শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » জীবনের ধাপে ধাপে তাকে যেভাবে দেখছি

জীবনের ধাপে ধাপে তাকে যেভাবে দেখছি

mkhan তামীম রায়হান: আমি যখন একটু বড় হচ্ছি ‘বয়সে’, মাসিক মদীনার সাথে পরিচয় তখন থেকে। আমার মা এবং বাবা দুপুরে খাওয়ার পর খুব মনোযোগ দিয়ে তা পড়তেন। আমি তখন আট-নয় বছরের বালক। প্রতিমাসে পত্রিকাটি বাসায় এলে প্রচ্ছদের ছবিখানা দেখে তা তুলে দিতাম মা বাবার হাতে। ব্যস এটুকুই।

আমার বয়স যখন ষোলো-সতের, আমি তখন ফরিদাবাদের ছাত্র। এক শুক্রবারে মুফতী আমিনীর ডাকে ছুটে গিয়েছিলাম বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে। সেদিনই প্রথম মুফতী আমিনীকে কাছ থেকে দেখার গৌরব কপালে জুটলো আমার। আমি বক্তৃতা শোনা বাদ দিয়ে একেবারে তার পেছনে গিয়ে তাকে দেখছিলাম মাথা থেকে পা পর্যন্ত। হঠাৎ কে যেন আমার গা ঘেঁষে সামনের দিকে গেলেন।

একটু পরই তার নাম ঘোষিত হল- ‘এবার বক্তব্য দিবেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান।’ আমি অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে দেখি, আমার গা ঘেঁষে যাওয়া সাদা পাঞ্জাবী আর লুঙ্গী পরা লোকটি- তিনিই যে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। ধীর বাক্যে গম্ভীর স্বরে দেওয়া তার বক্তব্য শুনলাম। আমি আরও কাছে গিয়ে এবার তাকেও দেখতে লাগলাম। অতটুকুন ছোট কিশোর, যদি তিনি মুসাফাহা না করেন, তাই হাত বাড়াইনি সংকোচে। এরপর যখন কুরআন তরজমা বুঝার জন্য তাফসীরে মাআরিফুল কুরআন নিয়ে বসতাম, এক অন্যরকম অনুভব, ‘এটি যার অনুবাদ, আমি যে তাকে দেখেছি খুব কাছ থেকে।’

এরপর লালবাগ মাদ্রাসায়। তখন ডুবে থাকতাম নবধ্বনির স্বপ্ন এবং বাইরে পড়ার কল্পনায়। নবধ্বনি বের করার পর একদিন ইমরান ভাইয়ের সাহস সাথে করে একেবারে গিয়ে হাজির হলাম তার পল্টনের অফিসে। তখন আমি বিশ-একুশের নবীন! তাতে কি যায় আসে!!

ওমা, তিনি আমাদের সাথে মিশে গিয়ে কথা বললেন। চা বিস্কুট দিয়ে আপ্যায়ন করলেন। নবধ্বনি দেখবেন বলে রেখে দিলেন। আহা! এত বড় হয়েও কি উদার প্রাণের মানুষ। সেদিন থেকে আমি সত্যিই ‘অন্যরকম বড় হওয়া’র তাড়না অনুভব করলাম।

নবধ্বনির জন্য ধারাবাহিক উপন্যাস লাগবে। অতটাকা কই যে কাউকে দিয়ে লেখাবো? সোজা গিয়ে হাজির তার কাছে। তিনি বাংলাবাজারে আসতে বললেন এক সকালে। ওখানেও গিয়ে হাজির। তিনি একটি পুরনো ‘মুসলিম জাহান ঈদসংখ্যা’ তুলে দিয়ে এখান থেকে যে কোন উপন্যাস ছাপতে অনুমতি দিলেন। আমি তার টেবিলে তাকিয়ে দেখি, বিশ্বের কত নামী দামী আরব অনারবের পত্রিকা ও ম্যাগাজিন তার নামে আসছে, সৌজন্যকপি আর দুআ চেয়ে পাঠানো কত কত বই। জানালার পাশে বসে তিনি দৈনিকে চোখ বুলাচ্ছিলেন, আর আমি! একবার তার টেবিলের দিকে আরেকবার তার চেহারার দিকে, এই মানুষটি বুঝি এত এত লিখেছেন, এত এত মানুষ তাকে চিনে- এসব অংক কষছিলাম। সেদিনও কিন্তু তার অফিসের রং চা খেয়ে সতেজ হয়ে ফিরেছিলাম।

এরপর থেকে কয়েকবারই গিয়েছিলাম। প্রতিবার তাকে দেখে নিজের ‘তাড়না ও স্বপ্নে’র নবায়ন করেছি মনে মনে। আমি সামান্য হলেও অনুভব করেছি তার দূরদর্শী চিন্তাভাবনা, নতুনদেরকে ভালোবাসার এক অসাধারণ উদারতা, সেইসাথে ইসলামী রাজনীতি ও কওমী মাদরাসা নিয়ে তার ভেতরের দুঃখবোধ ও বেদনা। তিনি বারবার বুঝাতে চাইতেন, ‘সংকীর্ণতা ছেড়ে বেরিয়ে আসতে না পারলে আগামী পঞ্চাশ বছরেও কিছু হবে না এদেশে।’

