শীর্ষ শিরোনাম
Home » ইতিহাস-ঐতিহ্য » ৭১’র মুক্তিযোদ্ধ : বঙ্গবন্ধু,মুফতি মাহমুদ ও জমিয়ত

৭১’র মুক্তিযোদ্ধ : বঙ্গবন্ধু,মুফতি মাহমুদ ও জমিয়ত

bangobonduআবু তায়্যিবা: ৭০-এর নির্বাচনে পিপলস পার্র্র্র্টির পরাজয় এবং আওয়ামীলীগের বিজয় হলে পিপলস পার্র্র্র্টির নেতা জুলফিকার আলী ভূট্টো বাঙালিদের হাতে মতা হস্তান্তরে অসম্মতি প্রকাশ করে বলেছিলেন-‘যারা জাতীয় পরিষদের বৈঠকে ঢাকায় যাবে তাদের পা ভেঙে দেওয়া হবে’। তখন মুফতি মাহমুদ জোর প্রতিবাদ করে বলেছিলেন-‘বর্তমান সৃষ্ট রাজনৈতিক সংকট সমাধানের একমাত্র উপায় জাতীয় পরিষদের বৈঠক আহ্বান এবং সংবিধান ও আইন বিষয়ক সকল বিষয়ই জাতীয় পরিষদে মীমাংসা করা’-(ক্বাইদে জমিয়ত মুফতি মাহমুদ, আশফাক হাশেমী)। ৭০-এর নির্বাচনের মাস-দিন পর অর্থাৎ ১৩ জানুয়ারি ১৯৭১-এ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঢাকায় এসে শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে আলোচনার পর যখন নিশ্চয়তা পেলেন যে, শেখ মুজিবুর রহমানকর্তৃক সরকার গঠিত হলেও তিনি নির্ধারিত মেয়াদ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট পদে বহাল থাকবেন, তখন ঘোষণা করেছিলেন-‘শেখ মুজিবুর রহমান দেশের নির্বাচিত দলের প্রধান হিসেবে আগামী দিনের প্রধানমন্ত্রী। এতএব, রাষ্ট্রীয় ব্যাপারে তার সিদ্ধন্তটাই চূড়ান্ত।’ কিন্তু ঢাকা  থেকে ফেরার পথে দু-জন উর্ধ্বতন সেনা অফিসারসহ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ভূট্টোর সাথে ‘লারকানা’ এলাকাতে গিয়ে গোপন বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ঘোষণা দিলেন-‘শান্তিপূর্ণ উপায়ে মতা হস্তান্তর ও সংবিধান রচনার জন্য পূর্ব ও পশ্চিম-পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ উভয় দলের সমঝোতা পূর্বশর্ত।’ এই ফর্মূলা মূলত ছিলো পিপলস পার্র্র্র্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভূট্টোর, পাকিস্তান ভাঙ্গার জন্য যা ছিলো যথেষ্ট। এক দেশে দুই সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয় কীভাবে? এই প্রশ্ন উঠিয়ে তখন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান এবং শেখ মুজিবুর রহমান কড়া ভাষায় প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে বলেছিলেন-‘এমন উক্তি দেশকে দু-ভাগে বিভক্ত করার সমতুল্য।’-

