শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » র্শীর্ষ আলেমদের সর্মথন আদায়ে মওদুদির আক্বিদা পরিহার করবে জামায়াত !

র্শীর্ষ আলেমদের সর্মথন আদায়ে মওদুদির আক্বিদা পরিহার করবে জামায়াত !

imagesবিশেষ প্রতিবেদন:  মতিউর রহমান নিজামীসহ জামায়াতের র্শীষ কয়েক নেতার ফাসিঁর পর বাংলাদেশের র্শীষ আলেম=উলামাদের নীরবতায় ক্ষুভপ্রকাশ করেছেন, দেলাওয়ার হোসাইন সাইদীর ছেলে ফেসবুকে  Masood Sayedee- মাসুদ সাঈদী গতকাল নিজামী সাহেবের ফাঁসি কার্যকরের প্রাক্ষালে তার পেইজে কটি ছোট্ট স্টেটাস লেখেন। তার এই লেখাকে কেন্দ্রকরে ফেসবুকে নানা জনে নানা মন্তব্য করেছেন। কেউ কেউ মওদুদির আক্বিদা বিশ্বাস পরিহারের ও আহবান জানিযেছেন। কারো কারো মতে , জামায়াত-যদি এখনো মওদুদিবাদ আক্বিদা পরিহার করার ঘোষণা দেয় তাহলে দেশের র্শীষ আলেম-উলামাগন তাদের পক্ষে অবস্থান নিবেন এমন প্রস্তাবনা ও করেছেন অনেকেই। জামায়াত-শিবির এমনটি করবে কী?  এমনই একটি পোষ্ট দিয়েছেন Abu Raiyan নামের একজন। সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য পোষ্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো :
এই লেখাটি জামাত-শিবিরের ভাইদের
উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করলাম!!!
সাঈদীপুত্র জনাব Masood Sayedee-
মাসুদ সাঈদী গতকাল নিজামী সাহেবের
ফাঁসি কার্যকরের প্রাক্ষালে তার পেইজে
একটি ছোট্ট স্টেটাস লেখেন। তা এই-
“একজন নিরাপরাধ বয়োবৃদ্ধ আলেমকে
হত্যার উৎসব দেখে যে সকল আলেম
বোবা হয়ে আছেন….
আল্লাহ তাদেরকে চিরকালের জন্যে বোবা
করে দিন। আমিন।”
সেই সাথে দেওবন্দের অনুসারী অনেক ভাই
নানা স্টেটাস এবং কমেন্টের মাধ্যমে যার
পর নেই তাদের দু:খে দু:খিত এবং ক্ষুব্দ।
আমিও ব্যক্তিগতভাবে যার পর নেই মর্মাহত।
আমরা মাসুদ সাঈদী সাহেবকে বলবো
দেওবন্দী উলামায়ে কেরাম এতো বড়
ঘটনার পরও আপনার ভাষায় কেনো বোবা
হয়ে রইলেন?কী এর কারণের কারণ বা
পেছনের কারণ??
তা কী কখনো খতিয়ে দেখছেন??
দেখতে হলে লেখাটি মন দিয়ে পড়ুন।
লেখাটি গত ১২ মার্চে প্রদত্ব হয়েছিল। কিন্তু
নিজামী সাহেবের ফাঁসি কার্যকরের পর,এর
আবেদন আরো বেরে গেছে মনে করি।
তাই জামাত-শিবিরের ভাইদের প্রতি লেখাটি উৎসর্গ করত:পূণ:প্রকাশ করা হলো। আমার বিশ্বাস,আমি নগণ্য দেওবন্দীদের মনের কথাটি ব্যক্ত করতে
স্বক্ষম হয়েছি।
বাকী বিচারের ভারাভার পাঠকবৃন্দের উপর রইলো।
ধন্যবাদ সবাইকে।
বন্দুরা!!
শিরুনামটি না হয় আপনারাই দিবেন!!!
“রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম” দেশের সংবিধান থেকে ডিলেট করার মহড়া গ্রীণরুমে সমাধা!
এখন শুধু মঞ্চায়িত হওয়ার পালা!! জামাত নেতা সর্বজনাব কাদের মোল্লা, কামরুজ্জামান এবং মুজাহিদ সাহেবের ফাঁসি হলো!
আপনারা নীরব!!
কেনো?
এবার পালা নিজামী সাহেবের!
আয়োজন চলছে জনাব মীর কাশেম আলীরও! ভাগ্যক্রমে বেঁচেও বাঁচতে পারেন নি-পারবেন না সাঈদী সাহেব!!
আপনারা নি:শব্দ!!
তবে কেনো??
কী এর পেঁছনের কারণ??
অথবা কারণের কারণ??
হুম! “আপনারা” বলতে-হেফাযত,জমিয়ত,মজলিস-মজলিস এবং আন্দোলন-আন্দোলনের কথাই বলছি বটে!! এক কথায় দেওবন্দী দবীদ্বার যাঁরা!!!
