শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » পাঠ প্রতিক্রিয়া: কবি মুসা আল হাফিজের দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ

পাঠ প্রতিক্রিয়া: কবি মুসা আল হাফিজের দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ

farrokআলী হাফিজ: কোনো বাম লেখককে যদি জিজ্ঞেস করা হয় ফররুখ আহমদ কেমন কবি ? উত্তর আসবে ‘ইসলামী কবি,। কোনো ইসলামপন্থীকে যদি প্রশ্ন করা হয়, ফররুখ আহমদ সম্পর্কে আপনার বক্তব্য কী? আবেগের আতিশয্যে তিনি বলে উঠবেন ‘ফররুখ তো ইসলামী রেনেসাঁর কবি। ইসলামের রূপ রং ফুটিয়ে তোলার ক্ষেত্রে তিনি অদ্বিতীয়!! ফররুখ একান্তই আমাদের সম্পদ!!! এই হচ্ছে ডান এবং বাম লেখক গবেষকদের ফররুখ আহমদ নিয়ে বক্তব্যের সার। উভয় পক্ষের কথা হচ্ছে তিনি ইসলামী কবি। কিন্তু তিনি কোন্ মানের কবি, তাঁর কবিতার ক্ষমতা কতটুকু, তাঁর কবিতার ভেতর-বাহির ,তাঁর কবিতার শিল্প-সৌন্দর্য নিয়ে কেউ কথা বলে না। বলতে চায় না। বামপন্থীরা বলে না, কারণ, তিনি তাদের প্রতিপক্ষ। ডানপন্থীরা এপথে এগুয়না,কারণ, সাহিত্যসমালোচনা কাজটি যে অত্যন্ত কঠিন। ফররুখকে নিয়ে যে কাজ হয়নি তা বললে কিছুটা বাড়াবাড়ি হয়ে যায়। কাজ হয়েছে, হচ্ছে এবং হবে। তবে আলোচিত গ্রন্থে আমরা চিনতে পারব অন্য এক ফররুখকে। প্রকৃত কবিকে। তাঁর কবিতার শিল্পকে।
কীভাবে লেখক কবি ফররুখ আহমদকে উপস্থাপন করেছেন এবং কোন্ শৈলিতে ফররুখের শিল্পকে তিনি হাযির করেছেন ,লক্ষ্য করুন-
“দিন যতই যাচ্ছে এ কথা স্পষ্ট হচ্ছে যে বাংলা কবিতায় যুগনির্মাতা কবি হিসাবে মাইকেল মধুসুদন দত্ত, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম ও জীবনানন্দ দাশের পরেই ফররুখ আহমদের অবস্থান। বাংলা কবিতার ঐতিহ্যগত উত্তরাধিকার নিয়েই তিনি নির্মাণ করেছেন আধুনিক কবিতার প্রেক্ষাপট। এক্ষেত্রে তিনি ছিলেন স্বতন্ত্র ¯্রােতধারার নাবিক। জীবনবাদী মানবিক উপলব্ধিকে তিনি সঞ্চারিত করেছেন কবিতার তন্ত্রীতে। অস্থিমজ্জায় ছিলেন ইসলামের জীবনীসত্যে উদ্দীপিত। তিনি ও তাঁর কবিতা সেই সত্যে ছিলো সূত্রাবদ্ধ। বিচ্ছিন্ন হয়নি কেউ কারো থেকে। সেই অবিচ্ছিন্নতা থেকে ধ্বনিত হয়েছে মানুষের কথাম, মানুষের পৃথিবীর কথা, মানুষের গভীরতর আত্মার কথা, জীবনযন্ত্রণার কথা, প্রকৃতি ও মাতৃভূমির কথা।”
এতো অল্পকথায় একজন কবির সমস্ত দিক কেউ যদি পেতে চায় তাহলে তাকে “দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ” বইটি পড়তে হবে। আমাদের তো মনে হয়, কবি ফররুখ আহমদের সৃষ্টিকর্মের কোনো দিক আর অবশিষ্ট থাকেনি। ফুটে উঠেছে এই কয়েকটি মাত্র ছত্রে। এতো বলিষ্ঠ ও প্রণছোঁয়া ভাষায় ফররুখকে উপস্থাপন করা হায়েছে খুবই কম।
বইটির আলোচ্যবিষয় ফররুখের জীবনী নয়। বরং তাঁরই সৃষ্ট তিনটি কাব্যনাটকের ভেতর-বাহির নিয়ে গভীর শিল্পসমালোচনা। ১০২ পৃষ্টার এ গ্রন্থে আরো রয়েছে ফররুখ বিদ্বেশীদের দাঁতভাঙ্গা জবাব। এ জবাব তাদেরই গুরুলেখকদের রচনা ও কথামালা দিয়ে। লেখক বলছেন- “ যারা তাঁর কবিতা গভীরভাবে মন্থন করেছেন তারা তাঁর আদর্শবাদকে পছন্দ করুন বা নাই করুন, বিবেকের নির্দেশে তাদেরকে বলতে হয়েছে: “ বিষয়, আদর্শ যে ভাষায় কাব্য হয়, যে ছবিতে চিত্রকল্প হয়, যে মূর্ছনায় লিরিক হয়, যে ধ্যানে আত্মগত হয়, যে কল্পনায় কাস্তবতা ও ঘটমানতা ছাড়িয়ে উঠে এবং যার দ্বারা বিশেষ  বক্তব্যের প্রশ্ন সাপেক্ষতার উর্ধ্বে শৈল্পিক রসে স্বাচ্ছন্দ্য থাকতে পারে তা ফররুখের অনায়ত্ত ছিলো না। এবং কী করে এই কাব্যপদ্ধতি জীবনের সঙ্গে মিশে , তারও পরিচয় তার মধ্যে রয়েছে।
