শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » শাপলা ট্রাজেডি: শহীদগণ আমাদের প্রেরণা উৎস

শাপলা ট্রাজেডি: শহীদগণ আমাদের প্রেরণা উৎস

হেফাজতের-শহিদএহসান বিন মুজাহির :

শাহবাগ কেন্দ্রিক নাস্তিক ব্লগারদের নগ্ন আস্ফালন, উন্মাদনা বন্ধ এবং রাসুল ও ইসলাম অবমাননাসহ অব্যাহত কটূক্তির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে হেফাজতে ইসলাম ২০১৩ সালের ৫ মে, রাজধানীতে অবরোধ এবং মতিঝিলের শাপলা চত্বরে অবরোধ পরবর্তী সমাবেশের আহব্বান করে। ইসলাম রা ও রাসুলুল­াহ (সা.) এর ইজ্জত সমুন্নত রাখতে নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী আন্দোলনে হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে জায়নামাজ, মিসওয়াক, তাসবীহ, চিড়া-মুড়ি এবং শুকনো খাবার নিয়ে ঈমানী আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করেছিলেনর দেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মানুষ। হেফাজতের ইসলামের শান্তিপূর্ণ কর্মসুচি অবরোধসহ অবরোধ পরবর্তী কর্মসুচিতে যে নির্মম আক্রমণ চালিয়ে সরকারি বাহিনী তা বাংলাদেষের ইতিহাসো আরো একটি কালো অধ্যায় হিসেবে চিরদিন স্মরণিয় হয়ে থাকবে।
২০১৩ সালের ৫ ও ৬ মে বাংলাদেশের ইতিহাসে  কালো একটি অধ্যায় রচিত হয়েছিল। বাংলার মুসলমানদের জন্য এ দিবসটি অত্যন্ত শোকাবহ দিন। সেদিন অগণিত নবীপ্রেমিক মুসলমানদের রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল মসজিদের নগরী রাজধানীর প্রাণ কেন্দ্র মতিঝিলের শাপলা চত্বরসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকা।
বাংলাদেশের ইতিহাসে কিভাবে এটা চিন্হিত হবে তা বলা খুব মুশকিল।
এ দিবসটি মুল্যায়নের েেত্র যে বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব পাবে সেটি হলো বাংলাদেশের আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখ এবং নিরীহ নবীপ্রেমীকদের আত্মত্যাগ (রক্তদানের) বিষয়টি। একই সাথে বিশেষভাবে বিবেচনায় নেয়া হবে নবীপ্রেমিক মানুষদের উপর বর্তমান সরকারের যৌথ বাহিনীর কর্তৃক ‘সাঁড়াশী অভিযান’ তথা পৈশাচিক নির্যাতনের বিষয়টিও। বমান নিবন্ধে ‘শাপলা ট্রাজেডির’ সবদিক নিয়ে আলোকপাতের প্রয়াস চালানো হলো।
কেন এই অবরোধ: সংবিধানে আল­াহপর ওপর আস্তা ও বিশ্বাসের নীতি ফিরিয়ে আনা, ধর্ম অবমাননাকারীদের মৃত্যুদন্ডের বিধান করে আইন প্রণয়ন ও নাস্তিক ব্লগারদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তিসহ ১৩ দফা দাবি আদায়ে হেফাজতে ইসলাম তার ধারাবাহিক কর্মসুচির অংশ হিসেবে ২০১৩ সালের ৫ মে, ঢাকা অবরোধ ও সমাবেশ কর্মসুচি পালন করেছিলো। এতে দেশের নবীপ্রেমিক লাখ-লাখ মানুষ নবীপ্রেমে উদ্ধুদ্ধ হয়ে নবীর শানে রেসালাতকে সুমন্নত রাখতে সীমাহীন ত্যাগের বদৌলতে  প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ঢাকায় এসে জমায়েত হন।