৭০-এর নির্বাচনে পিপলস পার্র্র্র্টির পরাজয় এবং আওয়ামীলীগের বিজয় হলে পিপলস পার্র্র্র্টির নেতা জুলফিকার আলী ভূট্টো বাঙালিদের হাতে মতা হস্তান্তরে অসম্মতি প্রকাশ করে বলেছিলেন-‘যারা জাতীয় পরিষদের বৈঠকে ঢাকায় যাবে তাদের পা ভেঙে দেওয়া হবে’। তখন মুফতি মাহমুদ জোর প্রতিবাদ করে বলেছিলেন-‘বর্তমান সৃষ্ট রাজনৈতিক সংকট সমাধানের একমাত্র উপায় জাতীয় পরিষদের বৈঠক আহ্বান এবং সংবিধান ও আইন বিষয়ক সকল বিষয়ই জাতীয় পরিষদে মীমাংসা করা’-(ক্বাইদে জমিয়ত মুফতি মাহমুদ, আশফাক হাশেমী)। ৭০-এর নির্বাচনের মাস-দিন পর অর্থাৎ ১৩ জানুয়ারি ১৯৭১-এ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঢাকায় এসে শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে আলোচনার পর যখন নিশ্চয়তা পেলেন যে, শেখ মুজিবুর রহমানকর্তৃক সরকার গঠিত হলেও তিনি নির্ধারিত মেয়াদ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট পদে বহাল থাকবেন, তখন ঘোষণা করেছিলেন-‘শেখ মুজিবুর রহমান দেশের নির্বাচিত দলের প্রধান হিসেবে আগামী দিনের প্রধানমন্ত্রী। এতএব, রাষ্ট্রীয় ব্যাপারে তার সিদ্ধন্তটাই চূড়ান্ত।’ কিন্তু ঢাকা  থেকে ফেরার পথে দু-জন উর্ধ্বতন সেনা অফিসারসহ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ভূট্টোর সাথে ‘লারকানা’ এলাকাতে গিয়ে গোপন বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ঘোষণা দিলেন-‘শান্তিপূর্ণ উপায়ে মতা হস্তান্তর ও সংবিধান রচনার জন্য পূর্ব ও পশ্চিম-পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ উভয় দলের সমঝোতা পূর্বশর্ত।’ এই ফর্মূলা মূলত ছিলো পিপলস পার্র্র্র্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভূট্টোর, পাকিস্তান ভাঙ্গার জন্য যা ছিলো যথেষ্ট। এক দেশে দুই সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয় কীভাবে? এই প্রশ্ন উঠিয়ে তখন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান এবং শেখ মুজিবুর রহমান কড়া ভাষায় প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে বলেছিলেন-‘এমন উক্তি দেশকে দু-ভাগে বিভক্ত করার সমতুল্য।’-(প্রাগুক্ত)। ২৭ জানুয়ারি ১৯৭১-এ ভূট্টো সাহেব ঢাকা এসে গেলেন। ফিরে গিয়ে পেশওয়ারে জমিয়ত নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান এবং মুসলিমলীগ নেতা কাইয়ূম খানের সাথে দেখা করে চেষ্টা করেন ৩ মার্চ আহূত জাতীয় পরিষদ অধিবেশন বর্জন ঘোষণা করাতে। আব্দুল কাইয়ূম খান ব্যতীত বাকি দু-জন অসম্মতি জানালেন ভূট্টো সাহেবের প্রস্তাবে। ভূট্টো সাহেব তখনই ঘোষণা করেছিলেন-‘পিপল্স পার্র্র্র্টির কোনো সদস্য ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে গেলে তার পা ভেঙে ফেলা হবে এবং অন্যকোনো দলের সদস্য যদি ঢাকায় যান তা হলে তিনি যেনো পশ্চিম-পাকিস্তানে ফিরার টিকেট না করেন।’ পিপলস পার্র্র্র্টির নেতাকর্তৃক এই ঘোষণার প্রতিবাদে  জমিয়ত নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান ঘোষণা করেন তারা ৪২ জন জাতীয় পরিষদ সদস্য নিয়ে জাতীয় পরিষদের উদ্বোধনী অধিবেশনে যোগ দিবেন।  উল্লেখ্য যে, এই ৪২ জনের মধ্যে ভূট্টো সাহেবের দল পিপলস পার্র্র্র্টির নেতা আহমদ রেজা কাসূরীও ছিলেন। ১৩ মার্চ ১৯৭১-এ মুফতি মাহমুদ পাকিস্তানের রাজনৈতিক সংকট সমাধানের জন্য লাহোরে সর্বদলীয় একটি বৈঠক ডাকেন। পিপলস পার্র্র্র্টি আর মুসলিমলীগের কাইয়ূম গ্র“প (যা কাইয়ূমলীগ বলে পরিচিতি ছিলো) ছাড়া বাকি সকল দলের প্রতিনিধিরা এতে উপস্থিত হয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের পেশকৃত চার দফা দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে পর্যালোচনা করে শেষ পর্যন্ত এই দাবিগুলোর সমর্থনে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন। দাবিসমূহ ছিলো যথাক্রমে-১. অবিলম্বে সামরিক শাসন প্রত্যাহার, ২. সেনাবাহিনীকে ক্যান্টনম্যান্টে ফেরৎ নেওয়া, ৩. সেনা অভিযানে ঘটিত প্রাণহানীর বিচার বিভাগীয় তদন্ত, ৪. জাতীয় পরিষদের অধিবেশন বসার আগে মতা হস্তান্তর। মুফতি মাহমুদ ১৩ মার্চের বক্তব্যে স্পষ্ট ভাষায় ইয়াহিয়া-ভূট্টোর নীতিকে ভুল আখ্যায়িত করে অবিলম্বে জনপ্রতিনিধিদের কাছে মতা হস্তান্তরের দাবি জানান। জুলফিকার আলী ভূট্টো সাহেবের প থেকে সত্তরের নির্বাচনের পর যখন ঘোষণা করা হলো-‘ওখানে তুমি, এখানে আমি।’ তখন মুফতি মাহমুদ প্রতিবাদ করে বলেছিলেন-‘পাকিস্তানের ঐক্য ভেঙে গেলে রাজনৈতিকভাবে পশ্চিম-পাকিস্তানের পরিভাষা অর্থহীন হয়ে যাবে। তখন কোনো দলের পে পশ্চিম-পাকিস্তানের মতা একা হাতে তোলে নেওয়া যুক্তিহীন হয়ে যাবে। কেনো না পিপলস পার্র্র্র্টি সারা পশ্চিম-পাকিস্তানের একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল নয়, তারা কেবল সিন্ধু ও পাঞ্জাবের প্রতিনিধি মাত্র। সীমান্ত প্রদেশ ও বেলুচিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করার কোনো অধিকার তাদের নেই। তা ছাড়া জাতীয় পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল একটাই থাকে, আর সে দল হলো আওয়ামীলীগ। সুতরাং প্রেসিডেন্টের উচিত তাৎকনিকভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের প্রধান হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমানকে সরকার গঠনের জন্য আহ্বান করা’-(ক্বাইদে জমিয়ত মুফতি মাহমুদ, আশফাক হাশেমী/ সাপ্তাহিক কৌমী ডাইজেষ্ট, মুফতি মাহমুদ নম্বার, পাকিস্তান)। উল্লেখ্য যে, মুফতি মাহমুদ পাকিস্তানের জাতীয় রাজনীতিতে একজন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ১৯৭০-এর জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে ‘ডের ইসমাইল খা’ আসনে স্বয়ং পিপলস পার্র্র্র্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভূট্টোকে তিনি বিপুল ভোটে পরাজিত করেছিলেন।

