শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » আমার দেখা সিলেট শহর : সৈয়দ শামছুল হুদা

আমার দেখা সিলেট শহর : সৈয়দ শামছুল হুদা

resize_1461557109 hosa০১। সিলেট যাওয়ার দাওয়াত : ১৩এপ্রিল’১৬ কুয়াকাটা সফরে থাকাকালীন মাহমুদ হাসান কুতুব জাফরী ভাই ফোনে দাওয়াত দেন যে, আগামী ২২এপ্রিল আমরা সিলেন যাচ্ছি। আপনাকেও যেতে হবে। প্রথমে না করলেও সিলেট দেখার লোভ সামলাতে পারিনি। তাই দাওয়াত কবুল না করে উপায় রইল না। কারন এর আগে আমার সিলেট যাওয়া হয়নি। আর বাংলাদেশের অন্যতম একটি সুন্দর এলাকা হলো সিলেট। প্রাকৃতিকভাবে যেমন, তেমনি জ্ঞানী, গুণী ও অসংখ্য অলি-আল্লাহদের পদাচরণা রয়েছে সিলেট জুড়ে।

০২। সিলেট যাত্রা : ২১এপ্রিল ২০১৬ইং রাত ১০টার দিকে মহাখালী থেকে হাইস গাড়ীতে করে সিলেটের উদ্দেশ্যে সফর শুরু হয়। আমি ফেসবুকে একটি স্টেটাস দিই-
“আজ রাতে সিলেট যাওয়ার ইচ্ছা । পুণ্যভুমি সিলেট শহরটি এখনো দেখা হয়নি। সবার কাছে দুআ কামনা।”
স্টেটাসে পুণ্যভুমি শব্দ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। আবু আমাতুল্লাহ নুরা ভা্ই জাপান থেকে তীর্যক মন্তব্য করেন। এনিয়ে অনেকে গালিাগালিও করতে থাকে। আমি নিরব থাকি। সবশেষে উস্তাদ ড.আবু বকর মুহাম্মদ যাকাকিয়া সাহেবও প্রশ্ন করেন- পুণ্যভুমি হলো কিভাবে? এটা দেখে আমি অবাক হই, আসলে আমরা যাই করিনা কেন, আমাদের মুরুব্বিগণ ঠিকই আমাদের পর্যবেক্ষণে রাখেন। উনার এই মন্তব্য দেখে আমার ভুল ভাঙ্গে। ড. আবু বকর মুহাম্মদ যাকারিয়া সাহেবের প্রতি আরো বেশি শ্রদ্ধা বাড়ে।

ঢাকা থেকে আমি, মাহমুদ হাসান কুতুব জাফরী, আবু বকর মোঃ জাবের ভাই রওয়ানা হই। পথিমধ্যে মাওলানা রাশিদুল হক ভাইয়ের সাথে সাক্ষাতের উদ্দেশ্যে নরাইবাগ ইসলামিয়া মাদ্রাসায় (ডেমরা, ঢাকা-১৩৬০) রাত ১১টার দিকে পৌঁছি। মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতী মুহাম্মদুল্লাহ মুঈনী সাহেবের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত হয়। আমি নিভৃতপল্লীতে বিশাল মাদ্রাসা দেখে অবাক হই। মনে মনে ভাবি, আল্লাহ পাক কাকে দিয়ে কোথায় কিভাবে খিদমত নিচ্ছেন তা আমরা ধারণা ও করতে পারিনা। বিশাল ভবন আর সুপরিসর জায়গায় পরিচ্ছন্ন নরাইবাগ মাদ্রাসা, দেখে ভালো লাগে। পরদিন মাদ্রাসার খতমে বোখারী থাকায় রাশেদ ভাই আমাদের সঙ্গী হতে পারলেন না।

আমরা রাত ১টায় গিয়ে পৌছি ভৈরব কমলপুর মাদ্রাসায়। ওখানে আমাদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন এই সময়ের খ্যাতিমান লেখক, সংগঠক মাওলানা লাবিব আব্দুল্লাহ, কবি সাইফ সিরাজ, কবি, ডিজাইনার ওয়ালিউল ইসলাম। আমরা প্রায় ২টার দিকে সিলেটের উদ্দেশ্যে আবার যাত্রা করি। ভোর প্রায় ৫.১৫দিকে সিলেট শহরে গিয়ে পৌছি। সিলেটের পাঁচতারা হোটেল রোজ ভিউ’র বিপরীত দিকে হোটেল আল ছালিম, (ছালিম ম্যানশন, মেন্দিবাগ বা/এ, বিশ্বরোড, সিলেট, মোবাইল- 01784-306814) এর চতুর্থ তলায় আমাদের জন্য থাকার ব্যবস্থা হয়।

০৩। সিলেট দেখা শুরু : ভোর হতে না হতেই এসে হাজির হন আমাদের সকলের প্রিয় মুখ রুহুল আমীন নগরী ভাই। আমরা যেমন সারারাত ঘুমাতে পারিনি। তিনিও আমাদের জন্য অপেক্ষা করতে করতে ঘুমাতে পারেননি। ভোর বেলা মাওলানা আঃ মালেক সাহেবের হোটেল, যেখানে সিলেটের ইসলামী আন্দোলনের নেতাকর্মীরা সবসময় বসে আড্ডা মারেন সেই বিখ্যাত “পাকশী রেষ্টুরেন্ট, করিম উল্লাহ মার্কেট, চুড়িপট্টি, বন্দর বাজার, সিলেট” এ সকালের নাস্তা গ্রহন করি। এই হোটেলটি ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের কাছে খুব পরিচিত। দ্বীনি আন্দোলন করতে হলে অনুকূল পরিবেশ তৈরী করতে হয়। নিরাপদে বসে কথা বলার, মতবিনিময় করার, একটু স্বস্তির সাথে বিশ্রামের কিছু জায়গা তৈরী করতে হয়। পাকশী রেষ্টুরেন্ট তেমনি একটি সুন্দর নিরিবিলি জায়গা, যেখানে বসে মুক্তভাবে কিছু কথা বলা যায়। অবসর সময়ে বসে নিরবে, নিরাপদে এক কাপ চা খাওয়া যায়, গল্প করা যায়।
০৪। “জামিয়া ইসলামিয়া মাদানিয়া কাজির বাজার” : নাস্তা শেষ করে আমাদের শিক্ষা কাফেলা ছুটে চলে কাজির বাজার জামেয়ার উদ্দেশ্যে। কাজির বাজার মাদ্রাসার সুনাম অনেক শুনেছি। বিশেষভাবে এই মাদ্রাসার প্রিন্সিপ্যাল, জনাব মাওলানা হাবিবুর রহমান সাহেবের আন্দোলন সংগ্রামের অনেক গল্প শুনেছি। যে কোন বাতিল শক্তির বিরোদ্ধে মাওলানার হুঙ্কার সবসময় গর্জে উঠে। সেই কাজির বাজার মাদ্রাসা দেখার ইচ্ছা অনেক দিনের। মাদ্রাসায় প্রবেশের পথে রয়েছে মনোরম গেইট। এরপর দুইদিকে সারিবদ্ধ ভবন। পশ্চিম দিকে প্রিন্সিপ্যালের কামরা, দাতব্য বিভাগ- আল মারকাজুল খায়রী আল ইসলামী (বহুমুখী সেবামূলক ইসলামী সংস্থা, রেজিঃ নং-৫৬০/৯৮), তিন তলাবিশিষ্ট চমৎকার ডিজাইনে নির্মিত মসজিদ। আর পুর্ব দিকে রয়েছে- চারতলা বিশিষ্ট সারিবদ্ধ ভবন। একসাথে কয়েকটি ভবন লাগোয়া। জামিয়া কাজির বাজার একটি সমাজসেবার মার্কাজও। সেখানে ঢুকেই দেখি একদল সাংবাদিক ক্যামেরা হাতে ছবি তুলছে। অনেক সাধারন মানুষের আনা-গোনা। সেখানে মহিলা, পুরুষ ও শিশু রয়েছে। পরে জানলাম যে, ওখানে মাওলানার নির্দেশে সাধারণ মানুষকে দেওয়ার জন্য কিছু প্রোগ্রাম হাতে নেওয়া হয়েছে। ঐ দিন ছিল চক্ষু শিবির, Eye Cataract Operation-2016, IN Association with Al Khair Foundation. Balance without compromise, বিনামুল্যে চক্ষু সেবা। ভালো ডাক্তার, মানসম্পন্ন সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে প্রোগ্রামে। এছাড়া জামেয়ায় রয়েছে আল জামেয়া কুরআন শিক্ষা বোর্ড বাংলাদেশ ও জমিয়তুল মাদারিস বাংলাদেশ এর অফিস। জামেয়ায় রয়েছে মাদানী কিন্ডারগার্টেন। এছাড়া সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এগুলো পরিচালনা করে আল মারকাজুল খায়রী। আমরা জামেয়ার প্রিন্সিপ্যাল মাওলানা হাবিবুর রহমান সাহেবের সাথে সাক্ষাত করি। তিনি আমাদের অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে গ্রহন করেন। মুল্যবান নসিহত করেন।ঐ দিন হুজুরের শ্বাশুড়ী ইন্তেকাল করায় মসজিদে মাইকে খতমে কুরআন হচ্ছিল। তিনি বেশি সময় দিতে পারেননি। আমরা মুসাফাহা করে বিদায় নিয়ে চলে আসি। আসার পথে মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা শাহ মমশাদ আহমদ সাহেবের সাথে সাক্ষাত হয়। উনি তার কামরায় নিয়ে যান। তিনি আমাদের প্রিন্সিপ্যাল হাবিবুর রহমান সাহেবের জীবন ও কর্মের উপর রচিত ‘দীপ্ত জীবন’ নামে ছোট্ট একটি পুস্তিকা তুলে দেন। এখানে কাজির বাজার মসজিদের একজন সাধারন ইমাম থেকে কিভাবে মাওলানা হাবিবুর রহমান সাহেব জননেতা হয়ে উঠেন তার বিবরণ তুলে ধরেন।