শান্তিপূর্ণ অবরোধ রক্তপাতের সুত্রপাত: অবরোধ কর্মসূচিতে শরীক হতে দুই-একদিন আগ থেকেই অধিকাংশ হেফাজতকর্মীরা ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় এসে অবস্থান শুরু করেন। অবরোধের দিন ফজরের নামাজ শেষে পূর্বঘোষিত কর্মসুচিতে অংশ নিতে ঠাকার রাস্তায় নেমে আসেন অগণিত নবীপ্রেমিক তাওহিদী জনতা। নির্ধারিত ছয়টি প্রবেশদ্বারে হেফাজতে ইসলামের  নেতাকর্মী ও সমর্তকরা জমায়েত হন। সুর্যোদয়ের আগেই রাজধানীর ছয়টি পয়েন্টের প্রতিটি পয়েন্টেই লাখো জনতার ঢল নামে। ‘নারায়ে তাকীর, আল­াহু আকবার, ওমুরতাদদের ফাঁসি চাই ইত্যাদি স্লোগানে আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত করে তুলেন।নবীপ্রেমিক মুসলি­রা। সময়ের সাথে সাথে বাড়তে থাকে জনতার স্রোত। লাখো জনতার উন্মাতাল স্রোত থেকে গগনবিদারী স্লোগানে প্রকম্পিত হতে থাকে ও রাজধানীর প্রবেশমুখগুলো। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে ধর্মপ্রাণ মানুষের উপস্থিতিও। দুপর থেকে গুলিস্তান-পল্টন এলাকায় আওয়ামী লীগ ও পুলিশের বাঁধা, গুলিবর্ষণের ফলে বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে হেফাজতকর্মীরা শাপলা চত্বরে আসতে বাধাপ্রাপ্ত হন। সকাল থেকে সমাবেশে আসার পথে মিছিলে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের বাধা দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বায়তুল মোকাররম, পল্টন, বিজয়নগর এলাকায় সংঘর্ষ হয়। পরে সংঘর্ষ আশপাশের অনেক এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।
রাজধানীবাসীর মেহমানদারী: রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ইসলামপ্রিয় জনতা খাবার ও পানীসহ বিভিন্ন খাবার সামগ্রী দিয়ে আপ্যায়ন করান ঢাকায় আগত নবীপ্রেমিক  মেহমানদের। রাজধানীবাসীর ঢাকায় আগত মেহমান হেফাজতকর্মীদের জন্য কলা, তরমুজ, শসা, শরবত ও পানি বিলিয়েই যাচ্ছেন আন্তরিকভাবে। হেফাজতকর্মীরা ওই খাবার সবার মধ্যে বিলিয়ে দেন। এমনকি পথচারীরাও বাদ যাননি। পুলিশ সদস্যদের রুটি কলা পানি দিয়ে সৌহার্দ্যরে নজির দেখান  হেফাজত কর্মীরাও।
হেফাজতের কর্মসুচি: হেফাজতে ইসলামের নেতাদের ঘোষণা ছিল অবরোধ কর্মসুচিকালে বেলা ২টার পর মতিঝিল বা শাপলা চত্বরে সমাবেশ করবেন তারা। সে ঘোষণা অনুসারে ছয়টি পয়েন্টে অবরোধের পাশাপাশি মিছিলসহকারে খন্ড খন্ড মিছিল যেতে থাকে বায়তুল মোকাররম মসজিদ ও মতিঝিল শাপলঅ চত্বরের অভিমুখে। বেলা ১১টার দিকে বিভিন্ন পয়েন্টে হেফাজতের মিছিলে হামরঅ চালায় আওয়ামীলীগ ও পুলিশ। এরকমই একটি মিছিল পল্টন