পূর্ব পাকিস্তানে প্রচণ্ড গণরোষ দেখে ৪ মার্চ প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ঢাকায় ১০ মার্চ সর্বদলীয় সম্মেলন আহ্বান করেন। আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগ, জুলফিকার আলী ভুট্টো পিপিপি, আবদুল কাইয়ুম খান মুসলিম লীগ (কাইয়ুম), মিয়া মোহাম্মদ দৌলতানা কাউন্সিল মুসলিম লীগ, মাওলানা মুফতি মাহমুদ জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম, গফুর আহমদ জামায়াতে ইসলাম, নুরুল আমিন পিডিপি, মওলানা শাহ আহম্মদ নুরানী জমিয়াতুল ওলামায়ে ইসলাম। আমন্ত্রণ পেয়ে শেখ মুজিবুর রহমান তা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেন। ফলে ১০ মার্চের অধিবেশন বাতিল হয়ে যায়।
৪ মার্চ আওয়ামী লীগের নির্দেশে পাকিস্তান রেডিওর নাম বাংলাদেশ বেতার এবং পাকিস্তান টিভির নামকরণ করা হয় বাংলাদেশ টিভি। পাকিস্তান জিন্দাবাদের বদলে জয়বাংলার স্লোগান গৃহীত হয়। ৩ মার্চ ছাত্রদের স্বাধীনতা ঘোষণা, ৪ মার্চ বেতার টিভির নামকরণ মুক্তিযুদ্ধের সূচনা করে।
৪ মার্চ এয়ার ভাইস মার্শাল আসগর খান ইয়াহিয়া খানকে আওয়ামী লীগের নিকট ক্ষমতা হস্তান্তরের অনুরোধ জানান। (সিরাজ উদ্দীন আহমেদ)

