শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » মোবারকহো মাহেরমজান, প্রসঙ্গ বিজ্ঞানময় কোরআন

মোবারকহো মাহেরমজান, প্রসঙ্গ বিজ্ঞানময় কোরআন

CL0004মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: আজ মঙ্গলবার ১লা রমজান ১৪৩৭ হিজরী, মোতাবেক ৭ জুন ২০১৬ ঈসায়ী।রহমত,মাগফিরাত ও নাজাতের মাস শুরু। ইবাদাতের এই বসন্তকাল, পবিত্র রমজান মাস অত্যন্ত বরকতপূর্ণ একটি মাস। রোজার উদ্দেশ্য কেবল এটা নয় যে, কিছু সময় খাবার-দাবার থেকে বিরত থাকলাম আর হয়ে গেল। আমাদেরকে খাবার-দাবার থেকে যেমন বিরত থাকতে হবে তেমনি সকল প্রকার মন্দ কাজ থেকে নিজেকে দুরে রাখতে হবে আর আলøাহর ইবাদতে আগের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে যেতে হবে তবেই রোজা রাখা আমাদের স্বার্থক হবে। পবিত্র মাহে রমজানে আমরা যদি রোজা রেখে বেশি বেশি নফল ইবাদত করি, কোরআন তেলাওয়াত করি তাহলে আমাদের অন্তর আলোকিত হবে আর আলøাহর সাথে আমাদের সম্পর্ক সৃষ্টি হবে যার ফলে আমরা তাঁর নৈকট্য লাভ করতে পারব। কোরআন তেলাওয়াত করা মানে আল্লাহর সাথে কথা বলা। কোরআন নাযিলের এই মাসে বেশীকরে কোরআন তেলাওয়াত করা কর্তব্য। যেহেতু রমজান মাসকে সমগ্র মানব জাতির জন্য হেদায়েতের বিধান প্রদানের মাস হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। তাই মুসলিম মিল্লাত যারা হেদায়েতের সর্বশেষ কিতাব কুরআনের ধারক ও বাহক, তাদের উচিত তারা যেন প্রতিবছর এ রমজান মাসকে মাসব্যাপী সিয়াম সাধনা, কুরআন বুঝে পড়া ও ইবাদতের নানাবিধ প্রশিণের মাধ্যমে উদযাপন করে। হযরত নূহ (আ.) থেকে ঈসা (আ.) পর্যন্ত প্রায় সকল নবী রাসূলই এ মাসে আল্লাহর কিতাব, কিংবা ছহিফা লাভ করেছিলেন।
কুরআনুল কারীম যদিও ২৩ বছরের সুদীর্ঘ সময়ে অবতীর্ণ হয়েছিল কিন্তু তা অবতরণের সূচনা হয় কদরের রাত্রিতেই। তাছাড়া ছহীহ হাদিছে বর্ণিত আছে যে, প্রতি বছর রমজান মাসে হযরত জিব্রাইল (আ.) নবীজীকে পুরো কুরআন পাঠ করে শোনাতেন। সুতরাং, মুসলমানদের উচিত কুরআন নাজিলের এ মাসে বেশি করে কুরআন তিলাওয়াত করা ও কুরআন সম্পর্কে গবেষণা করা। কেননা কুরআন তার তিলাওয়াতকারীর জন্য কিয়ামতের ময়দানে সুপারিশ করবে। পবিত্র রমজানেই যেহেতু অবতীর্ণ হয়েছিল পবিত্র কোরআন। তাই কোরআন প্রসঙ্ঘে কিছু তথ্য জানা দরকার। সব সমস্যার সমাধান,দিতে পারে আল কুরআন; এটি একটি চমৎকার ¯েøাগান। পৃথিবীর যাবতীয় সমস্যার সমাধান একমাত্র কুরআনই দিতে পারে । কুরআন যেমন সমস্যার সমাধান দেয়, তেমনি সম্ভাবনার সন্ধানও দেয় । এখন প্রশ্ন হচ্ছে, পৃথিবীর সবকিছুই