শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিনোদন » সংস্কৃতিমন্ত্রীর সাথে কথা হয় সঙ্গীত শিল্পী সিলেটের সুষমার

সংস্কৃতিমন্ত্রীর সাথে কথা হয় সঙ্গীত শিল্পী সিলেটের সুষমার

56512সিলেট রিপোর্ট: দেশ টিভির নিয়মিত সাপ্তাহিক ‘বেলা অবেলা সারাবেলা’ অনুষ্ঠানের অংশ নেয় অতিথি সুষমা দাস। আজ শনিবার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে প্রচারিতব্য অনুষ্ঠানে সিলেটের এ প্রবীণ সঙ্গীত শিল্পীর জীবনের নানা বিষয় তুলে ধরেন অনুষ্ঠানের উপস্থাপক, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। সম্প্রতি ঢাকায় এ অনুষ্ঠান ধারন করা হয়।

গানের জগতে সিলেটের সুষমা দাস কিংবদন্তিতুল্য শিল্পী। গত ১৭ ফেব্র“য়ারি বাউল আব্দুল করিম জন্মশত বর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি দুটি গান পরিবেশন করেন। ‘এখন আমি কি করিবরে প্রাণনাথ তুমি বিনে’, করিমের এ গানটি ৯০ বছরের বৃদ্ধা সুষমার কন্ঠে শুনে মুগ্ধ হয়েছিলেন উপস্থিত দর্শক-শ্রোতা এবং অতিথিবৃন্দ। পরে সংস্কৃতিমন্ত্রীর অনুরোধে তিনি গেয়েছিলেন ‘এখন ভাবিলে কি অইবগো যা হবার তা হয়ে গেছে’।

দুটি গানই তিনি গেয়েছিলেন বেশ স্বচ্ছন্দের সাথে। মন্ত্রী এতই মুগ্ধ হয়েছিলেন যে উত্তরীয় পরিয়ে দিতে মঞ্চে উঠে কদমবুচিও করেন সুষমাকে। কথা বলেন অনেক সময়। খোঁজ খবর নেন বিভিন্ন বিষয়ে।

কথা বলতে বলতেই তিনি জানতে চেয়েছিলেন তার কাছে বা সরকারের কাছে সুষমা দাসের কিছু চাওয়ার আছে কি-না।

তবে এসময় কিছুই চাননি গুণী এ শিল্পী। অনেক বলার পর তার গাওয়া কিছু গান রেকর্ডের ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন তিনি। মন্ত্রী আয়োজকদের একজনকে ডেকে খুব তাড়াতাড়ি সুষমাকে ঢাকায় নিয়ে যেতে বলেছিলেন। পরদিন সকালে তিনি সুষমার আখালিয়াস্থ হাওলদারপাড়ার বাসায় উপস্থিত হন।

পরে সুষমা দাসকে নিয়ে ঢাকায় যান সম্মিলিত নাট্যপরিষদ সিলেট’র সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত। সেখানে তার গাওয়া ১৩টি গান এবং ‘বেলা অবেলা সারাবেলা’ অনুষ্ঠানের জন্য তার সঙ্গীত জীবনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা নিয়ে বলা কথা রেকর্ড করা হয়। কিছুদিনের মধ্যে গানগুলো প্রচারও করা হবে।

জন্ম এবং সঙ্গীত জীবন ঃ আউল-বাউলদের উর্বর খনি বৃহত্তর সিলেটের সুনামগঞ্জ জেলা। এ জেলার শাল্লা উপজেলার পুটকা গ্রামে সুষমা দাসের জন্ম ১৯৩০ সালের ১ মে। বাবা রসিক লাল দাস গান লিখতেন এবং গাইতেন। গাইতেন তার মা দিব্যময়ী দাসও। ৭ বছর বয়সে তাদের সঙ্গে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ধামাইল এবং বাউল গান গাইতে শুরু করেন সুষমা।

১৩৫২ বাংলায় তার বিয়ে হয় একই উপজেলার চাকুয়া গ্রামের প্রাণনাথ দাসের সাথে। বিয়ের পর তিনি ধামাইল-বাউলসহ ভাটি বাংলায় প্রচলিত সব ধরনের গান গেয়ে এলাকায় খ্যাতি অর্জন করেন।

স্বাধীনতা পরবর্তীকালে সুষমা চলে আসেন সিলেট শহরে। সিলেট বেতারের তালিকাভূক্ত শিল্পী হিসেবে গাইতে শুরু করেন। সিলেটের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অনুষ্ঠানেও তিনি হয়ে উঠেন একজন অপরিহার্য্য শিল্পী হিসেবে।

এরপর তিনি বিভিন্ন সময়ে সিলেট, ঢাকা এবং ভারতের কলকাতায় আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে লোকগান পরিবেশন করেন।

লোকসঙ্গীতে বিশেষ অবদানের জন্য কয়েক বছর আগে ‘লালন শাহ ফাউন্ডেশন ইউ.কে ইন্টারন্যাশনাল যুক্তরাজ্য’র পক্ষ থেকে শিল্পী সুষমা দাসকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

বয়স ৯০’র কোটা অতিক্রম করলেও আজো সংগীতে নিবেদিত এ শিল্পী। চার পুত্র ও এক কন্যার জননী অবসরে সন্তান ও নাতি-নাতনীদের নিয়ে গানে গানেই মেতে থাকেন।

বর্তমানে তিনি আখালিয়া হাওয়ালদারপাড়ায় একটি ভাড়া বাসায় থাকেন।

সুষমা দাস একুশে পদকপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য শিল্পী পন্ডিত রামকানাই দাস’র বড়বোন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now