শীর্ষ শিরোনাম
Home » খেলাধুলা » মানুষের জীবনের সফলতার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান থাকে তার স্ত্রীর : সালাম মুর্শেদী

মানুষের জীবনের সফলতার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান থাকে তার স্ত্রীর : সালাম মুর্শেদী

1461625279_SALAM_MURSHEDI_FOOTBALLARডেস্ক রিপোর্ট: সব পরিচয় ছাপিয়ে সালাম মুর্শেদী নিজেকে ফুটবলের সালাম মুর্শেদী পরিচয় দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। ফুটবলের এই বড় তারকা, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পেরও একজন বড় তারকা। ঢাকা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের স্ট্রাইকার ছিলেন। ১৯৬৩ সালে খুলনায় জন্ম, সেখানেই ফুটবলে হাতেখড়ি।
খুলনা থেকে একদিন ঢাকায় এসেছিলেন তিনি। আজ তিনি এনভয় গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি। ইএবি′র (রপ্তানী কারক সমিতি বাংলাদেশ) সভাপতি। কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি। সামনে আরও বড় কোনো সংগঠনের সভাপতি হওয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে।

সাক্ষাত্কার:
সম্প্রতি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নির্বাচন কমিশনের সভায় “সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।” ভোটের আগেই পাস করেছেন তিনি। সবকিছুতেই পাস করা হাসি-খুশি এই মানুষটিকে সকলেই চেনেন, জানেন, ভালোবাসেন। নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। যিনি খেলোয়াড় হিসেবে পাস, ব্যবসায়ী হিসেবে পাস, এমনকি পারিবারিক জীবনেও পাস। তাঁর অন্যরকম বিজয়ের মাহেন্দ্রক্ষণে সফল এই মানুষটির সাক্ষাৎকার প্রকাশের ইচ্ছে ছিল। অবশেষে সেটাই লিখছি।

লিখছি আব্দুস সালাম মুর্শেদী′র কথা।

আর লিখছি আমি জেনিউজের নির্বাহী সম্পাদক মো: সেলিম হোসেন।

বাফুফে নির্বাচন নিয়ে গোটা দেশ জুড়ে চলছে হৈ চৈ। সকলেই হেভিওয়েট প্রার্থী। গত ২০ এপ্রিল বুধবার ছিল ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। সংস্থাটির সিনিয়র সহ-সভাপতির পদে বর্তমানে দায়িত্বে থাকা সালাম মুর্শেদীর সঙ্গে মনোনয়ন পত্র কিনেছিলেন শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের সভাপতি মনজুর কাদের, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ডিরেক্টর ইন চার্জ লোকমান হোসেন ভূইয়া ও আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান শফিউল আরেফীন টুটুল। প্রতিদ্বন্দ্বী এই তিন প্রার্থীই সরে দাঁড়ানোয় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদেই আবারে রয়ে গেছেন সাবেক এই ফুটবলার।

এই বিজয়ে সর্বত্র কেন এতো উচ্ছাস? আসলে সব পরিচয় ছাপিয়ে সালাম মুর্শেদী যে ফুটবলের সালাম মুর্শেদী পরিচয় দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।
ফুটবলের এই বড় তারকা, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পেরও একজন বড় তারকা। ঢাকা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের স্ট্রাইকার ছিলেন। ১৯৬৩ সালে খুলনায় জন্ম, সেখানেই ফুটবলে হাতেখড়ি। স্থানীয় ইয়ং মুসলিম ক্লাবের মাধ্যমে প্রথম বিভাগে খেলার শুরু, এরপর ১৯৭৭ সালে আজাদ স্পোর্টিং-এ যোগ দিয়ে ঢাকায় চলে আসেন। আজাদে দুই বছর আর বিজেএমসি ক্লাবে এক বছর খেলে সুযোগ পান স্বপ্নের ক্লাব মোহামেডানে খেলার। কাজী সালাউদ্দিনের রেকর্ড ভেঙ্গে ১৯৮২ সালে লীগে করেন ২৭ গোল, যে রেকর্ড এখনও কেউ ভাঙ্গতে পারেনি। খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলেও।

