শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » প্রখ্যাত বুযুর্গ লুৎফুর রহমান শায়খে বর্ণভী (রাহ.)

প্রখ্যাত বুযুর্গ লুৎফুর রহমান শায়খে বর্ণভী (রাহ.)

saiky baroniমুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:  শায়খুল ইসলাম হযরত মাওলানা সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র) উপমহাদেশের এক মহান ব্যক্তিত্ব ছিলেন। যিনি আধ্যাত্মিক,সমাজ সংস্কার,রাজনীতি,ইলমে হাদীসের প্রচার প্রসারসহ বহুবিদ খেদমত আঞ্জাম দিয়েগেছেন। পাক-ভারত-বাংলাদেশ বিশেষ করে সিলেট ও আসামে তিনি দ্বীনের ব্যাপক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। তিনি পৃথিবীতে আজ নেই কিন্তু রাজনৈতিক সহচর-কর্মী, ইসলামী শিক্ষার ধারক বাহক অসংখ্য ছাত্র,আধ্যাত্মিকতার ময়দানে বিপুল সংখ্যক-শাগরেদ রেখেগেছেন। তিনি শুধূ একজন রাজনৈতিক নেতা বা মাদ্রাসার শিক্ষকই ছিলেননা। বরং আধ্যাত্মিকতার ময়দানে একজন উচ্চপর্যায়ের আল্লাহ ওয়ালা বুযুর্গ ছিলেন। তাঁর সহবত প্রাপ্ত হয়ে অসংখ্য লোক ইলমে তাসাউফ এর ময়দানে নিজেকে শায়খে কামিলের অর্ন্তভুক্ত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তাঁর জীবদ্দশায় ১৫৭ জনকে তিনি ইলমে মা’রিফাতের স্বীকৃতি স্বরুপ খেলাফত প্রদান করেন। তন্মধ্যে প্রায় অর্ধশত হলেন বাংলাদেশের বাসিন্দা। আবার সেই সোনালী কাফেলার ৩০ জনই বৃহত্তর সিলেটের অধিবাসী। বেলায়েতের সবোচ্চ আসনে অধিষ্ঠিত সেই মহান আল্লাহ ওয়ালা বুযুর্গদের অন্যতম হলেন হযরত মাওলানা লুৎফুর রহমান শায়খে বর্ণভী (রাহ.)। তিনি ছিলেন একাধারে শিক্ষক, প্রখ্যাত বুজুর্গ, মুহাদ্দিস, মুবাল্লিগ, মুছান্নিফ, মুফাক্কিরে ইসলাম, খাদিমুল ক্বওম, ওয়ায়েজ, আর্ত-মানবতার সেবায় একজন নিবেদিতপ্রাণ।
জন্ম: সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৫ নং কালাপুর ইউনিয়নের বরুনা গ্রামে হযরত মাওলানা লুৎফুর রহমান বর্ণভী ১৯১৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মুন্সি হামিদ উল্লাহ ও মায়ের নাম আমেনা খাতুন । জানা যায় মুন্সি হামিদ উল্লাহর পূর্ব পুরুষগণ শেখ বুরহান উদ্দীনের বংশধর ও  সিলেটের বাসিন্দা ছিলেন। পরবর্তীতে মৌলভীবাজার এর ভানুগাছে বসতি স্থাপন করেন। এই বরুনায়ই হযরত শায়খে বর্ণভীর জন্ম হয়। তাঁর বাবা মুন্সি হামিদ উল্লাহর নামে এলাকার নাম হয় হামিদনগর।
হযরত শায়খে বর্ণভী রহ: প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন স্বীয় পিতা মুন্সি হামিদ উল্লাহর নিকট। পরবর্তীকালে সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার গাছবাড়ী মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেন। সেখান  থেকে ১৯৩৬ সালে/১৩৪১ বাংলায় দারুল উলূম দেওবন্দ গমন করেন। সেখানে ৬ বছর লেখাপড়া করে দাওরায়ে হাদীস সমাপ্ত করেন। সে সময়ে দারুল উলূম দেওবন্দের শায়খুল হাদীস ছিলেন হযরত মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী রহ.। হযরত শায়খে বর্ণভী রহ. ছাত্র অবস্থায়ই শায়খুল ইসলাম মাদানী রহ.এর নিকট বাইয়াত হন। শিক্ষা সমাপনের পর ঐতিহাসিক সাত্তা মসজিদে আধ্ম্যাতিক চিল্লা দেন। সেখানেই ১৯৪১ সালে/১৩৪৬ বাংলার মাঘ মাসের ১০ তারিখে স্বীয় শায়খ মাদানী থেকে বাইয়াতের ইজাযতপ্রাপ্ত হন তিনি। এ বছরের শেষের দিকে তিনি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন।
