শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিনোদন » আনন্দবাজারে রাজ্জাক হলেন ‘রেজ্জাক’, কবরী ‘করবী’

আনন্দবাজারে রাজ্জাক হলেন ‘রেজ্জাক’, কবরী ‘করবী’

razzak-koboriঢাকার সঙ্গে মৈত্রী চায় কলকাতা। তার জন্য ভরসা করছে চলচ্চিত্রের। কিন্তু বরাবরই বাংলাদেশের তারকাদের নাম সঠিকভাবে লিখতে যত কৃপণতা! কলকাতার সিনে ইন্ডাস্ট্রিতে অপরিচিত হন নায়করাজ রাজ্জাক। অথচ তার নাম লেখা হলো ‘রেজ্জাক’ আর কবরী হলেন ‘করবী’।

কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকায় রোববার প্রকাশিত ঋজু বসুর লেখা একটি প্রতিবেদনের শিরোনাম ‘গঙ্গা-পদ্মার মৈত্রীই ভরসা ছায়াছবিতে’। এতে উঠে আসে ঢাকা-কলকাতার যৌথ প্রযোজনা ও সিনেমা বিনিময়ের নানা দিক।

প্রতিবেদনের শুরুতে শরণ নেওয়া হয় ২১ ফেব্রুয়ারির। কথাগুলো এমন— ‘ভাষাদিবসের পটভূমিতে পাঁচ দশক আগের স্মৃতি যেন আছড়ে পড়ছে। ঢাকার বলাকা বা মধুমিতার পর্দায় রেজ্জাক-করবীদের থেকে জনপ্রিয়তায় কম যেতেন না এপারের উত্তম-সুচিত্রা, সৌমিত্র-মাধবীরা। ৬৫-র ভারত-পাক যুদ্ধের পরে সেই সুতো ছিঁড়ে যায়।’

২৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে কলকাতার ‘বেলাশেষে’। ওই প্রতিবেদনে বলা হয় চলতি বছরে বাংলাদেশে মুক্তি পাবে কলকাতার ‘নাটকের মতো’, ‘বাস্তুশাপ’, ‘কাদম্বরী’সহ মোট ৬টি সিনেমা।

ভুল বানানে লেখা হয় প্রযোজক-পরিবেশক হাবিবুর রহমানের নাম। তার সম্পর্কে বলা হয়, “ঢাকার প্রবীণ প্রযোজক হবিবুর রহমান খানের মনে পড়ে যাচ্ছে ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ তৈরির দিনগুলো। এখন ‘পদ্মানদীর মাঝি’, ‘মনের মানুষ’-এর পরে তিনি ‘শঙ্খচিল’-এর অপেক্ষায়। গৌতম ঘোষের পরিচালনায় যৌথ প্রযোজনার ছবিটি মুক্তি পাবে পয়লা বৈশাখ।”

প্রতিবেদনটিতে উঠে আসে দুই দেশের সরকারি পর্যায়ে উদ্যোগের কথা— “মনমোহন সিংহ জমানার শেষ দিক থেকেই ‘সফ্‌ট পাওয়ার’ হিসেবে চলচ্চিত্রের প্রসারে উদ্যোগী হয়েছে দিল্লি। চলতি জমানাতেও মোদী-হাসিনার বৈঠকে ঢুকে পড়েছিল চলচ্চিত্র প্রসঙ্গ। ঢাকায় নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত হর্ষবর্ধন সিংলার আশ্বাস, দু’দেশে সিনেমার জানলা খোলা রাখতে দিল্লির আন্তরিকতায় খাদ নেই।’’

‘বাংলাদেশের তথ্য-সম্প্রচার মন্ত্রী হাসানুল হক ইনুও হাত বাড়িয়ে রেখেছেন।’— উল্লেখ করে লেখা হয়, ‘বছর তিনেক আগেই কলকাতায় ফিকি-র সম্মেলনে তিনি এ দেশের ছবি বিশেষত টালিগঞ্জকে আমন্ত্রণ জানিয়ে যান। পরবর্তীতে টালিগঞ্জ ও বলিউড তাঁর কাছে দরবার করে এসেছে। প্রসেনজিত বলেন, এটা তাঁর জীবনের স্বপ্ন। ইনু সাহেবেরও মত, জট কাটলে কলকাতা ও ঢাকা— দু’দিকের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিই উপকৃত হবে। বাজার বাড়ানোই একমাত্র পথ।’

কলকাতার সিনেমার বাজারের মন্দা অবস্থা নিয়ে লেখা হয়, ‘এ পারে ছবির বাজেট এক কোটি, সওয়া কোটি ছাড়ালেই দুশ্চিন্তায় রাতের ঘুম মাটি হয় প্রযোজকের। ফেলু-ব্যোমকেশ বাদ দিলে হিট ছবি হাতে গোনা। রাজ্যে মেরে-কেটে ২০-২৫টি মাল্টিপ্লেক্স (মহারাষ্ট্র বা অন্ধ্রপ্রদেশে সংখ্যাটা ১০০-র কাছাকাছি)। হলের সংখ্যা কমতে কমতে ৩৫০। অন্ধ্রে হলের সংখ্যা এর দশগুণ। ফলে তেলুগু বা মরাঠি ছবি যেখানে ২৫ কোটির শৃঙ্গ ছোঁয়ার কথা ভাবতে পারে, বাংলা ছবির ব্যবসা তিন-চার কোটি ছুঁলেই লটারি জেতার সামিল। ও-পারের দশা আরও করুণ। ১২৮৫টা হল ছিল। কমতে কমতে ৩০০-য় ঠেকেছে। ছবির বাজেট ৮০ লক্ষ ছাড়ালেই প্রযোজক প্রমাদ গোনেন। সুপারস্টার শাকিব খানের ছবি ছাড়া বাংলাদেশে দু’আড়াই কোটির বেশি ব্যবসা অভাবনীয়।’

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now