শীর্ষ শিরোনাম
Home » নারী ও শিশু » অধিকার বঞ্চিত শিশু-কিশোরদের পাশে দাড়ান

অধিকার বঞ্চিত শিশু-কিশোরদের পাশে দাড়ান

imagesতাজ উদ্দীন হানাফী,বিশেষ প্রতিনিধি-সিলেট রিপোর্ট: আমাদের চারিদিকে অশান্তি, অন্যায়, অরাজকতা, ভারসাম্যহীনতা, অস্বস্তি ও অস্থিতিশীলতা, পৃথিবী  এখন বিজ্ঞানের, প্রযুক্তির,সেটেলাইটের,নতুন বিশ্বের শ্লোগানে,গ্লোবালের অত্বল গহ্বরে,আজকের শিশু সুখের প্রাচুর্যের ভিতর,কিছু শিশু আছে  অভাব আর হত দরিদ্রের সাথে যুদ্ধরত,বড় হচ্ছে  বিমষ্তা প্রচন্ড অভাবে। পৃথিবীতে ঘন্টায় ১৬,০০০ শিশু জন্ম নিচ্ছে,শিশু অবস্থায় ঘন্টায় ৬০০ মানব মারা যাচ্ছে, ইউনিসেফ হিসাব করে দেখছে পৃথিবীতে প্রতি বছর এভাবে ১কোঠি ২০ লাখের বেশি মারা যায়, চলি আমাদের দেশের পরিসংখ্যানে,এখানে জন্ম নেয়ার সময় ৭ জনের মধ্য একজন মারা যায়,যারা বেচে থাকে এদের শতকরা ৭০ জন অপুস্টিতে ভোগে, মারাত্মক অপুষ্টিতে ভোগে শতকরা ১১জন,,মারাত্মক ডায়রিয়ায় কেবল ১৯৯৬ সালে মারা যায় ১,১০,০০০জন।
প্রতি বছর প্রায় ৩০০০০হাজার শিশু ভিটামিনের অভাবে অন্ধ হয়,এক বছর হতে না হতেই যেই সব শিশু চলে যায় না ফেরার দেশে তাদের সংখ্যা ৫,০০,০০০ পাচ লাখে,শিশু অধিকারে মোট রয়েছে ৫৪ধারা, কিন্তু আজ গরীব শিশুদের বেলায় নেই কোন  উদ্যোগ নেই,হে তারুণ্যঃকোথায় যাচ্ছ?
শিশু শব্দটির সাথে জড়িত আছে মায়ের মমতা, বাবার আদর্শ ও পরিবারের ভালবাসা। শিশুদের নিয়ে একটি স্নেহের ও মায়াভরা পরিবেশ সৃষ্টি হয় নিজের অজান্তে ও মনের গহীনে। ধনী হউক, দরিদ্র হউক, ফর্সা হউক, কাল হউক সব শিশুই যে পবিত্র এই কথাটি সত্য। একটা বয়স পর্যন্ত প্রতিটি শিশু সবার কাছে পবিত্র ও আদরের প্রতীক হিসেবে গণ্য হয়। এই শিশুদের একটি বিশাল অংশ যাদের পথশিশু হিসেবে অভিহিত করা হয় তারা পারিবারিক বন্ধন থেকে বঞ্চিত হয়েই ঠিকানা বিহীন জীবন অতিবাহিত করে থাকে। মা-বাবার যেমন সঠিক পরিচয মেলেনা তেমনি স্থায়ী কোন নির্দিষ্ট ঠিকানাও তাদের নেই। দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার কারণেই দিন দিন পথশিশুদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এই সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে তাদের নিয়ে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত এই পথশিশুরা জীবিকার প্রয়োজনে এবং তদারকির অভাবে বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত হয়ে পড়ছে। বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে নিজেকে দিন দিন অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। সুশিক্ষা ও সুনামের অভাবে এক সময় এই কচি কচি পথ শিশুরা মাদকপাচারের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ফলে ব্যক্তিগত জীবনে সেও মাদকাসক্তে পরিণত হয়।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও ঢাকা আহছানিয়া মিশন আয়োজিত এক সেমিনারে পথশিশুদের অনেক সমস্যার মধ্যে মাদক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা হয়। এক সমীক্ষা অনুযায়ী দেশে সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১১ লাখ। এর মধ্যে সাড়ে পাঁচ লাখই মাদকাসক্ত। যে শিশুরা ভবিষ্যতের নাগরিক তারাই যদি মাদকের মত ভয়াবহ জিনিসে আসক্ত হয়ে যায় তাহলে আমাদের ভবিষ্যতে এক ভয়াবহ চিত্রই চোখের সামনে ভেসে উঠে। মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করতে গিয়ে এই শিশুরা অর্থের পিছনে ছুটে। ফলে অর্থ যোগাড় করতে গিয়ে তারা অপরাধ জগতের সাথে পরিচিত হয়। একটি অপরাধ থেকে অন্য অপরাধে জড়িত হতে হতে এক সময় স্বাভাবিক জীবন থেকে অনেক দূরে সরে যায় তারা। মাদকের অর্থ যোগাড় করতে শেষ পর্যন্ত খুন-হত্যার মত জঘন্য কাজে লিপ্ত হয় যা একজন শিশুর পক্ষে অচিন্তনীয় ব্যাপার।

চারিদিকে এক ভয়ংকর বিষাক্ত পরিবেশে, কোথায় ছুটছে তরুণেরা, তরুণীরা তোমরাতো সমাজের অংশ, সমাজের শক্তি,তাহলে কেন আজ পণ্যে পরিণত হচ্ছে,সুন্দরী আর মডেলিং করে প্রতারিত নয় কি তুমি,?
