শীর্ষ শিরোনাম
Home » পত্রিকার পাতা থেকে » কওমি আলেমদের একটি অংশকে নিয়ে বেফাকে উদ্বেগ

কওমি আলেমদের একটি অংশকে নিয়ে বেফাকে উদ্বেগ

a04a6d9b8b4e9802853e3399d5354fe7-5728bb615f6bd

ফয়েজ উল্লাহ ভূঁইয়া : কওমি আলেমদের একটি অংশকে নিয়ে কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাক) সংশ্লিষ্ট আলেমদের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। তাদের আশঙ্কা কয়েকটি মাদরাসা ও অঞ্চল কেন্দ্রিক কয়েকজন কওমি আলেম সরকারের সাথে ঘনিষ্ঠতা বজায় রেখে আসছেন। তারা সরকারের ইচ্ছানুযায়ী প্রস্তাবিত শিক্ষা আইন এবং কওমি সনদের পক্ষ নিয়ে নিতে পারেন। এতে সামগ্রিকভাবে বিভ্রান্তি তৈরি হতে পারে।

ইতোমধ্যেই শিক্ষা আইন বাতিল এবং কওমি সনদের স্বীকৃতি না নেয়ার বিষয়ে শক্ত অবস্থান নিয়েছে বেফাক। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার হাটহাজারীতে বেফাকের সভাপতি আল্লামা শাহ আহম্মদ শফীর সভাপতিত্বে বেফাক নেতাদের শীর্ষ বৈঠকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত ও কর্মপদ্ধতি নির্ধারিত হয়েছে। শিক্ষানীতি, শিক্ষা আইন ও কওমি শিক্ষা সনদের ইস্যুতে অনুষ্ঠিত আগের কয়েকটি সম্মেলন ও সভায় ওই সন্দেহভাজন আলেমরা অংশ নেননি। এ ছাড়া নানা ইশারা ইঙ্গিতে সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নেয়ার পক্ষে তারা মত দিচ্ছেন বলে মনে করছেন বেফাকের নেতারা। এ ছাড়া বেফাকের সভা সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন এমন আলেমদের মধ্যে কয়েকজনের গতিবিধিকে সন্দেহজনক মনে করছেন বেফাকের কেউ কেউ।
বেফাক নেতারা এই সন্দেহভাজন আলেমদের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে বলতে চাইছেন না। তাদের মধ্যে একজন চট্টগ্রামের একটি বড় মাদরাসার মহাপরিচালক, আরেকজন যাত্রাবাড়ী এলাকার একটি মাদরাসার মুহতামিম, একজন একটি অঞ্চলের একটি সুপরিচিত মাদরাসার প্রধান এবং আরেকজন একটি ইসলামি দলের শীর্ষস্থানীয় নেতা। মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদসহ সরকার সমর্থক কওমি আলেম হিসেবে পরিচিত কয়েকজনও রয়েছেন। যদিও অতি সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বেফাকের একটি ওলামা সম্মেলনে মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ অংশ নেন। এই নিয়ে কওমি আলেমদের মধ্যে অস্বস্তি দেখা দেয়। পরে জানা যায় ভুলক্রমে তাকে দাওয়াত দেয়া হলে তিনি সম্মেলনে যোগ দেন। সম্মেলনে তিনি বক্তব্য দেয়ার ইচ্ছা ব্যক্ত করলে ভদ্রতার খাতিয়ে বক্তব্য দিতেও দেয়া হয়। সংশ্নিষ্টরা জানিছেন, পরিস্থিতি বুঝে তিনিও শিক্ষা আইন ও কওমি সনদের ব্যাপারে ‘মাঝামাঝি’ ধরনের বক্তব্য দেন।
মূলত গত মঙ্গলবার হাটহাজারী মাদরাসায় অনুষ্ঠিত বেফাকের শীর্ষ নেতাদের সভায় কওমি আলেমদের একটি অংশ সরকারের পক্ষে অবস্থান নিয়ে নিতে পারে বলে আশঙ্কা ব্যক্ত করা হয়। সভায় বেফাকের সভাপতি আল্লামা শাহ আহমদ শফী পরিষ্কারভাবে বলেন, সরকার কওমি মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস ও শিকল পরাতে চাইছে। তিনি সঙ্কটময় সময়ে ছোটখাটো মতপার্থক্য ভুলে সর্বাবস্থায় ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।
