শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » কয়েকটি কারণে ছাত্র জমিয়তের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাময় !

কয়েকটি কারণে ছাত্র জমিয়তের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাময় !

chatraসাইমুম সাদী: কয়েকটি কারণে ছাত্র জমিয়তের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাময়।(১) কওমি অংগনের প্রায় সবকটি দলের মুল সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম। এজন্য ছাত্র জমিয়ত যেখানেই কাজ করতে যাবে সহযোগিতা পাবে। বাধা পাওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।
(২) শুধু সিলেট বিভাগের এক প্রান্ত থেকে যদি শুরু করেন, অধিকাংশ মাদ্রাসায়ই মুহতামিম সাহেবরা দেওবন্দ মাদ্রাসার ফারিগ। ফারিগ না হলে অনুসারী। সেখানে তাদের কাজের জন্য খুবই অনুকুল পরিবেশ।
(৩) আলেমদের আধিক্য এই মুহুর্তে কোন দলে বেশী? চোখ বন্ধ করে বলা যায় জমিয়তেই বেশী। ইসলামী আন্দোলনের জন্য আলেম খুবই ইমপর্টেন্ট। এই সুযোগটা কাজে লাগাতে পারে ছাত্র জমিয়ত।
(৪) কওমি মাদ্রাসার লোকগুলো আধুনিক শিক্ষা বঞ্চিত কিংবা সার্টিফিকেট এর গুরুত্ব নেই বলে যারা সমালোচনা করেন তারাও একবাক্যে স্বীকার করবেন যে ব্যাক্তি কিংবা মানুষ হিসেবে এদের তুলনা হয়না। এই এক্সট্রা সার্টিফাই যারা ওখানে বেশী কাজ করবে তাদের অনুকুলেই যাবে।
(৫) অনেক আওয়ামীলীগ এর নেতাদের সন্তানদের কাছে অন্যান্য ইসলামী ছাত্র সংগঠনের চেয়ে ছাত্র জমিয়তের যাওয়াত সুযোগটা বেশী। এর কিছু কারণও আছে। এটা একটা বিশেষ সুযোগ।

(৬) ত্যাগ কোরবানীর জন্য আলাদা প্রশিক্ষনের খুব বেশী প্রয়োজন থাকবেনা। কারণ যারা কওমি মাদ্রাসায় ভর্তি হন তারা জেনে বুঝে যান অনেক আগেই যে এই পথ ত্যাগ ও কোরবানির পথ। এখানে দুনিয়াবি খুব বেশী কিছু পাওয়া যাবেনা।

(৭) প্রায় প্রতিটি মাদ্রসায় তাহাজ্জুদের নামাজের রীতি অব্যাহত রয়েছে। কিয়ামুল লাইলের জন্য আগে থেকেই প্রাকটিস থাকে। এটাও গুরুত্বপূর্ণ।

(৮) কলেজ ভার্সিটিতে অন্যান্য দলের তুলনায় আপাতত কাজ অনেকটাই সহজ। অন্যান্য দলের পক্ষ থেকে প্রতিরোধ খুব বেশী থাকবেনা।

এত সম্ভাবনা কাজে লাগাতে গেলে যা করতে হবে –

(এক) একটা সাংগঠনিক সিস্টেম তৈরি করতে হবে এবং তা আমলে নিয়ে আসতে হবে। ছাত্ররা রাজনীতি করবেনা রাজনীতি শিখবে।

দুই।। স্তরভিত্তিক সাংগঠনিক পদ্ধতির প্রাকটিস চালু করতে হবে।

তিন।। জমিয়তের অন্তর্দ্বন্ধ এখানে কোন প্রভাব ফেলবেনা এমন পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। মুরব্বিদের মধ্যে মতভেদ থাকবে কিন্তু ছাত্ররা হবে ঐক্যের প্রেরণা।

চার।। ফেসবুক এক্টিভিজম নিয়ন্ত্রিত হতে হবে। সংগঠন এসব মনিটর করবে।

পাচ।। ছাত্র নেতারা গণ সংগঠনের সকল গ্রুপের সাথে যোগাযোগ রাখবে হেকমতের সাথে। কিন্তু তারা কোন গ্রুপের হবেনা।

ছয়।। প্রচারমুলক কাজ কম করে গঠনমূলক কাজ বেশী করতে হবে।

সাত।। কেন্দ্রের জন্য প্রয়োজনীয় ফান্ড সংগ্রহের দায়িত্ব ছাত্র জমিয়তের সাবেক নেতাদের দিতে হবে। অনেকেই তো কমবেশি আর্থিকভাবে প্রতিষ্ঠিত

শুধুমাত্র তিনটা বছর যদি আপনারা কাজ করতে পারেন দুই হাজার বিশ সালে ছাত্র জমিয়তের ট্রেইন্ড আপ জনশক্তি মাঠে থাকবে কমপক্ষে দশ হাজার।

কোটি কোটি নিরব সমর্থকের চাইতে দশ হাজার প্রশিক্ষিত কর্মী কতটুকু ইফেক্টিভ আশাকরি বুঝতে পারছেন। পারবেন তো? আপনাদের জন্য শুভ কামনা রইল।
লেখাটি-সাইমুম সাদীরি ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে সংগৃহিত

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now