাদানী একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি ১৯৭৭ সালে বিবাহকরেন। খলিফায়ে মাদানী হযরত ইউনুস আলী শায়খে রায়গড়ী(র)এর প্রথম কন্যার সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধহন। ২ ছেলে ২ মেয়ের জনক। সন্তানাদিরা সকলেই ইসলামী শিক্ষায় সর্বোচ্চ ডিগ্রীপ্রাপ্ত। বড়ছেলে মাওলানা মুজিবুর রহমান কাওসারএবং ছোট ছেলে হাফিজ মাওলানা মুফতি। উভয়েই নিউইর্য়কে আছেন। ২ মেয়েই আলেমো যথাক্রমে আলেমা মাসুমা খাতুন ও নাছিমা খাতুন আমেরিকায় মহিলা মাদ্রাসায় শিক্ষকতারমহান পেশায় ইসলামের প্রচারপ্রসারে অবদান রেখে যাচ্ছেন। আমরা মহান আল্লাহর দরবারে চিন্তাশীল এই আলেমেদ্বীনের র্দীঘ নেক হায়াত কামনা করছি। #

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now