০৫।দরগাহ মসজিদে জুমআর নামায :
দরগা মহল্লায় একটি পাহাড়ের চুড়ায় হযরত শাহজালাল রহ, এর মাজার। মাজার সংলগ্ন বিশাল দরগাহ মসজিদ। মসজিদে জুমআর নামায আদায় করি। জুমআর পুর্ব বয়ান শুনতে পারিনি। খুতবার অংশ বিশেষ পাই। ইমাম সাহেবের থুতবা ও তেলাওয়াত খুব সুন্দর। হৃদয়গ্রাহী। আয়তনে বিশাল দরগাহ মসজিদ। ৫তলা ভবন। কিন্তু জুমআর নামাযে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। একটি বিষয় লক্ষ্য করলাম। ফরজ নামাযের সালামের পর কোন মানুষ জায়গা ছেড়ে উঠেনি। সকলেই মুনাজাতে অংশ নেন। সুন্নাত আদায় করেন। ঢাকা শহরে যেটা দেখা যায়- সালাম ফিরানোর পরপরই দৌড় শুরু হয়। অনেক মানুষই সুন্নাত আদায় করেন না। কিন্তু এখানে দেখলাম ব্যতিক্রম।

নামাযের পর মাজার এর আশে-পাশের পরিবেশ ঘুরে ঘেুরে দেখি। দেখলাম, মানুষের প্রতি মানুষের ভণ্ডামী। মাজারে খাদেম নামের লোকগুলো, আর দ্বীন শিক্ষা বর্জিত মানুষগুলোর অন্ধভক্তি ও ভণ্ডামী। মাজারে পিতলের ডেকচি, জালালী কবুতর, আর গজার মাছের প্রতি মানুষের অন্ধ ভক্তি দেখে যার পর নাই লজ্জিত হই। মানুষ সৃষ্টির কাছে এভাবে কেন মাথাটা ঝাঁকিয়ে দেয়? সব মাজারেই সাধারণ মহিলাদের উপস্থিতি খুব বেশি উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। এখানেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। তবে দরগাহের সাথেই একটি বিশাল কওমী মাদ্রাসা বুক উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকায় ভন্ডামী আর নষ্টামীর মাত্রাটা একটু কমই মনে হয়। এই মাজারের সুনাম, সুখ্যাতি যে পরিমাণ সে পরিমানে এই দ্বীনি প্রতিষ্ঠান মুখের উপর দাঁড়িয়ে থাকায় চক্ষু লজ্জায় হলেও অশ্লীলতার মাত্রাটা সীমা অতিক্রম করে নাই। এখানে কওমী মাদ্রাসার উপস্থিতি অনেকের কাছে অসহ্যকর। কিন্তু উলামাদের হেকমতের কাছে হার মেনেছে শয়তানী শক্তি। বুক উচুঁ করে দাঁড়িয়ে আছে মাদ্রাসাটি। সিলেটের অন্যতম একটি মাদ্রাসা হলো এই দরগাহ মাদ্রাসাটি।