যাঁকে নিয়ে এতো কথার অবতারণা। তার শুরুটাও ছিল অন্য আর দশটা সাধারণ মানুষের মতোই। খুলনার রূপসা উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম নৈহাটি। আশির দশকের গোড়ার দিকেও যে গ্রামটি অন্য ৮/১০টি গ্রামের মতো ছিল, সেটি এখন অনেকটাই বদলে গেছে। বদলে গেছে না বলে যদি বলা হয় বদলে দেয়া হয়েছে তবে এতটুকু ভুল বলা হবে না।

যিনি বদলে দিয়েছেন তিনি আবদুস সালাম মুর্শেদী। এক সময়কার মাঠ কাঁপানো ফুটবলার এখন দেশের অন্যতম সেরা শিল্পোদ্যোক্তা। বর্তমানে বড় মাপের ব্যবসায়ী হলেও তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি সাবেক ফুটবলার। ১৯৬০ সালে জন্ম নেয়া সালাম শিক্ষাজীবন শুরু করেন নৈহাটি হাই স্কুলে। এ স্কুল থেকে ১৯৭৬ সালে এসএসসি পাস করার পর ১৯৭৮ সালে খুলনা সিটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।

তারপর ঢাকার জগন্নাথ কলেজ থেকে সমাজ বিজ্ঞানে অনার্স-মাস্টার্স করার ফাঁকেই হয়ে ওঠেন দেশের ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা তারকা। ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ার সময় ইয়াং বয়েজ ক্লাবের হয়ে খুলনা প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগে খেলা শুরু। এরপর খেলেন আজাদ বয়েজ ক্লাব ও ইয়ং মুসলিম ক্লাবে। এ সময়টাতে খুলনা প্লাটিনাম জুট মিলে অফিসার হিসেবে দু′বছর চাকরিও করেন। এ সময়ই তার মাথায় ব্যবসার পোকাটা জায়গা করে নেয়। ১৯৭৬ সালে খুলনা বিভাগীয় দলের হয়ে ঢাকায় খেলতে আসেন সালাম।

টিনের একটি সুটকেস হাতে খুলনা থেকে একদিন ঢাকায় এসেছিলেন সালাম মুর্শেদী। আজ তিনি এনভয় গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি। ইএবি′র (রপ্তানী কারক সমিতি বাংলাদেশ) সভাপতি। কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি। সামনে আরও বড় কোনো সংগঠনের সভাপতি হওয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে।

চলুন শুনি তার মুখ থেকেই–

সালাম মুর্শেদী : সেই ছোটবেলা থেকেই আমি ফুটবলকে খুব ভালোবাসতাম। যখন ক্লাস সিক্সে পড়ি ফুটবলকে তখনই বেছে নিই। স্কুলে খেলার সময়ই অনেকের নজরে পড়ে গিয়েছিলাম। খুলনায় আমার প্রথম ক্লাব ছিল ইয়াং বয়েজ ক্লাব। সেটি প্রথম বিভাগের দল ছিল। এরপর আমি খুলনা আজাদ বয়েজের হয়ে দুই বছর এবং ইয়ং মুসলিম ক্লাবে খেলি (যেটি এখন মোহামেডান স্পোর্টিং কাব)। খেলার পাশাপাশি খুলনা প্লাটিনাম জুট মিলে দুই বছর চাকরিও করি। এই জুট মিলে চাকরি করার সময়েই আমি খেলোয়াড় হওয়ার পাশাপাশি একজন বড় মাপের ব্যবসায়ী হওয়ারও স্বপ্ন দেখা শুরু করি। ছোটবেলা থেকেই ফুটবল ছাড়া আর কিছুই বুঝতাম না। আমি ফুটবল খেলেছি বলেই আজকের এই অবস্থানে আসতে পেরেছি। যদিও ছোটবেলায় আমি ফুটবল ছাড়াও একজন ভালো অ্যাথলেট হিসেবে পরিচিত ছিলাম। জেলা পর্যায়ে ১০০ ও ২০০ মিটার দৌড়ে আমি একাধিকবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। বলতে পারেন ফুটবলার হওয়ার ইচ্ছা নিয়েই খেলোয়াড়ি জীবন শুরু করি। ফুটবলের জনপ্রিয়তাও সে সময় অনেক বেশি ছিল।

পরিবারিক সমর্থন? অন্য কেউ কি জড়িত ছিলেন খেলাধুলার সাথে?