এলাকায় পৌছলে আওমী লীগের নেতাকর্মীরা লাঠি হাতে চালায় তাদের ওপর। হেফাজতের নেতাকর্মীরা পাল্টা ধাওয়া করলে গুলি চালায় পুলিশ। পুলিশের গুলি ও টিয়ার শেল এবং হেফাজতের ইটপাটকেল নিেেপ পল্টন, বায়তুল মোকাররম, দৈনিক বাংলা মোড়, প্রেসকাব এলাকা রণেেত্র পরিণত হয়। অন্য দিকে গুলিস্তান, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, নবাবপুর রোডসহ সংলগ্ন এলাকায় লাঠিসোটা নিয়ে মুসলি­দের ওপর হামলা চালায় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকমর্মী। কিন্তু নবীপ্রমিকদের মতিঝিলি সমাবেশের দিকে এগিয়ে যাওয়াকে থামাতে পারেনি কোন কিছুই। দুপরের আগেই শাহাদদতের খবর পাওয়া গেল অন্তত সাতজন হেফাজত কর্মীর। আহত হন অগণিত মুসলি­। নিরস্ত্র মুসলি­দের উপর বর্বও হামলা অব্যাতভাবে চলতেই থাকলো। হেফাজতের অবরোধ কর্মসূচির দ’ুদিন আগে সরকার সন্ধা ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশের জন্য অনুমতি প্রদান করে। হেফাজতে ইসলামের অবরোধ সমাবেশ শান্তিপূর্ণ হলে বাধা না দেয়ার প্রতিশ্র“তি দেয়া হয়েছিল সরকারের প থেকে!
সকালের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান অবরোধে রক্তপাতের ঘটনার সুত্রপাত ঘটালো আওয়ীমী লীগে ও পুলিশ। সমাবেশ শান্তিপূর্ণই চলছিলো। কিন্তু সমাবেশের আসার পথে হেফাজতের মিছিলকারীদের ওপর আওয়ামী লীগ ক্যাডার ও পুলিশ বাহিনীর নজিরবিহীন বর্বও নির্যাতন চালায়। এভাবেই সুচনা হয় উত্তেজনা সংঘর্ষের। হেফাজতের নিরীহ,নিরস্ত্র কর্মীদের ওপর সন্ত্রাসী ও পুলিশী অ্যকশন নয়, পলিশের সহযোগীতায় আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা রাজধানীর মতিঝিল, বায়তুল মোকাররমসহ বিভিন্ন স্থানে কুরআন পুড়িছে, স্থানীয় ব্যবসায়ীদের দোকানপাটহ, ভবন ও গাড়িতে অগ্নি সংযোগের মত ঘৃণ্যিত কাজ করেছে! যার চিত্র পরদিন বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ হয়েছে।
এদিকে শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের শান্তিপূণ ও সূশৃঙ্খলভাবে সমাবেশ কর্মসুচি চলত থাকে। দুপুরে আমীরে হেফাজতে ইসলাম শায়খুল হাদিস আল­ামা শাহ মুফতি আহমদ শফি সমাবেশে যোগ দেয়ার জন্য লালবাগ মাদরাসা থেকে প্রাইভেট গাড়িযোগে রওয়ানা হলে কিছু সময় আসার পরই তাকে বহনকারী পাজেরো গাড়িবহরে হামলা চালায় ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা। অবস্থা পর্যবেণ করে পুলিশ নিরাপত্তার জন্য আল­ামা শফীকে সমাবেশ স্থলে  ডেতে  দেয়নি। ফিরিয়ে আবার দেয় আবার লালবাগে। যার কারণে তিনি সমাবেশস্থলে পৌছাতে পারেননি। পড়ন্ত বিকেলে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল­ামা জুনাইদ আহমদ বাবুনগরী মাইকের সামনে এসে ঘোষণা