শীর্ষ শিরোনাম
Home » সাহিত্য » সাংবাদিক আবদুর রাহমানের ‘বিলেতের গ্রামে’

সাংবাদিক আবদুর রাহমানের ‘বিলেতের গ্রামে’

12899946_1150451128306225_2062796204_nমো. ফয়ছল আলম : বইটির নাম ‘বিলেতের গ্রামে’। শুনলেই এক অন্যরকম অনুভূতি জাগে মনের মাঝে। যারা বিলেত যাননি কিংবা বিলেত সর্ম্পকে ধারণা কম তারা বিলেতের গ্রাম শুনলে অবাক হবারই কথা। কারণ লন্ডন তো লন্ডনই। ইংল্যান্ড তো ইংল্যান্ডই। সে এক স্বপ্নের দেশ। ফার্স্ট ওয়ার্ল্ড কান্ট্রি। সেখানে আবার গ্রাম! সেই গ্রাম নিয়েই বই। তাও আবার বাংলা ভাষায়। হ্যাঁ, প্রিয় পাঠক। এ নামেই বই লিখেছেন সিলেটের প্রতিশ্রুতিশীল সাংবাদিক আবদুর রাহমান। দৈনিক কালের কন্ঠে কাজ করেন তিনি। কাজ করেছেন সিলেটের বেশ কয়েকটি দৈনিকে। দৈনিক সিলেটের ডাক, জালালাবাদ, সিলেট প্রতিদিন, নতুন দিন, ভিলেজ ডাইজেস্ট-এ কাজ করেছেন দীর্ঘদিন। শুধু এ বই নয়। সিলেটের প্রথম শপিং গাইড ‘কেনাকাটা, প্রথম হেলথ ডাইরেক্টরী ‘হ্যালো ডাক্তারসহ আরো অনেক সৃজনশীল প্রকাশনা আছে তাঁর। একজন সু লেখক হিসেবে সর্বমহলে তার পরিচিত। পাশাপাশি শিক্ষকতা করেন কোম্পানীগঞ্জ এম সাইফুৃর রহমান কলেজে।
২০০৮ সালের সেপ্টেম্বরে যুক্তরাজ্যে যান বেড়াতে। ২০০৯ সালের প্রথম দিকেও ছিলেন সেখানে। খুব বেশি সময়ের জন্য নয়। হয়তো ৫/৬ মাসের জন্য। এই স্বল্প সময়ে ঘুরে বেড়ানো এবং কাজের ফাঁকে নিজের স্বভাব সুলভ দৃষ্টিতে বাংলার গ্রামের মতোই দেখেছেন সেখানকার গ্রাম। সেখানকার গ্রামের মানুষের জীবন জীবিকা ও পরিবেশ। আর সেসব নিয়ে মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখেছেন কয়েকটি নিবন্ধ গল্পের মতো। এগুলোকে কেউ ভ্রমণ কাহিনী বলতে পারেন। কোনো কোনো সাংবাদিক বলবেন ফিচার ধর্মী প্রতিবেদন, আবার কেউ বলবেন একজন রির্পোটারের অনুসন্ধানী চোখে দেখা কোনো স্মৃতি,কিংবা একগুচ্ছ লেখা । যে যেভাবেই মূল্যায়ন করুন, বইটি পাঠান্তে অবশ্যই যে কোনো পাঠক স্বীকার করবেন অসাধারণ, অতুলনীয় লেখা এই বই। লেখার মাঝেও শিল্প আছে। নান্দনিকতা আছে। সেটি মানবেন। সিলেটের গ্রাম নিয়ে এক সময় ধারাবাহিক প্রতিবেদন তৈরি করে আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই সাংবাদিক আবদুর রাহমান বিলেত ভ্রমন কালেও একই ভাবে মিল খোঁজার চেষ্টা করেছেন আমাদের গ্রাম আর বিলেতের গ্রামের। আকাশ পাতাল তফাৎ মিলেছে লেখকের অনুসন্ধানে। গ্রাম আছে গ্রামের মানুষ আছে, আছে আমাদের মতই মাটি মানুষ আর বন জঙ্গল। গাছ গাছালি আর সুন্দর মনোরম প্রকৃতি। যা দেখলে যে কারো চোখ জুড়ে যায়। মন ভরে যায়।
