শীর্ষ শিরোনাম
Home » সাহিত্য » কবি মুসা আল হাফিজের দুটি অনবদ্য বইয়ের পাঠ-পর্যালোচনা সম্পন্ন

কবি মুসা আল হাফিজের দুটি অনবদ্য বইয়ের পাঠ-পর্যালোচনা সম্পন্ন

musaalhafijআলী হাফিজ,সিলেট রিপোর্ট: “পাখি ও মাছ তাজ্জব হয়ে গেছে- লোকটি কেন ঘুমাচ্ছে না দিনরাত। অতীতে আমিও তাজ্জব ছিলাম- কুঁজো এই আকাশ একটিবারও ঘুমাচ্ছে না যে! এখন আকাশ আমাকে নিয়ে হয়রান- এই হতভাগাটা ঘুম ভুলে গেছে কেন? হায়রে আকাশ! প্রেমের সবক শিখে গেছে আমার বিবাগি হৃদয় এ সবক যে পেয়েছে সে ঘুমাবে কখন?” জগতবাসীকে দেয়া জালালুদ্দীন রুমীর প্রেমের পাঠ থেকে শিখে নেয়া এক প্রেমিককে দেখে আমরাও অবাক হই, হয়রান হই। কীভাবে এই প্রেমিক রাতের পর  রাত জাগেন আর সফর করেন গ্রহ থেকে গ্রহান্তরে, প্রেমের পাসপোর্টে ,ভালোবাসার ভিসায়!
সেই প্রেমিক  এক কবি ছাড়া কে হতে পারেন ? কবিই পারেন পাখি, মাছ ও আকাশকে তাজ্জব করে দিতে । আমরা এক কবির কথা বলছি, যিনি প্রেমের সবক নিয়েছেন জামী রুমী ও হাল্লাজ থেকে। ক্লাস নিচ্ছেন সাদী হাফিজ ও আত্তারদের কাছে। আমাদের জন্য সুসংবাদ হচ্ছে তিনি সেসব প্রেমিকদের প্রেমের রস নিংড়ে নিংড়ে আমাদেরকে সময়ে সময়ে পান করাচ্ছেন।
এরই ধারাবাহিকতায় ‘মহাসত্যের বাঁশী’র মোড়কে তিনি হাজির করেছেন রুমীকে। সেই রুমীর ‘মহাসত্যের বাঁশী’র পাঠ-পর্যালোচনা হয়ে গেলো গত ২৭-০৩-১৬ ইংরেজিতে সিলেট কেন্দ্রিয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ (কেমুসাস)-এ। সাথে ছিলো আরেকটি অনবদ্য গ্রন্থ ‘দৃশ্যকাব্যে ফররুখ আহমদ’।
কবি সিদ্দিক আহমদ ও ছড়াকার মিনহাজ ফয়ছল এর যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ পাঠ-পর্যালোচনা অনুষ্ঠান সূচিত হয় ক্বারী তারেক মনোয়ার’র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে।
সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন বিদগ্ধ গবেষক মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর আকমল মাহমুদ। আলোচক হিসাবে ছিলেন সিলেটের প্রথিতযশা বোদ্ধা কবি কালাম আজাদ ও আশির দশকের অন্যতম কবি মুকুল চৌধুরী। মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন অধ্যাপক কবি মামুন সুলতান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর আকমল মাহমুদ বলেন- “যারা লেখালেখি করেন আমি তাদেরকে আমি শ্রদ্ধা করি। কবি মুসা আল হাফিজের রচনারীতি আমাকে আপ্লুত করেছে। তার গদ্যস্টাইল হৃদয়ছোঁয়া। তিনি বিদেশী সাহিত্যকে বাংলায় নতুনভাবে উপস্থাপন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন । ” কবি মুসা আল হাফিজ সম্পর্কে সিলেটের গর্ব অধ্যক্ষ কবি কালাম আজাদ বলেন-“সিলেটের সাহিত্যাকাশে কবি মুসা আল হাফিজ এক উজ্জল নক্ষত্র। তিনি হচ্ছেন ইয়াকিনের কবি ।তার কবিতা ইসলামের ইতিহাসের মহান কবিদের অবদানকে মনে করিয়ে দেয় । তার গ্রন্থ সবার জন্য লেখা হয়নি ।তিনি লিখেছেন কালাম আজাদদের জন্য ।সাধারণ পাঠক তার রচনায় স্বাদ পাবেন, কিন্তু তার দর্শনে প্রবেশ করতে হলে বিদগ্ধ পাঠক হতে হবে ।যারা আধ্যাত্মিকতা বুঝেন কেবল তারাই তার আসল সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন । মুসা আল হাফিজকে পড়লে আমরা উপকৃত হবো। তার লেখায় উপকৃত হওয়ার বিপুল খোরাক আছে।তিনি শুধু কবি নন,কবিদের কবি”