এক,রহস্যময় ঘটনা:-
তিনি এক চা বাগানের পদস্থ অফিসার!
তার অধিনস্থ এক কর্মকর্তার পরমা সুন্দরী স্ত্রী! রুপে অতুল,গুনও কম নয়! পদস্থ অফিসারটির লুলোপ দৃষ্টি পড়লো ভদ্র মহিলার প্রতি! কিন্তু কোনোমতেই তাকে বশে আনতে পারেনি! সব চেষ্টা ব্যর্থ! বেছে নিলো ভিন্ন পথ!যেমন ভাব তেমন কাজ!!
তার অধিনস্থ কর্মকর্তাকে খুনের পর গুম!!
অপারেশন সাকসেস!! মনুষ্য জাতি দূরে থাক,পশু-পক্ষীও ঠের পেলোনা!!এবার লাইন-ঘাট ক্লিয়ার!খুন-গুম হওয়া কর্মকর্তার স্বজনদের সাথে তারও দৌঁড়ঝাঁপ এবং মায়াকান্নার কমতি ছিলনা!!কোনো ক্লু নেই!!একসময় সব শান্ত! এবার পদস্থ খুনী অফিসার স্বামী পরিত্যাক্তা পরমা সুন্দরীকে প্রস্তাব দিলো!
এখন আর কি করবে?তার চেয়ে আমার সাথে সংসার পেতে সুখী জীবন যাপন করাটাই মঙ্গল!বেচারী এবং ওর গার্জিয়ানের রাযী না হওয়ার কী আছে?
ধন-মান সবই তো আছে!শুরু হলো তাদের নতুন দাম্পত্য জীবন! দেখতে দেখতে প্রায় দেড়যুগ চলে গেলো!এবার তারা কয়েক সন্তানের বাবা,মা!!অফিসার চাকুরী থেকেও রিটায়ের্ড করলেন!
একদা তিনি ট্রেনে কোথাও যাচ্ছিলেন!
এক ষ্টেশন থেকে এক বৃদ্ধ ইয়া বড় একটি তালাবদ্ধ ট্রাং নিয়ে কোনো রকম অতি কষ্টে ট্রেনে উঠলো!!বৃদ্ধ ট্রাং নিয়ে অফিসারের সামনের সিটে বসলো!অত্র ডাব্বায় তারা দু’জন ছাড়া আপাতত আর কোনো যাত্রী নেই!বৃদ্ধ ট্রাং রেখেই পরবর্তী ষ্টেশনে নেমে পড়লো!অফিসার ডানে-বামে এক পলক বুলিয়ে দেখলো কেউ ফলো করছেনা!ভাবলো,কপালে থাকলে এভাবেই মালে ধরা দেয়!আর কি?তালাবদ্ধ ইয়া বড় ট্রাং-টি এবার নিজের দখলে নিয়ে নিলো!
নিশ্চয় এর ভেতরে মূল্যবান কোনো মাল হবে! তা না হলে তালাবদ্ধ হওয়ার কথা নয়!!
পরের ষ্টেশনে উঠলো পুলিশের চুরাচালানী পাকড়াওয়ের টিম! তারা ইয়া বড় তালাবদ্ধ ট্রাং দেখে বললেন-এই ট্রাং কার? রিটায়ের্ড মেন ঝটপট বললেন-আমার!!
চাবি দেন?
ট্রাং খোলে দেখতে হবে!!রিটায়ের্ড মেন নানা ভাবে তার পরিচয় জাহির করলেন!!অনেক তর্ক!!কিন্তু পুলিশের সন্দেহ ঘনিভূত!!নিশ্চয় এর ভেতরে অবৈধ কোনো মাল আছে!!রিটায়ের্ড মেন চাবি কোথা থেকে দিবে?
এক পর্যায়ে পুলিশ টিম জোরপূর্বক:তালা ভাঙ্গলেন! ট্রাং খোলে তো তাদের চোখ চরকগাছ!! একটি কর্তীত মানুষ!!!আলুর চপের মতো!!!চুপ চুপ রক্ত!!!পলিতিন দিয়ে মুড়ানো!!!
পুলিশের জেরা,এই মিঞা এই লাশ কার??
এবার রিটায়ের্ড মেনের বারোটা বেঁজে ওঠলো!!!শরীরের রক্ত পানি!!!জিব শুকিয়ে গেলো!!!চাপা চাপা কন্টে জবাব-
লাশের খবর আমি জানি না! লাশ আমার না!
এই মিঞা,লাশ তোমার না হলে ট্রাং কার??
আর ট্রাং তোমার হলে লাশ কার??
আর যায় কোথায়? আচ্ছামত উত্তম-মধ্যম বখশিয়ে সোজা হাজতে!!তার পর আদালতে অনেক চেষ্টা-তদবীর করেও পার পেলো না! এক পর্যায়ে তার ফাঁসির রায় হয়ে যাবে! তখন সে বললো-মহামান্য আদালত! আমি খুনী ঠিক,তবে এই খুনের খুনী না!!!