সালাম মুর্শেদী : বড় খেলোয়াড় হতে হলে পরিবারের সহায়তা প্রয়োজন। আমার পরিবারও সেরকম ছিল। বলতে পারেন আমাদের পুরো পরিবারই ছিল একটি ক্রীড়া পরিবার। আমার বাবা মরহুম মোঃ ইসরাইল ছিলেন স্কুল শিক্ষক। তিনি একসময় ফুটবল খেলতেন। চার ভাই দুই বোনের মধ্যে আমি সবার ছোট। বড় ভাই জামাল উদ্দিন হায়দার খুব ভালো ভলিবল খেলতেন। তৎকালীন সময়ে বেশ সুনামের সাথে পূর্ব পাকিস্তান ভলিবল দলে নিয়মিত খেলেছেন। এছাড়া মেজ ভাই কামাল উদ্দিন হায়দারও ভালো ফুটবল খেলতেন। তবে সেজ ভাই আজাদ আবুল কালাম আমার চেয়েও ভালো বডিবিল্ডিং ও ভারোত্তোলন খেলোয়াড় ছিলেন। তার সুনাম ছড়িয়ে পড়েছিল দেশব্যাপী। আমি এবং আমার সেজ ভাই দু’জনেই জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেয়েছি। আমি ফুটবলে এবং সেজ ভাই ভারোত্তোলনে। একটি পরিবারে এর চেয়ে বেশি খেলোয়াড় কি থাকতে পারে!

ঢাকার ফুটবলে প্রথম গোল?

সালাম মুর্শেদী : ফুটবল মাঠে ভাগ্য আমাকে সবসময়ই সহায়তা করেছে। খুলনার পর ঢাকায় তা অব্যাহত থাকে। আজাদ স্পোর্টিংয়ের হয়ে আমি প্রথম ম্যাচ খেলতে নামি রহমতগঞ্জের বিপক্ষে। ঢাকার লিগে আমার প্রথম ম্যাচ, কিছুটা টেনশন কাজ করছিল। কারণ তখন পুরান ঢাকার দল রহমতগঞ্জে অনেক নামিদামি ফুটবলার খেলতেন। যাদের মধ্যে ছিলেন বড় ইউসুফ, শাহাবুদ্দিন, মোতালেব ভাই, হাসান, কালা, আলাসহ অনেকেই। এত বড় বড় খেলোয়াড়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিলাম বলেই কিছুটা টেনশন ছিল। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো খেলতে নেমে প্রথম মিনিটেই আমি রহমতগঞ্জের বিপক্ষে গোল করি এবং শেষ পর্যন্ত আমরা ওই ম্যাচ ২-১ গোলের ব্যবধানে জিতেছিলাম। ওই ম্যাচ জেতার পর আমি শিরোনামে চলে আসি। অনেকেই জানতে চান এ ছেলে কোথা থেকে আসল। প্রথম ম্যাচেই গোল করার কারণে অনেকেই অভিনন্দন জানিয়েছিল। এমনকি পরের ম্যাচ ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষেও আমি গোল করেছি এবং আমাদের দল সে ম্যাচেও জিতেছিল। এভাবে আজাদ জয়ের ধারায় ফিরে আসে এবং আবাহনী-মোহামেডানসহ সব বড় দলকে চ্যালেঞ্জে ফেলে দেয়। এভাবেই ঢাকায় আমার খেলোয়াড়ি জীবন শুরু। তবে প্রথম গোল করার পর খুব ভালো লেগেছিল।

ফুটবল খেলে প্রথম উপার্জন?