০৬। বিবাহের অনুষ্ঠানে : সুনামগঞ্জ রোড, পশ্চিম সুবিদ বাজারে অবস্থিত সোনারবাংলা কমিউনিটি সেন্টার (মোবাইল- 01712-769385, প্রোপাইটার আলহাজ্ব আব্দুল গণি)এ আমাদের মেজবান জনাব রশিদ আহমদ সাহেবের ছোট বোনের বিবাহ অনুষ্ঠান। ইয়র্ক-বাংলা পত্রিকার সম্পাদক জনাব রশিদ আহমদ ছোট বোনের বিবাহ উপলক্ষ্যে লন্ডন থেকে অল্প কয়েকদিনের ছুটি নিয়ে দেশে আসেন। তিনিই আমাদেরকে আমন্ত্রন জানান। তার বোনের বিবাহ উপলক্ষ্যেই আমাদের সিলেটের শিক্ষা সফর। বিয়ে অনুষ্ঠানে পরিচয় হয় সিলেটের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে। বিশেষ করে জমিয়ত নেতা মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী সাহেবের সাথে সাক্ষাত হয়।

০৭। দারুল হাদীস আল মাদানিয়া ভবনে :
বিকাল বেলা আবারও বের হই সিলেটের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্পট গুলো দেখার জন্য। প্রথমেই আমরা হাজির হই এমন একটি ভবনে যেখানে শাইখুল ইসলাম হোসাইন আহমদ মাদানী রহ, হাদীসের দরস দিয়েছেন। আজ সেই ভবনটির নাম দারুল হাদীস আল মাদানিয়া। এটি খেলাফত ভবন নামে পরিচিত। আঞ্জুমানে ইসলামিয়া কর্তৃক এটি পরিচালিত হয়। বর্তমানে এর জীর্ণ শীর্ণ অবস্থা দেখে খুব দুঃখই হলো। শুনেছি জায়গাটি নিয়ে মামলা থাকায় কেউ এর যত্ন নিতে পারছে না।

০৮। কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ : সিলেটের গর্ব করার মতো আরো একটি জায়গা হলো এটি। কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ যাকে সংক্ষেপে কেমুসাস বলে, এটি মাহবুব ভবন, দরগাহ গেইট, সিলেট এ অবস্থিত। এই স্মৃতিময় নামটি স্মরণ করিয়ে দেয় বৃটিশ আমলের কথা। ঐ সময়ে মুসলমান কৃতী সন্তানদের প্রচেষ্টায় এটি গঠিত হয়। যখন মুসলিম সমাজ শিক্ষা-দীক্ষায় পিছিয়ে পড়ে, তখন এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়। সিলেটের ‍সাহিত্য-সাংবাদিকতার জগতে এর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপুর্ণ।

0৯। পর্যটন মোটেল : বাংলাদেশ পর্যটন করপোরোশন সিলেটের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয়েছে পর্যটন মোটেল। পাহাড়ের চূড়ায় বসে প্রাকৃতি দেখার আনন্দই আলাদা। সিলেট শহরটি প্রাণভরে দেখার ভালো একটি জায়গা হলো এই পর্যটন মোটেল। আঁকা-বাকা রাস্তা দিয়ে ঘুরে ঘুরে উপরে উঠতে হয়। এর সন্নিকটেই রয়েছে সিলেট বিমানবন্দর। এখানে রয়েছে চা-বাগান। আকাশের বিচিত্র রং দেখার জন্য মনোরম স্পট এই মোটেল। মেঘে ঢাকা আকাশের বৈচিত্রময় রং আমাদের নিয়ে যায় অন্য জগতে। কপোত-কপোতিদের নিরব আড্ডার জায়গাও এটি। এখানে আসলে আপনি হারিয়ে যাবেন অন্য জগতে। নীচের দিকে তাকাবেন দেখতে পাবেন ভুমির কত বৈচিত্র, আকাশের দিকে তাকাবেন দেখতে পাবেন মেঘের খেলা। এখানে সুন্দর থাকার জায়গা আছে। আছে “বর্ণালী রেস্তোরাঁ” যেখানে খাওয়ার সুন্দর ব্যবস্থাও আছে। নামাযের ব্যবস্থাও আছে।

