শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » বাংলাদেশে বিচারের নামে অবিচার চলছে’ –আমেরিকায় এইচআরডিবি’র সেমিনারে টবি ক্যাডম্যান

বাংলাদেশে বিচারের নামে অবিচার চলছে’ –আমেরিকায় এইচআরডিবি’র সেমিনারে টবি ক্যাডম্যান

রশীদ আহমদ (নিউইর্য়ক): আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মানবাধিকার আইনজীবী,টবি ক্যাডম্যান বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষ যুদ্ধাপরাধ ইস্যু নিয়ে ব্যাপকভাবে বিভক্ত। সাথে সাথে চরম ভাবে মানবাধিকার লংঙ্ঘিত হচ্ছে।অথচ বাংলাদেশ সরকার সে বিষয়ে কোন কার্যকর উদ্যোগ নিচ্ছে না।সাধারণ মানুষ এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিদের প্রকাশ্য ধরে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ এবং আইন শৃংখলা বাহিনী।তাদের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে।দেশের মিডিয়া এসব কথা বলতে বা লিখতে পারছে না।তিনি অভিযোগ করেন দেশে বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য একটি ট্রাইবুনাল গঠন করা হয়েছে কিন্তূ সেই ট্রাইবুনাল সরকারের নির্দেশে একের পর এক মৃত্যুদন্ডের রায় দিয়েই যাচ্ছে।
একটি স্বাধীন দেশে বিচারের নামে অবিচার চলছে।  যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ উঠবে, তাদের সবাইকে অবশ্যই দোষী সাব্যস্ত করতে হবে এবং ফাঁসি দিতে হবে। এর চেয়ে কম কিছুই যথেষ্ট বিবেচিত হবে না। এমনকি বিচারবুদ্ধি সম্পন্ন ব্যক্তিরাও যুদ্ধাপরাধের প্রশ্নে কান্ডজ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এখানে ন্যায়বিচার ও যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণের কোনো স্থান নেই। সরকার যতই দাবী করুক না কেন, ট্রাইব্যুনালের গঠণ প্রক্রিয়া ও সংশ্লিষ্ট বিধিতে যে ত্রুটি রয়েছে তা সংশোধন না করার কারণে এটি আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল তো নয়ই, জাতীয় ট্রাইব্যুনালও নয়। বাংলাদেশে বিচারের নামে যে অবিচার হচ্ছে, সে ব্যাপারে চোখ বন্ধ করে থাকার কোনো উপায় নেই।
৬ ডিসেম্বর শনিবার সিটির জ্যামাইকার ইর্য়ক কলেজ মিলনায়তনে ‘বাাংলাদেশে বিচার বিভাগীয় ও বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড’ শীর্ষক সেমিনার প্রধান আলোচক হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।
`হিউম্যান রাইটস এন্ড ডেভেলপমেন্ট ফর বাংলাদেশ'(এইচআরডিবি’র) আয়োজনে সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন মানবাধিকার নেতা মাহতাবউদ্দিন আহমেদ।দুপুর দুইটায় শুরু হওয়া সেমিনার চলে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত।

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন যুদ্ধাপরাধ বিশেষজ্ঞ টবি ক্যাডম্যান বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের বিচারপ্রক্রিয়া এবং এ নিয়ে সৃষ্টি সার্বিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে তুলে ধরে বলেন, ২০১০ সালের অক্টোবরে তিনি যখন প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আসেন, তখন ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে ভিআইপি লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়েছিল। বিমানবন্দর থেকে তিনি হোটেল সোনারগাঁও ছুটে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আয়োজিত যুদ্ধাপরাধের নিরপেক্ষ বিচারবিষয়ক এক সভায় বক্তৃতা করতে। কিন্তু এই রাজসিক সম্মান খুবই স্বল্পস্থায়ী হয়েছিল। এরপরপরই বাংলাদেশ সরকারের তীব্র বিরোধিতার মুখে পড়েন তিনি।
ব্রিটিশ এ আইনজীবি বলেন, ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান নিজামুল হক ও জিয়াউদ্দিনের মধ্যে যে আলাপ হয়েছে তাতে এটি ষ্পষ্ট যে শুরু থেকেই ট্রাইব্যুনাল স্বাধীন ছিল না। সরকার যতই দাবী করুক না কেন, ট্রাইব্যুনালের গঠণ প্রক্রিয়া ও সংশ্লিষ্ট বিধিতে যে ত্রুটি রয়েছে তা সংশোধন না করার কারণে এটি আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল তো নয়ই, জাতীয় ট্রাইব্যুনালও নয়। ট্রাইব্যুনালের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ফৌজদারি আইন ও সাক্ষ্য আইনকে গ্রহণ করা হয়নি এবং আন্তর্জাতিক আইনের ধারেকাছেও যায়নি। ফলে ট্রাইব্যুনালের  বিচারে আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখার যে দাবী সরকার করে আসছে তা রাখা তো দূরের কথা, জাতীয় মানও বজায় রাখা সম্ভব হবে না।

তিনি বসনিয়ায় যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউটর হিসেবে তার আট বছরের অভিজ্ঞতার আলোকে বলেন, বসনিয়ার ট্রাইব্যুনাল আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল ছিল না, সেটি তাদের ন্যাশনাল ট্রাইব্যুনাল ছিল। কিন্তু বসনিয়া সরকার বিচার পরিচালনায় আন্তর্জাতিক আইনের সহযোগিতা নিয়েছে। সেখানে আন্তর্জাতিক বিচারক, আন্তর্জাতিক প্রসিকিউটর ও আন্তর্জাতিক তদন্তকারীরা ছিল বলে বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে কোন প্রশ্ন উঠেনি। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার ‘সমগ্র বিশ্বের জন্য দৃষ্টান্ত’ সৃষ্টি করতে সকল আন্তর্জাতিক আইন অগ্রাহ্য করেছে।মি:টনি বলেন,দেশ জুড়ে অব্যাহতভাবে বৃদ্ধি পাওয়া গুম,খুন এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের উপর পুলিশি ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস এবংহয়রানি বন্ধ করা জরুরী।বাংলাদেশের মানুষের জীবন আজ সম্পন্নরুপে হুমকির মুখে।

আলোচনা অংশ গ্রহন করেন ডউসন কলেজ কানাডার অধ্যাপক ড.আবিদ বাহার, ইউনিভাসির্টি অফ নর্থ ক্যারোলিনার অধ্যাপক ড.নকিবুর রহমান, মুলধারা নেতা ড.আব্দুল হাফিজ, নিউইর্য়ক মজলিশে শুরা’র সদস্য, শাইখ আহমেদ, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও যুক্তরাষ্ট বি,এন,পির সাবেক সাধারণ সম্পাদক,জনাব জিল্লুর রহমান জিল্লু, এইচআরডিবি’র সহসভাপতি মীর মাসুম আলী, কমিউনিটি এক্টিভিষ্ট ড. নিজামুদ্দীন, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. জুন্নুন চৌধুরী, এর্টণী আব্দুল আজিজ, মুলধারা ও কমিউনিটি এক্টিভিট্স, শাহানা মাসুম, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক নূরুল ইসলাম, এ প্রজন্মের তালহা শাহাজ ও উমামা মাসুম। প্রফেসর জাহিদ জামির ও নুসরাত জাহান এর যৌথ পরিচালনায় শুরুতে পবিত্র কালামে হাকীম থেকে তেলাওয়াত করেন মোহাম্মদ তারেক।হলবর্তী প্রবাসী  বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ ছাড়াও অন্যান্য কমিউনিটির নেতাদের সরব উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now