‘বিলেতের গ্রামে’ বইটি প্রকাশ পায় ২০১৪ সালের মার্চ মাসে। এখনও মার্চ মাস। এরই মাঝে কেঁটে গেছে দুটি বছর। বইয়ের লেখক সাংবাদিক আবদুর রাহমান তখন ছিলেন সুস্থ এক পরিশ্রমী মানুষ। আর এখন তিনি অসুস্থ। বলা চলে শয্যাশায়ী। এক সময় সমাজের সব অসংগতির বিরুদ্ধে লড়েছেন। আর এখন লড়াই করছেন রোগব্যাধির সঙ্গে। এখানে তাঁর জয় হোক এই কামনা করি। এই মূর্হুতে চলছে সিলেটে বই মেলা। কেমুসাস বই মেলার মুহুর্তে মনে পড়লো আমার বন্ধুর লেখা এই বইটি নিয়ে কিছু লিখতে। তাই সময় করে ফাঁকে ফাঁকে চোখ বুলিয়ে নিলাম ‘বিলেতের গ্রামে’ বইটিতে। পড়ার পর এই লেখার আগ্রহ আরো বেড়ে গেল। কারণ লেখক আবদুর রাহমান বিরানব্বই পৃষ্টার এই বইয়ে পাঠককে এক যাদুকরি মন্ত্রে আকৃষ্ট করার প্রয়াস চালিয়েছেন তার সহজ সরল এবং সাবলিল উপস্থাপনায়। বইটি পড়া শুরু করলে থামতে ইচ্ছে করবেনা যে কারো। ছোট ছোট দম ফেলে পড়তে পারবেন অবলিলায়।
একজন গুণী সাংবাদিকের অন্যতম বৈশিষ্ট হচ্ছে লেখার প্রতি পাঠককে আকৃষ্ট করা। পাঠককে পড়ার মাঝে মাঝে স্বস্তি দেয়া। ব্যাকরণ মেনে সাংবাদিকতা করা। এই কারুকাজটি লেখক অত্যন্ত সুনিপুণ ভাবে করেছেন। এজন্য প্রথমেই লেখককে অভিনন্দন জানাই। আর এই লেখকের সহকর্মী কিংবা বন্ধু হিসেবে আমিও গর্ববোধ করি তাঁকে নিয়ে।
প্রথমেই উপস্থাপন করেছেন সেখানকার গ্রামগুলোর অভূতপূর্ব সৌন্দর্যের কথা। অল্পদিনের সফরে নিজ চোখে দেখা বিষয় নিয়ে একটি চমৎকার বই লিখেছেন আবদুর রাহমান। কিভাবে তারা দুনিয়া থেকে শাসন করে অপরূপ সাজে সাজিয়েছে তাদের গ্রাম। আমাদের দেশের জারুল, হিজল, কৃষ্ণচূড়া, শিমুল আর কদম গাছের মতো না হলেও দেখা মিলেছে সেখানকার গাছ-গাছালির। ‘ইউকেলিপটাস’ নামের গাছের সন্ধান পেয়েছেন তিনি। যা কিছু দিন আগেও আমাদের দেশে অনেকে শখের বসে লাগিয়েছিলেন বাড়ির আঙ্গিনায়। পরে দেখা যায় সেই গাছের পাশে মানুষ তো দূরের কথা পোকা পর্যন্ত যায় না। অথচ তাদের দেশে এই গাছই সৌন্দর্য বাড়াচ্ছে। ব্রিটেনের বাড়ি ঘর গুলোর বর্ণনা দিয়েছেন শৈল্পিকভাবে। দু চালা চার চালা কাঠের বাড়ির ভেতর কিভাবে তারা বসবাস করে তাও জানিয়েছেন লেখক। লন্ডন থেকে দু’শ মাইল দূরের রাসটল, টানব্রিজসহ কয়েকটি গ্রাম ঘুরে লেখক জানিয়েছেন সেখানকার কৃষি ও কৃষকের কথা । অনেক বড় ব্যবসায়ী থেকেও কৃষকরা কিভাবে জমিদারদের মতো জীবন যাপন করেন। কেউ কাজের লোক রাখার সামর্থ না রাখলেও সে ক্ষমতা আছে কৃষকের। ঝোপ-জঙ্গলের মাঝে ঘন ঘন বাড়ি আর সেখানকার সরকারী ব্যবস্থাপনা কিভাবে জীবন যাত্রার মানকে উন্নত করে রেখেছে সেসব বিষয় বিষদভাবে ফুটে উঠেছে তার লেখায়। কিভাবে সেখানকার মা-বাবারা তাদের সন্তানকে লালন পালন করে, আবার কখন কাছ থেকে দূরে তাড়িয়ে দেয়। সে বিষয়ে লেখক তাঁর লিখনিতে ভালো মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। যে কারো কাছে তা ভালো লাগবেই। আবার বস্তিবাসীদের মাঝে আইরিশ এবং পলিশরা কিভাবে জীবন যাপন করছেন। বুমব্রিজ, রাসটল এলাকায় ঘুরলে আমাদের মতো রাস্তার মাঝে পানি,গর্ত মিলতে পারে । এসব জেনে অনেক পাঠক আশ্চর্য হতে পারেন। কিন্তু এটিই বাস্তব লেখক তার লেখায় সে কথাই জানিয়েছেন। পশু পালন, পাখি পালনসহ নানা বিষয়ই নিয়ে লিখেছেন তিনি। দূরের লং ড্রাইভে বেরিয়ে কিভাবে আবিষ্কার করলেন ‘বৃদ্ধদের গ্রাম’। ডরডেন গ্রামে গিয়ে জানলেন এ গ্রামে বয়স্করা থাকেন। কিন্তু কিভাবে সে বয়োবৃদ্ধরা তাদের জীবন জীবিকা চালায় সেটি জানতে বইয়ে ১১ নম্বর নিবন্ধটি পড়তে হবে। শুধু কি বৃদ্ধদের গ্রাম? ইংল্যান্ডের প্রতিষ্ঠিত ব্যাবসায়ীরাও শহর ছেড়ে গ্রামে বাস করে। তারাই বা কেমন জীবন যাপন করেন সেটি জানতে পারবেন বইটিতে। ব্রিটিশদের জীবন চরিত্র, সংসার, বিয়ে-ডিভোর্স কিভাবে হয়, সে সর্ম্পকে বিস্তারিত লিখেছেন বইটিতে। সেখানকার পরিবহণ ব্যবস্থার আদ্যপান্ত চিত্র তুলে ধরেছেন ১৫ নং নিবন্ধে। যা আমাদের দেশের জন্য অনুকরণীয় হতে পারে। ব্রিটেনের গ্রামে আছে কাঁদামাটির চাহিদা, সেসব দিয়ে তারা কি করে সেটুকু জানা যাবে। লন্ডনের শিশুরা কিভাবে বেড়ে উঠে, কিভাবে লেখাপড়া করে কিংবা খেলাধুলা থেকে শুরু করে সকল ক্ষেত্রে আমাদের শিশুদের জীবনের সঙ্গে তাদের শিশুদের বেড়ে উঠার পার্থক্যের গল্প শুনিয়েছেন লেখক। আমাদের দেশের গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষ যেভাবে শ্রম বিক্রির জন্য সিলেট নগরীর বিভিন্ন স্থানে জড়ো হয়, ঠিক একই ভাবে তাদের সেখানে ও আছে শ্রমের হাঁট। যার নাম ‘জব সেন্টার’। এর মাঝে যে তফাৎ সেটুকুও লেখক তাঁর লিখনিতে তুলে ধরেছেন। বইটিতে আছে ইংল্যান্ডের রচডেল এলাকার একটি কারাগারের বর্ণনা। সেখানকার কারাগারে ভিজিট করতে গেলে কিভাবে তারা সম্মান জানায়। জানা যাবে এই ব্রিটিশরাই কারাগারের বিষয়ে তাদের দেশের জন্য এক আইন করেছে আর আমাদের জন্য কি রকম আইন রেখে গেছে। শুধু কি কারাগার, সব কিছুতেই আকাশ পাতাল ফারাক। সেখানেও আমাদের মতো ফুটপাত আছে, আছে ফুটপাতের মার্কেট । তবে সে গুলো কেমন – তা জানা যাবে বইটির ২০ নং নিবন্ধে। ‘ত্রি ডব্লিউ’। বহুল আলোচিত এই কথাটির বিষদ ব্যাখ্যা টেনেছেন লেখক। সেখানকার আর্থ সামাজিক অবস্থা, অবকাঠামো, পরিবেশ, চিত্ত বিনোদন, আবহাওয়া, কৃষকের ভোর কিংবা গার্লফ্রেন্ড, বয়ফ্রেন্ড, পাব, ক্লাবসহ অনেক বিষয় ও শব্দের মর্মকথা এবং তথ্য খোঁজেছেন লেখক। ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত ঝক্কি ঝামেলার বিষয়টিও বাদ পড়েনি গ্রাম নিয়ে লেখার ফাঁেক।
সর্বোপরি বইটিতে ফুটে উঠেছে সাংবাদিকতার বাইরেও বাংলাদেশের একজন দেশপ্রেমিক তরুণের মনের অভিব্যক্তি। একজন সৃষ্টিশীল উদীয়মান সাংবাদিকের দৃষ্টিতে আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশের অগ্রগতি আর উন্নয়নের পথের বাধাসমুহ। বাংলার মা, মাটি আর মানুষের প্রতি একজন সমাজহিতৈষী আব্দুর রাহমানের ব্যাকুল হৃদয়ের যতো চাওয়া পাওয়া আর দেশ প্রেমিক মানুষের প্রতিচ্ছবি।
