শীর্ষ শিরোনাম
Home » পত্রিকার পাতা থেকে » প্রসঙ্গ-আলোচনায় চরমোনাইর বার্ষিক মাহফিল

প্রসঙ্গ-আলোচনায় চরমোনাইর বার্ষিক মাহফিল

armanওলিউল্লাহ আরমান : এবিষয়ে কিছু লিখবো কিনা, দ্বিধায় ভুগছিলাম বেশ। পরে মনে হলো, লিখতে সমস্যা কোথায়? প্রতিনিয়ত এদেশের খুটিনাটি কতো বিষয়েই তো আমরা লিখি। চরমোনাইর মাহফিল তো দেশে নিত্য ঘটে যাওয়া একটি বিষয়ই। তাছাড়া এরচেয়ে স্বল্প পরিসরের কতো মাহফিল নিয়েও তো আমরা লিখছি অহরহ। অতঃপর যখন দেখলাম তাদের ঘরানার বাইরের এমন অনেক বন্ধুও চরমোনাই মাহফিল নিয়ে লিখছেন, যারা দলমতের ঊর্ধে অনেকের কাছে গ্রহণযোগ্য, ভাবলাম আমিও একটু দুঃসাহসই না হয় করেই ফেলি।

নেটে ক’দিন যাবত চরমোনাই মাহফিলের আপডেটের প্লাবন বয়ে যাচ্ছে। যেহেতু আমার ফ্রেন্ডলিস্টে তাদের অনেকেই আছেন, ফলে আমিও সাগ্রহেই অপেক্ষা করছিলাম যে, আত্মশুদ্ধির খোরাক কিংবা জাতির জন্য নির্দেশনামূলক জরুরী কোনো বার্তা তাদের দিক থেকে পাবো।

মাহফিল যখন, আত্মশুদ্ধির কথা তো হয়েছে অবশ্যই৷ কিন্তু সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল অথবা যারা স্বঃপ্রণোদিতভাবে প্রচারের কাজ করেছেন, তাদের লেখায় তেমন কিছুই পাইনি। অবশ্য না পাবার যৌক্তিক কারণও রয়েছে। এবার সৌদী আরবের দু‘জন পদস্থ সরকারী কর্মকর্তা সাড়ম্বরে চরমোনাই মাহফিলে গিয়েছেন। ফলে ইসলামী আন্দোলনের ভায়েরা তাদের হেলিকপ্টার বহরের প্রচারেই অনেকটা মশগুল ছিলেন। এর বিশেষ তাৎপর্যও রয়েছে। কয়েক মাস পূর্বে ইসলামী আন্দোলনের নায়েবে আমীর এবং দলে ব্যাপক প্রভাবশালী নেতা মুফতী ফয়জুল করীম সাহেব মিথ্যা অভিযোগে সৌদীতে আটক হয়ে অনেক দিন দুঃসহ কারা নির্যাতনের শিকার হন। সেই সৌদী কর্মকর্তাদের আগমনের মানেই হলো, তারা ইসলামী আন্দোলনের ব্যাপারে নিঃসংশয় হয়েছেন। আর সৌদী কর্তপক্ষের সুদৃষ্টি পেলে কার না ভালো লাগবে!!! আবারো বলছি, সৌদী কর্তপক্ষের সুদৃষ্টি পেলে কার না ভালো লাগবে!!!

আরেকটি কথা বলে রাখি, ইদানীং ইসলামী আন্দোলনের বন্ধুরা মুফতী ফয়জুল করীম সাহেবের নামের শেষে ‘কাসেমী’ লকব যোগ করছেন। তার মানে তারাও অবশেষে উপলব্ধি করছেন যে, দারুল উলূম দেওবন্দ কিংবা ওলামায়ে দেওবন্দের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ততা রাখা দরকার। অর্থাৎ, বিলম্বে হলেও তারাও দেওবন্দিয়তের গুরুত্ব বুঝতে পারছেন, এটিও প্রশংসার যোগ্য।

ইতোপূর্বে দেওবন্দিয়াতের সনদ নিতে গতবছর দারুল উলূমের প্রবীণ শিক্ষক হজরত মাওলানা মুফতী হাবীবুর রহমান খায়রাবাদী সাহেবকে চরমোনাই মাহফিলে নেয়ার পর এবছর তারা হজরত শায়খ জাকারিয়া রহঃ এর বিশেষ সোহবতধন্য হজরত মাওলানা মালিক আব্দুল হাফিজ মক্কী সাহেব, দেওবন্দের সিনিয়র মুহাদ্দিস আল্লামা মুফতী কমরুদ্দিন সাহেবকে মাহফিলে আমন্ত্রণ এবং বয়ানের পাশাপাশি হাদীসের দরসেরও ব্যবস্থা করেছেন। অবশ্যই এসব প্রক্রিয়া প্রশংসার দাবীদার।

সর্বোপরি সৌদী আরবের মেহমান এবং মক্কা ও দেওবন্দের স্বীকৃত আলেমগণের অংশগ্রহণের সংবাদ হাইলাইট করার জন্য তারা যেভাবে উচ্ছ্বসিত পোস্ট দিয়েছেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে একে ইতিবাচক চোখে দেখতে চাই।

কিন্তু যারা বলছেন, এবিষয়গুলো আগামীতে ইসলামী আন্দোলনের রাজনৈতিক শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে, আমার মনে হয় তারা এদেশের অতীত এবং সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অবস্থার কথা ভুলে গেছেন। তবুও ইসলামী আন্দোলনের জন্য সর্বান্তকরণে শুভকামনা রইলো। কারণ তাদের ক্রমবর্ধমান অনুসারীগণ যদি আধ্যাত্মিকতার পাশাপাশি পীরসাহেবকে রাজনৈতিকভাবেও অনুসরণ করেন, তাতে আদতে এদেশ ইসলামেরই ফায়েদা হবে।

আমরা আশা করবো, ভবিষ্যতে তারা কেবল বিদেশী নয় বরং সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করে দেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরামকেও তাদের মাহফিলে নেয়ার বন্দোবস্ত করবেন। এতে সাধারণ মুসলমানের লাভের পরিমাণ অনেক বেশী হবে।

কারণ, বিদেশ থেকে তো আর নিয়মিত কেউ সনদ দিয়ে যাবে না, ঘরের তথা দেশের ওলামায়ে কেরামের সনদ নিতে হবে। আর মাহফিল যেহেতু দ্বীনেরই প্রচার-প্রসারের একটি কাজ, আয়োজকেরা আন্তরিকভাবে চাইলেেআমন্ত্রিতরাও নিশ্চয়ই যাবেন(অবশ্য উপযাচক হয়ে এমন কথা বলাটা হয়তো ঠিক নয়। কারণ, তারা কাকে নিবেন আর কাকে নিবেন না, সেটি একান্তই তাদের ব্যাপার)

আমারও মাঝেমাঝে ইচ্ছা হয়, ঘনিষ্ঠ সহপাঠি বন্ধুদের সাথে চরমোনাইর ‘বার্ষিক মিলনমেলায়’ অংশ নিবো। কিন্তু সময়াভাবে এখনো তা হয়ে ওঠেনি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now