সালাম মুর্শেদী : খুলনার মুসলিম ক্লাবে খেলে প্রথম উপার্জন করি। সেটা খুব সম্ভবত ১৯৭৪ সালের ঘটনা। আমি তখন অষ্টম শ্রেণীতে পড়ি। প্রথম পারিশ্রমিক পেয়েছিলাম ৩০০০ টাকা। আমার কাছে এ টাকাটা অনেক বড় ছিল সে সময়। মনে আছে প্রথম উপার্জনের টাকা দিয়ে মায়ের জন্য শাড়ি আর বাবার জন্য লুঙ্গি ও পাঞ্জাবি কিনেছিলাম। এছাড়া বাসায় মিষ্টি নেয়ার পর বাকি যে টাকা অবশিষ্ট ছিল সেটা মায়ের কাছে জমা রেখেছিলাম। খুবই আনন্দ লেগেছিল সেদিন।

ঢাকায় আসার পর জাতীয় দলের হয়ে খেলা?

সালাম মুর্শেদী : ঢাকায় আসার পর জাতীয় দলে সুযোগ পেতে আমাকে খুব বেশিদিন অপেক্ষা করতে হয়নি। আজাদ স্পোর্টিংয়ে খেলার সময়েই ১৯৭৭ সালে আমি জাতীয় যুবদলে সুযোগ পাই। এরপর ১৯৭৮ সালে আমি জাতীয় দলের হয়ে খেলতে নামি। ১৯৭৯ সালে বিজেএমসিতে খেলি। এরপর যে মোহামেডানে আসলাম আর মায়ার বাঁধন ছাড়তে পারিনি। আমার খেলোয়াড়ি জীবনের বাকি শেষ পর্যন্ত কেটেছে ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান ক্লাবে। ১৯৮০ সালে মোহামেডানে আসি এবং ১৯৮৭ সালে খেলা ছাড়া পর্যন্ত এ ক্লাবেই খেলি। বেশ কয়েক মৌসুম আমি মোহামেডানের অধিনায়কত্বও করেছি। এছাড়া জাতীয় লিগে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ ২৭ গোলের রেকর্ড সেটি এখনও আমার দখলে। ২৪টি গোল করে এ রেকর্ড ছিল বর্তমান বাফুফে সভাপতি কাজি সালাউদ্দিনের। আমি ২৭ গোল করে সে রেকর্ড ভেঙে দিই ১৯৮২ সালে। আমি ১৯৮৭ সালে খেলা ছেড়ে দিই। কারণ এ সময় থেকে আমি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত হয়ে পড়ি। এই ছিল আমার খেলোয়াড়ি জীবনের অধ্যায়। তবে আমার আশা ছিল দীর্ঘদিন মোহামেডানে খেলেছি, যেন শেষ ম্যাচে গোল পাই। আমার সে আশাও পূর্ণ হয়েছে। মোহামেডানের হয়ে শেষ ম্যাচেও আমি গোল করেছিলাম এবং শেষ ম্যাচ আমরা জিতেছিলামও। বলতে পারেন ফুটবল আমাকে দু’হাত ভরে দিয়েছে, কখনোই নিরাশ করেনি।

২৭ গোলের ঐ রেকর্ড আজও না ভাঙার কারণ?

সালাম মুর্শেদী : রেকর্ড হয় ভাঙার জন্য। কিন্তু ৩১ বছর আগে ২৭ গোলের রেকর্ড আমি করেছি তা এখনও না ভাঙায় আমি অখুশি। এদেশের ফুটবল যে উন্নতি হয়নি তা এতেই বোঝা যায়। আমাদের সময় আরো তিন বছর বাকি আছে। ট্যালেন্ট হান্টে অনেক সুপ্ত তারা দেখেছি। খেলা দেখেছি অনূর্ধ্ব-১৬ দলের। আমি বিশ্বাস করি সেখানে অনেক আসলাম, সালাউদ্দিন, বাদল, চুন্নু, গাফ্ফারে মতো খেলোয়াড় বেরিয়ে আসবে। তারা আমাদের স্থান পূরণ করবে। আমাদের দর্শকদের মনের আশা পূরণ করবে। তারা সুন্দর সুন্দর গোল উপহার দিবে। ২৭ গোলের রেকর্ডটাও ভাঙবে এবং যেদিন ভাঙবে সেদিনই হবে আমার সবচেয়ে তৃপ্তি এবং আনন্দের। আমার মনে হচ্ছে ফুটবল হয়তো সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে রেকর্ড না ভাঙাটা আমাদের ফুটবলের জন্য ভালো নয়।

