শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান নির্বাচন প্রসঙ্গে

ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান নির্বাচন প্রসঙ্গে

historyআবদুল্লাহ বিন সাঈদ জালালাবাদী: আওয়ামীলীগের একটি সৌভাগ্যই বলতে হবে যে, ধর্মীয় মহলে তাদের প্রতি নানা রকমের বিরূপ মনোভাব থাকলেও মাদ্রাসা শিক্ষা তথা ধর্মীয় শিক্ষার ব্যাপারে অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ কাজ তাদের আমলেই সম্পূর্ণ হয়েছে। যেমন: ঢাকা বকশি বাজারে নিজস্ব ভবনে মাদ্রাসা-ই-আলিয়া প্রতিষ্ঠার কাজটি হয় যখন আতাউর রহমান খান পূর্বপাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।  স্বাধীনতা যুদ্ধে যখন মাদ্রাসা শিক্ষা প্রায় বন্ধই হয়ে গিয়েছিল তখন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মুদার্রিসীনের প্রথম সভাপতিরূপে আমিই বঙ্গবন্ধুর নিকট মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড পূনর্গঠন ও বাজেটে মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য যথারীতি অর্থ বরাদ্দের দাবী জানাই। সেমতে তিনি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড গঠন করেনÑ যাতে মওলানা তর্কবাগিশ সভাপতি এবং আমি ও আমার অনুজ বঙ্গবন্ধুর প্রিয়ভাজন মওলানা জালালাবাদী (উবায়দুল্লাহ) দ’ুজনেই সদস্য ছিলাম। সে বোর্ড যথারীতি মাদ্রাসার বিভিন্ন পর্যায়ের কার্যক্রম শুরু করে এবং পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করে।  ইতিপূর্বে মাদ্রাসা শিক্ষার বিরুদ্ধে একশ্রেণির তথাকথিত বুদ্ধিজীবী তা বন্ধ করে  দেওয়ার দাবীতে বিবৃতি প্রচার করতে থাকেন। তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের কনভেনশন মুসলিম লীগের পূর্বপাক প্রধান আবুল হাশিম এবং আইয়ুব খানের ‘প্রভু নয় বন্ধু’ বইয়ের বঙ্গানুবাদকারী সৈয়দ আলী আহসানও ঐ অনাকাঙ্খিত বিবৃতিদাতাদের মধ্যে ছিলেন। ঐ পরিস্থিতিতে ’৭২ সালের প্রথমার্ধেই আমি বাংলাদেশ সীরাত মজলিসের মহাসচিবরূপে বঙ্গবন্ধুকে নবী দিবসের মহফিল উদ্বোধনের জন্যে বায়তুল মুকার্রম  জাতীয় মসজিদে আমন্ত্রণ জানাই এবং মাদ্রাসা শিক্ষার পক্ষে তাঁর অবস্থান ঘোষণার আহবান জানাই। বঙ্গবন্ধু তাই করেছিলেন। ফলে মাদ্রাসা শিক্ষা-বিরোধীরা নিরুৎসাহিত এবং আলেম সমাজ নবউদ্যমে শিক্ষা দানে ব্রতী হন। পরবর্তীতে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বঙ্গবন্ধু আমাদের সমস্ত আলেম সমাজের সম্মুখে মাদ্রাসা শিক্ষা পুনর্বহালের ঘোষণা পুনরায় প্রদান করেন।
আমাদের বহুল আকাঙ্খিত ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় সরকার নিয়োজিত কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠিত না করে তথাকথিত “ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়” নামে একটি জেনারেল ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করে  সরকার আমাদেরকে ধোঁকা দিয়েছিল। এবার শেখ হাসিনার সরকার আমাদের দাবীর বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়ে আসল ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় এর কার্যক্রম শুরু করেছেন।