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনীতি শুরু হয়েছিলো মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী, মাওলানা আতহার আলী, মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগিশ প্রমুখদের চিন্তা-চেতনায় পরিচালিত রাজনৈতিক আন্দোলনের কর্মী হিসেবে। মাওলানা আতহার আলী (র.)-র সাথে শেখ মুজিবুর রহমানের এতো ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিলো যে, শেখ সাহেব তাঁকে দাদা ডাকতেন। আর মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরীর সংস্পর্শে তাঁর যাওয়া-আসা হতো প্রায়ই। তারা দুজন একই এলাকার লোক। মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী সেই সময়ে যেমন বড় আলেম ছিলেম তেমনি বিএ পাশও ছিলেন, ফলে স্কুল-মাদরাসার সকল শিক্ষিতের কাছে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা ছিলো। একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরুর পূর্বেই মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের সামরিক শাসকদের বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরীর কথাও উল্লেখ করেছেন।
সে যাই হোক, শেখ সাহেব কোনোদিনই বাম রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন না। স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর অবস্থানটা যখন বটবৃক্ষের মতো হয়ে গেলো তখন বামরা দলবেঁধে তাঁর ছায়াতলে আশ্রয় নিয়েছিলেন। একাত্তরে তিনি পাকিস্তানের জেলে বন্দি থাকতেই তৎকালীন মুজিবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজ উদ্দিন আহমদ, ড. কামাল হোসেন প্রমুখদের মাধ্যমে ভারত বাংলাদেশের রাজনীতিতে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করেছিলো। কিন্তু শেখ সাহেব জেল থেকে মুক্ত হয়ে বাংলাদেশে ফেরার পর একদিন তাজ উদ্দিন আহমদকে ধমক দিয়ে বললেন-‘তাজ উদ্দিন ঐ বেটি (ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্ধিরা গান্ধী) যা বলেছে তুই চোখ বুজে মেনে নিলি, কী লিখেছে তা দেখে কি দস্তখত করেছিস? জিজ্ঞেসও করিস নাই কিসে দস্তখত দিচ্ছিস?’ (গিয়াস কামাল চৌধুরী, সাক্ষাৎকার, ইকরা-দ্বিতীয় সংখ্যা, মার্চ ২০০১, বার্মিংহাম, ইউকে)।
‘একাত্তরে পাকিস্তান সরকার এবং তাঁর সহচর রাজাকার, আল-বদর, আল-শামসের লোকেরা বঙ্গবন্ধুকে ইসলাম বিরোধী ভারতের দালাল প্রমাণের চেষ্টা করে। এর মূল কারণ, শেখ মুজিবুর রহমানকে ইসলামের শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করতে না পারলে সাধারণ মানুষ রাজাকার, আল-বদর, আল-শামসে যাবে না। তাদের বক্তব্য কিছু সরলপ্রাণ মুসলমানের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেলেও বেশিরভাগ মুসলিম জনতা তা প্রত্যাখান করে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছেন। পাকিস্তানের তৎকালিন বিশ্ববিখ্যাত আলেম মুফতি মাহমুদ (যিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ওল-পাকিস্তানের সেক্রেটারী ছিলেন) তখন শেখ মুজিবের পক্ষে নিজের জীবনের ঝুকি নিয়ে পাকিস্তানে ইয়াহিয়া-ভূট্টোর মুখোমুখি দাঁড়িয়েছেন।’ (সৈয়দ মবনু )