অবাক তুমি তরুণ তাহলে ড্রাগ নিয়ে চলছ কেন?মদের পাত্রে কেন মোহে,কেন তুমি গডফাদারদের আচলে নিমজ্জিত,ডিশের করাল গ্রাশে তুমি যে নেকড়ে হয়ে যাচ্ছ,চলনা ভালো কিছু করি।
চলনা ভালো কিছু করি।
সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সুরক্ষার লক্ষ্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সমাজসেবা অধিদফতরের মাধ্যমে দুইটি পৃথক প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্প দু’টি হচ্ছে, চাইল্ড সেনসিটিভ সোস্যাল প্রটেকশন ইন বাংলাদেশ (সিএসপিবি) প্রকল্প এবং সার্ভিসেস ফর দ্যা চিলড্রেন এট রিস্ক। প্রকল্প দু’টির বিবরণ নিম্নরূপ-

চাইল্ড সেনসিটিভ সোস্যাল প্রটেকশন ইন বাংলাদেশ (সিএসপিবি) প্রকল্প প্রটেকশন অব চিলড্রেন এ্যাট রিস্ক (পিকার) প্রকল্পের ধারাবাহিকতায় ইউনিসেফ-এর আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় সমাজসেবা অধিদপ্তর ‘চাইল্ড সেনসিটিভ সোস্যাল প্রটেকশন ইন বাংলাদেশ’ (সিএসপিবি) শীর্ষক প্রকল্পের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্পটির মেয়াদ জানুয়ারি ২০১২ থেকে ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত। প্রকল্পের দীর্ঘমেয়াদী উদ্দেশ্য:   ২০১৬ সনের মধ্যে নির্বাচিত ২০টি জেলা’র নারী, শিশু ও যুবসম্প্রদায় কার্যকর সামাজিক সুরক্ষা নীতিসমূহের দাবি এবং উপযুক্ত সেবা প্রাপ্তির মাধ্যমে নির্যাতন, অবহেলা, শোষণ ও পাচার বিলোপ সাধনে সক্ষম হবে।
দেশের সব শিশুর দায়িত্ব রাষ্ট্রের। শিশু উন্নয়ন ও কল্যাণের মাধ্যমেই সম্ভব জাতীয় উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা। এজন্য পথশিশুদের উন্নয়নে জাতীয় শিশুনীতির আদলে পৃথক একটি পথশিশু নীতিমালার দাবি করেছে স্ট্যান্ডিং কমিটি অন সোস্যাল প্রোটেকশন অব স্ট্রিট চিলড্রেন (সিপ-ডিপিএসসি)। যা বাস্তবায়িত হলে দেশের ১১ লাখ পথশিশুর উন্নয়ন তরান্বিত হবে বলে দাবি করছে সিপ-ডিপিএসসি।
পথহারা শিশুরা পথ হারিয়ে রাস্তায় নেমে এসেছে। তারা বিভিন্ন ভাঙারি সংগ্রহ, বাদাম বিক্রি, কুলিগিরি, সিগারেট বিক্রি, হোটেল বয়, গাড়ির গ্যারেজ, হকারগিরি, বাসা-বাড়ি, মাদকদ্রব্য বিক্রি, চুরি, পকেটমারসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে। যা জাতীয় উন্নয়নের অংশীদারদের জাতীয় ব্যাধিতে পরিণত পরিণত করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। এরকম অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বেড়ে ওঠার কারণে এসব শিশুরা সবসময় চুলকানি, পেটপীড়া, জ্বর, জণ্ডিসসহ নানা ধরনের সংক্রামক ব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে।
ঝুঁকিপূর্ণ শিশুর স্বাভাবিক জীবনধারা লাভে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের লক্ষ্যে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। এর অংশ হিসেবে ‘শেখ রাসেল ঝুঁকিপুর্ণ শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র কক্সবাজার’ এর দুইটি ভবনে শহরের ঝুঁকিপুর্ণ ১৭৯ জন শিশুর মধ্যে ৪০ জন পথশিশুর আশ্রয় মিলেছে।
সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধিনস্ত সমাজসেবা অধিদফতরের ‘সার্ভিসেস ফর চিলড্রেন এট রিস্ক (স্কার)’ প্রকল্পের আওতায় এসব ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের সার্বিক সেবা ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। মনোসামাজিক সেবা, প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষা ও কর্মমূখী প্রশিক্ষণ সুবিধা প্রাপ্তির পাশাপাশি সুন্দর পরিবেশে আশ্রয় পেয়ে খুবই খুশি শিশুরা। তারা যেন নতুন জীবন ফিরে পেয়েছে। দীর্ঘদিন মানবেতর দিন কাটানোর পরে পথশিশুদের কাছে এই সহযোগিতা অনেক বড় কিছু পাওয়া। তাদের প্রত্যাশা এই পুনর্বাসন কেন্দ্র থেকেই তারা নতুন জীবনের সন্ধান পাবে। এই দৃশ্য দেখা যায়, শহরের দুই পুনর্বাসন কেন্দ্র ঝিলংজাস্থ নতুন জেল গেইট সংলগ্ন বাইপাস সড়কের পাল্স ভবন ও খুরুশকুল সড়কস্থ আনাস ভিলায় গিয়ে। পাল্স ভবনে রয়েছে ৭৫ জন ছেলে শিশু। আর আনাস ভিলায় রয়েছে ১০৪ জন মেয়ে শিশু। যাদের বসয় ৬ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে।
এই দুই পুর্নবাসন কেন্দ্রে ঝুঁকিপুর্ণ শিশুদের মধ্যে রয়েছে, পথ শিশু, শ্রমজীবী শিশু, পাচার থেকে উদ্ধারকৃত শিশু, পূর্ণ সময় গৃহকর্মে নিয়োজিত শিশু, হারিয়ে যাওয়া শিশু, বাবা-মায়ের স্নেহবঞ্চিত শিশু, এতিম শিশু, একা বাস করা শিশু, অন্য সম্প্রদায়ের সাথে বাস করা শিশু, নির্যাতিত শিশু, প্রতিবন্ধী শিশু, আইনী দ্বন্দ্বে জড়িত শিশুসহ অন্যান্য শিশুরা। এসব তথ্য জানান, শেখ রাসেল ঝুঁকিপূর্ন শিশু প্রশিক্ষন ও পুনর্বাসন কেন্দ্র কক্সবাজার সার্ভিসেস ফর চিলড্রেন এট রিস্ক (স্কার) প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক জেসমিন আক্তার।
তিনি আরো জানান, সার্ভিসেস ফর চিলড্রেন এট রিস্ক (স্কার) প্রকল্পের আওতাধীন শেখ রাসেল ঝুঁকিপূর্ণ শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কক্সবাজার কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০১৫ সাল থেকে। পুর্নবাসন কেন্দ্রের কার্যক্রম গুলো হল, ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের সার্বিক সেবা প্রদান করা, ২৪ ঘন্টা হেল্প লাইনের মাধ্যমে সেবা প্রদান, ঝুঁকিপূর্ণ শিশুদের আশ্রয়ের সুবিধা প্রদান, সেন্টারে আগত সকল শিশুর জন্য কেইস অ্যাসেসমেন্ট, স্বতন্ত্র সেবা পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে ঝুঁকি-হ্রাসকরণ, শিশুদের মনোসামাজিক সেবা নিশ্চিত করা, প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদান, স্কুলগামী শিশুদের জন্য আনুষ্ঠানিক শিক্ষা, জীবন দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, কর্মমুখী প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা, পারিবারিক ও সামাজিক পুন:একীকরণ করা ও আইনগত সহায়তা প্রদান করা।
পুনর্বাসন কেন্দ্রে থাকা পথশিশু রায়হান জানায়, আগে সে ঠিক মত খেতে পারত না। ঘুমাতে পারত না। কারন থাকা-খাওয়ার কোন ব্যবস্থা ছিল না। রাস্তায় যা পেত তাই খেয়ে জীবন-যাপন করত। তার কষ্টের শেষ ছিলনা। আর এখন সে খুব ভাল আছে। খেতে-পড়তে পারছে। আর প্রশিক্ষণ নিতে পারছে। তার স্বপ্ন ওখানে থেকেই সে মানুষের মত মানুষ হয়ে বেরুবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now