শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ”অসাধারণ গৌরবের এক কাহিনী”

”অসাধারণ গৌরবের এক কাহিনী”

1235484_1096996183654129_4626933951288156862_n
সৈয়দ শামসুল হুদা::  মুসা আল হাফিজ, একজন আলেম, একজন লেখক, কবি ও সাাহিত্যিক। ছবির এই অনুষ্ঠানে লেখক দাওয়াত দিয়েছিলেন। সময়ের ব্যস্ততার কারনে যেতে পারিনি বটে, অন্তরটা কিছু সময়ের জন্য ওখানেই পড়েছিল। ফেসবুকে বারবার এই উৎসবের ছবি খুঁজে বেরিয়েছি। অবশেষে পেলাম। খুব চমৎকার ভাবেই পেলাম। ছবিগুলো দেখে আবেগে আপ্লুত হলাম। অনুপ্রাণিত হলাম। তৃপ্ত হলাম।
এর কারন :
আমি সবসময় স্বপ্ন দেখি এই জায়গাটায় আলেমদের পৌঁছতে হবে। যে জায়গায় মুসা আল হাফিজ পৌঁছেছেন। বাংলা সাহিত্য চর্চার সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান বর্তমানে আমার কাছে বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রকেই মনে হয়। আর সেই কেন্দ্রের সকল জ্ঞানী-গুণীগণ উপস্থিত থেকে এমন একজন লেখককের বই প্রকাশনা উৎসব করলেন যিনি আপাদমস্তক একজন হুজুর। যাকে সমাজে অবহেলার চোখে দেখা হয়।

* এমন একটি সুন্দর অনুষ্ঠান যেখানে তিনিই মূল আকর্ষণ, তার পোষাকে, চেহারায় আদর্শ বিচ্যূতির কোন লক্ষণ নেই। খুব স্বাভাবিক, সচরাচর যে পোষাক পরেন, সেটা পরেই এমন একটি মূল্যবান অনুষ্ঠানে উপস্থিত হলেন।

* আমাদের অনেকেই এই রকম সামান্য কিছু মূল্যায়ন পেলে ভুলে যায় অতীতের কথা, নিজের আদর্শের কথা। ছেড়ে দেয় ঐতিহ্যের পোষাক, ফেলে দেয় মাথার টুপিটাও। ভোগে চরম হীনমণ্যতায়। আর ভাবে, আমাদের জগৎটা আসলেই অন্ধকার। নতুন জগতটাই তার কাছে আলোময়।

* আমি সবসময় এ বিষয়টি ভাবি যে, আমাদেরকে দেশের মূল ধারার নেতৃত্ব গ্রহন করতে হলে, এমন মুসা আল হাফিজের মতো অনেক যোগ্য, মেধাবী লোকের অনেক প্রয়োজন। সর্বত্র ছড়িয়ে যেতে হবে আমাদের। আমরাতো কওমী। আমরাতো জাতীয় ধারার। তাহলে কুনো ব্যাঙের মতো ঘরে বসে বাহাদুরী দেখিয়ে তো কোন লাভ হবে না। আমার ঘরে তো আমিই রাজা। আমিই কুতুব। আমিই বাহাদুর। কিন্তু একজন সাহিত্যিক হিসেবে মুসা আল হাফিজের মতো একজন নিরেট আলেম, একজন হুজুর, একজন (কিছু লোকের ভাষায়) মুন্সীকে যখন মঞ্চের সামনে বসিয়ে সময়ের গুরুত্বপুর্ণ, যোগ্যতম, ক্যারিশম্যাটিক ব্যক্তিত্ব, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের স্বপ্নদ্রষ্টা আব্দুল্লাহ আবু সায়িদ প্রশংসা করেন, গুণকীর্তন করেন, তখন ভাবতেই পারি না, আসলেই আমরা কতটুকু সাফল্য অর্জন করেছি।

* আসল কথা হচ্ছে যোগ্যতা, মেধা। আপনার যদি যোগ্যতা থাকে, তাহলে পোষাক না পাল্টালেও আপনার মূল্যায়ন হবে। রং-বেরংয়ের পাঞ্জাবী না হলেও চলবে। ধী শক্তি, কৌশল, প্রজ্ঞার কাছে আজ বিশ্বব্যাপী মুসলমানরা মার খাচ্ছে। একজন মুসা আল হাফিজ যেভাবে মঞ্চের লোকগুলোর প্রশংসা আর গুণকীর্তণ অর্জণ করলো, এটা এক অসাধারণ অর্জন। এ ধারাটা আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে। অবশ্য এ ক্ষেত্রে সতর্কতাও প্রয়োজন। আমরা কারো প্রশংসা করলেও অতিরঞ্জন করি, সমালোচনা করলেও সীমা লংঘন করি। মুসা আল হাফিজ মুসা আল হাফিজই রয়ে গেছেন। তিনি মঞ্চের লোকদের উপস্থিতিতে বই প্রকাশ আর প্রকাশের উৎসব করে মহা মানুষ হয়ে যান নাই, বাংলা ভাষার এক মহারথিও হয়ে যান নাই। তিনি অবশ্যই একটা বড় ধরনের সাফল্য অর্জন করেছেন। আমরা তার এই অর্জনে গৌরব বোধ করছি।

* এ ধারা অব্যাহত থাকবে। এ প্রকাশনা উৎসব চলতেই থাকবে, সেই কামনা। প্রার্থনা করি, মুসা আল হাফিজের কলম থেকে আরো বেশি বেশি এমন বই বের হয়ে আসুক, যার জন্য আব্দুল্লাহ আবু সায়িদ মহোদয়ের মতো লোকেরা বারবার ছুটে আসবেন প্রকাশনা উৎসবে। আর আমরা পেতে থাকবো একের পর এক মূল্যবান বই। এগিয়ে যাও বন্ধু। এগিয়ে নিয়ে যাও আমাদেরকেও। আমরা তোমার পিছনে পিছনে সারিটা দীর্ঘ করতে চাই। আমাদের তরুণ প্রজন্ম যেন তোমার কাছ থেকে প্রেরণা লাভ করে, সেই প্রত্যাশা।
নোট: Syed Shamsul Huda র’ ফেবু থেকে সংগৃহিত https://www.facebook.com/alhuda.wf?pnref=story

মহাসত্যের বাঁশি ও দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব

সিলেটের কৃতিসন্তান কবি মুসা আল হাফিজের লেখা ‘মহাসত্যের বাঁশি ও দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব গতকাল বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশিষ্ট গবেষক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ, বিশ্বব্যাংকের সাবেক উপদেষ্টা ড. সৈয়দ রোকন উদ্দীন, কৃষিমন্ত্রণালয়ের সচিব, গবেষক শফিকুর রহমান, ইউএনবিআরের যুগ্মপরিচালক, লেখক রকিব আল হাফিজ,মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, কবি বাসিত ইবনে হাবিব প্রমুখ সহ লেখক কবি মুসা আল হাফিজ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
আবদুল্লাহ আবু সায়ীদতার অনুভুতি পেশ করতে গিয়ে বলেন,  মুসা আল হাফিজের সাথে আমার দেখা হয়নি আগে।কিন্তু তার সাথে আমার আত্মিক সম্পর্ক অনেক পুরনো। তিনি এই সময়ের একজন রিয়েল লেখক। প্রায় বিশ মিনিট আলোচনা করেন তিনি।ফররুখ বিষয়ক অনবদ্য আলোচনা ছিলো মুগ্ধকর। http://sylhetreport.com/?p=17577

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now