তার অমর সৃষ্টি মাসিক মদীনা ও মদীনা পাবলিকেশন্স। মদীনা পাবলিকেশন্স এর কত বই যে আমার মায়ের বদৌলতে আমাদের ঘরের শোভা বৃদ্ধি করেছে, আমি তো ছোট থেকে সেসব দেখে ও পড়ে বড় হয়েছি। ‘জীবনের খেলাঘরে’ বইটি যখন পড়েছি, তখন থেকে তাকে যেন আরও নতুন করে চিনেছি। তিনি এ বইয়ে নিঃসঙ্কোচে তার জীবনে চলার পথের ঘটনাগুলো লিখে রেখেছেন, এক নাগাড়ে বইটি শেষ করেছিলাম, আজও মনে আছে। তার জীবন সংগ্রামের শিক্ষা থেকে আমিও তাড়িত হই এ পথ পাড়ি দিতে।

আমার কেন যেন মনে হয়, রাজনীতির এ মারপ্যাচে না গিয়ে তিনি যদি আরও বিস্তৃত হতেন, তিনিই হতেন আমাদের দেশের ‘আবুল হাসান আলী নদভী’। আরববিশ্বে তার যোগাযোগ, তার জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা এবং দেশের সর্বমহলে তার গ্রহণযোগ্যতা আমাদেরকে নিয়ে যেতে পারতো আরো অনেক উচ্চতায়। ব্যর্থতা আমাদের, আমরা তাকে সেভাবে পেতে পারিনি, আমাদের আকুতিগুলো তার কাছে পৌঁছাতে পারিনি। তার অফিস থেকে তাযকিয়া নিয়ে কত শ শ ছাত্ররা আজ আরব অনারবে পড়াশোনা করছে, নিজেদের সাফল্য সাক্ষর রেখে চলেছে- এর সব কৃতিত্ব তো তারই প্রাপ্য। সৌভাগ্য আমার, তার স্বাক্ষরিত তেমনই একটি তাযকিয়া সযতেœ রাখা আছে আমার কাছেও। আল্লাহ তাকে সর্বোত্তম প্রতিদানে ভূষিত করুন, দুনিয়া এবং আখেরাতেও।

আমাদের দেশের ইসলামী সাহিত্য ও সাংবাদিকতা এবং গোটা শিক্ষাব্যবস্থায় আজ যে বিষয়টির বড় অভাব- তা হচ্ছে ‘জ্ঞানের স্বল্পতা’। আমরা অনেকদিন ‘শিক্ষাঙ্গনের ছাত্র’ হিসেবে থাকি, কিন্তু অনেক কিছু পড়িনা। এই সংকীর্ণ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা থেকেই কিন্তু তৈরী হয় ‘সংকীর্ণ মানসিকতা, হীনমন্যতা, কাজের প্রতি অনাগ্রহ এবং পরনির্ভরতা ও হিংসা বিদ্বেষ’।
এ বিচারে একমাত্র মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সর্বোজ্জল ও অসাধারণ এক মনিষী। যার পড়াশোনার ব্যপ্তি বুঝা যায় তার রচিত ও অনূদিত গ্রন্থগুলো থেকে। তার লেখনী ও ভাষা বিচারের দুঃসাহস আমার নেই, আর তা করতে যাওয়া নিছক বেয়াদবীও নয়, বরং ‘বোকাদের ছেলেখেলা।’

আমাদের জাতি ও মানচিত্রের কপালে যে কলংক অমোচনীয় হয়ে আছে, তা হচ্ছে আমরা গুণীকে মূল্যায়ন করতে জানিনা। আহা! আমাদের স্বর্ণোজ্জল মনিষীদেরকে যদি আমরা মাথায় তুলে সারা পৃথিবীকে জানাতে পারতাম, ‘পারলে দেখাও দেখি এমন দু চারজন!’ এমন একজন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান জন্মেছেন যে দেশে- আমি সে দেশের সন্তান। এ গর্বটুকু কখনো আবার ছাইচাপা পড়ে যায়, যখন দেখি, যে দেশ ও ভাষার জন্য রক্ত ঝরেছে মুসলমানদের, সে দেশে আজ ইসলাম ও মুসলমানদের এমন অধঃপতন- করুণাময় কি এবার একটু সুবুদ্ধি আর বোধশক্তি দিবেন?

মাওলানা মুহিউদ্দীন খান’- এদেশের কত দালান কুটিরে যার নাম লেখা আছে পবিত্র কুরআনের অমূল্য তাফসীরের সাথে- তাফসীরে মাআরিফুল কুরআন।’ বাংলা সাহিত্যে এটুকু অবদানের জন্য কি রাষ্ট্র পারতো না তাকে একটি পদক দিয়ে নিজের কৃতজ্ঞতা জানাতে? জাতীয় দৈন্যতার এর চেয়ে আর বড় নজীর কি হতে পারে?

আমার পরম দয়াময়ের কাছে প্রার্থনা, তাকে তুমি আরও দীর্ঘজীবি করো। যে অগণিত লেখক তার হাতে সৃষ্টি হয়েছে, তারা যেন তার কাছ থেকে আরও অনেক কিছু শিখে নিতে পারে, তুমি সে ব্যবস্থা করো। ইয়া রহমান! তোমার রহমতের অফুরন্ত বারিধারায় তাকে সতেজ রেখো, আমাদের এ পঁচাগলা পরিবেশে তার মতো একজন আজ বড় প্রয়োজন। এটুকু মিনতি কেবল তোমার কাছেই হে আল্লাহ!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now