১০। জামিয়া দারুল কুরআন সিলেট : জনাব এডভোকেট মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী প্রতিষ্ঠিত অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া দারুল কুরআন সিলেট। সন্ধার পর হাজির হই এই প্রতিষ্ঠানে। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের অন্যতম কেন্দ্রীয় নেতা, সাবেক এমপি,জনাব শাহিনুর পাশা চৌধুরী এই প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। দীর্ঘ সময় বসে আলোচনা হয় তার সামগ্রিক কর্মতৎপরতা নিয়ে। তিনি আমাদের তাঁর ব্যক্তিগত জীবন, শিক্ষা জীবন, রাজনীতি, কোর্টের পেশাদারিত্ব, সমাজসেবা ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করেন। ইসলামী রাজনীতির গতি-প্রকৃতি নিয়ে আলোচনা হয়।

১১। শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল জামেয়া : সৌরভ -৫২(জমসেদ মঞ্জিল) দর্জিপাড়া, রায়নগর, সিলেট, মোবাইল-01670-570944, এটাকে খান সাহেব ভবনও বলা হয়। জনাব মাওলানা মহিউদ্দীন খান সাহেব সিলেটে আসলে এই ভবনে থাকতেন। এখানে রয়েছে হিফজ বিভাগ, মাদানী নেসাবে জামাত বিভাগ, স্কুল বিভাগ। আমরা পুরো সিলেট শহর যে গাড়িতে করে ঘুরে বেরিয়েছি সেই গাড়িটিও এই প্রতিষ্ঠানের। রাতের মেহমানদারিও তারা করেন। ছাত্রদের সাথে বসে আলোচনা হয়। মুনাজাত হয়।

১২। জামিয়াতুল খাইর আল ইসলামিয়াহ:
২৩শে এপ্রিল শনিবার সকাল ৯টায় হাজির হই সিলেটের অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়াতুল খাইর আল ইসলামিয়াহতে। ১১৬/এ, আদনান মঞ্জিল, মিরাপাড়া, নয়াবাড়ী, বোরহান উদ্দীন রোড, সিলেট, মোবাইল- 01821-424224, 01712-375065) এটি একটি উচ্চতর গবেষণামূলক আর্ন্তজাতিক মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এখানে রয়েছে সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। এর সহকারী পরিচালক জনাব শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানালেন যে, সম্প্রতি প্রায় ১৫লাখ টাকার নতুন করে কিতাব সংগ্রহ করা হয়েছে। আরবী, বাংলাসহ সববিষয়ের সব ধরণের বই রয়েছে এখানে। রয়েছে কম্পিউটার ল্যাব। এর প্রতিষ্ঠাতা মুফতি আঃ মুনতাকিম সাহেব। এখানে বর্তমানে ২ বছরের ইফতা, ১ বছরের আরবী আদব, ১বছরের বাংলা সাহিত্য ও সাংবাদিকতা কোর্স রয়েছে। এটাকে একটি পুর্ণাঙ্গ জামেয়ায় রূপ দিতে চেষ্টা চলছে।
শাহ নজরুল ইসলাম সাহেবকে একজন লেখক হিসেবেই জানতাম। কিন্তু উনার এখানে এসে, উনার খেদমত ও চিন্তার পরিধি দেখে আপ্লুত হই। তিনি অন্যতম একজন পণ্ডিত মানুষ। তাঁর আলোচনায় মুগ্ধ হই। অনেক গভীর জ্ঞান রাখেন তিনি। সিলেটের আলেম সমাজ তাকে শ্রদ্ধার চোখে দেখে। যথাসম্ভব বিতর্ক এড়িয়ে চলেন। উদার মনের মানুষ। আমাদের শিক্ষা সফরের অন্যতম সাথী জনাব মাওলানা হাসান জামিল সাহেব, লাবিব আব্দুল্লাহ ভাইকে পেয়ে উনারা খুশি হন। সকালের নাস্তায় অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে আমাদের আপ্যায়ন করেন।