অসহযোগ আন্দোলনের ১৯তম দিনে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রাক্তন নৌ-সেনাদের এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে তারা বঙ্গবন্ধু ঘোষিত মুক্তি সংগ্রামের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন এবং স্বাধীনতা সংগ্রামে সহযোগিতা করার জন্য একটি সম্মিলিত মুক্তিবাহিনী কমান্ড গঠনের জন্য সশস্ত্র বাহিনীর প্রাক্তন বাঙালী সৈনিকদের প্রতি আহ্বান জানান।

সকালে কঠোর সামরিক প্রহরা পরিবেষ্টিত রমনার প্রেসিডেন্ট ভবনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের মধ্যে চতুর্থ দফা আলোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বঙ্গবন্ধুর সাথে তার ছয়জন শীর্ষস্থানীয় সহকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

প্রায় সোয়া দুই ঘণ্টা আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধু প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে বের হয়ে এসে দেশী-বিদেশী সাংবাদিকদের বলেন, আলোচনায় কিছুটা অগ্রগতি হয়েছে। তিনি এর বেশি কিছু বলতে অপারগতা জানিয়ে বলেন, সময় এলে অবশ্যই আমি সব কিছু বলব।

মুক্তিপাগল মানুষের দৃপ্ত পদচারণায় রাজধানী টালমাটাল হয়ে ওঠে। মিছিলের পর মিছিল এগিয়ে চলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে শপথ গ্রহণ শেষে একের পর এক শোভাযাত্রা বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে গিয়ে সমবেত হয়। বঙ্গবন্ধু সমবেত জনতার উদ্দেশে একাধিক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দৃঢ়তার সাথে বলেন, মুক্তিপাগল সাড়ে সাত কোটি বাঙালীর চূড়ান্ত বিজয়কে পৃথিবীর কোনো শক্তিই রুখতে পারবে না। বাংলাদেশের মানুষের সার্বিক মুক্তি অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে।

কাউন্সিল মুসলিম লীগ প্রধান মিয়া মমতাজ মোহাম্মদ খান দৌলতানা ও জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের মহাসচিব মওলানা মুফতি মাহমুদ পৃথক পৃথক বৈঠকে মিলিত হন।

সুপ্রীম কোর্টের প্রখ্যাত আইনজীবী ও আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম কৌঁসুলি এ কে ব্রোহি সকালে করাচী থেকে ঢাকায় আসেন।

রাতে এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জনগণের প্রতি শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, মুক্তির লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত এই আন্দোলন অব্যাহত থাকিবে। বর্তমানের গণ-আন্দোলন প্রতিটি গ্রাম, শহর ও নগরীর নারী-পুরুষ-শিশু নির্বিশেষে সকলকে বাংলাদেশের দাবির পিছনে সুসংগঠিত করিয়াছে। বাংলাদেশের জনসাধারণ সমগ্র বিশ্বের স্বাধীনতাপ্রিয় মানুষের অন্তর জয় করিয়াছে। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে একটি অনুপ্রেরণাদায়ী দৃষ্টান্ত হিসেবে পরিচালিত এবং ইহা হইতেছে আপন লক্ষ্যে দৃপ্ত পদক্ষেপে অগ্রসরমান দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ও ঐক্যবদ্ধ জনসাধারণের সংগ্রামের দৃষ্টান্ত।

