শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » ইসলামভীতির অপপ্রচারও ঠেকাতে পারেনি সাদিককে

ইসলামভীতির অপপ্রচারও ঠেকাতে পারেনি সাদিককে

2016_05_08_16_41_50_sD4VDrBZ0sfrtP8RPyJ8VRRMX4mp6h_originalডেস্ক রিপোর্ট:
শুধু লন্ডন নয়, পুরো ইউরোপের ইতিহাসে প্রথম কোনো মুসলিম মেয়র হিসেবে শপথ নিলেন পাকিস্তান বংশোদ্ভূত সাদিক খান। তার এ বিজয়টি নানা দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ। টানা আট বছর ধরে লন্ডন শহরের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন যুক্তরাজ্যের রক্ষণশীল দলের বরিস জনসন।

স্কটল্যান্ডে পরাজয়য়ের পর থেকেই রাজনীতিতে খুব একটা ভালো অবস্থান যাচ্ছিল না লেবার পার্টির। এই মুহূর্তে সাদিক খানের এই বিজয়ে বড় ধরনের স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারলো তার দল। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে- সাদিক খানের বিরুদ্ধে সব উগ্রবাদীতা আর ধর্মান্ধতার প্রচারণা উপেক্ষা করা। শরণার্থীদের ইউরোপে আশ্রয় দেয়ার ব্যাপারেও শক্ত অবস্থান ছিল সাদিকের।

আরো পড়ুন: বাসচালকের ছেলে থেকে লন্ডনের মেয়র

নির্বাচনী প্রচারণার সময়ে সাদিক খানের বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদ ও চরমপন্থার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ এনেছেন কনজারভেটিভ দলের প্রায় সবাই। এমনকি পিছিয়ে ছিলেন না ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনও। সাদিক খান জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সঙ্গে জড়িত- এমন অভিযোগও এনেছিলেন ক্যামরেন।

পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলোও স্বাভাবিকভাবে নেয়নি সাদিক খানকে। সুযোগ পেলে তাদের অনেকেই রক্ষণশীলদের প্রচারণা উস্কে দিয়েছে। কাজ হয়নি কোনো কিছুতেই। নিজদের সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের সুনামটিই শেষ পর্যন্ত ধরে রেখেছে লন্ডনের বাসিন্দারা। ইসলামভীতির সব অপপ্রচার উপেক্ষা করেই সাদিক খানকে ভোট দিয়েছেন তারা। লন্ডনের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ ভোট পেয়ে শহরটির মেয়র হয়েছেন পাকিস্তানী এক বাস চালকের এই ছেলে।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রক্ষণশীল দলের জ্যাক গোল্ডস্মিথের চেয়ে ১৩.৬ শতাংশ বেশি ভোট পেয়েছেন সাদিক খান। নির্বাচিত হয়ে সাদিক খান নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ‘নির্বাচনকে ঘিরে অনেক বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। কিন্তু লন্ডনবাসী আমার ওপর আস্থা রেখেছে। এজন্য আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

সাদিক খানের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে পিছিয়ে ছিলেন না ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইকেল ফ্যালনও। জঙ্গিবাদে জড়িত থাকার অভিযোগ এনেছিলেন তিনিও। নির্বাচনী প্রচারণায় কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী গোল্ডস্মিথ তাকে ‘চরমপন্থি মুসলিম’ হিসেবে চিহ্ণিত করার চেষ্ট করলেও সাদিক খান একসময় কট্টরপন্থী মুসলিমদের হামলার শিকার হয়েছিলেন। ব্রাডফোর্ড মসজিদের এক ইমাম তাকে ‘মুরতাদ’ ঘোষণা করে ফতোয়া দিয়েছিলেন। হত্যার হুমকিও দেয়া হয়েছিল তাকে।

আরো পড়ুন: ব্রিটেনের প্রথম যুগের মুসলিমরা

সাদিক খানের বিরুদ্ধে প্রচারণাটা ছিল অনেকটা ডোনাল্ড ট্রাম্প স্টাইলে। ট্রাম্পের মতোই উগ্র জাতীয়তা আর ইসলামভীতিকে সাদিক খানের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে চেয়েছিল রক্ষণশীলদের দল কনজারভেটিভ পার্টি। শনিবার শপথ গ্রহণের পর মার্কিন রিপাবলিকান দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ট ট্রাম্পের ‘প্লেবুক স্টাইলে’ তার ওপর বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের আক্রমণের নিন্দা জানিয়েছেন সাদিক খান।

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য ডেইলি অবজারভারকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সাদিক বলেন, ‘নির্বাচনের সময় ক্যামেরনের কনজারভেটিভ পার্টি বিভিন্ন উপজাতি ও ধর্মীয় দলগুলোকে একে অপরের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেয়, যা প্রচারণায় ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্লেবুক স্টাইলের নামান্তর।’

এর আগে শনিবার লন্ডন সিটি নির্বাচনে ঐতিহাসিক জয় পান ৪৫ বছরের সাদিক খান। তিনি প্রথম মুসলিম ও এশীয় হিসেবে লন্ডনের মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। গোটা ইউরোপেরও প্রথম মুসলিম মেয়র তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই রাজনীতি ও মানবতাবাদী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সাদিক খান। ছিমছাম মানুষটির উদার নীতি, স্বচ্ছ ব্যক্তিত্ব এবং কর্মস্পৃহাই তাকে রাজনীতিতে সফল হতে সহায়তা করেছে।

বাংলামেইল২৪ডটকম

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now