শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » বিচারক অবসরের পর রায়ে দস্তখত দিতে পারেন

বিচারক অবসরের পর রায়ে দস্তখত দিতে পারেন

মহিবুল ইজদানী খান ডাবলু।: প্রধান বিচারপতির একটি বক্তব্যকে নির্ভর করে রাজনীতিবিদ ও সুশীল সমাজ থেকে কয়েকজন বেক্তি মিডিয়ায় বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন। যারা মন্তব্য করছেন তাদের অনেকেই আইন কানুন নিয়ে কাজ করেন। এদের একজন বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বেরিসটার মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি প্রধান বিচারপতির বক্তব্যের সূত্র ধরে বললেন তত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের রায় নিয়ে বিচাপতি খায়রুল হক সংবিধান লঙ্গন করেছেন। ঠিক একইভাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেছেন অবসর গ্রহণের পর বিচারকের রায় লেখা বেআইনি ও অসাংবিধানিক। অন্যদিকে বিশিষ্ট সাংবাদিক মনজুরুল হাসান বুলবুল বিরোধী দল ও সমালোচকদের প্রতি উপহাস করে বলেছেন বিচাপতিরা অবসরে গিয়ে নাকি রায় লিখলে সেই রায় অবৈধ হয়ে যায়। রাজনীতিবিদ ও সুশীল সমাজ যখন এধরনের বক্তব্য দিচ্ছেন ঠিক তখনি বিশিষ্ট আইনজীবী ও সাবেক এটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক উল হক বলেন, অনেক মামলায় অবসরের যাওয়ার কয়েকদিন আগেও বিচারক রায় দেন। অবসরের পরে যদি রায় লেখা না যায় তাহলে এসব রায় বিচারক কখন লিখবেন? সরকারের আইনমন্ত্রী আনিসুল হক অবশ্য মনে করেন অবসরের পর পূ্র্ণাঙ্গ রায় লেখা কোনভাবেই অসাংবিধানিক নয়। বাংলাদেশের জন্মের পর থেকেই এই রীতি চলে আসছে জানিয়ে তিনি বলেন কেবল বাংলাদেশ নয় ভারত পাকিস্তান এমনকি যুক্তরাজ্যেও এই রীতি আছে।

অবসরে যাওয়ার পর রায় লেখা যায় কি না এই বিষয়টি নিয়েই মূলত এখন বাংলাদেশে আলোচনা চলছে। সুইডেনের আইনে বিচারক অবসরে যাওয়ার পর রায় লেখার নিচে তার দস্তগত  দেওয়ার  বিষয়টির  কোনো গুরত্বতা নেই। সুইডেনে রায়ের নিচে দস্তগত দেওয়ার সময় কোনো তারিখ লেখা হয় না। কারণ রায় যে  তারিখে  ঘোষণা করা  হয় সেই দিনকেই রায় ঘোষণার দিন হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। তারিখ রায়ের উপরেই লেখা থাকে। বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতির বক্তব্য নিয়ে মূলত একে অপরের বিরুদ্ধে যে যুক্তি প্রদর্শন করছেন সেই বিষয়টি সুইডেনের আইন বিভাগের দৃষ্টিতে কি বলে এবেপারে আমি আপিল কোর্টের জনৈক বিচারকের শরণাপন্ন হলে তিনি আমাকে বলেন, একটি রায়ে একজন বিচারক অবসরে যাওয়ার পর দস্তগত দিতে পারেন। কারণ মামলার রায় তো ইতিমধ্যে মৌখিকভাবে প্রকাশ্যে ঘোষণা করা  হয়ে গেছে।  পক্ষ  বিপক্ষ  রায় সম্পর্কে ইতিমধ্যেই অবগত হয়েছেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে অনেকে হয়তো ইতিমধ্যে আপিলও করে থাকতে পারেন। সুতরাং প্রকাশ্যে রায় ঘোষণা করার পর প্রধান বিচারক অবসরে চলে গেলে তিনি পরবর্তিতে তার দেওয়া সেই রায়ের নিচে দস্তগত দিতে পারেন। সুইডেনের আইনে এবেপারে কোনো দ্বিমতের সুযোগ নেই। রায় ঘোষনাকৃত কাগজের নিচে অবসরে যাওয়ার পর দস্তগত দেওয়ার বিষয়ে কোনো প্রশ্ন আসে না, আসতে পারে না।