১৩। জাফলং এর উদ্দেশ্যে :
আমাদের গাড়ি ছুটতে থাকে জাফলং এর উদ্দেশ্যে। পথে পথে নির্বাচনী মহড়া দেখি। ইউপি নির্বাচন চলছিল। সিলেটের ভূমি বড় বৈচিত্রময়। খাল-বিল, নদী-নালা, পাহাড়-পর্বত, সমতল সব ধরণের ভুমিই এখানে রয়েছে। রয়েছে চা-বাগান। সিলেট একটি সীমান্ত জেলা। জাফলং বাংলাদেশের শেষ সীমানা। আমরা এই জাফলং দেখার জন্য হাজির। সিরি নদী পার হয়েই জাফলং শুরু। একেবারে বাংলাদেশের শেষ পয়েন্টে গিয়ে হাজির হই। ভারত থেকে দুই গজ দূরে দাঁড়িয়ে ছবি তুলি। বিএসএফ অস্ত্র হাতে পাহারায়। জাফলং এর অন্যতম আকর্ষণ হলো পাথর। এখান থেকে লাখ লাখ টন পাথর উত্তোলন হয়। ভারতের পাহাড় থেকে স্রোতের সাথে চলে আসে পাথর। বছরের পর বছর লাখ লাখ টন পাথর তোলা হলেও পাথরের কোন ঘাটতি দেখা যাচ্ছে না। জাফলং এর উঁচু পাহাড় ভারতের সীমানা। আর সমতল ভূমি থেকে বাংলাদেশের শূরু। সব গুলো পাহাড়ী ঝর্ণা পড়েছে ভারতে। সীমান্ত দেখে কয়েকটি জিনিষ অনুভব করলাম। ভারত সরকার তার জটিল পাহাড়ি অংশের পাহাড় কেটে চমৎকার রাস্তা তৈরী করে দিয়েছে। সেখানে দিয়ে হাজার হাজার গাড়ী চলাচল করছে। বিএসএফ এর জন্য রয়েছে সুন্দর ছাউনী। কিন্তু বিডিআর এর এজন্য তেমন কোন ভালো ব্যবস্থা চোখে পড়লো না। বর্তমানের বিজিবি ভাড়া নৌকা দিয়ে সীমান্ত পাহারা দিচ্ছে। লোকজনদের সতর্ক করছে, কেউ যেন ঝর্ণায় গোসল করার লোভ না করে, হুইসেল বাজিয়ে সতর্ক করছে। কারন ঝর্ণাগুলো পড়েছে ভারতের সীমানায়। বিএসএফ যে কোন সময় অঘটন ঘটিয়ে বসতে পারে। নিজস্ব স্পিডবোটও দেখলাম না। আমাদের সীমান্তগুলো আসলেই অরক্ষিত। জাফলংয়ে এসে জানতে পারলাম ভারতের দুৎখের কথাও। স্রোতের টানে পাথর এসে জমা হয় বাংলাদেশের সীমানায়। পাথর এর চাহিদা পুরণ করে ভারতের পাহাড় থেকে পানির সাথে ভেসে আসা পাথর। এখানের চা বাগানও দেখলাম। নদীতে গোসল করলাম। অবশ্য গোসল শেষে মরার দশা হয়েছিল আমার। হঠাৎ করে সাতার কাটতে গিয়ে শ্বাস কষ্ট দেখা দেয়। রক্তশুন্যতা অনুভব করি। উপরে উঠে চোখে মুখে অন্ধকার দেখতে শুরু করি। প্রায় ৩০মিনিট কিছুটা বেহুশের মতোই ছিলাম।

১৪: দরবস্ত আল মনসুর মাদ্রাসা :
জাফলং থেকে ফিরে আসার পথে পাকড়ী (বাজার সংলগ্ন) দরবস্ত বাজার, জৈন্তাপুর, সিলেট) এলাকায় অবস্থিত দরবস্ত আল মনসুর মাদ্রাসায় চা-নাস্তার ব্যবস্থা করা হয়। এখানে আপ্যায়ন শেষে বিশেষ মুনাজাত করেন জনাব হাসান জামিল সাহেব।

