শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » তারাবী পড়াচ্ছেন-একই পরিবারে ৪ জন হাফেজে কুরআন

তারাবী পড়াচ্ছেন-একই পরিবারে ৪ জন হাফেজে কুরআন

4hffijyyyyyসিলেট রির্পোট ডেস্ক: পবিত্র মাহে রমজানের গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদত হচ্ছে সালাতুত তারাবি। হাফেজে কোরআনদের ইমামতিতে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা এ সালাত আদায় করে থাকেন।  ইসলামে হাফেজে কুরআনের মর্যাদার আসন অনন্য মর্যাদায়। তাই রমজানে কোরআনে হাফেজদের কদর বেড়ে যায়। আর একই পরিবারের যদি চার সহোদর হাফেজে কুরআন হন,সেটা পরিবারের অনন্য প্রাপ্তি। আজ যে চার হাফেজের কথা তুলে ধরা হচ্ছে, তারা হচ্ছেন সিলেটের প্রখ্যাত শায়খুল হাদিস প্রয়াত হযরত ইসমঈল শায়খে হাখরগ্রামী।
তিনি হরিপুর দারুল হাদিস মাদরাসায় দীর্ঘ দিন শায়খূল হাদিস হিসেবে ইলমে দ্বীনের খেদমতে নিয়োজিত ছিলেন। তারই বড় ছেলে মাওলানা আনোয়ারুল হকের চার তনয় এ বিরল সুনাম অর্জন করেছে। একই পরিবারের চার হাফেজে কুরআনের কথা তুলে ধরা হলো।

হাফিজ হাসসানুল হক: ২০০৯ সালে তিনি হিফজ শেষ করেন। জীবনের প্রথম তারাবি লামাশাম পুর জামে মসজিদে পড়ান। হরিপুর দারুল হাদিস মাদরাসায় অধ্যায়ন রত হাসসানুল হক এবারসহ ৭ বছর তারাবি পড়াচ্ছেন। এবার তিনি চিকনাগুল যাত্রাপুর জামে মসজিদে তারাবিহ পড়াচেছন।

তিনি বলেন- এ বয়সে তারাবি পড়িয়ে খুব আনন্দ অনুভূত হয়। এটা রমজানেরই বরকত এবং আল্লাহর কালামের মোজেজা ছাড়া আর কিছুই নয়।
নুমানুল হক: ২০১৪ তিনি হেফজ শেষ করেন। প্রথম তারাবি পড়ান নিজ এলাকার উতলার পার জামে মসজিদে। এ বছরসহ তিন বছর তারাবি পড়াচ্ছেন। এ বছর তিনি শহরতলীর পীরের বাজার এলাকার পলিয়া মাঝেরগাঁও জামে মসজিদে নামাজ পড়াচ্ছেন।

তিনি বলেন- আমার তারাবির প্রস্তুতি প্রস্তুতি অত্যন্ত  সুন্দর। তারাবিতে আমি বিনা লোকমায় (ভুল) পবিত্র কোরআন মুসল্লিদের শুনাতে চাই। কারণ তারাবিতে কোরআন পড়ার চেয়ে মজার কাজ আর দ্বিতীয়টি নেই। আমি সবার দোয়া কামনা করছি।

সুফিয়ান আহমদ: হাফেজ সুফিয়ান ও সহোদর নুমানুল হকের সাথে ২০১৪ সালে মারকাতুত তাহযিব থেকে হিফজ সম্পন্ন করেন। হেফজ শেষ করে প্রথম বছর নিজ এলাকার উতলাপাড় মসজিদে তারাবিহ’র নামাজ পড়ান। এ বছর ও তিনি  তারাবি পড়াচ্ছেন উতলাপাড় জামে মসজিদে। সুফিয়ান তারাবি নামাজ সুন্দর, সুললিত কণ্ঠে, ধীরে ধীরে পড়াতে চান। এজন্য তিনি রমজানের বহু আগে থেকেই পরিকল্পনা গ্রহণ করে সে অনুযায়ী নিয়মিত তেলাওয়াত করছেন।

সালমান আহমদ: ২০১৫ সালে হিফজ সম্পন্ন করেন। সালমান হাফেজ ক্বারি  মুশাহিদের কাছে হেফজ সমাপ্ত করেন। প্রথম তারাবি পড়ান জৈন্তাপুর উপজেলার শিকারখাঁ জামে মসজিদে। এবার তিনি নিজ এলাকার পার্শ্ববর্তী বাগেরখাল জামে মসজিদে নামাজ পড়াচ্ছেন। ১৭ বছর বয়সের ছোট্ট হাফেজ সালমানের তেলাওয়াত অত্যন্ত চমৎকার। শুনলে যে কারও অন্তর বিগলিত হবে।
তিনি বলেন- তারাবি পড়াতে খুবই ভালো লাগে। আমি মহান আল্লাহর দয়ায় খুব ভালো করে পড়াতে চাই।

——সুত্র-উত্তরপূর্ব

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now