করলেন আমাদের আমীর আল­ামা আহমদ শফী না আসা পর্যন্ত আমরা এখানেই অবস্থান করবো। আমীরর এসে যে কর্মসুচি ঘোষণা করবেন তা নিয়ে আমরা ঘরে ফিরবো। ঘোষাণা শুনে উপস্থিত সবাই সমাবেশ স্থলেই রাত যাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এছাড়া দিনের বেলা যখন ঢাকার বিভিন্ন স্থানে নিরস্ত্র কর্মীদের ওপর যুবলীগ ছাত্রলীগ ও পুলিশের দিনভর সংঘাত সংঘর্ষ চলছিলো এদিকটি ল্য রেখে এবং আল­ামা শফি না যাওয়ার দিক বিবেচনা করে সমাবেশ থেকে হেফাজতে ইসলামের প থেকে শাপলা চত্বরে রাত যাপনের সিদ্ধান্ত দেয়া হয়।
রাত্রের ঘটনা: কান্ত-শ্রান্ত  মুসলি­গণ রাত এগারোটার পর থেকে বিশ্রাম নেয়া শুরু করেছেন। তখন রাত প্রায় আড়াইটা। অনেকেই ঘুমন্ত। দুর-দুরান্ত থেকে ঢাকায় আসা সারাদিনের আন্দোলনমূখর নবীপ্রেমিক মানুষগণ তখন ছিলে ঘুমন্ত। অনেকেই আবার  নামাজ ও জিকির-আজকার, তিলাওয়াতে কুরআন, তাসবিহ-তাহলিলেও ছিলো মশগুল। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পাল্টাতে লাগলো সব কিছু। রাত বারোটার পর হঠাৎ করেই সমাবেশস্থলসহ মতিঝিলের আশপাশ এলাকা থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হলো। সমাবেশস্থল থেকে সংবাদ কর্মীদের জোর করে বের করে দেয়া হলো। টিভি চ্যানেলের লাইভ স¤প্রচার বন্ধ করে দেয়া হলো। বিশেষ করে দিগন্ত টিভি ও ইসলামিক টিভি চ্যানেলের স¤প্রচার কার্যক্রম বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হলো। মধ্যরাত্রের পর মসজিদের শহর ঢাকার মতিঝিলের শাপলা চত্বরে ঈমান রার দাবীতে আসা লাখ লাখ নিরস্ত্র, নবীপ্রেমিকদের উপর নির্মম বিপর্যয় নেমো এলো। এরপর শুরু হলো শাপলা চত্বরে শান্তিপূর্ণ অবস্থানরন ল ল নিরীহ মুসলি­দের উপর সরকারের যৌথ বাহিনীর নারকীয় হত্যাযজ্ঞ ! সারাদিনের কান্ত ঘুমন্ত হেফাজত কর্মীদের উপর বর্বর যৌথ বাহিনী নির্মম নির্যাতন চালালো। জলকামান, কাঁদানো গ্যাস, হাজার হাজার রাউন্ড গুলি, টিয়ার শেল, সাউন্ড গ্রেনেডে পুরো এলাকা প্রক¤িপ্রত হয়ে ওঠে। তাদের এ অভিযানে অগণিত নিরীহ মুসলি­ শাহাদতের অমীয় পেয়ালা পান করেন! অজ্ঞাতসংখক লোক হতাহত হন! আজীবনের জন্য পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন অসংখ্য ধর্মপ্রেমিক মানুষ। তবে ৫ ও ৬ মে যৌথ বাহিনীর অভিযানে কেউ নিহত হননি বলে মন্তব্য করেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী! তিনি বলেন, ‘শাপলায় কেউ মারা যায়নি, রক্ত ঝরেনি। হুজুররা গায়ে রঙ মেখে রাস্তায় শুয়ে অভিনয় করেছিলেন”! এদিকে ডিএমপির ভারপ্রাপ্ত কমিশনার সংবাদ সম্মেলন করে হুমকি দিলেন, ‘শাপলা চত্বরে হেফাজতের কোন কর্মী নিহত হয়েছে এমন অপপ্রচার চালালে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে’!