বিভিন্ন সেক্টরে সাফল্য গাঁথা এ জীবনে কোথায় গেলে মনে হয় এটা উপযুক্ত জায়গা?
সালাম মুর্শেদী : ফুটবলের কারণেই আমি আজকের সালাম মুর্শেদী হতে পেরেছি। আমার কাছে সবচেয়ে উপভোগ্য বলে মনে হয় ফুটবল। কারণ এই ফুটবল আমাকে সামাজিকভাবে যে অবস্থানে এনেছে তা অন্য কিছুতেই সম্ভবপর হয়নি। এখনও আমি দেশে বিদেশের সব জায়গায় ফুটবলার সালাম হিসেবে পরিচিত। ব্যবসায়িক পরিধি দিক দিয়ে আমি রপ্তানি খাতে প্রায় বছরই রাষ্ট্রপতি পদক পেয়ে যাচ্ছি (যা প্রধানমন্ত্রী দিয়ে থাকেন)। আমি প্রায় প্রতি বছর সিআইপি হিসেবে স্বীকৃতি পাচ্ছি। ব্যবসায় অনেক সফলতা পেয়েছি। আল্লাহ অনেক সুযোগ দিয়েছেন। বাফুফেতে আসার পর আমি অতীতটাকে ভালোভাবে দেখতে পাই। আমার খেলোয়াড়ি জীবনের কথা মনে পড়ে। খেলোয়াড়ি জীবনের বন্ধুদের পাই। অনেক ধরনের আলোচনা হয়। স্মৃতি রোমন্থন করি। এ জায়গায় আসলে অনেক কষ্ট ভুলে যাই।

বাংলাদেশের ফুটবল নিয়ে স্বপ্ন?

সালাম মুর্শেদী : বর্তমানে দেশের ফুটবল যেভাবে চলছে তাতে করে ভবিষ্যতে চোখ আমাদের। ভবিষ্যতে আরও আকর্ষণীয় লিগ আয়োজন করতে চাই। ভালো ভালো আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় তৈরি করতে চাই। দেশের ভেতর একটা নিয়মিত আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা আয়োজন করার ইচ্ছা আছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে আরো উঁচুতে ওঠাতে চাই। ফুটবলের প্রতি আমার নিজেরও দায়বদ্ধতা রয়েছে। আমি একটি ফুটবল একাডেমি গড়ে তুলতে চাই। ঢাকার এবং ঢাকার আশপাশে ২০-৩০ বিঘা জমি নিয়ে এই একাডেমি গড়ব। যেখানে ২০টি ছেলের যাবতীয় ভরণপোষণ করে উন্নতমানের ফুটবলার হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এর ফলে দেশের ফুটবলের সুফল হবে। আমি সবসময় মনে করি ফুটবল আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। তাই আমিও ফুটবলকে কিছু দিতে চাই। আমি এখন ব্যবসায়ী হলেও ফুটবলের সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। আজীবন ফুটবলের সঙ্গে যুক্ত থাকতে চাই এবং আমি একটি ফুটবল একাডেমি গড়তে চাই।

সাফল্যের পেছনে অনুপ্রেরণা?

