শীর্ষ শিরোনাম
Home » ইতিহাস-ঐতিহ্য » ইংল্যান্ড-জুড়ে সমকামীরা সুপার-গনোরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে!

ইংল্যান্ড-জুড়ে সমকামীরা সুপার-গনোরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে!

imagesডেস্ক রিপোর্ট:  ইংল্যান্ড-জুড়ে সমকামী পুরুষদের মধ্যে ‘সুপার-গনোরিয়া’ ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
সুপার-গনোরিয়ার জন্য দায়ী নতুন ধরণের জীবাণুর প্রকোপ গত বছর লিডস শহরে দেখা দেয় এবং বর্তমান চিকিৎসা পদ্ধতিগুলোর একটি এই জীবাণুর বিরুদ্ধে অকার্যকর প্রমাণ হলে দেশজুড়ে জাতীয় সতর্কতা জারি করা হয়। পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড স্বীকার করে নিয়েছে যে নতুন এই এন্টিবায়োটিক-নিরোধী জীবাণুটির ব্যাপক ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে নেয়া উদ্যোগ খুব একটা সফল হয়নি। এই রোগটি মূলত যৌন সংস্রবের মাধ্যমে ছড়ায় এবং রোগটির কারণে আক্রান্তরা প্রজননক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। চিকিৎসকেরা বলছেন রোগটি শীঘ্রই পুরোপুরি অনিরাময়যোগ্য হয়ে পড়তে পারে। ওয়েস্ট মিডল্যান্ডস, লন্ডন এবং দক্ষিণ ইংল্যান্ডে এখন পর্যন্ত সুপার-গনোরিয়ায় আক্রান্ত মানুষ চিহ্নিত হয়েছে। গবেষণাগারের পরীক্ষায় এখন পর্যন্ত মাত্র ৩৪ জন আক্রান্তের কথা নিশ্চিত হওয়া গেছে, কিন্তু ধারণা করা হচ্ছে বাস্তব পরিস্থিতি অনেক ব্যাপক। প্রথমদিকে যারা বিপরীত লিঙ্গের সাথে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করছে শুধু তাদের মধ্যেই এই রোগের প্রকোপ দেখা গেলেও এখন দেখা যাচ্ছে পুরুষ সমকামীরাও সুপার-গনোরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে।

যেহেতু পুরুষ সমকামীরা খুব দ্রুত সঙ্গী পরিবর্তন করে সেহেতু তাদের মধ্যে এই রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাও বেশী, বলছিলেন ব্রিস্টলের একজন যৌন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ পিটার গ্রিনহাউজ। গনোরিয়ার জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া খুব দ্রুত এন্টিবায়োটিক-নিরোধী হতে সক্ষম।এখন এই রোগের জন্য এজিথ্রোমাইসিন এবং সেফট্রিয়াক্সোন একযোগে ব্যবহার করা হচ্ছে।কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে এজিথ্রোমাইসিন এই ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে আর কাজ করছে না।চিকিৎসকেরা ভয় পাচ্ছেন অচিরেই সেফট্রিয়াক্সোনও হয়তো গনোরিয়ার ব্যাকটেরিয়াকে দমন করার সক্ষমতা হারাবে।
প্রসঙগত,

ইসলামে সমলিঙ্গীয় যৌনতা নিষিদ্ধ| কুরআন ও হাদীসে পূর্ববর্তী ইব্রাহিমীয় ধর্মের মতই কওমে লুতের সমকামিতা ও পুংমৈথুনের ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে যেখানে সমকামিতা ত্যাগ না করার চুড়ান্ত পরিণতিতে শাস্তি হিসেবে ঐশী বিপর্যয়ের মাধ্যমে তাদের ধ্বংস হওয়ার কথাও উঠে এসেছে| এছাড়া হাদীসে সডোমি অর্থাৎ পুংমৈথুনকারী বা পুংপায়ুকামী ও সমকামী ব্যক্তিদেরকে হত্যা করার নির্দেশ এসেছে| তবে সমকামিতা নিষিদ্ধ হলেও ইসলামে অযৌন সমলিঙ্গীয় আবেগ বা ভাতৃসুলভ ভালবাসাকে নিষিদ্ধ করেনি, বরং একে ইসলামী নৈতিকতার একটি অংশ হিসেবে ইসলামী সম্পর্কের সকল স্তরেই লক্ষনীয়ভাবে উৎসাহিত করা হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী ইসলামী সাহিত্যিকগণও সতীত্ব বজায় রেখে এরুপ ভাতৃসুলভ সম্পর্ককে তাদের উপন্যাস ও রচনার গুরুত্বপূর্ণ উপজীব্য হিসেবে ব্যবহার করেছেন।

বিবাহবহির্ভূত যৌনতার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা প্রবল হলেও স্বয়ং যৌন কর্মকাণ্ড ইসলামে কোন নিষিদ্ধ বিষয় নয়। ভালোবাসা ও নৈকট্যের মহৎ উপকারিতা হিসেবে কুরআনহাদিসে অনুমোদিত যৌন সম্পর্কসমূহ বিশদভাবে আলোচিত হয়েছে। এমনকি বিয়ের পরেও কিছু নিষেধাজ্ঞা রয়ছেঃ কোন পুরুষ তার স্ত্রীর রজঃস্রাবকালীন সময়ে এবং সন্তানপ্রসবের পর একটি নির্ধারিত সময়কালে তার সাথে সঙ্গম করতে পারবে না। পায়ুতে লিঙ্গ প্রবেশকরণও তার জন্য পাপ হিসেবে বিবেচিত হবে। গর্ভপাত (গর্ভবতী নারীর স্বাস্থ্যঝুঁকি ব্যতিরেকে) এবং সমকামিতার মত কর্মকাণ্ড ও আচরণও কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now