শীর্ষ শিরোনাম
Home » ইতিহাস-ঐতিহ্য » ‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ’ প্রকাশনা প্রসঙ্গ

‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ’ প্রকাশনা প্রসঙ্গ

praজীম হামযাহ: বদলে গেছে দিন। বদলে গেছে যুদ্ধের ধরণ। আগে অস্ত্রের যুদ্ধকেই যুদ্ধ মনে করা হতো। এখন যুদ্ধ হচ্ছে মূলত বুদ্ধিবৃত্তিক অঙ্গনে। ইসলাম সে যুদ্ধে আক্রান্ত। মুসলিম জাহান ক্ষত-বিক্ষত। পশ্চিমা বুদ্ধিজীবি ও
তাদের অনুসারী এক শ্রেণীর পন্ডিত প্রাচ্যবাদের আড়ালে ইসলাম ও মুসলিম জাহানে একের পর এক জ্ঞানগত হামলা চালিয়ে আসছেন। যার ফলে জাতিতে জাতিতে অবিশ্বাস,ঘৃণা ও শত্রুতার আগুন হচ্ছে
প্রজ্জলিত। মুসলিমরা হচ্ছেন আগ্রাসনের শিকার। ইসলাম পড়ছে ভুল বুঝাবুঝির কবলে। এপরিস্থিতিতে একটি বই লিখলেন গবেষক ও কবি মুসা আল হাফিজ। ‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ’ বইটি প্রাচ্যবিদদের বিভ্রান্তির নিরসনে তাদের জ্ঞানগত হামলার মোকাবেলায় এবং ইসলামের প্রকৃত সত্য উপস্থাপনে অনন্য। বিদগ্ধ,বোদ্ধা ও সারস্বত সমাজ এমন কিছুরই যেন অপেক্ষা করছিলেন। যেখানে উচ্চতর শৈলী ও পান্ডিত্য সহকারে ইতিহাসের হারানো অধ্যায়কে আবিস্কার করা হয়েছে। ফলে তারা বইটির

প্রচার,প্রসার ও তরুণ মহলে এর আবেদন ছড়িয়ে

দিতে উদ্যেগী হলেন।

এগিয়ে এলেন গ্রেটার সিলেট ডেপলাপমেন্ট

বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের কো অর্ডিনেটর , বিশিষ্ট

গবেষক সিলেট সংলাপ সম্পাদক জনাব ফয়জুর রহমান


চধমব ২ ড়ভ ৬

রাজা ম্যানশন ৩য় তলায় তার ব্যক্তিগত অফিসে এক

পরামর্শ সভার আহবান করেন। উপস্থিত হন কবি আব্দুল

বাসিত মোহাম্মদ , গবেষক আফতাব চৌ., কবি

নাজমুল আনসারী,এড. কবি আব্দুল মুকিত অপি

প্্রমুখ। সভায় সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় বইটির

প্্রকাশনা উৎসবের।জনাব ফয়জুর রহমানকে আহবায়ক

করে গঠন করা হয় ১২ জনের একটি আহবায়ক

কমিটি। প্্রকাশনা ্্্উৎসব সফলের লক্ষ্যে নেয়া হয়

ব্যাপক প্্রস্তুতি

নগরীর দেয়ালগুলো ছেঁয়ে যায় লাল-নীল পোষ্টারে।

লিফলেট পৌছে হাতে হাতে ।প্্রচারে এগিয়ে

আসেন অনলাইন এক্টিভিস্টরাও।ব্যাপক সাড়া পড়ে

সাহিত্যাঙ্গনে ।১০সেপ্টেম্বর সিলেট জেলা পরিষদ

মিলনায়তনে এড.কবি আব্দুল মুকিত অপি ও

মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আবু তালেব মুরাদের সঞ্চালনায়

প্রবীণ সাংবাদিক ফয়জুর রহমানের সভাপতিত্বে শুরু

হয় অনুষ্টান। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও বাংলাদেশ সুপ্রিম