কুরআনে আছে, একথাটি কতটুকু যুক্তি যুক্ত ? প্রযুক্তির এই যুগে আবেগ বা হুজুগের তো স্থান নেই । বাস্তবতার মানদন্ডে যুক্তির নিরিখেই সকল কিছু বিশ্লেষন করতে হবে। বর্তমান বিশ্বে উন্নতি ও অগ্রগতির পরিমাপক মনে করা হয় বিজ্ঞানকে। এক্ষেত্রে বিজ্ঞানের ফায়সালা কী? বর্তমান বিশ্বের বিজ্ঞানকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলা যায়, প্রযুক্তির শেষ নির্যাসটুকু ব্যবহার করেও কুরআনের কোনো একটি বাক্য বা শব্দকে অবৈজ্ঞানিক প্রমাণ করা যাবে না। বিজ্ঞান ও কুরআনের মধ্যে মতের অমিল দেখা দিলে কুরআনের সিদ্ধান্তকেই সঠিক বলে মেনে নিতে হবে কারণ; দেড় হাজার বছর আগে থেকে নিয়ে এ পর্যন্ত কুরআন তার সিদ্ধান্তে কোনো পরিবর্তন আনে নি। পান্তরে সময়ের সাথে সাথে একই বিষয়ে বিজ্ঞানের সিদ্ধান্তেও পরিবর্তন হয়ে থাকে। বিজ্ঞানিরা বছরের পর বছর চেষ্টা-তদবির করে পরীা-নিরীার মাধ্যমে একটি সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। দেখা গেছে কিছুদিন পর তারা ফিরে এসেছেন তাদের সিদ্ধান্ত থেকে। একসময় বিজ্ঞানিরা আমাদের জানিয়েছেন; পৃথিবী স্থির। চন্দ্র সূর্য ঘুরছে। প্রখ্যাত বিজ্ঞানি পিথাগোরাস টলেমি ও টাইকো ব্রাহের মতো বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানিরা এই মত দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে কেপলার ও কোপার্নিকাস এর মতো বিজ্ঞানিরা এসে ঘোষণা দিলেন; আগের ধারণাটি সঠিক ছিলো না। সূর্য নয়, পৃথিবী ঘুরছে। আবার বর্তমান বিশ্বের প্রায় সকল বিজ্ঞানিরাই একমত পোষন করে বলেছেন;চন্দ্র সূর্য পৃথিবী সবগুলোই ঘুরছে। অনেক ঘুরাঘুরি করে এবারে তারা লাইনে এসেছেন। কারণ ১৪শ বছর আগে ঠিক এই কথাটিই কুরআন বলে রেখেছে। সুরায়ে ইয়াসিনে ঘোষণা হচ্ছে, চন্দ্র সূর্য পৃথিবী সবকিছুই নিজ নিজ কপথে পরিভ্রমণ করছে। এই আলোচনা থেকে আমরা বলতে পারি, বিজ্ঞান ও কুরআনের মাঝে সম্পর্ক কখনো হয় সামঞ্জস্যপূর্ণ কখনো সাংঘর্ষিক। আর এটা নির্ভর করে বিজ্ঞানিদের সিদ্ধান্তের ধরণের উপর। এমন নয় যে, বিজ্ঞানিরা সব বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌছতে পারেন। অনেক েেত্র তারা ভুলও করেন। সুতরাং আধুনিক বিজ্ঞানের সঠিক থিওরীগুলো যে কুরআন থেকেই উৎসারিত, একথা আর না বললেও চলে।