(্আধুনিক কবি ও কবিতা, হাসান হাফিজুর রহমান)
“ এ যুগের বাংলা কবিতায় ফররুখের মতো বিষয় এবং প্রকরণ সচেতন কবি আর নাই বললেই হয়। নানা ছন্দে যেমন তিনি লিখেছেন, তেমনি বিভিন্ন প্রকরণেও তিনি ঢেলেছেন তার চিন্তা ও জীবন দর্শনকে। গীতিকবিতা, গাঁথা , সনেট, অনুবাদ কবিতা, নাট্যকবিতা, কাব্যনাট্য, মহাকাব্যসূলভ কাহিনীকাব্য, কবিতা, গান প্রভৃতি নানা দিকে তিনি নিজেকে ছড়িয়ে েিদয়েছেন।”
‘সিরাজাম মুনীরা’ এর মতো শুধু ধর্মীয় কাব্যগ্রন্থ নয়, ‘হাতেম তায়ী’র মতো অসামান্য কাহিনীকাব্য নয়, অজ¯্র রোমান্টিক নিটোল কবিতাও রয়েছে তাঁর। তাঁর কবিতায় রোমান্টিকতা ও মননশীলতা ছিল পাশাপাশি। একাধারে ছিলেন তিনি রোমান্টিক ও ক্লাসিক , স্বাপ্নিক ও বাস্তববাদী, আধ্যাত্মিক ও সচেতন জীবনবাদী কবি। এ ছাড়া তিনি বাংলা কবিতার শ্রেষ্ঠ প্রতীকী কবিদের একজন”।
(জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী সম্পাদিত ‘পাঞ্জেরী’তে ১৯৭৬ এ প্রকাশিত)
এমনই নানা উদ্ধৃতি দিয়ে বক্তব্যকে সজ্জিত করা হয়েছে। পেশ করা হয়েছে নিজস্ব পর্যবেক্ষণ ও বিচার বিশ্লেষণ।
আলেম লেখকের হাতে রচিত কাব্যসমালোচনার গ্রন্থ বাংলাভাষায় এই প্রথম। কবি , প্রাবন্ধিক, গবেষক ও ইতিহাস বিশ্লেষক মুসা আল হাফিজ সাহেবের সকল গ্রন্থই অমূল্য রতœ। সাহিত্যের ভাঁড়ারে অনন্য সংযোজন। ‘দৃশকাব্যে ফররুখ আহমদ ’ পড়–ন,মাত  হয়ে যাবেন। বইটি কাব্যনাটকের সমালোচনায় এক মুগ্ধকর নিদর্শন। উর্দুভাষায় আল্লামা ইকবালের কাব্যসমালোচনায় সাইয়্যেদ আবুল হাসান আলী নদভী ‘নুকুশে ইকবালের’ মাধ্যমে যে শূন্যস্থান পূরণ করেছেন এই বইটি বাংলাভাষায় সাহিত্যসমালোচনায় সেই ভূমিকা পালন করবে। আল্লামা নদভীর ‘নুকুশে ইকবাল’ সম্পর্কে প্রফেসর রশিদ আহমদ  সিদ্দিকী লিখেছেন- ‘উর্দূসাহিত্যে কব্যসমালোচনায় আলেমদের অবদান না থাকা ছিল লজ্জার। সেই লজ্জার অবসান ঘটিয়েছেন আলী নদভী।, বাংলাভাষার ক্ষেত্রে সেই একই কথা আরো বেশি বাস্তব।
এ ভাষায় কোনো আলেমের হাত দিয়ে কাব্যসমালোচনা হবে তো দূরে থাক,তার কোনো লক্ষণই দেখা যাচ্ছিল না।কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে অত্যন্ত সক্ষম হাতে এগিয়ে এলেন কবি মুসা আল হাফিজ।যিনি ইতোমধ্যে সাহিত্য ও চিনÍায় আমাদের বহু শূন্যস্থান পূরণ করেছেন।তৈরী করেছেন সাফল্লের দৃষ্টান্ত।এবার তাঁর হাত থেকে বেরিয়ে এলো ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’।যারা ফররুখকে শিল্পের মানদ-ে অস্বীকার করতে চায় এবং তাঁকে মাটিচাপা দিতে চায় তাদের প্রয়াস ব্যর্থ করে দেবে এ গ্রন্থ।গ্রন্থটি কতোটা অভিনব ও বলিষ্ঠ তা বুঝতে হলে আপনাকে সফর করতে হবে ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’র পাতায় পাতায়।
লেখক:  সম্পাদক-স্বপ্নস্বর, মোবাইল:০১৭৩৮৯৪৫২২৮

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now