শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » একজন মজলুম মাওলানা শিব্বির আহমদের কথা

একজন মজলুম মাওলানা শিব্বির আহমদের কথা

s10-5::মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: সত্যিই তিনি আজ মজলুম,বহুমুখী ষড়যন্ত্রের কবলে মাওলানা শিব্বির আহমদ । জন্ম ১৯৭৩ সালে । পিতা প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা শায়খ আশ্রাফ আলী বিশ্বনাথী (র)। ১৯৮৪ সালে স্বীয় পিতা প্রতিষ্ঠিত জামেয়া মাদানীয়া বিশ্বনাথ থেকে আজাদ দীনী শিক্ষাবোর্ডের অধিনে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন।  কওমী শিক্ষার পাশাপাশী জেনারেল শিক্ষায় ও তিনি ডিগ্রী অর্জন করেন। সিলেট সরকারী আলিয়া থেকে ১৯৯৮ সালে কামিল, মদন মোহন কলেজ থেকে বি এ এবং ঢাকা আবুজর গেফারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৯ সালে মার্স্টাস করেন। ২০০৫ সালে পিতার ইন্তেকালের পর হাল ধরেন জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানীয়া বিশ্বনাথ এর। প্রথমে সহকারী শিক্ষক এর পরে ভাইস প্রিন্সিপাল ৪ বছর অতপরমিাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি তার উপর প্রিন্সিপালের দায়িত্ব অর্পন করেন। ২০০৬ সালে পবিত্র হজ্বব্রত পালন করেন। পারিবারিক জীবনে তিনি বর্তমানে ১ কন্যা ও ২ ছেলে সন্তানের জনক।
জমিয়তে উলামাযে ইসলাম বাঙলাদেশের সাবেক সভাপতি আল্লামা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র) ইন্তেকালের পরে মরহুমের ৩য় সন্তান হিসেবে পরিবার ও জামেয়ার হালধরেন মাওলানা শিব্বির আহমদ। জামেয়ার প্রিন্সিপালের পাশাপাশি মাসিক আল-ফারুক পত্রিকাটির ও সম্পাদনার দায়িত্ব তার উপর অর্পন করা হয়।
এক দিকে প্রতিষ্ঠান অপর দিকে মাসিক পত্রিকা,সামাজিক অবস্থান-মর্যাদার দিকদিযে মাওলানা শিব্বির আহমদ পিতার ঐতিহ্যধারাকে সমুন্বত রেখেই পরিবারসহ সর্বদিক দিযেই অনেকটাই সুচারুরুপে দিন গুজরান করছিলেন। কিন্তু কতিপয় কুচক্রী মহলের শ্যানদৃষ্টি পড়ে তার উপর। অপর দিকে অল্প দিনেই জামেয়া মাদানীয়ার পুরুষ-মহিলা উভয় শাখা শিক্ষাগত ও অবকাঠামোগত মানউন্নয়নের দিক দিয়ে সকলের নজর কাড়তে সক্ষম হওয়ায় তিনি রোষানলে পরেন বিশেষ মহলের। কিছু দিন থেকেই ঐতিহ্যবাহী সম্ভা্রন্ত্র এই পরিবারের চরিত্রহনন ও জামেয়ার উন্নতি-অগ্রগতি ব্যাহত করতেই দুষ্টচক্রটি পিছু নেয় মাওলানা শিব্বির আহমদ ও তার পরিবারের। মাদ্রাসা ও পরিবারের প্রায় শতবর্ষের ঐতিহ্যকে বিলীন করতেই ওরা নানা ফন্দিআটেঁ । এক পর্যায়ে নিজ সন্তান সমবয়সী জামেয়ার ছাত্র সালমানকে রাতের আধাঁতে খুন করে ফেলে যায় র্দুবৃত্ত চক্র। আর এই সালমান হত্যাকান্ডকে পুজিঁকরেই ঐদুষ্টচক্রটি জামেয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বির আহমদসহ জামেয়ার ছাত্র-শিক্ষকদের হয়রানী শুরু করে।  ষড়যন্ত্রের জালবিস্তারঘটিয়ে সালমান হত্যাকান্ডের সাথে মাদ্রাসা ও তার পরিবারকে কলুষিত করার মহাপরিকল্পনা শুরু! সেই পরিকল্পনাতেই র্দীঘ সাড়ে তিন মাস কারাবরণ করেন মাওলানা শিব্বির আহমদ।
অঞ্জাত খুনীদের হাতে নিহত মাদ্রাসা ছাত্র সালমানের মায়ের দায়ের করা মামলায় শুধূ মাত্র সন্ধেহ মুলক আসামী (দেখিয়ে) গ্রেফতার করা হয় মাওলানা শিব্বিরকে।
গত ১৭ জানুয়ারী ২০১৬ সন্ধায় চা-য়ের দাওয়াত দিযে বিশ্বনাথ থানায় নিয়ে রাতভর নির্যাতন চালিযে পরের দিন কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
সেই থেকে বিনা অপরাধেই দীর্ঘপ্রায় সাড়ে তিন মাস কারাভোগের পর গত ২ মে জামিনে মুক্তিপান।
১০ মে সন্ধ্যায় একান্ত আলাপচারিতায় অশ্রুসিক্ত নযনে মাওলানা শিব্বির আহমদ বলেন, মানুষ এতো পরশ্রীকাতর হতে পারে, এতো র্নিমম হতে পারে ,এতো মিথ্যাচারের আশ্রয় নিতে পারে এটা ভাবতেও কষ্টহয়। জীবনে  জেনে শুনে কারো এমন ক্ষতি করিনি কিন্তু দু:খ জনক হলেও সত্য যে, আমাকে অহেতুক ভাবে মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। সালমান আমার সন্তানের মতো ওকে যারাই ,যে উদ্দেশ্যেই খুন করুক আমি এর কিছুই জানিনা।’ আমি ত্বাকদীরের উপর বিশ্বাস রাখি-সত্যের বিজয় হবে ইনশা আল্লাহ।  যারাই ষড়যন্ত্রমুলক আমাকে এবং আমার পরিবার,মাদ্রাসাকে অহেতুক হয়রানীর উদ্দেশ্যে এসব করেছেন আমি তাদের ব্যাপারে কিছুই বলবোনা, প্রকৃত বিচারের মালিক মহান আল্লাহর আদালতেই এর সঠিক বিচার কামনা করছি। এক প্রশ্নের জবাবে মাওলানা শিব্বির আহমদ বলেন, মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে চিহ্নিত একটি মহল নানা অপপ্রচারে লিপ্ত হযেছে। ওরা সালমান হত্যকান্ডকে ভিন্নখ্যাতে প্রবাহিত করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। তবে আমার বিশ্বাস সত্যের জয় হবেই ইনশাআল্লাহ। জুলুম নির্যাতন করে জোরপুর্বক খুনেরদায় স্বীকার করিয়ে ( স্বীকারোক্তি নিয়ে) দুনিয়াতে পারপেলেও পরকালেতো আমি সঠিক বিচার পাবো-অন্তত এই আশা তো করতে পারি!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now