শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ৬ এপ্রিল: প্রসঙ্গ হেফাজতে ইসলাম

৬ এপ্রিল: প্রসঙ্গ হেফাজতে ইসলাম

এহসান বিন মুজাহির : বিগত ৬ এপ্রিল ২০১৩ সাল ঘুরে আবার আসলো ৬ এপ্রিল ২০১৬ । এভাবে প্রতি বছরই ৬ এপ্রিল আসবে। ‘১৩ ১৪’ ১৫’=২০১৬ শুধু হবে!৬ এপ্রিল ২০১৩ ।এ তারিখটি স্মৃতির অ্যলবামে আমৃত্যু স্মরণ থাকবে । গত তিন বছর পূর্বে এপ্রিলের ৬ তারিখে ইসলামের হেফাজতে ঐতিহাসিক মহাবিস্ফোরণ ঘটেছিল বাংলাদেশে । মহানবী (সা.) কে অবমাননাকরী নাস্তিক ব্লগারদের ফাঁসির দাবিতে রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র মতিঝিলের শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের ডাকে ঐতিহাসিক মহাসমাবেশ (লংমার্চ) অনুষ্ঠিত হয়েছিলো । হেফাজতে ইসলামের লংমার্চ ও মহাসমাবেশ বানচাল করার জন্য পথে পথে হামলা ও বাধা দেয়া হয় । ঢাকার সঙ্গে দেশের অন্যান্য এলাকার সড়ক, রেল ও নৌপথ বন্ধ করে ঢাকাকে কার্যত বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হয় । ক্ষমতাসীন সরকারের মদতে বাম ঘরানার ২৭ সংগঠনের হরতাল পালনের ঢাক দেয় । এই সরকারের মদতে নজিরবিহীন হরতাল পালন করেছে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি (ঘাদানিক) ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ আওয়ামী লীগ ও বাম ঘরানার ২৭ সংগঠন ।

