শীর্ষ শিরোনাম
Home » সুনামগঞ্জ » ফেনারবাঁক ইউপিতে বিদ্রোহীদের চ্যালেঞ্জের মুখে আ’লীগ -বিএনপি

ফেনারবাঁক ইউপিতে বিদ্রোহীদের চ্যালেঞ্জের মুখে আ’লীগ -বিএনপি

13174তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ,জামালগঞ্জ থেকে:

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় আগামী ৪জুন ৬ষ্ট ধাপে অনুষ্ঠেয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে উপজেলার ফেনারবাঁক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিয়ে নানান নাটকীয়তায় ক্ষোভের আগুনে পুড়ছে দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা। আওয়ামীলীগের তৃণমূলের নেতৃবৃন্দের পছন্দের দুই প্রার্থীকে বাতিল করে “শুভঙ্করের ফাঁকি ও ধোঁকা” দিয়ে স্থানীয় এমপি তার গ্রুপের (উপজেলা আ’লীগের একাংশের সভাপতি দাবিদার) নেতা করুনা সিন্ধু তালুকদার কে মনোনয়ন দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দৃষ্টি ও আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু হয়ে উঠেছে ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। আ’লীগের মনোনয়ন নিয়ে ফেনারবাঁক ইউনিয়নে বেশ কয়েক দফা তৃণমুলের নেতা-কমীদের ভোটা ভোটি হয়েছে। প্রধমবার তৃণমুলের ভোটে সাধন চন্দ্র তালুকদার সবচেয়ে বেশী ভোট পেয়ে দলীয় মনোনয়নের জন্য নির্বাচিত হন। এর ক’দিন পরই দ্বিতীয়বার ভোটে নির্বাচিত হন (ইউপি সদস্য) মো: নুরু মিয়া। অপর দিকে করুনা সিন্ধু তালুকদার তৃণমুলে ভোটে অংশগ্রহন না করে ও স্থানীয় তৃণমুলের নেতা-কর্মীদের মতামতকে অবমুল্যায়ন করে সংসদ সদস্যকে নিয়ে কেন্দ্রে লবিং করেন। আ’লীগ প্রার্থীরা তিনগ্রুপে বিভাজন হয়ে, সাধন তালুকদার-নুরু মিয়া ও করুনা সিন্ধু গ্রুপ দীর্ঘদিন ঢাকায় থেকে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে দৌড়ঝাপের পর সাধন চন্দ্র তালুকদার কে আ’লীগ দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করা হয়। ঢাকা থেকে মনোনয়ন নিয়ে জামালগঞ্জ আসার পথে কেন্দ্রীয় এক নেতার ফোনে সাধন চন্দ্র তালুকদার কে দলীয় মনোনয়ন পত্র টি ফিরিয়ে দিতে নিদের্শ দেন। সাধন চন্দ্র তালুকদারের পরিবর্তে করুনা সিন্ধু তালুকদার কে মনোনয়ন দেয়ায় চরম হতাশা গ্রস্ত তৃনমুল নেতা-কর্মীদের ক্ষোভের আগুন জ্বলে উঠে। ওই ইউনিয়নে করুনা সিন্ধু তালুকদারকে চ্যালেঞ্জ করে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত সাধন চন্দ্র তালুকদার, মতিউর রহমান (সদ্যসাবেক চেয়ারম্যান) মো:নুরু মিয়া সহ চার জন প্রার্থী বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে লড়ছেন। নির্বাচনী লক্ষ্যে বিদ্রোহীরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়ে নির্বানী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। বিদ্রোহীঘেরা আওয়ামীলীগ প্রার্থী করুনা সিন্ধু পড়েছেন চরম বিপাকে। আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাধন চন্দ্র তালুকদার বলেন, তৃণমুলে আমাকে নির্বাচিত করার পর দলীয় কার্ড আমি পিয়েছিলাম হঠাৎ কেন্দ্রীয় একজন নেতার ফোনে কার্ডটি ফিরিয়ে দিতে হয়েছে, কিছুক্ষণ পর শুনি যিনি তৃণমলের নেতা-কর্মীদের ভোটেই আসেননি সেই করুনা সিন্ধু তালুকদার কি করে দলীয় কার্ড পান। আমার অসংখ্য নেতাকর্মীদের চাপে সতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছি। আরেক বিদ্রোহী মো: নুরু মিয়া বলেন, তৃণমুলের ভোটে আমি নির্বাচিত হয়েছি, দলীয় কার্ড পাওয়ার কথা আমার,যিনি এলাকায় নেই তাকে কি ভাবে কার্ড দেন বলার নেই, তাই সতন্ত্র হয়ে নির্বাচন করছি। অপর বিদ্রোহী প্রার্থী সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান মতিউর রহমান বলেন, দলীয় সকল কাজে আমি-আর কার্ড পান অন্যজন এ কি করে সম্ভব তাই সতন্ত্র হয়ে নির্বাচন করছি।
অপর দিকে বিএনপির মনোনীত দলীয় প্রার্থী গত নির্বাচনের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা ছাত্রদল’র সাবেক সভাপতি জুলফিকার চৌধুরী রানা তৃণমুল নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের ভোটে নির্বাচিত হলে তার প্রতিদ্বন্ধি হয়ে লবিং করেন বিএনপির নেতা আজাদ হোসেন বাবলু। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মনোনয়ন বোর্ডে দুই দফা বৈঠকের পর মো: জুলফিকার চৌধুরীর পারিবারিক রাজনৈতিক বিষয়টি উঠে আসে। জেলা বিএনপির এক প্রবীন নেতা বলেন, প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সরকারের আমলে মো: জুলফিকার চৌধুরী রানা’র পিতা মো: মফিজুর রহমান চৌধুরী ছিলেন গ্রাম সরকার। পরে তিনি ইউনিয়ন ও থানা সরকার নির্বাচিত হয়ে উপজেলা পর্যায়ে দুই-দুই বার বিএনপির সভাপতি ছিলেন। জুলফিকার চৌধুরী রানার রাজনৈতিক ও পারিবারিক দিকে ঐতিহ্যের বিষয়টি জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সুদৃষ্টি আকর্ষন করে। অপর দিকে মো: আজাদ হোসেন বাবলু গত ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে ৬ষ্ট স্থানে ও গত উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশ গ্রহন করে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ায় তৃণমুল নেতা কর্মী ও সমর্থকদের কাছে তিনি গ্রহণ যোগ্যতা হারান। কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডে উপজেলা ও ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের মতামত কে গুরুত্ব দিয়ে গত নির্বাচনের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো: জুলফিকার চৌধুরী রানা কে ফেনারবাঁক ইউনিয়নে বিএনপির দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করেন। নির্বাচন বিশ্লেষকরা মনে করেন ফেনারবাঁক ইউনিয়নে বিএনপির মনোনয়নটি সঠিক হলেও আ’লীগের মনোনয়ন টি সাধন চন্দ্র তালুকদারকে দেয়ার পর ফিরিয়ে নিয়ে হঠাৎ শেষ মুহুর্তে করুনা সিন্ধু তালুকদার কে দেয়ায় দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থীদের সাথেই হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now