পৃথিবীর সবচেয়ে পুরোনো কোরআন লেখা হয়েছিল ইসলামের তৃতীয় খলিফা হজরত উসমান (রা.)-এর সময়। মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ইন্তেকালের ১৯ বছর পর খলিফা উসমান (রা) কোরআনের সম্ভাব্য বিকৃতি রোধে এর সব আয়াত সংকলনের প্রয়াস হাতে নেন। এ লক্ষে তিনি কোরআন শিক্ষায় একটি কমিশন গঠন করেন। সেই কমিশন একসঙ্গে কোরআন শরিফের পাঁচটি সংকলন তৈরি করে। সেই পাঁচটি সংকলন পাঠানো হয় খিলাফতের বিভিন্ন প্রান্তে। হজরত উসমান (রা.) নিজের ব্যবহারের জন্য মদীনায় একটি সংকলন রেখে দেন। পাঁচটি সংকলনের মধ্যে আরও একটি রক্ষিত ছিল বর্তমান তুরস্কের টোপকাপি প্রাসাদে। হজরত উসমানের মৃত্যুর পর ইসলামের চতুর্থ খলিফা হজরত আলী (রা.) মদীনায় রক্ষিত কোরআনের সেই কপিটি নিয়ে যান বর্তমান ইরাকের কুফায়। তৈমুর লং পরবর্তী সময় ইরাকে অভিযান চালিয়ে পুরো এলাকা ধ্বংসযজ্ঞে পরিণত করেন। কোরআন শরিফের সেই কপিটি তৈমুর লং দখলি সম্পদ হিসেবে তাঁর রাজধানী তাসখন্দে নিয়ে যান। বর্তমান উজবেকিস্তানের তাসখন্দে কোরআনের সেই কপিটি রতি ছিল ১৮৬৮ সাল পর্যন্ত। রুশরা তাসখন্দ দখল করে নিলে কোরআনের সেই কপিটির পরবর্তী অবস্থান হয় রাশিয়ান ইমপেরিয়াল গ্রন্থাগারে। হজরত উসমানের (রা.) কাছে থাকা কোরআনে কপিটির বর্তমান অবস্থান উজবেকি¯Íানের তাসখন্দে অবস্থিত হাসত-ইমাম গ্রন্থাগারে। পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন শিক্ষার বৃহত্তম বিদ্যালয় তৈরির পরিকল্পনা করছে¿ ইরান। দেশটির শিক্ষা বোর্ডেও অধীনে রাজধানী তেহরানের দণি-পশ্চিমাঞ্চলে স্থাপিত হতে যাচ্ছে কোরআন শিক্ষার এই বৃহত্তম বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়টির নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে। প্রায় ২২ হাজার বর্গমিটার জায়গাজুড়ে নির্মিত হচ্ছে পৃথিবীর বৃহত্তম কোরআন শিক্ষার এই বিদ্যালয়টি। সারা বিশ্বের যেকোনো প্রান্তথেকে কোরআন শিক্ষায় আগ্রহী মানুষ এই বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবেন। শুধু কোরআন শরিফ পড়তে পারাই নয়, কোরআনের মর্মবাণী আত্মস্থ করার শিক্ষাও এই বিদ্যালয়ে দেওয়া হবে।
আফগানরা পাঁচ বছরের প্রচেষ্টায় তৈরি করেছে বিশ্বের বৃহত্তম কোরআন শরিফ। ১০০০ পাউন্ড ওজনের এই কোরআন শরিফটির দৈর্ঘ্য ৭ দশমিক ৫ ও প্রস্থ ৫ দশমিক ১০ ফুট, পৃষ্ঠা সংখ্যা ২১৮। আফগান সরকারের হজ ও ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে তৈরি হওয়া এই কোরআন শরিফটির প্রচ্ছদে ব্যবহূত হয়েছে ২১টি গবাদিপশুর চামড়া। দামি চামড়ার তৈরি প্রতিটি পৃষ্ঠায় অপরূপ সোনালি ক্যালিগ্রাফিতে বিবৃত হয়েছে এর কালাম। পৃথিবীর বৃহত্তম এই কোরআন শরিফ তৈরি করতে আফগানি¯Íানের ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে ব্যয় করতে হয়েছে তিন লাখ পাউন্ড। ২০০৯ সালে শুরুকরে এ বছরের প্রথমদিকে কাজ শেষ হওয়া পৃথিবীর বৃহত্তম এই কোরআন শরিফটি বর্তমানে রতি আছে রাজধানী কাবুলের সংস্কৃতিকেন্দ্রে। মোহাম্মদ সাবির খেদরি নামের এক ক্যালিগ্রাফারের অধীনে নয়জন ছাত্র দিনরাত খেটেছেন। আফগানদের হাতে তৈরি পৃথিবীর বৃহত্তম কোরআন শরিফ যেন জানান দিচ্ছে ইসলামের প্রতি তাদের ভালোবাসা ও অপার ইচ্ছাশক্তির।