১৯৪১ সালে দেশে ফিরে তিনি মৌলভীবাজারের প্রসিদ্ধ মাদরাসা দারুল উলূম এ শিক্ষকতা করেন। সেখানে ১০ বছর শিক্ষকতার পর ১৯৫১ সালে নিজ গ্রামে পৈতৃক ভূমিতে আনওয়ারুল উলূম হামিদনগর বরুনা মাদরাসা প্রতিষ্ঠিত করেন। মৃত্যু পর্যন্ত তিনি এ মাদরাসার শায়খুল হাদীস ও প্রধান পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা:  ১৯৫১ সালে বরুণা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা  এবং ১৯৪৪ সালে/ ১৩৪৯ বাংলায় জনসাধারণের মাঝে দ্বীনের মৌলিক শিক্ষা বিস্তারের জন্যে আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন। ইসলামী তাহযিব তামাদ্দুন বিষয়ক মাসিক হেফাজতে ইসলাম পত্রিকা প্রকাশ করেন  ১৯৭৩ সালে। হজ্ব পালন:  ১৯৫৪ সালে /১৩৫৯ বাংলায় ১২ বৈশাখ শুক্রবার  মক্কার উদ্দেশ্যে সমূদ্রপথে জাহাজে চড়ে যাত্রা করেন। পবিত্র হজ্ব পালন করে এক মাস মদীনায় ও দুই মাস মক্কায় অবস্থান করেন।
মজলুমের পক্ষে : ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময়  মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিভিন্ন সমাবেশে যুদ্ধজয়ের দু‘আ করতেন। তিনি জালেমের বিরুদ্ধে এবং মজলুমের পক্ষে ছিলেন। সংখ্যালুঘু সম্প্রদায়ের নারী পুরুষ  নিরাপদ আশ্রয় লাভ করেছিলো তাঁর বাড়ীতে । মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়স্থল ছিলো তার বাড়ী । জনশ্রেুতি আছে, যুদ্ধের সময়ে সংখ্যালুুঘু সম্প্রদায়ের লোকদের স্বর্ণ জেওর-অলংকার, টাকা পয়সা তাঁর কাছে আমানত ছিলো। সরাসরি তিনি যুদ্ধ না করলেও তিনি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয়দাতা সুহৃদ।

পারিবারিক বৃত্তান্ত:  শায়খে বর্ণভী রহ. এর ৭ ছেলে ও ৫ মেয়ে রেখে যান। ছেলেরা হচ্ছেন- ১. হযরত মাওলানা শায়খ খলীলুর রহমান হামিদী, ২. হযরত মাওলানা  সাইদুর রহমান বর্ণভী, ৩. আলহাজ¦ হাফেজ  হামিদুর রহমান, ৪. হযরত মাওলানা মুফতি রশিদুর রহমান বর্ণভী, ৫. মরহুম শফিকুর রহমান সাবেক এম.পি, ৬. হযরত মাওলানা মুহিবুর রহমান  সালিক ও ৭. হযরত মাওলানা ওলিউর রহমান বর্ণভী।
তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই ,কিন্তু স্বীয়কর্মগুণেই তিনি এখানো বেচেঁ আছেন। কেয়ামত পর্যন্ত তাঁর সেই অমর কীর্তিতেই তিনি স্মরিত হবেন অনন্তকাল। ১৯৭৭ সালের আজকের এই দিনে (১৭ মে মঙ্গলবার ) তিনি ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহিওিয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন)।

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now