শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » পুলিশী যন্ত্রনা (১-৩ পর্ব)

পুলিশী যন্ত্রনা (১-৩ পর্ব)

polihমুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:  জীবনের প্রথম কয়েক ঘন্টার হাজতবাস! থানা আর পুলিশ বলে কথা । আসলেই ওদের ‘ধর্মনেই’ এমন কথা কেউ কেউ বলেন। কথাটি একেবারে অসত্য নয়।
১লা জুন ২০১৬ ঈসায়ীর কথাই বলছি। পুলিশ সমযের ক্ষমতাসীন আর ক্ষমতাসীনদের পদলেহনকারীদের দাস এটা আবারো প্রমাণিত হলো। কোন মামলায় কখনো হাজতে যেতে হয়নি। এবার আল্লাহর ঘর মসজিদ থেকেই মসজিদের খতীব,কযেকজন কোরআনে হাফেজের সাথে আমাকেও আটক করে মদন থানা পুলিশ। কোন রকম কথাবার্তা ছাড়াই ওসি বাহাদুর মাজেদুর রহমান একদল পুলিশ নিযে মসজিদের গেইট বন্ধকরে দিয়ে আমাদের ভ্যানগাড়ীতে ঊঠতে বাধ্যকরলো। থানায় নিয়ে সরাসরি হাজত খানায় ঢুকিযে তালাঝুলিযে দিলো। কারো কোন কথা শুনতে নারাজ তিনি। শুধু বল্লেন ‘উপরের নির্দেশ’। তাঁর কিছুই করার নেই। ছোট্র রুমে উন্মক্ত বাথরুম, সিগারেটের টুকরো আর্বজনায় ভরপুর রুমেই ১৩ জনকে রাখা হলো। একজন ষার্টোধ আসামীকে পেলাম। মুক্তিপন অনাদায়ে দুইরাত থেকেই তিনি থানায় হাজতবাস করছেন!
জীবনের বিশাল অভিজ্ঞতা সঞ্চয় হলো মাত্র কয়েকঘন্টায়। আমরা তেরো জন পুলিশের হিসেব হলো ৫ x ১৩=৬৫ হাজার !

পুলিশী যন্ত্রনা (পর্ব-২)