শায়খুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী (দাবা.) আহুত হেফাজতে ইসলামের লংমার্চ বানচাল করতেই শুক্রবার (৪ এপ্রিল) সন্ধা ৬টা থেকে শনিবার (৫ এপ্রিল) সন্ধা ৬টা পর্যন্ত সারাদেশে ইসলাম বিদ্বেষীরা হরতাল পালন করে ।
সরকারি ছুটির দিনে এবং রাতের বেলা এ ধরনের হরতাল পালনের ঘটনা নিকট-অতীতে ঘটেনি ।
আবার অপরদিকে একই দাবিতে শুক্রবার সন্ধা ৬টা থেকে শনিবার বিকাল ৪টা পর্যন্ত অবরোধ কর্মসূচি পালন করে নাস্তিক ব্লগার দা গণজাগরণ মঞ্চের শাহাবাগিরা ।
স্বৈরাচারী সরকারের কন্টাকাকীর্ণ বাধার বৃত্ত, গুলি , কারাশৃঙ্খলের রক্তচক্ষুসহ বহুমুখী ষড়যন্ত্রের কূটচালকে চুর্ণ করে এসব বাধার পাহাড় ডিঙিয়েই সারাদেশ থেকে
অর্ধলক্ষাধিক মানুষ যোগ দেয় হেফাজতের শাপলা চত্বরের মহাসমাবেশে ।
২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল রাজধানী ঢাকা পুরোটাই ছিল ধর্মপ্রেমিক জনতার দখলে ।
রাজধানী বা শহরতিলই শুধু নয়; সুদুর কুমিল্লা, নরসিংদী, গাজিপুর, মুন্সিগঞ্জ, মানিগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে হেঁটে হেঁটে ধর্মপ্রাণ জনতা যোগ দেয় শাপলা চত্বরের মহাসমাবেশে ।
ওইদিনের এমন জনমহাসমুদ্র এ যাবৎকালে কখনো কেউ দেখেনি ।
শুধু মানুষ আর মানুষ ।
দৃষ্টিসীমা যেখানে খেই হারায়, তারপরও মানুষ আর মানুষ ।
যেদিকে চোখ যায় শুধু টুপি আর টুপি ।
ঢাকার রাজপথ-অলিগলি সব যেন মানুষের প্লাবনে একাকার হয়ে গিয়েছিল ।
এত মানুষ! এ যেন মানুষের কল্পনাকেও ধরতে পারে না।
শাপলা চত্বরের ঐতিহাসিক লংমার্চ ও গণজমায়ে কত লোক অংশ নিয়েছে এ প্রশ্নের জবাব কারও পক্ষে সহজে দেয়া সম্ভব নয়!
তবে একটি কথা সবার মুখে মুখে এত লোক রাজধানী ঢাকায় এর আগে কেউ দেখেনি ।
ঢাকায় যেন জনসমুদ্রে নেমেছে জোয়ার ।
ইয়াল্লাহ! মানুষ আর মানুষ! সুবহানাল্লাহ এত মানুষ!
ঢাকার মতিঝিল, দৈনিক বাংলা, পল্টন, তোপখানা, আরামবাগ, ফকিরের পুল, নয়াপল্টন, কাকরাইল, দৈনিক বাংলা ফকিরের পুল-বঙ্গভবন সড়কটিতেও মানুষের সমুদ্র ।
শাপলা চত্বর থেকে সড়ক গেছে ইত্তেফাকের দিকে সেটিও কানায় কানায় পূর্ণ।
এছাড়া অলিগলি চত্বরে কোথাও মানুষের তিল ধারণের ঠাই ছিল না ।
ঢাকার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মহাসমাবেশ বলতে হলে হেফাজতে ইসলামের লংমার্চকেই ঐতিহাসিক বলতে হবে ।
এ সমাবেশের সঙ্গে আগের কোন সমাবেশ, মহাসমাবেশ কিংবা জনসমুদ্রের তুলনা চলে না।
হেফাজতে ইসলামের এ সমাবেশস্হলসহ অন্য এলাকাগুলো ৫০ লাখ মানুষ অংশ নিয়েছে ।
-ইনকিলাব, আমার দেশ
আবার কেউ কেউ বলেন ৩০-থেকে ৩৫ লাখের কম হবে না ।
পর্যবেক্ষরা বলেছেন, হিসাব করে মানুষের সংখ্যা নির্ণয় করা যাবে না।
শংমার্চ কাফেলায় অগণিত মানুষের উপস্হিতি মহাসমুদ্রে রুপ নিয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না ।
স্মরণকালে কোন সমাবেশে এত লোকের উপস্হিতি দেখা যায়নি ।
কেন এই লংমার্চ:
লম্পট গুটি কয়েক নাস্তিক ব্লগার কর্তৃক ইসলাম ও রাসুল সা. অবমানাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতেই হেফাজত লংমার্চের আহ্বান করে ।
লম্পট ব্লগার, আহমদ রাজিব হায়দার (ওরফে থাবা বাবা),
আসিফ মহিউদ্দিন, ইব্রাহিম খলিলসহ (সবাক পাখি)
ওরা পবিত্র কুরআনুল কারীম, রাসুল্লাহ সা., সাহাবায়ে কেরাম, রাসুলের বিবি হযরত খাদিজা রা, ইসলামের বিভিন্ন পরিভাষা নামাজ রোজা হজ্ব ঈদ অজু গোসল মসজিদসহ নানা বিষয়ে জঘণ্য ভাষায় ব্লগে বিষেদগার করে মুসলমানদের ঈমানী আকিদায় গভীর আঘাত হানে ।
মনগড়া কাল্পনিক কাহিনী সাজিয়ে আল্লাহ রাসুল সাহাবী ও খাদিজাকে অপমানিত করে আসছে দীর্ঘ ধরে ।
তাদের কূৎসিত ও অশালিন মন্তব্য পড়ে কেউ নিরব বসে থাকতে পারে না ।
ঈমানদার মাত্রই প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠবে ।
নাস্তিক ব্লগারদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি নিয়েই রাজধানীর শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশের আহব্বান করেন যুগশ্রেষ্ট বুজুর্গ, বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ, হাটহাজারী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাপরিচালক, হেফাজতে ইসলামের আমীর শায়খুল ইসলাম আল্লামা মুফতি শাহ আহমদ শফি বা. ।
আল্লাহ ও রাসুলকে নিয়ে কটুক্তিকারী ব্লগারদের শাস্তিসহ ১৩ দফা দাবিতে এক মঞ্চে এসেছিলেন দেশের হক্কানী আলেম সমাজ ।
জালিম সরকারের এই পাহাড়সম বাধা পেরিয়ে হাতে তাসবিহ ও জায়নামাজ নিয়ে মুখে নারায়ে তাকবির আল্লাহু আকবার ও লা ইলাহা ইল্লাহর জিকিরে আকাশ বাতাস প্রকম্পিত করে ধর্মপ্রাণ লাখ লাখ জনতা ।
৬ এপ্রিল শনিবার সকাল ১০টায় তিলাওয়াতে কুরআনের মাধ্যমে শুরু হয় সমাবেশের কার্যক্রম ।
দেশবরেণ্য পীর মাশায়েখ আলেম ওলামাদ শীর্ষ ইসলামী রাজনীবিদদের বকৃতা ও বিভিন্ন কর্মসুচি ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে বিকাল পৌনে ৫টায় মহাসমাবেল শেষ হয় ।
তপ্ত রোদের মধ্যে খোলা আকাশের নিচে বিক্ষোব্ধ মানুষের অবস্হান ছিল অত্যন্ত শৃঙ্খলাপূণ ।
এই লংমার্চে হেফাজতের আমীর শফী নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তি ও ব্লাসফেমি আইন পাস করাসহ ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়নের সরকারকে আলটিমেটাম দেন ।
এই সমাবেশে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি ঘোষণাসহ বিভিন্ন কর্মসুচি ঘোষণা করেন মহাসচিব বাবু নগরি ও মুফতি ফয়জুল্লাহ ।
হেফাজতে ইসলামের ডাকে ঢাকায় আগত লংমার্চ কাফেলাকে প্রাণের ভালবাসা দিয়ে সেবা দিয়েছিলেন ঢাকাবাসী ।
এমন স্মৃতিময় অতিথেয়তা কেউ আগে দেখেনি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now