উক্ত শুভ উদ্যোগগুলোর জন্যে আওয়ামী লীগ ইতিহাসে যে গৌরবের আসনটি দখল করে নিল, তা কোন শত্রুও কোন দিন অস্বীকার করতে পারবে না। এবার আওয়ামী লীগের সম্মুখে আরেকটি সুবর্ণ সুযোগ উপস্থিত। ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়টি যথাস্থানে পূর্ণ মর্যাদায় প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে তাঁরা সে সুযোগটি কাজে লাগাতে পারেন। বৃটিশ আমলের ঢাকার জাতীয় কারাগারভবনটি স্থানান্তরের ফলে যে সতেরো একর স্থান খালি হয়েছে, তাতে কেবল জাতীয় চার নেতার স্মৃতি ও প্রাচীন ফাঁসি কাষ্ঠের স্থানটিকে ঐতিহাসিক স্মৃতিরূপে বাকী রেখে অবশিষ্ট পুরোটা স্থানই ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যে বরাদ্দ করা যেতে পারে। উল্লেখ্য, ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যে মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্রের অনুদানে গাজীপুরে একটি সুদৃশ্য ও টেকসই বিশ্ববিদ্যালয় কমপ্লেক্স নির্মিত হয়েছিলÑ যেখানে এখন আন্তর্জাতিক কারিগরী বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। ন্যায্য মতে সে ভবনে ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ শুরু করলে কোন সমস্যাই নেই, কিন্তু তা যদি না করা হয়, তাহলে বর্তমানে কারাগারের শূণ্য স্থানটি এর সর্বাধিক উপযুক্ত প্লটরূপে বিবেচিত হওয়ার দাবী রাখে। কেননা,  এটি দুই শতাধিক বছরের ঐতিহাসিক স্মৃতিবহ সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা এবং বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড-সংলগ্ন। আর ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃহত্তম অঙ্গসংগঠন হবে এই আলিয়া মাদ্রাসাই। উল্লেখ্য, কোলকাতায় আলিয়া মাদ্রাসাকে ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ সরকার আলিয়া মাদ্রাসা বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত করেছে।
এ স্থানটি মোগল আমলের ঐতিহাসিক চকবাজার,স্মরণীয় ইসলামী প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন বড়কাটরা  ও ছোটকাটরা দুর্গ এবং বুড়িগঙ্গা নদীর অদূরেই অবস্থিত। চকবাজার মসজিদের চত্বরেই উপমহাদেশের বিখ্যাত ‘হাদীয়ে বাংগাল ও আসাম’ নামে খ্যাত মওলানা কারামত আলী জৌনপুরী রহ. এর বুযুর্গ পুত্র মওলানা হাফিয আহমদ রহ. এর মাযার অবস্থিত। এ ছাড়া আমাদের তথা গোটা উপমহাদেশের মুসলমানদের গর্বের ধন ডক্টর মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ মরহুমের বাসভবনও কারাগার সংলগ্ন ছিল। এ সব মিলিয়ে ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় কমপ্লেক্স তখন একটি বিশাল ইসলামী কমপ্লেক্সের রূপ ধারণ করবে এবং আওয়ামী লীগ সরকারের একটি স্মরণীয় কীর্তিরূপে বিবেচিত হবে। অতএব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের অনুরোধ হবে, আপনার বিজ্ঞ পিতা যেমন শুধু বাংলাদেশের স্থপতিরূপেই নয়, তাঁর ইসলামী খেদমতসমূহের জন্যেও ইতিহাসে তাঁর যোগ্য আসন দখল করে নিয়েছেন, তেমনি আপনিও তাঁর সুযোগ্যা কন্যারূপে ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়টি এমন একটি ঐতিহাসিক স্থানে প্রতিষ্ঠা করে ইতিহাসের সে গৌরবের আসনটিতে নিজের স্থান করে নিন! এর চাইতে উত্তম সুযোগ জীবনে আর নাও আসতে পারে। আল্লাহই তওফীকদাতা!

লেখক পরিচিতি:
আবদুল্লাহ বিন সাঈদ জালালাবাদী
প্রাক্তন ছাত্র, মাদ্রাসা আলিয়া ঢাকা
ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় আন্দোলন ৬৩-৬৪ এর সংগঠক,
নির্বাহী সভাপতি ,পূর্বপাক জমিয়তে তোলাবায়ে আরবিয়া(১৯৬৭Ñ৬৮)
বাংলাদেশ জমিয়তুল মুদার্রিসীনের প্রথম সভাপতি (১৯৭২)
বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের বঙ্গবন্ধু মনোনীত সদস্য (১৯৭২)
প্রাক্তন ইমাম ও খতীব, গণভবন মসজিদ ও বাংলাদেশ সচিবালয় মসজিদ (১৯৭৬-২০০৫)
সদস্য, পূবালী ব্যাংক শরী‘আ সুপারভাইজারী কাউন্সিল ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now