জীবনের সকল স্তরের মানুষ- মাঠের কৃষক, কারখানার শ্রমিক, ব্যাংক, অফিস, বন্দর এবং সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত কর্মচারীবৃন্দ- যাহারা আমাদের নির্দেশাবলীর কাঠামোর মধ্যে অর্থনীতিকে রক্ষা করার জন্য নিরলস পরিশ্রম করিয়া যাইতেছেন তাদের সকলের প্রতি আমার অভিনন্দন। এই সব নির্দেশ কার্যকর করার ব্যাপারে ছাত্র, শ্রমিক এবং কর্মচারী সংগঠনগুলোর সজাগ দৃষ্টির জন্য তাহারা বিশেষভাবে অভিনন্দনযোগ্য। আমাদের জনসাধারণ প্রমাণ করিয়াছেন যে, তাহারা তাহাদের নিজেদের বিষয় অত্যন্ত আদর্শ পদ্ধতিতে পরিচালনা করিতে সক্ষম।

স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসাবে বাঁচার উদ্দেশে জনসাধারণ সকল প্রকার ত্যাগ স্বীকারে বদ্ধপরিকর। তাই মুক্তির লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অবশ্যই অব্যাহত থাকিবে। শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল পদ্ধতিতে জনসাধারণ তাহাদের আন্দোলন চালাইয়া লইয়া যাইবেন, তাহাদের নিকট ইহাই আমার আবেদন। নাশকতামূলক কার্যে লিপ্ত ব্যক্তিদের দুরভিসন্ধিমূলক ও উস্কানির বিরুদ্ধে আমি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করিতেছি। আমাদের জনসাধারণ অবশ্যই অর্থনৈতিক তৎপরতার প্রতিটি ক্ষেত্রে কঠোর শৃঙ্খলা পালন করিয়া যাইবেন, যাহাতে জনসাধারণের অত্যাবশ্যক চাহিদা পূরণের ব্যবস্থা অব্যাহত থাকিতে পারে।

পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টো করাচীতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, তিনি লন্ডন পরিকল্পনা যা ১৯৬৯ সালে লন্ডনে বসে শেখ মুজিব, খান আবদুল ওয়ালী খান ও মিয়া মমতাজ মোহম্মদ খান দৌলতানা কর্তৃক প্রণীত তা মানবেন না। তিনি বলেন, ঐ পরিকল্পনা আওয়ামী লীগ প্রধান ঘোষিত ৬-দফার ভিত্তিতেই করা হয়েছে। তথ্যসূত্র : মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর

মুক্তিযোদ্ধে বিদেশি
বন্ধুদের নিয়ে লেখা
লেখি আলোচনা
সংবর্ধনা সাক্ষাৎকার
ও জাতিয়
দৈনিকগুলোত ফিচার
হয়ে থাকে প্রায়ই।
আওমীলীগ সরকার
২০১৩ সালে অনেক
প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা
বন্ধুকে সম্মাননা
জানানো হয়।
ভারতীয় আলেমদের
সর্ববৃহৎ সংগঠন
জমিয়তে উলামায়ে
হিন্দ
১৯৭১ সালের ১৮
আগস্ট মুসলিম
ইনস্টিটিউট
হলে ( কলকাতা )
আয়োজিত একটি
সভায় বাংলাদেশের
পক্ষে এবং পাক
বাহিনীর হামলার
একটি প্রতিবাদ
প্রস্তাব পাশ করে।
রেজুলেশনটির
কিয়দংশ
নিচে উল্লেখ করা
হলো :
Resolution : 1 – whereas
this convention of the
jamiat -e – ulema is of
the considered view
that the freedom
movement of the
people of east Bengal.
eighty five percent of
whom are Muslim is a
fight against economic
exploitation and
suppression of their
Democratic rights by
the west Pakistan
military regime, And
whereas this
convention is satisfied
that this movement is
for upholding the
principles of democracy,
equally and social
justice which Islam has
contributed to mankind.
the jamiat -e – ulema
extends the whole
hearted support to this
freedom movement.
( সূত্র : শায়খুল
ইসলাম সায়্যিদ
হুসাইন
আহমদ মাদানি /
ড.মুশতাক আহমদ,
ইসলামিক
ফাউন্ডেশন)
দিল্লিতে বাংলাদেশের
মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে
ভারতের উলামায়ে
কেরাম তার নেতৃত্বে
বিশাল জনসমাবেশ
সহ প্রায় ৩০০টি
প্রতিবাদ সভা করেন ।
এ সমস্ত তথ্যাদি
দ্বারা স্পষ্ট হয়ে যায়
তদানীন্তন
পাক ভারতের আলেম
সমাজ মুক্তিযুদ্ধের
বিরোধিতা নয়
বরং পক্ষাবলম্বন
করেছিলেন। কিন্তু
আজ নতুন প্রজন্ম এ
সম্পর্কে কিছুই
জানেনা।
অবশ্য গত ১
অক্টোবর ২০১৩
তারিখে বঙ্গবন্ধু
আন্তর্জাতিক
সম্মেলন
কেন্দ্রে ‘ মুক্তিযুদ্ধ
সম্মাননা অনুষ্ঠানে ‘
মাওলানা সৈয়দ
আসআদ আল
মাদানীকে মরণোত্তর
সম্মাননা দেয়া হয় ।
কিন্তু এটা ছিলো
নিতান্তই
দায়সারা গোছের। আর
সবচেয়ে দুঃখজনক
হলো বাংলাদেশের
শীর্ষ দৈনিকগুলো
তাকে সম্মাননা প্রদান
প্রসঙ্গে ছিল নীরব।
এমনকি কি এক
অজানা কারণে এ মহান
ব্যক্তিত্বের নামটুকু
অধিকাংশ মিডিয়া
উল্ল্যেখ করেন নি ।
এছাড়া ঐ তালিকা
থেকে বাদ পড়েছেন
পাক ভারতের অসংখ্য
মুক্তিযোদ্ধের আলেম
বিদেশি বন্ধু । রাষ্টিয়
তালিকায় তাদের নাম
নেই কেন । কাদের
অবহেলাতে ?
পাকিস্তান পিপলস্
পার্টির নেতা, তারেক
ওয়াহিদ বাট তার ‘নিউ
ওয়ার্ল্ড ওয়ার্ডার
ইসলাম আওর
পাকিস্তান’ গ্রন্থে
উল্লেখ করেছেন,
পাকিস্তান জমিয়তে
উলামায়ে ইসলামের
সভাপতি মুফতি
মাহমুদ সাহেবের
বক্তব্য সব সময়
বাঙালি মুসলমানদের
পক্ষে ছিল। ফলে সে
সময় জামায়াতে
ইসলামী ও পিপলস
পার্টি মিলে মুফতি
মাহমুদের পেশওয়ারস্থ
অফিসে আক্রমণ
করে।
লেখকের এ কথার
সত্যতা পাওয়া যায়
সিলেটের
জকিগঞ্জের মাওলানা
আব্দুস সালামের
কথায়। তিনি বলেন,
১৯৭১ সালে আমি
করাচি ইউসুফ
বিননুরী মাদ্রাসার
