শীর্ষ শিরোনাম
Home » মিডিয়া » ‘দোয়াবাজারে ইউপি নির্বাচনে নৌকার ভরাডুবির পেছনে মানিক’

‘দোয়াবাজারে ইউপি নির্বাচনে নৌকার ভরাডুবির পেছনে মানিক’

59431সিলেট রিপোর্ট: সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে নৌকা প্রতিক তথা আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীদের ভরাডুবি ঘটিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক। এজন্য তিনি বিভিন্ন ইউনিয়নে নিজ পছন্দের ব্যক্তিদেরকে ডামি প্রার্থীও করেছিলেন।

শুক্রবার সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করে এমপি মুহিবুর রহমান মানিককে দল থেকে বহিস্কারে দাবি জানান ৬টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা।

সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা অভিযোগ করেন- ছাতক-দোয়ারা আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্যের মাধ্যমে তার পছন্দের প্রাথী দিতে না পারায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিরুদ্ধেউঠে পড়ে লেগেছিলেন। তিনি তার সহযোগী উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীর প্রতিক, ছাতক উপজেলা চেযারম্যান অলিউর রহমান বকুল ও পিএস মোশাহিদ মিলে উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেযারম্যান প্রার্থীর বিপরীতে একাধিক বিদ্রোহী ও বিএনপি-জামায়তপন্তী ডামি প্রার্থী দাঁড় করান। প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচনী প্রচারনাও চালান তাদের পক্ষে।

দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল হামিদের বিপরীতে এমপি মুহিবুর রহমান মানিক ও তার সহচররা রাজাকার প্রজন্ম আব্দুল খালিককে বিদ্রোহী প্রার্থী করে তার পক্ষে প্রচারনা চালান।

উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নে আওযামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবুল হোসেনের বিপরীতে জসিম উদ্দিন মাস্টারকে বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করিয়ে এমপি মানিক তার পক্ষে নগ্ন প্রচারনা চালান। পরে তাকে বিজয়ী করার সম্ভাবনা না দেখে বিএনপি নেতা সাবেক সাংসদ কলিম উদ্দিন মিলনের সাথে আঁতাত করে বিএনপি প্রার্থী আব্দুর রহিমের পক্ষে কাজ করে নৌকা প্রতীকের ভরাডুবি ঘটান।

বোগলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেযারম্যান প্রার্থী ছিলেন মো. মিলন খান। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিপরীতে এমপি মানিক বিদ্রোহী প্রার্থী আহমদ আলী আপনকে দাঁড় করান। তার পক্ষে কাজ করে তাকে বিজয়ী করার সম্ভাবনা না দেখে পরে বিএনপি প্রার্থী আরিফুল ইসলামের পক্ষে কাজ করেন এবং নৌকা প্রতিকের ভরাডুবি ঘটান। বিদ্রোহী প্রার্থী আহমদ আলী আপন পরাজিত হলে এমপি মানিক তাকে চেয়ারম্যানের বদলে বগুলা রুসমত আলী-রামসুন্দর স্কুল এন্ড করেজের সভাপতি পদের জন্য ডিও লেটার প্রদান করেন।

নরসিংপুর ইউনিয়নে আওযামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রশিদ তালুকদারকে পরাজিত করার হীন মানসে এমপি মুহিবুর রহমান মানিক তার বিরীতে ৬জন বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করান। তারা হচ্ছেন- হাবিবুর রহমান, আইয়ুবুর রহমান, নূরুল আমীন, কামরুজ্জামান রুবেল, কবির উদ্দিন ও আব্দুল আলী। এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এমপি মানিক ওই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর ভরাডুরি ঘটান।

উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান জহিরুল ইসলাম। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকার পরাজয় ঘটানোর হীন মানসে এমপি মুহিবুর রহমান মানিক ও তার সহযোগীরা এর বিপরীতে জামায়াত পরিবারের বিদ্রোহী প্রার্থী আমিনুল হককে সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীর পরাজয় নিশ্চিত করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলার বোগলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. মিলন খান। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী খন্দকার মামুনুর রশীদ, আব্দুল হামিদ, আবুল হোসেন, আব্দুর রশিদ তালুকদার ও জহিরুল ইসলাম প্রমূখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now