‘পুলিশ’ শব্দটি শুনলে একসময় মানুষের মধ্যে ভয়-ভীতি সঞ্চার হতো, অপরাধিরা দৌড়ে পালাতো। আর ডিজিটাল এই যুগে তার উল্টো,অপরাধিদের সাথেই পুলিশের যত সখ্যতা ! ইদানিং এই শব্দটি অনেকটাই ‘অভিশপ্ত’ ধরনের মনে হয়। কেউ কেউ একটি বিশেষ দলের সহযোগি সদস্য বলে ও অভিহিত করেন! এই বাহিনীর সদস্যদের সাথে আত্মিয়তার সম্পর্ক করতে অনিহাপ্রকাশ করতে দেখাগেছে অনেককেই। সমাজের সবাই কিন্তু নিকৃষ্ট পর্যায়ের নয়,কিন্তু কতিপয় সদস্যের কারনেই গোটা পুলিশ প্রশাসনকেই কলংকের গ্লানী সইতে হয়। যে পুলিশ জনগনের বন্ধু হওয়ার কথা সেই পুলিশকেই বিভিন্ন সমযে আমরা সন্ত্রাস,খুনীর ভূমিকায় দেখেছি। বাংলাদেশে ইতিমধ্যে পুলিশ বাহিনী তার স্বকীয়তা,উন্নত বৈশিষ্ট্য হারিয়ে ফেলেছে একথা বলতে এখন আর তেমন হিসেব কষতে হয়না। পুলিশে ভাল মানুষ নেই ,সকলেই খারাপ আমি এমনটা বলছিনা। নিরিহ জনতার উপর নির্মম গুলীবর্ষণ, আলেম উলামাসহ সাধারণ নারী-পুরুষের উপর বর্বর আক্রমনকারীদের সংখ্যা নগন্য হলেও তাদের অপকর্মের ফলাফল ব্যাপক হওয়ায় মানুষের মধ্যে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনিহা-অনাস্থা দিন দিন তীব্র আকার ধারণ করছে। যে পুলিশ মানুষকে ভাল করার চেষ্টা করার কথা সেই পুলিশই যখন ৫/১০ টাকা থেকে ,একটি বিড়ি-সিগারেট পর্যন্ত ঘুষ নেয়, রক্ষক হযে যখন ভক্ষকের ভুমিকায় দেখা যায়, মোটাঅংকের অর্থের বিনিমযে যখন (মাওলানা শিব্বির আহমদ এর ন্যায় নিরিহ লোককের) থানায় যুলুম নির্যাতন করে জোরপুর্বক স্বীকারোক্তি আদায় করে , তখন কিন্তু গোটা পুলিশ বাহিনীর উপরই মানুষের অনাস্থা চলে আসে। আর এই অনাস্থা দেখেই পুলিশের প্রতি সাধারন মানুষের বিশ্বাস উঠে যায়,সময় সুযোগে প্রতিশোধ নিতে অথবা গণবদদোয়া,অভিশাপ দিতে থাকে।
নেত্রকোণা জেলার মদন থানার ওসি মাজেদুর রহমান গত ১লা জুন ২০১৬ বৃহত্তর ময়মনসিংহের উত্তেফাকুল উলামার সভাপতি সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম ও ময়মনসিং
জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদী সাহেব এর সাথে যে বেয়াদবী আচরণ করেছেন তা কখনো বরদাস্ত করার মতো নয়।
পরবর্তীতে কেন্দুয়া কেন্দ্রয়ি জামে মসজিদের ভিতর থেকে খতীব মুফতি আনোয়ার হোসাইনসহ ১৩ জন আলেম উলামাকে াহেতুক ভাবে আটক করে যে দৃষ্টতা দেখিযেছেন তা সত্যিই দু:খ জনক। আল্লাহর ঘর মসজিদ থেকে জোহরের নামাজের প্রস্তুতির সমযে কযেকজন কোরআনে হাফেজ ও আলেমদের বিনা অপরাধে আকট করে প্রায় ৫ ঘন্টা থানা হাজতেবেন্ধি রেখে তাদেরব্যক্তিত্বে চরম আঘাত হেনেছেন। এটা কি নাগরিক অধিকার লঙ্গন নয়? প্রচন্ড গরমে নাগরিক সুবিধা বঞ্ছিত একটি রুমে চুর সন্ধেহে আটক আসামীদের সাথে হাফেজ,আলেমদের বন্ধি রাখা এটা কতটুকু যুক্তিযুক্ত। যেখানে খাবারের পানির ব্যবস্থা নেই, বিদ্যুৎ সংযোগ থাকলেও বাতি-ফ্যান নেই , এমন একটি দুর্গন্ধময় গেঞ্জি রুমে নিরাপরাধ লোকজনদের তালাবদ্ধ রেখে মদন থানার ওসি মাজেদুর রহমান কি পুলিশের ভাবমুর্তি নষ্টকরতে সক্ষম হননি? ওসি মাজেদুর রহমানের কর্কশ ভাষা,রুক্ষ আচরণে সত্যিই সেদিন আল্লাহর অনেক প্রিয় বান্দার হৃদয়কে স্পর্শ করেছে। হাজার হাজার আলেমের উস্তাদ মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদী সাহেবকে লক্ষ করে ওসি মাজেদের আওয়াজ ছিলো : ”এই মৌলভী এদিকে আসেন, মাদরাসায় ঢুকতে পারবেননা,সোজা চলেযান”। একজন র্শীষ আলেমের সাথে উপরোক্ত শব্দ প্রয়োগ না করে আরো মার্জিত ভাষায় কথা বলা যেতো। যাক এসব বলে উলুবনে মুক্তা ছড়িযে লাভ নেই। আমাদের ১৩ জনের চেহারা দেখে একজন পুলিশ সদস্য অনেকটা আক্ষেপ করেই বললেন : তকদীরের উপর ভরসা রাখুন,কি আর করবেন , বর্তমানে ভাল মানুষরাই এখানে বেশী-আর চুর-বাটপাররা জেলের বাইরে।’
তবে হ্যাঁ-দু:খ হয়, বাবুল আক্তারের জন্য। যিনি দেশের অন্যতম চৌকস পুলিশ অফিসার তাঁর স্ত্রীও এতো নৃশংসভাবে মারা গেলেন! একজন পুলিশ অফিসার বাবুল আক্তারের চিৎকার ‘তোমরা আমার স্ত্রীকে এনে দাও’ শুনতে পান ? অর্থ বুঝতে পারেন ?
ভয়ংকর বিপদের মুখোমুখী সারা দেশ, সবাই। ঝড় আসলে দেবালয়ও এড়ায় না। প্রতিটি মৃত্যুই কষ্টের, ভয়ংকরভাবে হৃদয়ের তন্ত্রীগুলো ছিড়ে দেয়ার মতো। বিপদ যেভাবে ঘনিয়ে আসছে আপনি আমিও কি এর বাইরে ? আমাকে আপনাকেও কি এভাবেই কেউ মেরে রাস্তায় ফেলে রাখবে আর হতভাগা মা বাবা ভাই বোন লাশ ঘিরে শুধুই কাদঁবে?

