শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিভিন্ন জেলা-উপজেলা » বি-বাড়ীয়ায় শহীদ হাফিজ মাসউদুর রহমানের বাড়ীতে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ

বি-বাড়ীয়ায় শহীদ হাফিজ মাসউদুর রহমানের বাড়ীতে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ

bibaria7.2.16বি-বাড়ীয়া থেকে বিশেষ প্রতিনিধি:: সম্প্রতি  ব্রাহ্মণবাড়ীয়ায় পুলিশের গুলিতে নিহত জামিয়া ইউনুসিয়ার ছাত্র হাফিজ মাসউদুর রহমানের পরিবারের খোঁজ খবর নিতে এবং শান্তনা দিতে জমিয়তের একটি প্রতিনিধিদল ৭ ফেব্রুয়ারী সকালে ভাদুঘরস্থ শহীদের বাড়ীতে যান। প্রতিনিধিদল শহীদ মাসউদের বড়ভাই মাওলানা মামুনুর রশীদ ও ছোট ভাই হাফিজ মাহমুদুর রহমানের সাথে সাক্ষাত করেন। এসময় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি খলিফায়ে মাদানী শায়খ আল্লামা আব্দুল মোমিন এর পক্ষ থেকে শান্তনা বানী সম্বলিত একটি পত্র হস্তান্তর করেন জমিয়ত নেতৃবৃন্দ। শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল জামেয়াওে জমিয়তের পক্ষ থেকে শহীদ পরিবারকে নগদ কিছু অর্থ হাদিয়া প্রদান করা হয়। জমিয়তের প্রতিনিধিদলে উপস্থিত ছিলেন,  শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যশনাল জামেয়ার নির্বাহী প্রিন্সিপাল ও  সিলেট মহানগর জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রচার সম্পাদক হাফিজ মাওলানা সৈয়দ সালিম কাসেমী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, সিলেট জেলা যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহাজ্ব জমসেদ আলী, যুব জমিয়ত ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার আহবায়ক রিজওয়ান বিন ছগীর, যুব নেতা মাওলানা মাসুদুর রহমান,শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল জামেয়া সিলেটের শিক্ষক মাওলানা আবুল কাসেম কাসেমী, মাওলানা ফরহাদ কোরাইশী, মাওলানা মানসুরুল হাসান, মাওলানা তাজুল ইসলাম, মাওলানা মনসুর আহমদ, মৌলভী দিদার হোসাইন,মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
শহীদের বড়ভাই মাওলানা মামুনুর রশীদ প্রতিক্রিয়া ব্যক্তকরতে গিয়ে বলেন, আমার ভাই সম্পুর্ন নির্দোষ ছিলো। সে বাসা থেকে মাদ্রাসায় গিয়ে গন্ডগোলের সংবাদ শুনেছে। সন্ধ্যার পরে ছাত্রলীগ ও পুলিশ যৌথ ভাবে জামিয়ায় হামলা চালায়। এসময় মাদ্রাসার গেইট ভেঙ্গে হাফিজ মাসউদকে প্রথমে আহত করে পরে নতুন পুলিশ বোটদিয়ে তার বুকে লাথিমেরে পাজর ভেঙ্গে দেয়ে বিল্ডিংয়ের ৪র্থ তলা থেকে নীচে ফেলে দেয়। পার্শবর্তী একটি বাসার ড্রেন থেকে তাকে উদ্ধার করে জনৈক মহিলা সেবা করে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন। এই অবস্থায়ই মাসউদ শাহাদাত বরণ করে”।
নেতৃবন্দ শহীদের পরিবারকে সমবেদনা জ্ঞাপন শেষে মোনাজাত করেন। মাওলানা সালিম কাসেমী শহীদ পরিবারের সদস্যগনের উদ্দেশ্যে বলেন আমরা সংবাদ পেয়ে মর্মাহত হয়েছি। আরো আগেই আপনাদের এখানে আসার প্রয়োজন ছিল কিন্তু বিভিন্ন সমস্যার কারনে আসতে পারিনি।  মাওলানা রুহুল আমীন নগরী হত্যাযজ্ঞের নির্মম বর্ণনা শুনে বলেন একেমন নির্দয় পুলিশ, মানুষ হয়ে এতো নির্মমভাবে এমন ভাবে আরেক জন মানুষ কে হত্যা করতে পারে তা বিশ্বাস করতে কষ্ট হয়। রিওজয়ান বিন ছগীর আহমদ বলেন নির্মম হত্যা নারকিয় তান্ডব একটি সাজানো বিষয় সুপরিকল্পিত ভাবে এই হত্যাযজ্ঞ পরিচালনা করা হয়েছে। মাওলানা মাসউদুর রহমান বলেন, শহীদ হাফেজ মাসদুর রহমানের রক্ত বৃথা যাবেনা। আন্দোলন সূচনা হয়েছে আন্দোলন চলবে। এসব শহীদানের রক্তের বিনিময়েই এদেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হবে।
উল্ল্যেখ যে, গত ১১ জানুয়ারী জামিয়া ইউনুসিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রলীগ ও পুলিশের নারকিয় তান্ডবে নির্মম হত্যা, মসজিদ মাদরাসায় ভয়াল হামলা ভাংচুরের সময় ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস ও তাপস চক্রবর্তির নির্যাতন ও নবনির্মিত মাদানী ভবনের চার তলা থেকে ফেলে দিলে আহত হাফিজ মাসউদুর রহমান রাত ২ টায় শাহাদাত বরণ করেন। শহীদ হাফিজ মাসউদুর রহমানের জন্ম নবীনগর থানার সেমন্তঘরগ্রামে। পিতার নাম হাফিজ মাওলানা ইলিয়াস (র)। ২০০৭ সালে পিতা ইন্তেকাল করেন। মাসউদ মা,বড়ভাই ও ছোট ভাইকে নিয়ে বর্তমানে বি-বাড়ীয়া সদরের  ভাদুঘরে ভাড়াটে থাকতেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now