লেখক যে একজন কৃতজ্ঞবাণ মানুষ, একজন মানবতাবাদী মানুষ সেটিই ফুটে উঠেছে বইটির শেষ অংশে। ইংল্যান্ড সফর এবং সেখানকার বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন সহকর্মী পাড়া-পড়শি’র ভালোবাসার প্রতি লেখক যে অকৃত্রিম ভালোবাসা জানিয়েছেন, তা অতুলনীয়। বিশেষ করে সমাজসেবী এম এ আহাদ, সাংবাদিক মহিব চৌধুরী ও আহমেদ নুর এর কাছে লেখক তাঁর ঋণ স্বীকার করেছেন। বার বার কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন নওয়াজ, মোজাক্কির, তান্না, বেলাল, রোমান আর লিটু নামের লন্ডন প্রবাসী বন্ধুদের প্রতি। যাদের সঙ্গে লেখক তার সফরের বেশীরভাগ দিনগুলো কাটিয়েছেন, যারা তাকে সময় দিয়েছেন উদার ভাবে। আমি মনে করি বইটি পাঠ করে যে কোনো পাঠককেই তৃিপ্তর ঢেকুর তুলবেন। আর সে তৃিপ্ত মিলবে ‘বিলেতের গ্রামে’ নামের বইটিতে। বলা চলে শতভাগ নির্ভুল এ বইটি। সম্পাদনার কাজটিও হয়েছে নিখুঁত ভাবে। দু একটি বানানে আ’কার এ’কার এদিক সেদিক হয়েছে। সেটি কম্পিউটার জনিত ত্র“টি হিসেবেই আমার কাছে মনে হয়েছে।
বইটি প্রকাশ করেছে সিলেটের নাম করা প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘পাঁনসী’। প্রথম প্রকাশ মার্চ , ২০১৪ ইং। প্রচ্ছদ তৈরি করেছেন সিলেটের সৃষ্টিশীল তরুণ সাংবাদিক লেখক ও প্রকাশক ইয়াহইয়া ফজল। গ্রন্থ স্বত্ব লেখকের একমাত্র কন্যা মাহবুবা ফাইজা’র। লেখক বইটি উৎসর্গ করেছেন তার সকল সফলতার পেছনে যার অবদান সেই আপন বড় ভাই আবু সাইদ রাউফীকে। এক এক করে ২৪টি নিবন্ধ নিয়ে প্রকাশিত এই বইটির লেখক আবদুর রাহমান। লেখক গ্রন্থটির শুরুতেই দায় স্বীকার করেছেন, যদি না মিলে পাঠক জিজ্ঞাসার উত্তর তাঁর লেখায়। এতেই লেখকের উদার মনের পরিচয় মিলে। বইটির পটভূমি লিখেছেন কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাবেক সভাপতি রাগিব হেসেন চৌধুরী। তিনি লেখকের লেখা গুলো পড়ে তার মন্তব্য তুলে ধরেছেন এতে। এখানে সুখ্যাত কবি রাগিব হোসেন চৌধুরীও লেখকের মাঝে একাধিক গুণের সমন্বয় পেয়েছেন বলেই প্রতীয়মান হয়। বইটির মুল্য বাংলাদেশে ১৫০ টাকা আর ইংল্যান্ডে ১০ পাউন্ড।
আবদুর রাহমানের মতো একজন ভালো মানের সাংবাদিকের বই পড়ে কি লিখবো সে নিয়ে দীর্ঘক্ষণ চিন্তা ভাবনা করেছি। কারণ তার ভাষাজ্ঞান, তার উপস্থাপনার কৌশল, পাঠককে আকৃষ্ট করার সীমাহীন ক্ষমতা, তাঁর মেধার মূল্যায়ন হয়তো আমার মতো ক্ষুদ্র লেখকের লেখনিতে যথাযথভাবে নাও হতে পারে। তবুও সহকর্মী হিসেবেতো বটেই, পাঠক কিংবা বন্ধু হিসেবেও একজন বন্ধুর বই নিয়ে লেখার অধিকার নিশ্চয়ই আছে আমার। আর সে অধিকার থেকেই আমার এই দূঃসাহস। আমার লেখাটি পাঠক হৃদয়ে বই সম্পর্কে বিন্দুমাত্র আগ্রহ সৃষ্টি করতে পারলে নিজের লেখাকে স্বার্থক মনে করবো। শুভেচ্ছা রইল বন্ধুপ্রতীম লেখকের প্রতি। এরকম একটি বই লিখে আমাদেরকে জানার দরোজা বিস্তৃত করে দেয়ার জন্য। আশা করি পাঠক মহলে বইটি সমাদৃত হবে। আমি বইটির সর্বাধিক প্রচার প্রসার কামনা করছি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now