শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » ‘মোসাদ কানেকশন’ নিয়ে বিএনপিতেও ঝড়

‘মোসাদ কানেকশন’ নিয়ে বিএনপিতেও ঝড়

bnp_33290
ডেস্ক রিপোর্ট:
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমানের হাত ধরেই দলটিতে উত্থান হয়েছিল ‘আলোচিত’ যুগ্ম মহাসচিব লায়ন আসলাম চৌধুরীর। আর সেই আসলামের মোসাদ-কানেকশনের ঝড়ে খোদ বিএনপি এখন কাবু। এই কানেকশনের দায় দলটি এড়াতে পারছে না।
ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের এক এজেন্টের সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর বৈঠকের খবরে বিএনপির ভিতরে-বাইরে এখন সমালোচনার ঝড় বইছে। চাঞ্চল্যকর এ তথ্যে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলেও তোলপাড় শুরু হয়েছে। কিন্তু তারেক-ভীতিতে কেউ মুখ খুলতে নারাজ। অবশ্য ‘নড়বড়ে’ এই দলটির সদ্য ‘ভারমুক্ত’ মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শুক্রবার এক প্রেস কনফারেন্স ডেকে দাবি করেছেন, ‘বিএনপির সঙ্গে ইসরাইল বা মোসাদের কোনো সম্পর্ক নেই। বিএনপি ফিলিস্তিনের পক্ষে আছে এবং থাকবে।’
কিন্তু এতেও দলটির ভেতরে-বাইরে কানাঘুষা থামছে না। এই ব্যাপারে দলটির নেতারাও মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছেন। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির একজন মধ্যম সারির নেতা বিবার্তাকে বলেন, ‘লন্ডনে বসে আসলে কী হচ্ছে, সেটা বোঝা মুশকিল। কিন্তু দল এই স্পর্শকাতর ইস্যুটি ‘যথাযথভাবে’ হ্যানেডল করতে পারছে না। রাষ্ট্রধর্ম ইস্যুটি আওয়ামী লীগ যেভাবে স্মার্টলি হ্যান্ডেল করেছে, মোসাদ-কানেকশনের অভিযোগটি বিএনপিরও সেভাবে হ্যান্ডেল করা উচিত। ইসরাইল নানা কায়দায় মালয়েশিয়ার সাথে সম্পর্ক গড়েছে। ওরা বাংলাদেশের সাথেও তা স্বাভাবিকভাবে চাইবে। অথচ বিএনপির ক্ষেত্রে ‘ব্যক্তির’ দায়কে সরকার পুরো দলের উপর চাপিয়ে দিয়ে রাজনীতি করার একটা বড় মওকা পেয়ে গেছে।এই সুযোগ দেওয়া ঠিক হচ্ছে না। আমি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলতে পারি, নানামুখী সমীকরণের কারণে বিএনপি ইসরাইলমুখো হতে পারবে না।এটা ক্ষমতাসীন দলের পক্ষেও সম্ভব নয়।’
বিএনপির এই নেতার বক্তব্যে এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে, আসলাম চৌধুরী মোসাদ-কানেকশন ইস্যুতে স্রেফ দাবার গুটি। দাবার বোর্ড নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে ‘বিদেশ’ থেকে।
উল্লেখ্য, ভারতের দিল্লি ও আগ্রার তাজমহল এলাকায় ইসরাইলের সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড অ্যাডভোকেসির প্রধান মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা-সাক্ষাতের বেশ কিছু ছবি ইতিমধ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে। ইসরাইলের লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির ফেসবুক পেজে দেখা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে তোলা বেশ কিছু ছবি মেন্দি এন সাফাদি নিজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের অ্যাকাউন্টে আপলোড করেন। একটি ছবিতে আসলাম চৌধুরীর সঙ্গে খোশমেজাজে দেখা গেছে মেন্দি এন সাফাদিকে। এক অনুষ্ঠানে তারা দুজন ফুলের মালা গ্রহণ করেন। আরেক ছবিতে মেন্দি এন সাফাদি ও এক নারীকে ফুলের মালা পরা অবস্থায় দেখা গেছে। সেখানে তাদের পাশে হাসিমুখে আসলাম চৌধুরী অবস্থান করছেন। কে ওই নারী, তার পরিচয় জানা যায়নি। এ ছাড়া আগ্রার তাজমহল এলাকায় তাদের একসঙ্গে আরও বেশ কয়েকটি ছবি দেখা যায়। ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের প্রতিনিধির সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং ছবি তোলার বিষয়টি স্বীকার করেন আসলাম চৌধুরী।