সালাম মুর্শেদী : পরিবারের অনুপ্রেরণা ফুটবলার জীবন থেকেই সফলতার পেছনে কাজ করেছে। কোনো জায়গায়ই তারা নিরুৎসাহিত করেনি। সাধারণ একজন ফুটবলার থেকে একজন সফল ব্যবসায়ী হওয়ার পেছনের কারিগর দু’জন। এদের একজন হচ্ছেন দেশের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও এনভয় গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার কুতুবউদ্দিন আহমেদ এবং স্ত্রী শারমিন সালাম। ব্যবসায়ী হয়ে ওঠার পেছনে সবচেয়ে বেশি অবদান কুতুবউদ্দিন আহমেদের।
কুতুবউদ্দিনের পর সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা পেয়েছেন স্ত্রী শারমিন সালামের কাছ থেকে। ব্যবসায় উন্নতির পেছনে তার অনেক অবদান রয়েছে। স্ত্রীর কথা বলতে গিয়ে সালাম বলেন, ‘আমার স্ত্রী সন্তান ও সংসার সামলে আমাকে শুধু অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন তাই নয়, সে অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছে। ব্যবসায় নামায় আমার ব্যস্ততা অনেক বেড়ে যায়। আমি বিজিএমইএ সভাপতি ছিলাম এবং এখন বাংলাদেশ এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবে আছি। এসব গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকার সময় আমি পরিবারকে খুব বেশি সময় দিতে পারিনি। তাছাড়া আমি ১৯৮৫ সালে যখন ব্যবসা শুরু করি তখন থেকেই খুব সকালে অফিসে যেতাম। প্রতিদিন ১২ থেকে ১৪ ঘণ্টা কাজ করেছি। দীর্ঘ সময় কাজে ব্যস্ত থাকলেও আমার স্ত্রীই সংসার সামলেছেন।’ মানুষের জীবনের সফলতার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান থাকে তার স্ত্রীর। তার এই ছাড় দেবার মানসিকতার কারণেই সংগঠনের পাশাপাশি ব্যবসায় সময় দিতে পেরেছেন, ব্যবসাটাকে এ পর্যায়ে আনতে পেরেছেন। তার কারণেই একটি সুন্দর পরিবার এবং এ পরিবারের সে-ই নেতা। তাকে আসলে ধন্যবাদ দিয়ে খাটো করতে চান না সালাম মুর্শেদী। তার প্রতি অনিঃশেষ কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

একান্ত জীবনের গল্প?

সালাম মুর্শেদী : আমার জীবনে একদিনে সব আসেনি। একটু একটু করে সব বদলেছে। বাবা শিক্ষক ছিলেন। সংসারে তেমন সচ্ছলতা ছিল না। ছোটবেলায় তিন বেলা ভাত খেতে ইচ্ছা করত। তখন দুই বেলা রুটি খেতাম। এখনো দুই বেলা রুটি খাই। তবে চিকিৎসকের পরামর্শে। (হাসতে হাসতে)

দেশের বাইরের অভিজ্ঞতা?

সালাম মুর্শেদী : দেশের বাইরে আমার অভিজ্ঞতা সবসময়ই ভালো। সম্প্রতি আমার মেয়ে শেহরিন সালাম ঐশী লন্ডনে ব্যারিস্টারি পড়া শেষ করেছে। সমাপনী অনুষ্ঠানে তার বাবা হিসেবে আমি সেখানে গিয়েছিলাম। লন্ডনে বেশকিছু বাংলা টিভি আছে। সেখানকার বাংলা টিভি আমার ১ ঘণ্টার একটা ইন্টারভিউ প্রচার হয়েছে। যার প্রায় পুরোটাই ছিল ফুটবলার সালামের গল্পে ভরা। সেখানকার হোয়াইট চ্যানেল দিয়ে যখন হাঁটছি তখন অনেকেই কথা বলতে সামনে এগিয়ে এসেছে কথা বলার জন্য। সেখানে যাওয়ার পর মনে হয়েছে ফুটবল খেলে আমি সফল। একজন সালাম মুর্শেদীকে মানুষ অনেক ভালোবাসে।

ছেলে-মেয়ে?
সালাম মুর্শেদী : আমার মেয়ে শেহরিন সালাম ঐশী কিছুদিন আগে ব্যারিস্টার হয়েছে। আর দুই ছেলে ইশমাম সালাম ও আইয়ান সালাম লেখাপড়া করছে।

অবসর?
সালাম মুর্শেদী : অবসর খুব একটা মেলে না। শুধু কাজ, কাজ আর কাজ। এর ফাঁকে যতটুকু সময় পাই, সবটাই পরিবারের জন্য। পারিবারিক মানুষ আমি। প্রতি শুক্রবার রাতে দুই ছেলে ইশমাম, আইয়ান, মেয়ে শেহরীন, জামাই ও স্ত্রী শারমিনকে নিয়ে খেতে বের হই। চেষ্টা করি ছুটির দিনে কোনো কাজ না রাখতে। পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে ভালোবাসি।

ভীষণ ব্যস্ততার মাঝে কষ্ট করে সময় দেবার জন্য আপনাকে জেনিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

সালাম মুর্শেদী : আপনাকে ও জেনিউজের অসংখ্য পাঠককে ধন্যবাদ।
সুত্র: জেনিউজবিডি

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now