কোর্ট আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি

মুহাম্মদ আব্দুর রউফ। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত

ছিলেন বিটিভির সাবেক মহা পরিচালক একেএম

হানিফ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড.রিজাউল

ইসলাম,বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কলকাতা

থেকে আগত জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের

দৌহিত্র সুবর্ণ কাজী,বাংলাদেশ ইসলামী

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড.তাহের

মঞ্জুর,লে.কর্ণেল (অব.) আতাউর রহমান পীর,কবি কালাম
চধমব ৩ ড়ভ ৬

আজাদ,সাংবাদিক আফতাব চৌধুরী,শাহ নজরুল

ইসলাম প্রমুখ।

প্রধান অতিথি সাবেক বিচারপতি আব্দুর রউফ বলেন,

পশ্চিমারা বুঝে না বুঝে ইসলামের বিরুদ্ধে

বিষোদগার করছে। কৌশলে তাদের নিকট ইসলামের

সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা আমাদের কর্তব্য। তিনি

বলেন,মুসা আল হাফিজ আমাদের জাতীয় সম্পদ।

তাকে সার্বিক ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করতে হবে।

তার বক্তব্যে আরো বলেন,পাশ্চাত্যের সিংহভাগ

অমুসলিম দার্শনিকদের ইসলামের প্রতি অহেতুক

শ্যেনদৃষ্টি প্রদর্শনের বিষয়টি লেখক তার গ্রন্থে তুলে

ধরে আমাদেরকে অনেক গভীরে নিয়ে গেছেন।

পশ্চিমাদের প্রভাবে প্রভাবিত হয়ে যারা ইসলামকে

সেকেলে ও মধ্যযুগীয় মনে করেন,তাদের জ্ঞানবৃত্তিক

জটিলতার নিরসনে বইটি এক মাইলফলক হিসেবে

কাজ করবে।

সুবর্ণ কাজী তার বক্তব্যে বলেনÑকাজী নজরুল ইসলাম

সঠিক ভাবে বুঝতে পেরেছিলেন বলেই তার শেষ

আহবান ছিল ‘মসজিদেরই পাশে আমার কবর দিও

ভাই।’ আমি যখন কলকাতার হিন্দুদের নিকট ইসলামের

আদর্শ তুলে ধরি,তারা খুশি হয়। তিনি

বলেন,ইসলামের মহৎ এই আদর্শকে বিশ্বময় উপস্থাপন

করতে হবে। আমার দাদা কাজী নজরুল ইসলাম জাতীয়

জীবনে সে আলোক বিস্তারের কাজ করেছিলেন।

কিন্তু সঙ্গত কারণেই তিনি তা শেষ করতে পারেন নি।

আজ মনে হলো কবি মুসা আল হাফিজ অসমাপ্ত

সেই কাজটি আঞ্জাম দিচ্ছেন।
চধমব ৪ ড়ভ ৬

আফতাব চৌধুরী বলেনÑএই বইয়ের মধ্যে রয়েছে

শতাধিক বই লেখার খোরাক। কলেজ-ভার্সিটির

ছাত্র,শিক্ষকসহ প্রত্যেকের হাতে এ বই থাকা জরুরী।

তিনি বলেন,মুসা আল হাফিজকে নিয়ে আমি গর্ব

করি। তিনি সিলেটের মানুষ,এটা জানতাম না এক

জাতীয় দৈনিকে তার চিন্তা সমৃদ্ধ মূল্যবান একটি

লেখা পড়ে পত্রিকার সাথে যোগাযোগ করে জানতে

পারলাম, এই লেখক সিলেটের বাসিন্দা। সিলেটবাসীর

জন্য অত্যন্ত গৌরবের ব্যাপার যে, তারা মুসা আল

হাফিজের মতো চিন্তাবিদ,গবেষক ও কবিকে জন্ম

দিতে পেরেছেন।

কবি কালাম আজাদ বলেনÑমুসা আল হাফিজের গদ্য

যাদুময়। গবেষণা যারা করেন, তাদের ভাষাশৈলী

পান্ডিত্যের ভারে ন্যূজ্জ হয়ে থাকে। কিন্তু তার গদ্য

এতোই প্রাণস্পর্সী যে, আমি এক বৈঠকে

বইটি পড়ে শেষ করেছি। একটি অজানা আকর্ষনে

তন্ময় হয়ে যাই। তিনি বলেন, পাশ্চাত্যের পন্ডিতরা সু-

কৌশলে ইসলামকে চ্যালেঞ্জ করেছেন। কবি মুসা আল