শাপলা চত্বরে যৌথ বাহিনীর সাঁড়াশী অভিযানে সরকারের তরফ থেকে পুলিশ প্রথমে বলেছিলেন নিহত ৪ জন এবং পরবর্তীতে ১১ জন নিহত হয়েছে স্বীকার করেছেন।  পান্তরে হেফাজতে ইসলামের তরফ থেকে দাবি করা হয়েছে নিহত ৩ সহস্রাধিক এবং আহত পনেরো সহস্রাধিক। হিউম্যান রাইটস নিহতের সংখ্য ২৫০০ এর বেশি হতে পারে বলে জানিয়েছে। ইতিহাসের নৃশংস হত্যাযজ্ঞের লাশও গুম করে ফেলার অভিযোগ করেছে হেফাজতে ইসলাম।  হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, রাতের অন্ধকারে নগর পরিচ্ছন্নকারী গাড়িতে করে নদীতে নিয়ে নিহতের লাশ লুকিয়ে ফেলেছে সরকার। এখন জানার বিষয়! হাজার মানুষের রক্ত ধুয়ে ফেলার প্রয়োজন না হলে সুর্য ওঠার আগেই কেন দমকলের পানি দিয়ে শাপলা চত্বর ভাসিয়ে দেয়া হলো?  কেন এক দেশে চলবে দুই নীতি?  বাংলাদেশ সবচেয় বড় দুটি হাসপাতালের সামনে তথাকথিত ‘গণজাগরণ মঞ্চের নেতাকর্মীরা রাজপথ দখল করে টানা তিন মাস রাষ্ট্রীয় আইন আদলতের বিরুদ্ধে স্লাগান তুললো! তরুণ-তরুণীরা মিলে-মিশে নাচ-গান করলো, অশ্লীল কর্মকান্ড করলো, মদপানসহ বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ড করলো, ইসলাম ও নবী নিয়ে কটুক্তি করলো অথচ তাদের সরকার সমাদর করলো! তাদেও উপর কোন বাঁধা আসলো না, আক্রমণ করা হলো না! এর কারণ কি?  অন্যদিক ঈমানী দাবি আদায়ের আন্দোলনে নিরীহ আলেম-ওলামা ও নবীপ্রেমিক সাধারণ মুসলি­দের উপর পুলিশ গুলি চালালো! সরকার যৌথ বাহিনী দিয়ে তাদের উপর আক্রমণ চালালো!  সরকার একটি রাতের জন্যও তাদের অবস্থান করতে দিল না!  সংক্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশে ইসলাম ও নবীপ্রেমিক জনতার কি কোন প্রতিবাদের অধিকার নেই?  আলেম-ওলামা, হেফাঝতে ইসলামের  নেতা-কর্মী, সমর্থকরা কি এদেশের নাগরিক নয়? শুধু কি ‘গণজাগরণ মঞ্চের শাহবাগিরাই এদেশের নাগরিক, প্রতিবাদের অধিকার কি শুধু তাদেরই আছে? ইসলাম ও আলেম-ওলামা বিদ্বেষী হওয়ার কারণে সরকার খোদাদ্রোহী, নাস্তিক মুরতাদদের দোসর হিসেবে তাদের নুসরত করেছে! ইসলাম ও আলেম-ওলামা বিদ্বেষী হওয়ার কারণে ইসলাম প্রিয় জনতাদের উপর স্মরণকালের বর্বরতগণহত্যা চালিয়েছে!