ছাত্র। একদিন মুফতি
মাহমুদ সাহেব
মাদ্রাসায় এলে তাঁকে
এক নেতা শেখ মুজিব
সম্পর্কে জিজ্ঞেস
করেন, ‘গাদ্দারকে তো
গ্রেপ্তার করা হয়েছে,
তাঁকে কি এখনো হত্যা
করা হয়নি? এ কথা
শুনে মুফতি মাহমুদ
সাহেব অত্যন্ত
রাগান্বিত হয়ে
বললেন, গাদ্দার কে?
গাদ্দার কে? মুজিব
গাদ্দার নয়, তিনি
একজন সুন্নি
মুসলমান। প্রত্যেক
মুসলমানের জানমালের
হেফাজত করা
প্রতিটি মুসলমানের
জন্য অপরিহার্য।
মুফতি মাহমুদ (রহ.) ১৩
মার্চ এক বক্তব্যে
স্পষ্ট ভাষায়
ইয়াহইয়া-ভূট্টোর
নীতিকে ভুল আখ্যা
দিয়ে জনপ্রতিনিধি
হিসেবে শেখ মুজিবুর
রহমানের হাতে
ক্ষমতা হস্তান্তরের
আহ্বান
জানিয়েছিলেন। তিনি
বলেছিলেন, জাতীয়
পরিষদের
সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের
প্রধান হিসেবে শেখ
মুজিবকে সরকার
গঠনের জন্য আহ্বান
জানানো
প্রেসিডেন্টের
অবশ্যই কর্তব্য।
(কাইদে জমিয়ত
মুফতি মাহমুদ,
আশফাক হাশেমী/
সাপ্তাহিক কওমী
ডাইজেস্ট, মুফতি
মাহমুদ নাম্বার,
পাকিস্তান)।
একাত্তরের যুদ্ধের
শূরুতেই ২৩মার্চ
পাকিস্তান শাসকদের
রক্তচক্ষুকে উপক্ষা
করে পূর্ব পাকিস্তানে
এসে শেখ মুজিবুর
রহমান এর সাথে
একাধিক বৈঠক করেন
পাকিস্তান জমিয়তে
উলামায়ে ইসলামের
সেক্রেটারী মুফতি
মাহমুদ। প্রথম
বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে
পরে হোটের
ইন্টারকলে উভয়ে
একাধিক বৈঠকে
করেন । এসব বৈঠকে
মুক্তিযুদ্ধের এই
অকৃতিম বন্ধু
মাওলানা বাংলাদেশের
অধিকার আদায়ের
দাবীকে সমর্থণ করে
সাংবাদিক সম্মেলন
করেন এবং আলাদা
শায়াত্ব শাসনের
পক্ষে কথা বলেন।
একাত্তরের ১৩ মার্চ
অসহযোগ আন্দোলন
দমনের জন্য
ঔপনিবেশিক সরকার
যে আদেশ জারি
করেছিল, তার
মোকাবিলায়
তৎকালীন পূর্ব
পাকিস্তানে বিরোধী
দলীয় নেতা মুফতি
মাহমুদের সভাপতিত্বে
অনুষ্ঠিত সভায়
সামরিক আইন
প্রত্যাহার, ২৫
মার্চের আগেই
ক্ষমতা হস্তান্তর
এবং সেনাবাহিনীকে
ব্যারাকে ফিরিয়ে
নেয়ার আহ্বান
জানানো হয়। এদিনই
আলেম- ওলামাদের
সংগঠন ‘জমিয়তে
উলামায়ে ইসলাম’ পূর্ব
পাকিস্তানের
নেতৃত্বে অভ্যন্তরীণ
নৌপরিবহন শ্রমিক
ফেডারেশনের উদ্যোগে
শীতলক্ষ্যায়
লক্ষাধিক মানুষ
দীর্ঘ নৌ-মিছিল করে
স্বাধীনতা
আন্দোলনকে এগিয়ে
দেয়। দৈনিক আমার
দেশ, ৭ মার্চ ২০০৭ইং)
মাসিক মদীনার
সম্পাদক মাওলানা
মুহিউদ্দীন খান তার
জীবনের খেলাঘর
আত্মজীবনী গ্রন্হে
লিখেছেন , আমরা
বঙ্গবন্ধুর সাথে
বৈঠকের পর তার সাথে
দেখা করে বাংলাদেশ
পাকিস্তান যুদ্ধের
ব্যপারে জিজ্ঞাসা
করলাম । তিনি তখন
জমিয়তের নেতা
কর্মিদের বললেন ,
পাকিস্তান শাসকদের
বন্ধু এখন আমেরিকা ।
আমিরিকা যাদের বন্ধু
তারা আমাদের শত্রু ।
তোমারা বাংলাদেশের
পক্ষে লড়াই কর ।
পাকিস্তানীদের
২৫মার্চ গনহত্যার
প্রতিবাদে তিনি
লাহোরে বাংলাদেশের
পক্ষে বিক্ষোভ করেন
। তিনি পাকিস্তানের
নাগরিক হয়েও
বাংলাদেশের ও
মুক্তিযুদ্ধের অকৃতিম
বন্ধু ছিলেন । কিন্তু
হ্যায় আজ বিদেশি
বন্ধুদের তালিকাতে
মুফতি মাহমুদ রহ
কোথায় ?

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now