হাফিজ অত্যন্তÍ দক্ষতার সাথে তাদের জবাব দিয়েছেন।

তিনি আমাদের ঋনী করেছেন।আমরা তার কাছে এ

ধারার পরবর্তী গ্রন্থের আশা করছি। শাহ নজরুল

ইসলাম বলেন- মুসা আল হাফিজ আমাদেরকে অনেক

কিছু দিয়েছেন। মরমী মহারাজের মতো অনবদ্য গ্রন্থ

কিংবা মহাকাব্যের কোকিলের মতো অসাধারন

সৃষ্টিকর্মের এই শিল্পীর মূল্যায়নে আজকের এই

অনুষ্ঠান সিলেটবাসীর বড় মনের পরিচয় বহন করে।

প্রাচ্যবিদদের নিয়ে গবেষণা করে তিনি মুসলিম

বিশ্বের পক্ষ থেকে একটি দায়িত্ব আদায় করেছেন।
চধমব ৫ ড়ভ ৬

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন – লে. কর্নেল (অব) আলী

আহমদ, কেমুসাসের সাবেক সভাপতি

হারুনুজ্জামান,সিলেট বারের সাবেক সভাপতি এড.

আজিজুল মালিক চৌ.,ভাষা সৈনিক এড. সৈয়দ

আশরাফ, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সেক্রেটারী

মু.বশির উদ্দিন,গল্পকার সেলিম আউয়াল,কবি শাহাদাত

আলিক,প্রভাষক জিন্নুরাইন চৌধুরী,মাসিক

ভিন্নধারা সম্পাদক জাহেদুর রহমান চৌধুরী, কবি

বাছিত ইবনে হাবিব,কবি মামুন সুলতান,

এড.মুফতি আ.রহমান, মুফতি আব্দুল

মুক্তাদির,আমেনা শহীদ চৌধুরী মান্না,কানিজ

আমিনা কুদ্দুস,নাঈমা চৌধুরী,তাহজাবিন নীলা

প্রমূখ।

বিকাল ৪ টা থেকে অনুষ্ঠান শুরুর কথা থাকলেও তার

আগেই জেলা পরিষদ মিলনায়তন পূর্ণ হয়ে যায়।

দর্শক সারিতে অনেকে আসন না পেয়ে নিজনিজ

সুবিধামতো দাঁড়িয়ে অনুষ্ঠান উপভোগ

করেন।শুরুতে কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন

মাও.হাবিব আহমদ শিহাব। মুসা আল হাফিজ লিখিত

সংগীতে সুরারোপ করেন ইসহাক আলমগীর।মূল

প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শাবিপ্রবি বাংলা বিভাগের

সহযোগী অধ্যাপক ড.মু.রিজাউল ইসলাম।

গ্রন্থকারের পরিচিতি তুলে ধরেন প্রভাষক কবি

নাজমুল আনসারী।কবিতা আবৃতি করেন শরীফ

বায়জিদ মাহমুদ। অনুষ্ঠানে বিশ্বনাথ প্রেসক্লাব

,পুষ্পকলি সাহিত্য সংঘসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন

লেখককে ফুল ও ক্রেষ্ট দিয়ে শুভেচ্ছা জানায়। ‘দৈনিক
চধমব ৬ ড়ভ ৬

সিলেট সংলাপ’ উৎসব ঘিরে ‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের

দাগ’ বইকে নিয়ে বের করে বিশেষ ক্রোড়পত্র।

মুসা আল হাফিজের প্রাপ্তিতে যুক্ত হয় আরেকটি

পদক- গ্রেটার সিলেট সাহিত্য পুরস্কার। সভাপতির

বক্তব্যে বিশিষ্ট সাংবাদিক ও গবেষক জনাব ফয়জুর

রহমান বলেন-‘প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ’ গ্রন্থ

নি:সন্দেহে মূল্যবান তথ্য সমৃদ্ধ একটি অসাধারণ

গবেষনা গ্রন্থ। এটি মুসলিম উম্মাহর হারিয়ে

যাওয়া বিস্তৃত অধ্যায়কে নতুন করে আমাদের

সামনে স্বার্থকভাবে উপস্থাপন করেছে। প্রচ্যবাদ

বিষয়ে বাংলা ভাষায় এটিই সম্ভবত প্রথম গ্রন্থ।

তিনি দৃঢ়বিশ্বাস রেখে বলেন-গ্রন্থটি সংশ্লিষ্ট

বিষয়ে লেখক গবেষদের আগামী দিনে বিস্তৃত

গবেষনাকর্মে সহায়ক সোপান হিসেবে ভূমিকা

রাখবে।
১ ড়ভ ৬
সঁংধ ধষ যধভরল.ফড়প
উরংঢ়ষধুরহম সঁংধ ধষ যধভরল.ফড়প.

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now