শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » সিলেট থেকে এম ইলিয়াস আলীর স্মৃতি-চিহ্ন মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র !

সিলেট থেকে এম ইলিয়াস আলীর স্মৃতি-চিহ্ন মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র !

miliasটি.কে এম: বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নিখোঁজ এম ইলিয়াস আলীর নাম, স্মৃতি-চিহ্ন সিলেট থেকে মুছে ফেলার ষড়যন্ত্র করছে দলের ভেতরের কতিপয় নেতা এমন অভিযোগ ইলিয়াস পন্থীদের। বর্তমানে কেন্দ্র থেকে স্থানীয় পর্যায়ে ইলিয়াস পন্থীরা অনেকটাই কোনঠাসা অবস্থায় রয়েছেন। পদপদবীর প্রশ্নে এনিয়ে দলটির তৃণমুলে চাপাক্ষোভ বিরাজ করছে। এবিষয়ে ইলিয়াস অনুসারীরা দলীয় সভানেত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।
জানাগেছে, সম্প্রতি বিএনপির চেয়ারর্পাসন বেগম খালেদা জিয়া এবং সিসিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নিকট ইলিয়াস পন্থীদের পদবঞ্চিত রাখার বিষয়টি লিখিত ভাবে অবগত করাহযেছে।
সিলেট জেলা কমিটির নবনির্বাচিত সিনিয়র কয়েক নেতার বিরুদ্ধে ইলিয়াস আলীর স্মুতি-চিহ্ন মুছেফেলার কাজে লিপ্ত এমন  অভিযোগ ও উঠেছে। তাদের ভাষ্য মতে, সিলেট জেলা বিএনপি’র দিকে দৃষ্টি দিলেই বুঝা যাবে বিএনপিকে শনির দশায় ধরেছে। এমনটি হলে খোদ বিএনপিকেই মুছে ফেলার নামান্তর হবে” এমন মন্তব্য করেছেন এবিএনপির শর্িষ পর্যাযের দুই নেতা । তাদের মতে  সঠিক সময়ে রোগ নির্ণয় করে সঠিক ঔষধ প্রয়োগ না করলে রোগী বাঁচানো মুশকিল হবে। বিএনপির অবস্থাও তেমন হওয়ার সম্ভাবনা এমনই। জনশ্রুতি আছে,  শমসের মবিন চৌধুরীর সাথে এম. ইলিয়াস আলীর কিছুটা মত পার্থক্য ছিল। তাঁর অনুপস্থিতির সুযোগে এবং নীতি নির্ধারকদের মধ্যে থাকার সুবাদে নেপথ্যে থেকে শমসের মবিন চৌধুরী কলকাটি নেড়ে এম. ইলিয়াস আলীর জেলা কমিটি একেবারেই অপ্রয়োজনীয় ভাবে ভাঙ্গার বন্দোবস্ত করেন এবং নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিতে ইলিয়াস সমর্থক গোষ্ঠীকে নির্বাসনে পাঠানো হয়, যারা ২০১২-২০১৪ সালে তুমুল সংগ্রাম করেছেন এবং হামলা, মামলা, জেল-জুলুমের শিকার হয়েছেন। নামকা ওয়াস্তে ইলিয়াস পত্মীকে এই কমিটির সদস্য ও জামানকে যুগ্ম আহ্বায়ক রাখা হয়েছে। জেনে শুনেই যে ইলিয়াস পত্মী কমিটির বৈঠকে ঢাকা থেকে এসে যোগ দেয়া মুশকিল হবে এবং মামলার ভারে নুয়ে থাকা জামান প্রকাশ্যে আসতেই পারবেন না। ”তাই অনেকটা ফাঁকা মাঠে গোল দেয়ার মানসে এবং জাসদ থেকে আসা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী ও ইলিয়াসে বর্তমানে বিকল্পধারার বিএনপি গঠনকারী সংস্কারপন্থী আবুল কাহের চৌধুরী শামীমকে সভাপতি বানানোর পূর্ব পরিকল্পনার অধীনে এডভোকেট নুরুল হকের মত মেরুদন্ডহীন এক ব্যক্তিকে আহ্বায়ক করা হয়েছে।’ ‘
বিএনপিতে যার কোন অবদানই নেই এবং হামলা-মামলার শিকার বিএনপি কর্মীদের নূন্যতম আইনী সহায়তা টুকু পর্যন্ত দিতে কখনও ই রাজি ছিলেন না। ফলে যা হবার তাই হয়েছে। তাদের মতে, আমড়া গাছ রোপন করে তাতে আম আশা করা যায় না। ওয়ার্ড পর্যন্ত কমিটি গঠনে অতি সুক্ষ্মভাবে ইলিয়াস সমর্থক ও তৃণমূল নিবেদিত প্রাণী কর্মীদের সরিয়ে তথা কথিত সংস্কারপন্থীদের আনা হয়েছে। অর্থের খেলায় আইউব খানে বুনিয়াদি গণতন্ত্র স্টাইলে ভোট কেনা বেচার মাধ্যমে বিএনপির জন্য বিষফোঁড়া হিসেবে চিহ্নিত  ব্যক্তিটি সিলেটের মত জেলার মুল আসনে বসে ধরাকে সরা জ্ঞান করছেন। বর্তমানে জেলায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই। দলীয় প্রতীকে ইউনিয়ন নির্বাচন হচ্ছে। বিয়ানীবাজরের সেই তিনিই এ সুবাদে  হয়ে গেছেন রাজাধিরাজ।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক জনৈকি বিএনপি নেতা বলেছেন সঠিত নেতৃত্ব থাকলে এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারলে গোলাপগঞ্জ উপজেলার সবকটি ইউনিয়নে বিএনপি জিতে আসতে পারতো এবার। তাদের এসব নিয়ে কোন মাথা ব্যাথা ছিল না। শুধুই যেখানে প্রার্থীরা সভা-সমিতি করেছে অযাচিত মেহমানের মত সেখানে হাজির হয়েছেন। স্থানীয়দের মতে এসব লোক  যেখানে পা ফেলেছে প্রার্থীদের সর্বনাশ করেছে। আর এখন যে কয়জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন জবরদস্তি করে তাদের ফুল দিয়ে ফটো সেশনে ব্যস্ত আছেন।

সচেতন মহলের প্রশ্ন , দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে উপজেলা নির্বাচন করে যারা বহিস্কৃত হয়েছেন, তাদেরকে কোন প্রক্রিয়ায় বিএনপিতে ফিরিয়ে আনা হলো ?
অথচ তারা সবাই বিএনপির জেলা আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক হয়েছেন।  বিগত উপজেলা নির্বাচনে রিাজিত ইমরান আহমদ চৌধুরী নিজ ইউনিয়ন লক্ষীপাশায় একজন চেয়ারম্যান প্রার্থীও দিতে পারেন নাই। এরপরেও তাদের মুল্যায়ন কেন এমন প্রশ্ন ও সাধারণ নেতাকর্মীদের।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now