এরপরই বৃহস্পতিবার বেফাক কার্যালয়ে সকালে বেফাকের শীর্ষ নেতাদের আরেকটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তাতে অন্যান্যের মধ্যে হেফাজতের মহাসচিব ও হাট হাজারী মাদরাসার মুহাদ্দিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী অংশ নেন। সেই বৈঠকেও একই প্রসঙ্গ উঠে আসে এবং এতে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এরপরই বেফাক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জব্বারের নেতৃত্বে বেফাকের একটি প্রতিনিধি দল দুপুরে সচিবালয়ে শিক্ষা সচিবের সাথে বৈঠক করে শিক্ষা আইন বাতিল এবং পাঠ্যপুস্তকে ইসলামি বিষয় বাদ দিয়ে হিন্দুত্ববাদী অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে বেফাক প্রকাশিত বুকলেট হস্তান্তর করেন এবং বেফাকের বক্তব্য তুলে ধরেন। এ বিষয়ই প্রতিনিধি দল পুলিশের মহাপরিদর্শকের সাথে বৈঠক করেন।
জানতে চাইলে বেফাকের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদী নয়া দিগন্তকে বলেন, কওমি সনদের স্বীকৃতির লোভ দেখিয়ে কিছু আলেমকে সরকার নিজেদের পক্ষে নেয়ার চেষ্টা করছে। এটা আমরা বুঝতে পারছি। তিনি বলেন, আমরা কওমি আলেমদের একটি গ্রুপকে সন্দেহ করছি। তারা সরকারের ইচ্ছার সাথে একমত পোষণ করে শিক্ষা আইন ও কওমি সনদের পক্ষে অবস্থান নিতে পারে। তাদের ব্যাপারে আমরা সবাইকে সতর্ক করছি। আলেমদের মধ্যে সচেতনা তৈরির চেষ্টা করছি। সন্দেহভাজন আলেমদের নাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের কয়েকজন অতীতেও সরকারের সাথে তাদের ঘনিষ্ঠতার প্রমাণ দিয়েছেন। তাদের কয়েকজনকে আমরা বেফাকে ডাকলেও অনেক আগ থেকেই আসছেন না।
তিনি বলেন, খসড়া শিক্ষা আইনের ধারা ‘সরকার কওমি মাদরাসা শিক্ষার মানোন্নয়ন ও কওমি মাদরাসা শিক্ষাকে যুুগোপযোগী করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।’ যা কওমি মাদরাসাকে শিকল পরানোর শামিল। এ ছাড়া সরকারের অনুমোদন ছাড়া কোনো বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করা যাবে না, বই পড়ানো যাবে না, সরকার চাইলে প্রতিষ্ঠান বন্ধ ও একীভূত করতে পারবে- এই ধরনের অনেক শর্ত শিক্ষা আইনে সাধারণভাবে বলা আছে। সরকার এসব ধারাকে কওমি মাদরাসার বিরুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে বলে আমাদের আশঙ্কা।
আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, খসড়া শিক্ষা আইন কওমি ও দেওবন্দী শিক্ষাকে ধ্বংস করবে। এই আইনের পক্ষে কোনো আলেম থাকবে বলে আমরা বিশ্বাস করি না। তবে আলেমদের দুই-চারজন কওমি সনদের পক্ষে বলে আমাদের কাছে মনে হচ্ছে। তাদের মত হচ্ছে, সরকার দিতে চাইলে তা নিতে আপত্তি কোথায়। আমরা বেফাকের পক্ষ থেকে তাদের বুঝানোর উদ্যোগ নিয়েছি। বর্তমান অবস্থায় এই স্বীকৃতি নিলে কী উপকার কী ক্ষতি হবে সেটা বুঝানো হবে। তিনি বলেন, ব্রিটিশ আমলে এবং বর্তমান ভারতেও যেভাবে কওমি মাদরাসা স্বাধীনভাবে চলছে সেভাবে ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশে চলতে বাধা কোথায়? তিনি বলেন, খসড়া শিক্ষা আইন শুধু মাদরাসা শিক্ষাকেই ধ্বংস করবে না, স্কুল কলেজেও নতুন প্রজন্ম ইসলামবিমুখ হয়ে ধ্বংসের দিকে যাবে। ইতোমধ্যেই আমরা পাঠ্যপুস্তক থেকে ইসলামি বিষয় বাদ দিয়ে হিন্দুত্ববাদী বিষয় লাগিয়ে দিতে দেখছি। এটা মহাবিপদ সঙ্কেত। এগুলোর বিরুদ্ধে আলেমদেরই সবার আগে দাঁড়াতে হবে।

সুত্র_নয়া দিগন্ত

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now