শীর্ষ শিরোনাম
Home » দুর্ঘটনা » আবু বকর সিদ্দিক জাবের সড়ক দূর্ঘনায় আহত

আবু বকর সিদ্দিক জাবের সড়ক দূর্ঘনায় আহত

13427990_1116690505041492_8525368127441621230_nসিলেট রিপোর্ট: তরুণ লেখক আবু বকর সিদ্দিক জাবের  (Abu Bakar Siddiq Zaber) এবিসি মোল্লা ভাই সিলেটে আসার পথে গতকাল হবিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়ার খবর পাওয়াগেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে গতরাত সিলেটে পৌঁছান। জানাগেছে, জাবের  নাক, মুখ, হাতে আঘাতপ্রাপ্ত হন। এব্যাপারে জাবের সিলেট রিপোর্টকে জানান,  LEEDO এর পক্ষ থেকে হবিগঞ্জ ও সিলেটে নতুন কিছু ভালমানুষের সহায়তায় ওখানের পথশিশু, চা বাগানে কর্মরত শিশু, রেল ষ্টেশনের শিশু ও পাথরকুড়ানিদের জন্য নতুন কিছু করার ভাবনায় উদ্যোগটা নেয়া হয়। সে সূত্রে, হবিগঞ্জ ডিসি ও সিলেট ডিসি (জেলা প্রশাসক) এর সাথে জরুরী সাক্ষাতের জন্য হঠাৎ যাওয়া।
গতকাল সেহরি খেয়ে প্রাইভেট কারে রওনা হই আমি ও আমার সংস্থার নির্বাহী ফরহাদ হোসেন এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট কোচ কমিটির সভাপতি ও সংস্থার ট্রাস্টি হেলালুদ্দদিন লিটন ভাই। সকাল তখন ৮.১০ প্রায়। শায়েস্তাগঞ্জ দিয়ে গাড়ি ঢুকল সদরের দিকে। পাইকপাড়া নামক জায়গায় গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারায়। আমি তখন বন্ধু মাহবুব হাসানের সাথে আলাপে ব্যস্ত কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কর্মশালা ২০১৬ তে ক্লাসের ব্যপারে।
আমারই ক্লাস নেয়ার কথা ছিল। হঠাৎ………
গাড়ি মোড় নিয়ে উল্টোপথে। সামনের দুটো গাছ ভেঙ্গে গেল উড়ে। গাড়ি থামল আরেক গাছে। গাছ লাগানোর তাৎপর্য ভালো করেই বুঝলাম আমি। নইলে পানিতে। গাড়ির সামনের অংশ অন্য আর দশটা দুর্ঘটনার মতই বিধ্বস্ত। আল্লাহ্‌র রহমতে গাড়ির গ্লাস ভেতরে না ভেঙ্গে বাইরে উড়ে গেছে। আল্লাহ্‌! আমার মোবাইল মুহূর্ত ছিটকে কই যেন গেল। পরে খুঁজে দিয়েছে স্থানীয়রা। ড্রাইভার ও আরেক ভাই সহ আমর তিনজন আহত। আমি সামনের সিটে ছিলাম। আর তাই আহত খানিক আমি বেশি হই। নাক, মুখ ও বুকে আঘাত লাগে।রক্ত ঝরে। সি.এন.জি এর সহায়তায় সদর হসপিটালে। সদর হসপিটালের ব্যস্ততা সবার জানা। ঘটনাস্থলে এডিসি ও জেলা ম্যজিস্ট্রেট এসে পৌঁছানোতে ডাক্তারদের সুনজর লাগে।
বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সার্কিট হাউজে পাঠানো হয়। আঙ্গুল, পায়ে ও বুকে আঘাত পেয়েছেন লিটন ভাই আর ফরহাদ ভাই পায়ে। ড্রাইভার সাহেব হাতে। আমি ও ড্রাইভার সাহেব থেকে যাই। রক্ত বের হওয়ায় শরীর দুর্বল ছিল।
লাগাতার ইনজেকশন, স্যালাইন ইত্যাদিতে স্বাভাবিক হওয়ায় অপারেশন হয়। মুখের বাইরে ও ভেতরে সেলাই হয় ৬ টা। অপারেশন শেষে সার্কিট হাউজে যাই। সেখানে আমাকে রেখে সিলেটের কাজ সেরে আবার এসে আমাকে নিয়ে ঢাকায়
আসার প্ল্যান হয়। কিন্তু আমি কষ্ট ডাবল হবে দেখে সিলেট যেতে রাজি হই।
সেখানের জেলা প্রশাসক বাদল ভাইয়ের বাসায় আরাম করি।
বড় রহমদিল ও সফল ডিসি। তারপর রাত দশটার ট্রেনে ঢাকায়।
আম্মু-আব্বুর কোলে। চিকিৎসা চলছে… কথা বলতে কষ্ট হয়। যদিও কাল অনেকের সাথে বলেছি। কিছুটা কৃতজ্ঞতায়
আর কিছুটা তখন মুখ অবশ থাকায় কষ্ট কম হয়েছে, অপারেশনের পর।
দোয়া চাই। হাসতে আজ কষ্ট হয়।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now