৬ মের কালো রাতের দগদগে ত এখনো এদেশের কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ে রক্তরণ ঘটাচ্ছে। পঙ্গুত্ব হয়ে এখনো বিছানায় কাতরাচ্ছেন অসংক্য ইসলামপ্রিয় মানুষ। শাপলা চত্বরের শাহাদতবরণকারীদের আত্মদান যুগ যুগ ধরে ঈমানপ্রেমিক মানুষের হৃদয়ে নতুন বালাকোট হয়ে নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী আন্দোলনে নিয়োজিত কর্মীদের অনুপ্রেরণাকে আরো শানিত করবে।
আরেকটি বিষয় স্মরণ রাখা দরকার! সৈয়দ আহমদ শহীদের অমর স্মৃতিবিজড়িত দিনটি ছিল ৬ মে। ঐতিহাসিক বালাকোট আন্দোলন আমাদের  প্রেরণা হয়ে থাকবে যুগ যুগ ধরে। ঠিক ৬ মের অগণিত নবীপ্রেমিকদের শাহাদত ও বেদনাবিধুর স্মৃতি নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী আন্দোলনে আমাদের প্রেরণা উৎস হয়ে থাকবে যুগ যুগ ধরে।
শাপলা চত্বরের শহীদগণ কতই-না সৌভাগ্যমান। তাদের ব্যাপরে আল­াহপাক ইরশাদ করেন, ‘আল­াহর পথে যারা নিহত হয় তাদেরকে মৃত বলো না, বরং তারাই জীবিত, কিন্ত তোমরা তা উপলব্ধি করতে পার না’। (-সূরা বাকারা : ১৫৪)
জীবন-মৃত্যুর মালিক আল­াহ এবং মৃত্যুর ফয়সালা আসমানে হয়, জমিনে নয়। আল­াহ ইরশাদ করেন, কোন আত্মার মৃত্যু হয় না আল­াহর নির্দেশ ছাড়া যা তার জন্য লিপিবদ্ধ। (সূরা আলে ইমরান : ১৪৫)
নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী আন্দোলনে শহীদগণ আমাদের অনুপ্রেরণা  যোগায় যুগ-যুগান্তরে। পথ চলতে চলতে যখন নানা মোহ ভীতি আশঙ্কা আমাদের পথ আগলে দেয় তখন হৃদয়ের মাঝে অমর হয়ে থাকা মঞীদ ভাইদের স্মৃতি আমাদের মনে আশার আলো জ্বাালায়।
৬ মে কালোর রাত্রিতে একদল রক্তপিপাসুর কী পরিমাণ রক্তের প্রয়োজন ছিলো তা হয়তো কারোর জানা ছিল না। ফলে তাদের পিপাসা নীবারণ পরিমাণ রক্ত তারা পান করলো। ৫মে দিনে এবং ৬ মে রাত্রিতে আজানের শহর ঢাকা রক্তে রক্তে রঞ্জিত হলো। এহন বর্বর নির্মমতার চিত্র দেশ ও আর্ন্তজাতিক মিডিয়ায়ও  প্রকাশ পেয়েছে। এমন নৃসংশতা ২৫ মার্চেও কালো রাতকেও হার মানিয়েছে। ইতিহাসের বর্বরোচিত গণহত্যা সে দিন ঘটেছিলো। এমন মর্মান্তিক লোমহর্ষক ও বর্বরোচিত এই গণহত্যার ঘটনা বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয়টি অতীতে ঘটেনি। ৫ ও ৬ মের গণহত্যায় হেফাজতে ইসলামের অগণিত কর্মী ও সমর্থক শাহাদতের ‘শারাবান তাহুরা ’পান করেছেন। হেফাজতে ইসলামের অবস্থান কর্মসুচিতে মধ্যরাতের দমন-নিপীড়নের মাধ্যমে যে বর্বর কাপুরুষতা প্রদর্শন করা হয়েছে তার জন্য খুনি এবং খুনের হুকমুদাতা ও এ কাজে সহযোগীতা কারীসহ সম্পৃক্ত সকলকে হাশরের ময়দানে আল­াহপাকের কাঠগড়ায়  কড়া-গন্ডায় হিসেব দিতে হবে! এমনকি জাতিও এই সরকারকে কখনও মা করবে না। শাপলা চত্বরের সকল শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং তাদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবদেনা প্রকাশ করছি। আল­াহপাক তাদের শাহাদতের মর্যাদা দান করে জান্নাতের সুউচ্চ মাকামে সমাসীন করুন এবং শহীদদদের খুনের বদলা এই জমিনে আল­াহর শাসন কায়েম করুন।
লেখক: সাংবাদিক ও কলামিস্ট –

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now