এর আগে গত ২৬ জানুয়ারি ইসরাইলের অনলাইন সংবাদ মাধ্যম ‘জেরুজালেম অনলাইন ডট কম’-এর প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রসঙ্গ প্রকাশিত হয়। সেখানে মেন্দি এন সাফাদি বলেছেন, ‘শিগগিরই সব ক্ষেত্রে বাংলাদেশের দরজা ইসরাইলিদের জন্য খুলে দেওয়া হবে। আর এটা অসম্ভব কোনো আকাঙ্ক্ষা নয়। নির্যাতিত এবং মানুষের স্বাধীনতার জন্য কাজ করা একটি নৈতিক দায়িত্ব। সেজন্য আমি এসব লোকের সহায়তার জন্য রয়েছি। বাংলাদেশে নির্যাতনের কাহিনীগুলো সত্যিকারের। প্যালেস্টাইনের মতো বানানো নয়। এখানে মানুষ নিপীড়িত হচ্ছে, কারণ তারা ভিন্নমতের। এক্ষেত্রে আমি ইসরাইলি হিসেবে গর্বিত। আমি আরও গর্বিত যে, অনেক বাংলাদেশি ইসরায়েলের প্রতি সহানুভূতিশীল। যদিও বাংলাদেশের নাগরিকদের পাসপোর্টেও লেখা থাকে, ইসরাইল ছাড়া সারা বিশ্বে তারা ভ্রমণ করতে পারবে।  সেটাও আমি শিগগিরই পরিবর্তন করতে যাচ্ছি।’
সূত্র জানায়, আসলাম চৌধুরীর বিষয়ে খোঁজখবর নিতে শুরু করেছে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। ফেসবুকে পাওয়া ছবি নিয়ে তারা তদন্ত করছে। বৈঠকের সত্যতা পেলে আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে গোয়েন্দা সূত্রগুলো জানিয়েছে। যে কোনো সময় তাকে গ্রেফতারও করা হতে পারে। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক, রাজনৈতিক কিংবা বাণিজ্যিক কোনো সম্পর্ক রাখাই দণ্ডনীয় অপরাধ।
এদিকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে বিএনপি ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করছে। এ বিষয়ে সরকারের কাছে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। সরকারের কাছে খবর রয়েছে, তারা ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে বাংলাদেশকে একটি ধর্মান্ধ মুসলিম দেশ হিসেবে উপস্থাপন করতে চাইছে। তারা ইসরাইলকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করছে যে, বিএনপি ক্ষমতায় গেলে  দেশটির সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি হবে।
পাশাপাশি ঢাকায় ফিলিস্তিনি দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ইউসুফ এস রামাদান গণমাধ্যমে এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, এ ধরনের সাক্ষাৎ প্রকারান্তরে সব ফিলিস্তিনি শিশু ও নরনারীর পিঠে ছুরিকাঘাতের শামিল, যা ঢাকার ফিলিস্তিন দূতাবাসকে অত্যন্ত মর্মাহত করেছে।
বিএনপির কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা না থাকলেও হঠাৎ করে তার কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব বনে যাওয়ায় দলের অনেক সিনিয়র নেতা পর্যন্ত ‘থ’ বনে গেছেন। আসলাম চৌধুরীর লন্ডন কানেকশন স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। কেন তাকে বিএনপির এমন গুরুত্বপূর্ণ পদে আনা হয়েছে সেই রহস্যের জবাব মিলতে শুরু করেছে সরকার উৎখাত ষড়যন্ত্রে তার মোসাদ কানেকশন ফাঁস হওয়ার পর।
বিএনপির একাধিক নেতা জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানের হাত ধরে অর্থনৈতিক উত্থান আসলাম চৌধুরীর। জোট সরকারের আমলে আসলাম চৌধুরীকে দেশের বৃহত্তম আদমজী জুটমিল ভাঙার কাজ দিয়েছিলেন তারেক রহমান।
উল্লেখ্য, ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সঙ্গে গোপন বৈঠক করে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও চট্টগ্রাম বিএনপির নেতা লায়ন আসলাম চৌধুরীসহ সাতজনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা সংস্থা। এ ব্যাপারে দেশের প্রতিটি বিমানবন্দরে ও স্থলবন্দরগুলোতে সতর্কবার্তাও পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে যেকোনো সময় গ্রেফতার হতে পারেন তারা।  —
সুত্র-বিবার্তা
Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now