তিনি বলেন মামলার রায়ের বিষয়ে বিচারকমন্ডলী আলাপ আলোচনার মাধ্যমে শুনানির পরপরি প্রকাশ্যে সিদ্ধান্ত দিয়ে থাকেন। সেই রায় কখনো কখনো ততক্ষনাত আবার পরেও জানানো হয়ে থাকে। তারপর রায়ের নিচে দস্তগত দেওয়াকালে প্রধান বিচারক অবসরে চলে গেলেও তিনি দস্তগত দিতে পারেন। কোনো কারণে তিনি দিতে না পারলে অন্য বিচারকেরা যারা মামলা পর্যবেক্ষণ করেছেন তাদের মধ্যে একজন বিচারক এই রায়ের নিচে দস্তগত দিতে পারেন। বিচারক বলেন  মামলার রায় প্রকাশ্যে ঘোষণা না করলেও রায়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পর যদি বিচারক পরবর্তিতে অবসরে যান তাহলেও তিনি এই মামলার রায়ের নিচে দস্তগত দেওয়ার যোগ্যতা রাখেন। তবে এইসময় রায় সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে কোনো পরিবর্তন ও সংযোজন করার সুযোগ থাকে না।

নিম্ন আদালতের ক্ষেত্রে সাধারণত এধরনের সমস্যা হওয়ার সুযোগ থাকতে পারে। কারণ এখানে মাত্র একজন বিচারক থাকেন। তবে এক্ষেত্রেও একই নিয়ম প্রযোজ্য। রায়ের সিদ্ধান্ত হয়ে যাওয়ার পর বিচারক অবসরে গেলে সেই রায়ের নিচে তিনি দস্তগত দেওয়ার যোগ্যতা রাখেন। তবে বিচারক অবসরে চলে যাওয়ার পর কোনো রায়ের সিদ্ধান্তের বেপারে হস্তক্ষেপ করতে পারবেন না। আপিল কোর্টে রায়ের নিচে দস্তগত দিতে কোনো সমস্যা হয় না। কারণ এখানে একসাথে তিন জন বিচারক কর্মরত। এই তিনজনের মধ্যে প্রধান বিচারকের রায়ের নিচে দস্তগত দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। তবে তিনি যদি প্রকাশ্যে রায় ঘোষণার পূর্বে অবসরে চলে যান তাহলে বাকি দুজন বিচারকের মধ্যে যিনি সিনিয়ার তিনি রায়ের নিচে দস্তগত দিতে পারেন। এক্ষেত্রে নিম্ন আদালতের বেলায় যেহেতু একজন বিচারক এই কারণে তিনি মৌখিকভাবে রায় ঘোষণা দেওয়ার পর অবসরে চলে গেলে পরবর্তিতে রায়ে দস্তগত দিতে পারেন। এমনকি  মৌখিকভাবে  প্রকাশ্যে  রায়  ঘোষণা  না করলেও রায়ের  বেপারে  সিদ্ধান্ত  গৃহীত  হলে  বিচারক  অবসরে  যাওয়ার  পর  এই  রায়ের  নিচে  দস্তগত  দিতে  পারেন।

সুইডেনে একজন বিচারক ৬৫ কিংবা ৬৭ বত্সর বয়সে অবসরে যাওয়ার পরও তাকে পরবর্তিতে আদালত চাইলে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য চুক্তি ভিত্তিক বিচারকের দায়িত্ব দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। গত ১৫ মার্চ স্টকহলম আপিল কোর্টে এমনি একজন প্রধান বিচারকের সাথে আমাকে কাজ করতে হয়েছে। এই মহিলা বিচারক ৬৭ বত্সর বয়সে অবসরে যাওয়ার পর এখন স্টকহলম আপিল কোর্ট তাকে চুক্তিভিত্তিক বিচারকের দায়িত্বে নিযুক্ত করেছে। তাই সবশেষে যদি বলতে হয় তাহলে বলতে হবে বাংলাদেশের বিশিষ্ট আইনজীবী ও সাবেক এটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক উল হক এর কথাই সঠিক। রায়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পর বিচারক অবসরে  যাওয়ার পর সেই রায়ে দস্তগত দেওয়ার যোগ্যতা রাখেন। সুতরাং বিষয়টিকে নিয়ে বিএনপির কয়েকজন রাজনীতিবিদ না জেনে শুনে শুধু শুধু ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন।  গণতান্ত্রিক দেশ সুইডেনের সাথে তুলনা করলে বাংলাদেশের বেলায় ব্যারিস্টার রফিক উল হকের বক্তব্য এখানে গ্রহণযোগ্য বলা যেতে পারে।

লেখক: জুরী স্টকহলম আপিল কোর্ট

নিউজওয়ার্ল্ডবিডি.কম
Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now