পুলিশী যন্ত্রনা (পর্ব-৩)

পুলিশ জনগণের বন্ধু, এমনটাই দাবি করে এই বাহিনীটি। কিন্তু পুলিশকে নিয়ে রয়েছে নানাবিধ অভিযোগ। নানা রকমের অনিয়ম আর দুর্নীতিতে জর্জরিত এই বাহিনীর কিছু সদস্য
। বিশেষ করে বিরুধী দলের নেতাকর্মীকে আটকরে অর্থ আদায় আর ট্রাফিক পুলিশ নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। সম্প্রতি একজন বাইক চালককে গুলি করে হত্যার হুমকি পুলিশের, ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। যানবাহনের কাগজপত্র ঠিক আছে কিনা এমন অভিযানের নামে অনেক সময়ই হয়রানি করা হয় সাধারণ মানুষকে। আবার অনেকেই অবৈধ যানবাহন নিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে। প্রায় সময়ই দেখা যায়, এসব অভিযানে পুলিশ ও বাইক বা গাড়ির চালকের বাকবিতণ্ডার দৃশ্য। গতরোববার এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে রাজধানীর নিউ মার্কেট এলাকায়। ভিডিও থেকে দেখা যায়, হেলমেট না পরায় সার্জেন্ট নুরুজ্জামানের সাথে কথা কাটাকাটি হয় বাইক চালকের। এক পর্যায়ে বাইক চালক সার্জেনকে ‘বাস্টার্ড’ বলেন। এতে ক্ষেপে গিয়ে ওই চালককে গুলি করে হত্যার হুমকি দেন সার্জেন্ট নুরুজ্জামান। এসময় ঐ বাইক চালককে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন সার্জেন্ট। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অন্যান্য পুলিশ সদস্য ও সাধারণ মানুষের মধ্যস্থায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। তবে পুলিশের এমন ক্ষিপ্ত আচরণ স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেননি সাধারণ মানুষ। সামাজিক যোগাযোগের গণমাধ্যম ফেসবুকে এ নিয়ে চলছে কোঠর সমালোচনা। গত ১লা জুন মসজিদ থেকে ১৩ জন হাফেজ , আলেমকে আটক করে নেত্রকোনা জেলার মনে থানা পুলিশ। মদনের ওসির মতো রুক্ক মেজাজের অধিকারী লোক যে সারা বাংলাদেশে কতজন এর হিসেব কে রাখে ?   (চলবে)

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now