আফগানি¯Íানের আগে পৃথিবীর বৃহত্তম কোরআন শরিফ তৈরি হয়েছিল রাশিয়ার তাতার¯Íানে। ৮০০ কেজি ওজনের ৬৩২ পৃষ্ঠা সংবলিত সেই কোরআন শরিফের দৈর্ঘ্য সাড়ে ছয় ফুটের একটু বেশি এবং প্রস্থ সাড়ে তিন ফুট। প্রচ্ছদ তৈরি হয়েছিল সোনা ও মূল্যবান পাথরের গাঁথুনিতে। তাতার¯Íানের সেই কোরআন শরিফটি তৈরি হতে সময় লেগেছিল পুরো একটি বছর। তবে এটি তৈরি করতে কত খরচ পড়েছিল, তা অবশ্য অজানাই রয়ে গেছে। (সূত্র: দি গার্ডিয়ান, ১৭ জানুয়ারি ২০১২) অপরদিকে, ১২০৩ সালের রমজান মাসে লেখা কোরআনের একটি কপি ২৩ অক্টোবর ২০০৭ লন্ডনে নিলামে ওঠে। নিলামে এটি বিক্রি হয় রেকর্ড ২৩ লাখ মার্কিন ডলারে। একে নির্দ্বিধায় কোরআনের সবচেয়ে দামি কপি হিসেবে অভিহিত করা যেতে পারে। ইয়াহিয়া বিন মুহাম্মদ ইবনে উমর নামের এক ব্যক্তির স্বার-সংবলিত কোরআনের এই কপিতে তারিখ দেওয়া আছে ৫৯৯ হিজরি সনের ১৭ রমজান। ১৯০৪ সালে হিসপ্যানিক সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা আর্চার মিল্টন হটিংটন কায়রো থেকে (১৯০৫) কোরআনের এই কপিটি সংগ্রহ করেন। পৃথিবীর সবচেয়ে দামি এই কোরআনের ক্যালিওগ্রাফি অত্যন্ত আকর্ষণীয়। কালো লাইনের ওপর সোনার হরফে এর আয়াতগুলো লেখা। প্রতিটি পৃষ্ঠায় বিভিন্ন আয়াতের যে ব্যাখ্যা দেওয়া আছে, সেগুলো রুপালি হরফে লেখা।
পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট কোরআনের কপিটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের এক নাগরিকের কাছে রতি আছে বলে কিছুদিন আগে খবর প্রকাশিত হয়েছে। প্রায় ৪০০ বছরের পুরোনো এই কোরআন শরিফ উচ্চতায় মাত্র ৫ দশমিক ১ এবং প্রস্থে ৮ সেন্টিমিটার। এতে পৃষ্ঠা আছে ৫৫০টি। পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট কোরআনের হেফাজতকারী আরব আমিরাতের সেই নাগরিক অবশ্য খ্রিষ্ট ধর্মেও অনুসারী। আমিল ঈসা নামের সেই নাগরিক বংশপরম্পরায় কোরআনের ুদ্রতম কপির মালিক হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, কোরআনের ুদ্রতম এই কপিটি পাওয়া গেছে জেরুজালেমে আল কুদসের কাছে। (সূত্র: আল জাজিরা, মরক্কো ওয়ার্ল্ড নিউজ, ২২ এপ্রিল ২০১২।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now