তার পর সে দেড়যুগ পূর্বেকার জঘন্য খুনের বর্ণনা অকপটে দিয়ে দিলো! আর বললো-মহামান্য আদালত,আমার ফাঁসি হলে সেই খুনের কারণেই হোক,এই খুনের খুনী আমি না!!!
শেষ-তক,সেই খুনের কারণেই জঘন্য রিটায়ের্ড মেনের ফাঁসি কার্যকর করা হলো!!!
রহস্যময় ঘটনাটি বাস্তব ঘটনা অবলম্বনে চিত্রিত!
দুই,
জামাত নেতৃবৃন্দ যাদেরকে ফাঁসি দেয়া হয়েছে এবং হচ্ছে,অবশ্যই এর কারণ এই নয়,যা প্রদর্শণী হয়েছে এবং হচ্ছে!!সাক্ষ্য-প্রমাণ ছাড়া স্বাধীনতার সাড়ে তিন যুগ পর এভাবে ফাঁসি দেওয়া মানবতার ইতিহাসে বিরল!!
তাহলে এর পেঁছনের কারণ,বা কারণের কারণ কী??
উলামায়ে দেওবন্দ শুধু চিৎকার করে বলেই আসছেন না,বরং এই বিষয়ে শত শত বই-পুস্তক লিখে আসছেন,লিখছেন!!
কিন্তু জামাতী ভাইয়েরা এক চুলও সরে আসছেন না!!এদিকে ভ্রুক্ষেপ না করে দিন-ব দিন শক্ত অবস্থানে রয়েছেন!!
বিষয়টি এই-
জামাত প্রতিষ্টাতা জনাব আবুল আ’লা মওদূদী সাহেব! তাঁর কলম নামক অস্ত্রের আঘাতে নবী রাসূল থেকে নিয়ে সাহাবী,তাবেঈ,মুজতাহিদ,মুজাদ্দিদ, মুহাদ্দিস,মুফাসসির এবং অলী-আওলিয়া কেহ-ই বাঁচতে পারেন নি!!!নির্বিশেষে তিনি সবার কলিজায় রক্তক্ষরণ ঘঠিয়েছেন!!!
তিনি কলমরাজ বটে!!!
জামাতের ভাইয়েরা আজও তারা মওদূদী সাহেবের ভয়ংকর দর্শন থেকে ফিরে আসতে পারেন নি!!!ফিরে আসার গরজবোধও করেন নি!!!উপরিউক্ত রহস্যপূর্ণ খুনের ঘটনার ন্যায়,তারা ডালাও ফাঁসি আর ডালাও জুলুমের কারণের কারণ বা পেঁছনের কারণ তালাশ করলে নিশ্চয়ই ফিরে আসার চেষ্টা করতেন!!!
তাঁরা রাজনৈতিক বৃহৎ স্বার্থের কারণে নানা সময় নানা ছাড় দিয়ে আসছেন,তো এবার না হয় ইসলামের স্বার্থে,দেশ ও দশের স্বার্থে একবার ঘরোয়া পরিবেশে দেওবন্দীদের সাতে বসুক!! আমীরে হেফাজত এবং শীর্ষস্থানীয় কিছু সংখ্যকের সাতে বসলেই হবে!!
সময় এখনও ফুরিয়ে যায়নি!সাহস করে এগিয়ে এসে মওদূদী সাহেবের দর্শন থেকে বেরিয়ে আসবেন বলে ঘোষনার মতো একটি ঘোষনা দিন!!
দেখবেন-পরদিনই আপনাদের সাতে হেফাজত,জমিয়ত,মজলিস-মজলিস এবং আন্দোলন-আন্দোলন এর সাতে পরষ্পর মহা ঐক্য গড়ে ওঠবে!! এ দেশে ইসলাম
বিজয়ী হতে এক বছরও লাগবেনা!!
বাঁচবে জাতি!!বাঁচবে দেশ!!বাঁচবেন আপনারাও!!!
তিন,
বদর-ওহুদের পর মক্কা বিজয়ের পালা!!
টিক তেমনিভাবে ২০১৩ এর ৬ এপ্রিল ঢাকা অভিমূখে হেফাজতের,অপর ভাষায় দেওবন্দীদের সফল লংমার্চ!! ৫ ই মে শাপলা চত্বরে রক্ত সাগর!!এবার সংবিধানে “রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম”কে শুধু টিকানোই নয়,বরং রাষ্ট্র ও সংবিধান উভয়কে কুফরমূক্ত-ত্বাগুতমূক্ত করা!!অযূ-গোসল করিয়ে আচ্ছামত কালিমাহ ত্বায়্যিবাহ পড়ানোর পালা!!!
এবার জোয়ার ওঠুক পদ্মা-মেঘনা-যমুনা থেকে নয়,বঙ্গোপসাগর থেকে!!!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now