১৫। শাহ পরাণের মাজার :
শহরে এসে শাহ পরাণের মাজার সংলগ্ন মসজিদে মাগরিবের নামায আদায় করি। শাহ পরাণের মাজারও পাহাড়ের চূড়ায়। এখানে ভন্ডদের দৌরাত্ম। মাজারে ঢুকেই দেখি একদল খাদেম টাকার ভান্ডার নিয়ে বসেছে। সারাদিন যা কামাই হযেছে তা হিসাব করছে। পুরো মাজারে কুপি বাতি দিয়ে একটি অগ্নিময় পরিবেশ তৈরী করেছে। এমনকি যেটাকে মূল মাজার হিসেবে চিহ্নিত করে রাখা হয়েছে সেখানেও আগুন জ্বালিয়ে অগ্নিপূজকদের মতো একটি পরিবেশ তৈরী করে রেখেছে। মাজার থেকে বের হয়ে শাহপরাণ কওমী মাদ্রাসায় যিয়ারত করি। বিশাল কওমী মাদ্রাসা। এটা ১৯৭৯সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সিলেটের বড় দুটি মাজারের সাথে বড় দুটি কওমী মাদ্রাসা দেখে ভালো লাগলো। মাজার থেকে ভন্ডামীদের দৌরাত্ম চললেও পাশেই রয়েছে হক্বের ঝাণ্ডাবাহী প্রতিষ্ঠানগুলো। মানুষকে অন্তত এতটুকু অনুভব করার পরিবেশ করে দিচ্ছে যে, এখানে যা হয়, এটা সঠিক নয়। প্রতিটি মাজারেই দূর থেকে আসা মানুষগুলোই বেশি ভন্ডামী করে। কূকর্ম করে। পুঁজা করে। সিজদা করে। গান-বাদ্য করে। এখানেও একই চিত্র।

১৬। লেখক আড্ডা ও একজন মুসা আল হাফিজ :
কেমুসাস তথা কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ এ ঐদিন ছিল উলামা পরিষদ বাংলাদেশ এর উদ্যোগে “ মাযহাব মানার অপরিহার্যতা” শীর্ষক সেমিনার। প্রধান আলোচক নুরুল ইসলাম ওলীপুরী দা.বা.।
আমরা কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদটি ঘুরে ফিরে দেখি। বিশাল সংগ্রহশালা এটি। এখানে দেখতে পেলাম- বাদশাহ আলমগীরের স্বহস্তে লিখিত পবিত্র কুরআন এর কপি। এই সংসদ থেকে বের হয় মাসিক আল ইসলাহ। সংসদ থেকে বের হয়ে পাশের হোটেলে সুন্দর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয় লেখক আড্ডা। লেখক আড্ডার আয়োজক কবি ও লেখক মুসা আল হাফিজ। মৌলভী বাজার থেকে শুধু আমাদের সাথে সাক্ষাতের জন্যই তিনি সিলেটে আসেন।লেখক আ্ড্ডায় সিলেটের লেখকগণ উপস্থিত ছিলেন। ঢাকা থেকে আমরা সকলেই উক্ত আড্ডাটি উপভোগ করি। জনাব লাবিব আব্দুল্লাহর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জনাব হাসান জামিল সাহেব, মাহমুদ কুতুব জাফরী, সৈয়দ শামছুল হুদা, কবি সাইফ সিরাজ, আবু বকর সিদ্দিক জাবের, কবিতা আবৃত্তি করেন ওয়ালীউল ইসলাম, রুহুল আমীন নগরী, শাহিদ হাতমী, আব্দুল হাই মাসুম, মাসুম আহমদ, লেখক আ্ড্ডায় সভাপতিত্ব করেন রশিদ আহমদ। মুসা আল হাফিজ তার চমৎকার উপস্থাপনা দ্বারা সবাইকে মুগ্ধ করেন।
পাঁচভাই রেষ্টুরেন্ট, প্রোঃ মোঃ রফিকুল ইসলাম (রফিক) জল্লার পাড় রোড, দাড়িয়া পাড়া, সিলেট এ রাতের আহার গ্রহন শেষে আমরা ফিরে আসি ঢাকায়। মনে থাকবে সিলেটের কথা। সিলেটবাসীর কথা। সিলেটের বন্ধুদের কথা। তাদের আদর-আপ্যায়ন, আন্তরিকতা ভুলবার নয়। সিলেটের মাটি আলেম-উলামাদের ঘাটি। সিলেটের মাটি পুণ্য কর্মের ঘাটি। পুণ্যময় মানুষদের ঘাটি। সিলেট বাংলাদেশের অহংকার। গৌরব। সিলেট দেখার অনেক দিনের আশা সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হওয়ায় মহান আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া জানাই। শুকরিয়া জানাই মাহমুদ হাসান কুতুব জাফরি ও জনাব রশিদ আহমদ ভাইকে। শুকরিয়া জানাই আমাদের সফরের সকল সাথী-বন্ধুদের।
সকাল 10.02টা, 25.04.2016ইং

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now