শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » সিলেটে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু!

সিলেটে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু!

32233সিলেট রিপোর্ট: সিলেট নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোর বিরুদ্ধে এবার ‘অ্যাকশনে’ নামছে সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক)। আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভাঙার কাজ শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে ঝুঁকিপূর্ণ সকল ভবনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সিসিক’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব।

সিসিক সূত্র জানায়- শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী ও বিশেষজ্ঞদের দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করা হয়। বিশেষজ্ঞরা সিলেট নগরীর ৩২টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেন। এ ভবনগুলো খালি করার জন্য সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকবার নোটিশ দেয়া হলেও মালিকরা তাতে কর্ণপাত করেনি। ফলে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোতেই লোকজন বসবাস করছেন। যেসব সরকারী ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল তাতেও চলছে দাপ্তরিক কাজ।

গত বুধবার সিলেটসহ সারাদেশে তীব্র ভূমিকম্প অনুভূত হওয়ার পর সিসিক কর্তৃপক্ষ আবারো নড়েচড়ে বসেন। নতুন করে শুরু হয় নোটিশ জারি। খালি করার নির্দেশ দেয়া হয় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভবন খালি করা না হলে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ভেঙে ফেলারও হুমকি দেয়া হয়। গত রবিবার সিলেট নগরীর তাঁতীপাড়াস্থ চারতলা একটি ভবন মালিককে তার ঝুঁকিপূর্ণ বাসাটি খালি করার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ পাঠায় সিসিক। তিন দিনের সময় বেঁধে দিয়ে বাসার মালিককে জানানো হয়েছে স্বেচ্ছায় তিনি বাসা খালি না করলে বৃহস্পতিবার সিটি করপোরেশন বাসাটি ভেঙে ফেলবে। এর আগেও একাধিকবার ওই ভবন মালিককে নোটিশ দেয়া হলে তিনি বাসা খালি করেননি।

এছাড়া সিটি করপোরেশনের মালিকানাধীন সিটি সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ীদেরও মার্কেট খালি করার নোটিশ দেয়া হয়েছে। ওই মার্কেটে প্রায় ৩৫০টি দোকান রয়েছে। আগামী একসপ্তাহের মধ্যে মার্কেট খালি করে অন্যত্র সরে যেতে সিসিক’র পক্ষ থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সরে না গেলে সিটি করপোরেশন ‘অ্যাকশনে’ যাবে বলে নগরভবন সূত্র জানিয়েছে।

এ দুইটি স্থাপনা ছাড়াও সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আরো কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের মালিকদের নোটিশ করা হয়েছে। তাদেরকেও স্থাপনাগুলো খালি করতে সময় বেঁধে দেয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব জানান- শাহাজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দিয়ে নগরীর ৩২টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করা হয়েছিল। এর মধ্যে বাসা-বাড়ি ছাড়াও রয়েছে কালেক্টরেট ভবন-৩, এসএ রেকর্ড রুম, কাস্টমস ও ভ্যাট অফিসসহ কয়েকটি সরকারী ভবন। বারবার নোটিশ দেয়ার পরও সংশ্লিষ্টরা ভবনগুলো খালি না করায় এবার সিটি করপোরেশন কঠোর হচ্ছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now