সিলেট সংলাপ’র সম্পাদক ,গবেষক  মোহাম্মদ ফয়জুর রহমান বলেন-“কবি মুসা আল হাফিজ শুধু আমাদের সিলেটের নন। তিনি সারা বাংলাদেশের, সকল বাংলাভাষীদের কবি।তার প্রাচ্যবিদদের দাঁতের দাগ আমাদের চিন্তার জগতে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে ।আমি তার একজন গুণমুগ্ধ পাঠক হিসাবে তার রচনার গভীরতা ও প্রভাবে অবিভূত ”
কবি মুকুল চৌধুরী তার আলোচনায় বলেন-“কবি মুসা আল হাফিজ আমাদের এক উজ্জল প্রতিভা। তাকে আমরা মূলত কবি হিসাবে জানি। তবে তার গবেষণাকর্ম আমাদের জানার দিগন্তকে প্রসারিত করে। মৌলিক রচনা, অনুবাদ, সাহিত্য সমালোচনা ইত্যাদিতে তার বিদগ্ধ বিচরণ ।  বিশেষ করে রুমী ও ফররুখকে নিয়ে তার গবেষণাকর্মের জন্য সাধুবাদ জানাতেই হয়। ”
গবেষক মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম বলেন-“মুসা আল হাফিজ একজন সফল ও ব্যতিক্রমধারার কবি। তিনি তার মূল লক্ষ্য ভুলে যাননি। এই কবি বিকশিত হওয়ার উপযুক্ত পরিবেশ পেলে বাংলাসাহিত্য তার মাধ্যমে আরো সুসমৃদ্ধ হবে।” সন্ধ্যা সাতটা থেকে শুরু হওয়া উক্ত পাঠ-পর্যালোচনা অনুষ্ঠানে আরো যারা বক্তব্য রাখেন,কবি এম এ ফাত্তাহ,কবি নাজমুল আনসারী, দেওয়ান মাহমুদ রাজা, ছড়াকার আব্দুস সাদেক লিপন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, লেখক মুস্তাক আহমদ চৌধুরী সহ আরো অনেকে। রাত ন’টা পর্যন্ত চলতে থাকা এ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন আবৃত্তিকার আসছিলেন আর আবৃত্তি করছিলেন মুসা আল হাফিজের অনুবাদকৃত কবিতা । “বিশাল তোমার বিপুল ব্যথা কেমনে এ মন বইবে কেমন করে ক্ষুদ্র এ মন এতো জখম সইবে?  বললে তুমি-যেমন করে চক্ষু তোমার তুচ্ছ তবুও সে বিশ্ব দেখে, সব নিচু সব উচ্চ!!”“প্রিয় হে, আমাদের নৈকট্যের মানে হলো
যেখানেই পা রাখবে, পদতলের দৃঢ়তায় আমাকে অনুভব করবে। ”
“প্রিয় হে, এ কেমন প্রেম?
আমি তোমার অস্থিত্ব দেখছি, তোমাকে নয়!!”
“উদর থাকুক
ক্ষুধায় তবু
আত্মা তোমার ঊর্ধ্বে যাক।
পর্দা ছাড়াই
যেন তোমায়
সালাম জানান রব্বে পাক। ”
“দু চোখ দিয়ে চলবে কতো?
হাজার হাজার চোখ গড়ে নাও
নতুন জগত গড়ার আগে
নিজের দিকে রোখ করে নাও। ”
এভাবে কবিতার পঙক্তিতে পঙক্তিতে সন্ধ্যাটি ঠিক যেন কবিতার মতো হয়ে উঠেছিলো।

চারটি অন্ধ হরফ

আলী হাফিজ

সূচনা, এখন আকাশ গর্জন করছে

আমার খুব মনে পড়ছে-

এমনই এক মেঘডাকা দিনে আমার

হৃদশহর উজাড় হয়েছিলো

খোঁজে পাইনি আমার ষোড়শী আত্মাকে

সূর্যকে দিনে এবং চাঁদকে বলেছিলাম রাতে খুঁজতে

দুহাত ভর্তি ব্যর্থতা এনে বলে,

প্রেমিক, খুঁজে পাইনি দশদিগন্তে

খুঁজতে খুঁজতে যখন তোমার নিষিদ্ধ মানযিলে পা দিলাম

দেখলাম, দগ্ধ আত্মা তোমাতেই বিরাজ

আত্মাকে আর দেহে নিয়ে আসি নি

আট বছর পর,

দুর্বোদ্ধ তোমাকে স্বস্বরে পাঠ করে দেখলাম

তোমার সমাপ্তি চারটি অন্ধ হরফে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now